বিভাগ: প্রতিবেদন

নিষ্পাপ জায়ানকে চোখের জলে বিদায়

PMউত্তরণ প্রতিবেদন: আট বছরের নিষ্পাপ যে শিশুর শ্রীলংকা ঘুরে এসে বিদেশ দেখার গল্প বলার কথা ছিল, সেই ছোট্ট জায়ান ফিরল কফিনে বন্দী হয়ে। শ্রীলংকায় সিরিজ বোমা হামলায় শত শত মানুষের মতো তার মৃত্যু দেশের মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে গেছে। তাই তো জায়ানের মরদেহ শাহজালাল বিমানবন্দরে আসার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে কান্নার রোল পড়ে যায়। কষ্ট আর বেদনার সেই মাতম ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। জায়ানের মৃত্যু শোকে পাথর হয়ে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। জায়ানকে নিয়ে নানি শেখ হাসিনারও রয়েছে নানা স্মৃতি। তাই তো বিমানবন্দরে নেমেই জায়ানের নানা শেখ সেলিমের গায়ে হাত বুলিয়ে নিজের কষ্ট আড়ালের চেষ্টা করছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ সেলিমের বাড়িতে গেলে এক বেদনাবিধূর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। গগনবিদারী আর্তনাদে ভারী হয়ে ওঠে সেখানকার আকাশ-বাতাস। গত ২১ এপ্রিল সকাল পৌনে ৯টার দিকে শ্রীলংকার ৩টি গির্জা, ৩টি বিলাসবহুল হোটেল ও দুটি স্থাপনায় ভয়াবহ আত্মঘাতী সিরিজ বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় নিহতদের মধ্যে ৩৮ বিদেশি। পরে হামলার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএস (ইসলামিক স্টেট)।
হামলায় শেখ সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত হয়। আহত হন জায়ানের বাবা মশিউল হক প্রিন্স। ছোট্ট জায়ান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুফাত ভাই শেখ ফজলুল করিম সেলিমের একমাত্র মেয়ে শেখ আমেনা সুলতানার (শেখ সোনিয়া) ছেলে। জায়ান বাবা-মা আর একমাত্র ভাই জোহান চৌধুরীর সঙ্গে শ্রীলংকায় ঘুরতে গিয়েছিল। ওরা উঠেছিল শ্রীলংকার রাজধানী কলম্বোর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে। যে ৩টি হোটেলে সিরিজ বোমা হামলা হয়, তার একটিতে ছিল জায়ানরা। ঘটনার সময় জায়ানের পিতা ছেলেকে নিয়ে হোটেলের নিচে নাস্তা করতে গিয়েছিলেন। বোমা হামলায় ঘটনাস্থলেই নিষ্পাপ জায়ানের দেহ নিথর হয়ে পড়ে। আর জায়ানের বাবার দুটি পা মারাত্মক আহত হয়। তিনি কলম্বোতে চিকিৎসাধীন।
২৪ এপ্রিল দুপুর পৌনে ১টার দিকে লংকান এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ছোট্ট জায়ানের মরদেহ কফিনে বন্দী হয়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আনা হয়। শেখ সেলিমসহ পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজনসহ উপস্থিত সবাই কান্নায় ভেঙে পড়ে। তাদের গগনবিদারী আর্তনাদে আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে যায়।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুপুর পৌনে ২টার দিকে অনেক স্মৃতির সাক্ষী সেই নিষ্পাপ আর দুরন্ত জায়ানকে দেখতে শেখ সেলিমের বাড়িতে যান। শেখ হাসিনা সেখানে যাওয়ার পর উপস্থিত মানুষের মধ্যে কান্নার রোল পড়ে যায়। শেখ হাসিনাও দুরন্ত জায়ানের পুরনো মুখ স্মৃতি মনে করে মনের অজান্তেই আবেগাপ্লুত হন। এক পর্যায়ে অঝোরে কাঁদতে থাকেন। শেখ সেলিমসহ পরিবারের সদস্যদের সান্ত¡না দিতে গিয়ে নিজেই কান্নায় ভেঙে পড়েন শেখ হাসিনা। মুখের ভাষা হারিয়ে যায়।
এদিকে ঘটনার পর থেকেই বনানীর বাড়িতে চলছে পবিত্র কোরআন খতম। বিশেষ দোয়াসহ নানা ধর্মীয় জায়ানের স্মৃতিবিজড়িত রীতিনীতি। বাড়ির কাছে বনানী চেয়ারম্যান বাড়ির মাঠেই জানাজা হয় জায়ানের। আসরের নামাজের পর জায়ানের মরদেহ দাফন করা হয় বনানী করবস্থানে।

অস্বাভাবিক কিছু পেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানান
প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা শ্রীলংকায় ভয়াবহ বোমা হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানানোর পাশাপাশি দেশবাসীকে সজাগ ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, দেশের কোথাও কোনো অস্বাভাবিক কিছু পায়, সঙ্গে সঙ্গে যেন দেশবাসী তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানায়। আমরা জঙ্গিবাদ কঠোর হস্তে দমন করেছি। আমরা চাই না পৃথিবীতে এ-ধরনের ঘটনা কোথাও ঘটুক। এসব ঘৃণ্য হামলার সঙ্গে যারা জড়িত, সেসব সন্ত্রাসী-জঙ্গিদের কোনো ধর্ম নেই, দেশকাল পাত্র নেই। জঙ্গি জঙ্গিই, সন্ত্রাসী সন্ত্রাসীই। দেশবাসীর কাছে আহ্বান, এই সন্ত্রাসী ঘৃণ্য কাজের সঙ্গে মানুষ যেন জড়িত না হয়।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ২৪ এপ্রিল জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারদলীয় সংসদ সদস্য শহীদুজ্জামান সরকারের সম্পূরক প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বোমা হামলায় নিহত শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপির নাতি জায়ানের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে আরও বলেন, ওই ঘৃণ্য হামলায় শুধু জায়ান চৌধুরীই নয়, ৪০ জনের কাছাকাছি শিশুসহ প্রায় সাড়ে ৩০০ মানুষ মারা গেছে। এ-ধরনের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও বোমা হামলার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। আমি এই হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের কারণে এ-ধরনের ঘটনা ঘটছে, এর মধ্যে হামলাকারীরা কি অর্জন করছে জানি না। এই ছোট নিষ্পাপ শিশু তো কোনো অপরাধ করেনি? তারা কেন এভাবে জীবন দেবে? কিছুদিন পূর্বেই নিউজিল্যান্ডের মসজিদে সরাসরি গুলিতে অনেক মানুষকে হত্যা করা হলো। সেখানেও নারী ছিল, শিশু ছিল। আমাদের ক্রিকেট টিমও ছিল। খুব অল্পের জন্য তারা বেঁচে গেছে। সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ মানুষের কোনো কল্যাণ আনতে পারেনি।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*