বিভাগ: উত্তরণ ডেস্ক

ফরাসি ভাষায় বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী

11উত্তরণ ডেস্ক: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত আত্মজীবনী এবার প্রকাশিত হলো ফরাসি ভাষায়। বাংলাদেশের ৪৭তম স্বাধীনতা দিবস ও বাংলাদেশ-ফ্রান্স কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫তম বার্ষিকীতে প্যারিস থেকে ফরাসি ভাষায় প্রকাশিত এ বইটির মোড়ক উন্মোচন করেছেন ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শহিদুল ইসলাম। বাংলাদেশ থেকে বইটির ফরাসি সংস্করণ প্রকাশনার সকল কার্যক্রম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয় বলে জানা গেছে।
ফরাসি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান জিংকো এডিটর বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীর ফরাসি সংস্করণ প্রকাশ করেছে। বইটি বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস ২৬ মার্চ ফ্রান্সের সর্ববৃহৎ বইমেলা ‘সালোন লিভর প্যারিস’-এ পরিবেশিত হয়েছে। এই বইমেলা ২৪ থেকে ২৭ মার্চ পর্যন্ত চলে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রকাশকরা আশা প্রকাশ করছেনÑ বিশ্বের অন্যতম প্রধান ভাষা ফরাসিতে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী প্রকাশিত হওয়ার ফলে ফ্রান্সের পাঠকরা ছাড়াও ফ্রাঙ্কোফোনি বিশ্বের ফরাসি ভাষাভাষী বিশাল পাঠক সমাজ এই গ্রন্থের সাথে পরিচিত হতে পারবেন। তারা জানতে পারবেন বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী সম্পর্কে।
অসমাপ্ত আত্মজীবনীর ফরাসি সংস্করণের উপক্রমনিকায় ফ্রান্সের ভূতপূর্ব পররাষ্ট্রমন্ত্রী হুবার্ট ভেদ্রিন লিখেছেন, ‘ভাগ্য ফ্রান্স ও বাংলাদেশকে ইতিহাসের বিভিন্ন পর্যায়ে একে অপরের কাছাকাছি নিয়ে এসেছে, ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বিপক্ষে ফরাসিরা বাঙালির সাথে ছিল। একজন ফরাসি সেনা অফিসার গোলন্দাজ বাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন। যুদ্ধে পরাজয়ে বাংলা হারায় স্বাধীনতা। প্রায় ২১৪ বছর পর শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ও তারই হাত দিয়ে বাংলা তার স্বাধীনতা ফিরে পায়।’ ফ্রান্সের সাথে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫তম বার্ষিকীতে তার এই মূল্যায়ন বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। হুবার্ট ভেদ্রিন ১৯৮৯ সালে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া মিতেরার বাংলাদেশ সফরে তার সফরসঙ্গী ছিলেন।
অসমাপ্ত আত্মজীবনী ফ্রান্স সংস্করণের প্রকাশক মি. রেনালদ মন বইটির পাঠকপ্রিয়তা সম্পর্কে অত্যন্ত আশাবাদী। তার মতে, অসমাপ্ত আত্মজীবনীর সাহিত্যিক মান ও ঐতিহাসিক মূল্য বিবেচনায় বইটি ফ্রান্সের সাধারণ পাঠক সমাজ এবং ইতিহাসবিদ ও গবেষকদের কাছে সমাদৃত হবে। বইটির প্রচার বৃদ্ধিতে এটি প্যারিস বইমেলা ছাড়াও জুনের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য ‘এমেজিং ট্রাভেলার’ ও অক্টোবরে ‘দি মিটিং অব হিস্ট্রি’ নামক দুটি গুরুত্বপূর্ণ বইমেলায় পরিবেশন করা হবে।
উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু ১৯৬৭ থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত কারাগারে বন্দী অবস্থায় এই অমূল্য দলিল রচনা করেন। তার লিখিত এই স্মৃতি কথা ২০১২ সালের ১৮ জুন বাংলায় ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ইংরেজি অনুবাদে ‘আন ফিনিসড মেমোরিজ’ শিরোনামে প্রকাশিত হয়। বইটির প্রথম প্রকাশনার সার্বিক দায়িত্ব পালন, তত্ত্বাবধান ও কার্যক্রম পরিচালনা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছোট বোন শেখ রেহানা।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*