বিভাগ: উত্তরণ ডেস্ক

জাপানের সঙ্গে ২৫০ কোটি ডলারের উন্নয়ন সহায়তা চুক্তি

উত্তরণ ডেস্ক: জাপানের সঙ্গে ২৫০ কোটি ডলারের উন্নয়ন সহায়তা চুক্তি করেছে বাংলাদেশ সরকার। এই অর্থ দিয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও সমুদ্রবন্দর উন্নয়নের মতো বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। গত ২৯ মে টোকিওতে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে এই চুক্তি করা হয়। বাংলাদেশে জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমি ও ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ চুক্তিতে সই করেন।
বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রধান চালিকাশক্তি বেসরকারি খাত উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি উদ্যোক্তা তৈরিতে এবং বেসরকারি বিনিয়োগে। এটা দেশি বা বিদেশি হতে পারে। সারাদেশে ১০০টি অর্থনৈতিক জোন প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। এর মধ্যে আড়াই হাজারে জাপানের জন্য একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্দিষ্ট করা আছে। সরকার টু সরকার এবং পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ মডেলে চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরীতে প্রচুর জায়গা নেওয়া হয়েছে। দুটি সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের কাজ চলছে এবং আরও ২৬টি হাইটেক পার্ক ও সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক নির্মাণাধীন রয়েছে।
বাংলাদেশের ৮০০ আইটি কোম্পানির মধ্যে দেড়শ’ কোম্পানি বিদেশি গ্রাহকদের বিশেষ আইটি সেবা দিচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাইক্রোসফট, ইনটেল, আইবিএম, ওরাকল, সিকসোসহ স্বনামধন্য কোম্পানিগুলোতে বাংলাদেশের ২০ হাজার আইটি বিশেষজ্ঞ কাজ করছে। জাপানি ব্যবসায়ীদের কাছে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পের বৈশ্বিক সুনাম, ওষুধ শিল্প ও জাহাজ নির্মাণ শিল্পের সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারে বাংলাদেশ সরকারের নীতির প্রশংসা করেন জাপানের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা। অন্যদের মধ্যে এ-সময় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ও জাপানের বিভিন্ন ব্যবসায়িক ও অর্থনৈতিক সংগঠনের নেতারা।
২৫০ কোটি ডলারের উন্নয়ন সহায়তা চুক্তি : এদিকে, প্রধানমন্ত্রী জাপান যাওয়ার আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন এমপি জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশে যোগাযোগ, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত এবং শিল্পায়নের জন্য জাপান ২৫০ কোটি ডলারের আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে। ৪০তম এই প্যাকেজ আগেরবারের চেয়ে ৩৫ শতাংশ বেশি। জাপানি এই অর্থে মাতারবাড়ি সমুদ্রবন্দর উন্নয়ন প্রকল্প, ঢাকা মাস র‌্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (লাইন-১), বিদেশি বিনিয়োগ সহায়ক প্রকল্প (২), জ্বালানি দক্ষতা ও সুরক্ষা সহায়ক প্রকল্প (পর্যায়-২) ও মাতারবাড়ি আল্ট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পে (৫) অর্থায়ন করা হবে। চুক্তির পর দুই নেতা যৌথ বিবৃতি দেন। চুক্তি স্বাক্ষরের আনুষ্ঠানিকতার আগে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসেন শেখ হাসিনা ও শিনজো আবে। বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের ‘পরীক্ষিত বন্ধু’ জাপানে চার দিনের সফরে ২৮ মে রাজধানী টোকিও এসেছেন শেখ হাসিনা।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*