বিভাগ: শোক সংবাদ/স্মরণ

প্রয়াতজন : শোক ও শ্রদ্ধাঞ্জলি

3-4-2018 7-59-47 PMউত্তরণ প্রতিবেদনঃ ওবায়দুল কাদেরের মাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপির মা বেগম ফজিলাতুন্নেসা গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মৃত্যুবরণ করেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। তিনি চার পুত্র, ছয় কন্যাসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। ওবায়দুল কাদেরের মায়ের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। মৃত্যু সংবাদ শুনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিফোনে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে কথা বলে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
গত ২৭ ফেব্রুয়ারি বিকেল সোয়া ৩টায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের সরকারি মুজিব কলেজ মাঠে জানাজা শেষে তার লাশ বসুরহাট পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে পারিবারিক কবরস্থানে স্বামীর কবরের পাশে দাফন করা হয়েছে।
জানাজা শেষে মরহুমার কফিনে কেন্দ্রীয় ও জেলা আওয়ামী লীগ ছাড়াও সহযোগী সংগঠন এবং বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

বীর মুক্তিযোদ্ধা শরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু
রংপুর সিটি কর্পোরেশনের (রসিক) সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা শরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকেল সাড়ে ৩টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর।
সাবেক মেয়র ঝন্টু স্ত্রী, এক ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১২ সালে রংপুর পৌরসভা সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হওয়ার পর প্রথম মেয়র নির্বাচিত ঝন্টু।

রাঙ্গুনিয়ার সাবেক এমপি মোহাম্মদ ইউসুফ
জীবন সায়াহ্নে গুরুতর অসুস্থ থাকা চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার সেই নিঃস্ব সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং এক সময়ের তুখোড় বাম রাজনীতিক মোহাম্মদ ইউসুফ পরলোক গমন করেছেন। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা ২০ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। অকৃতদার এই ত্যাগী নেতা দুই ভাই, দুই বোন এবং অনেক আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মোহাম্মদ ইউসুফের মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি বিকেলে সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় অংশ নেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য এবং সংসদ সদস্যগণ। ১৯ ফেব্রুয়ারি বাদ জোহর রাঙ্গুনিয়া হাই স্কুল মাঠে দ্বিতীয় জানাজা শেষে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।
এই মুক্তিযোদ্ধার কর্মজীবন শুরু হয় ১৯৭৩ সালে কর্ণফুলী পাটকলে চাকরিতে যোগ দেওয়ার মধ্যে দিয়ে। ওই সময় থেকেই তিনি কমিউনিস্ট পার্টির রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। ১৯৭০ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত একটানা ২০ বছর শ্রমিক নেতা হিসেবে কাজ করে গেছেন জনকল্যাণে। এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর শুধুই কাজ করেছেন রাঙ্গুনিয়ার মানুষের কল্যাণে। নিজের আর্থিক ভিত্তি গড়ার চেষ্টা করেন নি। রাঙ্গুনিয়ার উন্নয়ন আর শ্রমজীবী মানুষের রাজনীতিতে নিবেদিতপ্রাণ ইউসুফের নিজের সংসারও করা হয়ে ওঠেনি। ২০০১ সালে পক্ষাঘাতে আক্রান্তের পর থেকে তিনি ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েন।

প্রবীণ আইনজীবী আদুর রব চৌধুরী
লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য সুপ্রিমকোর্টের প্রবীণ আইনজীবী সিএসপি আবদুর রব চৌধুরী (৮৪) গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সকাল ৯টায় ঢাকার গুলশানে নিজ বাসায় তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।
রব চৌধুরীর পারিবারিক সূত্র জানায়, ১৮ ফেব্রুয়ারি সকালে হঠাৎ বুকে ব্যথা অনুভব করেন তিনি। কিছুক্ষণ পরে বাসাতেই তার মৃত্যু হয়। রব চৌধুরী ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে বিএনপি থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন না পেয়ে বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেন। ওই সময় তিনি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্যের দায়িত্ব পালন করেন। বেলা ২টায় সুপ্রিমকোর্ট ভবন এবং বিকেল ৪টায় গুলশান এলাকায় জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*