বিভাগ: শিক্ষা

মাধ্যমিকের সাড়ে ৪২ লাখ শিক্ষার্থী পাবে উপবৃত্তি

উত্তরণ ডেস্ক : মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৪২ লাখ ৪৪ হাজার দরিদ্র শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তির আওতায় আনল সরকার। ৫৩ জেলার ২১৭ উপজেলার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দরিদ্র ছাত্রছাত্রীরা এ সুবিধা পাবে।
গত ১৭ ফেব্রুয়ারি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের অর্থনৈতিক কমিটির (একনেক) সভায় এমন একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। রাজধানীর ১২টি এলাকায় গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপন প্রকল্পও অনুমোদন দেওয়া হয়। উপবৃত্তি দেওয়ার প্রকল্পটির নাম সেকেন্ডারি অ্যাডুকেশন স্টাইপেন্ড প্রজেক্ট দ্বিতীয় পর্যায় (এসইএসপি)। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে ৭৯১ কোটি টাকা ব্যয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর ২০১৪ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।
পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, এই উপবৃত্তি হিসেবে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা মাসে ১০০ টাকা, অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা ১২০ টাকা এবং নবম ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা পাবে ১৫০ টাকা। এ ছাড়া ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে মাসে ১৫ টাকা টিউশন ফি দেওয়া হবে। নবম ও দশম শ্রেণির ক্ষেত্রে তা ২০ টাকা। এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ফি বাবদ বার্ষিক এককালীন ৭৫০ টাকা দেওয়া হবে। প্রতি শ্রেণিতে মোট ছাত্রীর ৩০ শতাংশ এবং মোট ছাত্রের ১০ শতাংশ এ উপবৃত্তি পাবে। এ উপবৃত্তি পেতে শর্তগুলো হলো অভিভাবকের জমির পরিমাণ ৭ ডেসিমেলের কম এবং বার্ষিক আয় ৫০ হাজার টাকার কম হতে হবে। শিক্ষার্থীকে ক্লাসে কমপক্ষে ৭৫ শতাংশ উপস্থিত থাকতে হবে। ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে বার্ষিক পরীক্ষায় ন্যূনতম ৩৩ শতাংশ নম্বর পেতে হবে। অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্ষেত্রে তা ৪০ শতাংশ।
সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, মোবাইল ব্যাংকিং বা বিকাশ বা অন্য কোনো সহজ পদ্ধতিতে সরাসরি শিক্ষার্থীদের মাঝে এই উপবৃত্তির অর্থ দেওয়া হবে। যত দিন আমরা শতভাগ শিক্ষিত হতে না পারব, তত দিন পর্যন্ত প্রকল্পটি চলবে। প্রকল্পটি চলমান থাকলে মাধ্যমিক পর্যায়ে ঝরেপড়া শিক্ষার্থীর হার কমে যাবে।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*