বিভাগ: ক্রীড়া

রাশিয়া বিশ্বকাপে ইনজুরি টাইমের রোমাঞ্চ

aaসুদীপ্ত রিমু: কে হচ্ছে রাশিয়া বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন সেই নাম জানতে অপেক্ষার প্রহর শেষ হবে ১৫ জুলাই। ৩২ দলের শেষ হওয়া গ্রুপ পর্ব নিয়ে গল্প কম হয়নি। নিচু সারির দলের সঙ্গে বড় দলগুলোর আহামরি ‘ফারাক’ চোখে পড়েনি। তবে এবারের আলোচনায় ‘প্রযুক্তি’ অন্যতম একটি। তবে সবকিছু ছাপিয়ে এবারের বিশ্বকাপের মহারোমাঞ্চের নাম ‘ননজুরি’ টাইম। হয়তো চলমান আসরে ফাইনালেও যোগ করা সময় নায়ক হয়ে যেতে পারে।
দ্বিতীয় ম্যাচ। মুখোমুখি উরুগুয়ে-মিসর। ওই ম্যাচে উরুগুয়ে ৮৯ মিনিটে জয়সূচক গোল করে ইঙ্গিত দিয়েছিলÑ এ হবে রোমাঞ্চমুখর এক বিশ্বকাপ। দিন যত গড়িয়েছে, বিশ্ববাসী দেখেছে একের পর এক শেষ মুহূর্তেও ক্লাইমেক্স। গ্রুপ পর্ব শেষে বিশ্বকাপ এখন পৌঁছে গেছে শেষ ষোলোয়। গ্রুপ পর্বে হয়ে যাওয়া ৫৪টি ম্যাচের ১৩টিরই নিষ্পত্তি হয়েছে শেষ মুহূর্তের নাটকীয় সব গোলে। কখনও শেষ বাঁশি ছুঁইছুঁই; কখনও যোগ করা সময়ে ম্যাচের ভাগ্য গড়িয়েছে।
উরুগুয়ের জয়ের কয়েক ঘণ্টা বাদে ইরান হতাশ করেছিল মরক্কোকে যোগ করা সময়ে। স্পেন-পর্তুগালের পয়েন্ট ভাগাভাগির [৩-৩] ম্যাচটিও ছুঁয়েছিল অন্তিমলগ্নের রোমাঞ্চ। ৮৮ মিনিটে পর্তুগিজ তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ফ্রি-কিক থেকে লক্ষভেদ করে স্পেনের জয় কেড়ে নিয়ে বিনোদিত করেছে ফুটবলপ্রেমীদের। গ্রুপ পর্বে তিউনিশিয়ার বিপক্ষে হ্যারি কেন ইনজুরি সময়ে গোল করে ইংল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করেন। পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল তাদের দ্বিতীয় ম্যাচে কঠিন পরীক্ষায় পাস করেছে কোস্টারিকার বিপক্ষে যোগ করা সময়ে ২ গোল করে।
সার্বিয়ার বিপক্ষে জারদান শাকিরি অতিরিক্ত সময়ে গোল করে সুইজারল্যান্ডকে জেতান। শেষ বাঁশি বাজার কয়েক সেকেন্ড আগে সুইডেনের বিপক্ষে জার্মানির হয়ে টনি ক্রুসের ফ্রি-কিক করা লক্ষভেদ এই বিশ্বকাপের আলোচিত গোলের একটি। আবার গত ৮০ বছরে জার্মানির ভাগ্যে যা ঘটেছে, রাশিয়া সেই যোগ করা সময়েই। গতবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানির কফিনে শেষ পেরেক ঠুঁকে দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। তারা চ্যাম্পিয়নদের এই আসরের বিদায় ঘণ্টা বাজিয়েছে ইনজুরি সময়ে ২ গোল করে।
মিসরকে পুড়তে হয়েছে সৌদি আরবের বিপক্ষেও। শেষ মুহূর্তে গোল খেয়ে শেষ ষোলোর স্বপ্ন বিসর্জনের সঙ্গে হারেরও ষোলোকলা পূর্ণ হয়েছে আলোচিত তারকা মোহাম্মদ সালাহ’র মিসরের। ইরান তাদের শেষ ম্যাচে পর্তুগালের জয় আটকিয়ে দিয়েছে শেষ মুহূর্তে গোল করে। তবে হার এড়ালেও তাদের ‘রাজা’ বাঁচেনি; পূরণ হয়নি শেষ ষোলোর স্বপ্ন। একই গ্রুপের অন্য ম্যাচে মরক্কোর বিপক্ষে অতিরিক্ত সময়ে গোল ২-২ ড্র করে পরের পর্বের টিকিট পেয়েছে স্পেন।
দুবারের চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনাকেও মুখিয়ে থাকতে হয়েছে শেষ মুহূর্তের সৌভাগ্যের বরের ওপর। নাইজেরিয়ার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে জয়ের বিকল্প ছিল না মেসিবাহিনীর। ম্যাচ প্রায় শেষ ১-১ সমতায়। ঠিক তার ৪ মিনিট আগে মার্কোস রোহো দারুণ এক গোল; আকাশি-সাদাকে টিকিয়ে রাখে বিশ্বকাপে।
গ্রুপে আইসল্যান্ডকে শেষ মুহূর্তে হারিয়ে পুরো ৯ পয়েন্ট নিয়ে শেষ ষোলোয় নাম লিখিয়েছে ক্রোয়েশিয়া। সুইজারল্যান্ডের জন্য গ্রুপ পর্ব উতরানো সহজ ছিল না। কোস্টারিকার ইয়ান সোমারের যোগ করা সময়ের গোলে শেষ গ্রুপ ম্যাচটি শেষ হয় ২-২ গোলে। ভাগ্যিস অন্য ম্যাচে ব্রাজিল সার্বিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল। নয় তো সেই ড্র-এ কাল হয়ে যেতে পারত সুইজারল্যান্ডের বিশ্বকাপও।
গ্রুপ পর্বে অনেক ম্যাচেই নায়ক ছিল ‘ইনজুরি টাইম’। এবার শুরু হয়েছে দ্বিতীয়, তৃতীয় করে চূড়ান্ত পর্বের লড়াই। হয়তোÑ রাশিয়া বিশ্বকাপের বাকি পথের বাঁকে বাঁকে অপেক্ষা করছে নতুন কোনো রোমাঞ্চ।
রোমাঞ্চকর প্রথম পর্বের চড়াই-উতরাই শেষে ৩২ দলের মধ্যে বাড়ি ফিরেছে ১৬ দল। এই ১৬টি দল মুখোমুখি হবে শেষ ষোলোর মঞ্চে। সেখান থেকে আট, তারপর চার, এরপর দুই হয়ে একের লড়াই। এই তো বিশ্বকাপ! কল্পনার ঘুড়িটা আপাতত এই ‘এক’ পর্যন্ত না ওড়ানোই ভালো। কারণ, সবে তো গ্রুপ পর্ব শেষ। শুরু হয়েছে নকআউট পর্ব; হারলেই বিদায়। ৩০ জুন থেকে ৩ জুলাই পর্যন্ত শেষ ষোলোর মঞ্চে প্রতিদিন দুটি ম্যাচ। ৩০ জুন রাত ৮টায় ফ্রান্স-আর্জেন্টিনা; ১২টায় উরুগুয়ে-পর্তুগালের ম্যাচ দিয়ে নকআউটের সূচনা হয়। পরের ম্যাচগুলোতে সুইডেন-সুইজারল্যান্ড, কলম্বিয়া-ইংল্যান্ড, ব্রাজিল-মেক্সিকো, বেলজিয়াম-জাপান, ক্রোয়েশিয়ার-ডেনমার্ক এবং স্বাগতিক রাশিয়া-স্পেন মুখোমুখি হবে। ৬ জুলাই থেকে কোয়ার্টার ফাইনাল, ১০ ও ১১ জুলাই সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। ১৪ জুলাই মর্যাদার স্থান নির্ধারণী খেলা শেষে ১৫ জুলাই ফিফা খুঁজে নেবে রাশিয়া বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নদের।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*