বিভাগ: সাফল্য

শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় বিজয় দিবস উদযাপন

PM2আরিফ সোহেল: ১৬  ডিসেম্বর বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে সারাদেশে শ্রদ্ধা এবং ভালোবাসায় উদযাপিত হয় মহান বিজয় দিবস। সাড়ে চার দশকের পর এবার মহান বিজয় দিবসটি এসেছে ভিন্ন আবহে। বিজয়ের এই মাসে অনুষ্ঠিত হচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০১৮।
বিজয়ের ৪৭তম বর্ষে জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে বীর শহিদদের প্রথমে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এর পরপরই বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা শহিদদের স্মৃতির প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। এ-সময় বিউগলে বেজে ওঠে করুণ সুর। এক মিনিট নীরবতা পালন করে শহিদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়। দলের সভাপতি হিসেবেও নেতা-কর্মীদের নিয়ে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য, তিন বাহিনীর প্রধান, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিক, সরকারের পদস্থ সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা ও সরকার-দলীয় নেতারা এ-সময় উপস্থিত ছিলেন। সব ছাপিয়ে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে নেমেছে শহিদদের প্রতি চিরকৃতজ্ঞ জনতার ঢল। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সর্বস্তরের মানুষ নিয়ে রাজধানীসহ সারাদেশের জেলা-উপজেলা পর্যায়ে বিজয়মঞ্চ স্থাপন করা হয়। যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটিতে রাষ্ট্রীয়ভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।
বাঙালি জাতির সবচেয়ে বড় অর্জনের দিন মহান বিজয় দিবস। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর রক্তস্নাত ৯ মাসের যুদ্ধ শেষে জন্ম নেয় স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে মরণপণ লড়াই করে বীর বাঙালি ছিনিয়ে এনেছিল লাল-সবুজের পতাকা।
PMমহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এক বাণীতে বলেন, লাখো শহিদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে দলমত নির্বিশেষে সম্মিলিত প্রচেষ্টার বিকল্প নেই। অনুরূপ বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আসুন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের এই উন্নয়ন ও গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষা করি। দেশ ও জাতির কল্যাণে আত্মনিয়োগ করি। ২০১৮ সালের বিজয় দিবসে এটাই হোক আমাদের অঙ্গীকার। প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করে। বিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় আলোকসজ্জার সুশোভিত করা হয়।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*