বিভাগ: প্রতিবেদন

১৯ জনের মৃত্যুদ- : ১৯ জনের যাবজ্জীবন

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়

PMআনিস আহামেদ: ১৪ বছর পর ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় হলেও নিহত স্বজনদের চোখের পানি মুছেনি। কান্নায় ক্ষোভে ফুঁসেছেন তারা। মামলার রায় পেয়েও তারা পাননি স্বজন হারানোর সান্ত¦না। আহতরা পাননি শরীরে বয়ে বেড়ানো গ্রেনেডের স্পিøন্টারের যন্ত্রণা ভোলার সান্ত¦না; বরং বাড়িয়ে দিয়েছে তাদের যন্ত্রণা। তারা পায়নি তাদের কাক্সিক্ষত রায়। মৃত্যুদ- হয়নি এ হামলার মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমানের। বহুল আলোচিত বর্বরোচিত ভয়াবহ একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদ-ের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীসহ ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদ-ের আদেশ দেওয়া হয়েছে। অবশিষ্ট ১১ আসামির বিরুদ্ধে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদ- হয়েছে। গত ১০ অক্টোবর ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন বেলা ১২টায় পিনপতন নীরবতার মধ্যে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে করা আলোচিত দুই মামলার রায় ঘোষণা করেন। কারাদ-ের আসামিদের হাজতবাসকালীন সময় সাজা থেকে বাদ যাবে। এবং ৩০ দিনের মধ্যে এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা যাবে। ফাঁসির দ-ের মধ্যে গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক দুই প্রধানও রয়েছেন। এছাড়া সাবেক তিন আইজিপিসহ আট পুলিশ কর্মকর্তাকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে।
রায় ঘোষণার পর আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, গ্রেনেড হামলা মামলার ঘটনার মূল হোতা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানেরও সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ- হওয়া উচিত ছিল। কারণ তিনি ষড়যন্ত্রের মূল হোতা। রায়ের কাগজপত্র পাওয়ার পর আমরা চিন্তা-ভাবনা করব। আপিল করব কি না? রায়ে রাষ্ট্রপক্ষের চিফ প্রসিকিউটর সৈয়দ রেজাউর রহমান বলেন, এ রায়ের মধ্য দিয়ে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। এ রায় পর্যালোচনা করে পরে প্রতিক্রিয়া জানানো হবে। আমরা রায় ও আদেশ পর্যালোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব। প্রসিকিউশন টিম আছে সেখানে পর্যালোচনা করে আসামিদের সাজা বাড়াতে আপিল করব কি না, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
বিএনপি-জামাতের জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের এক সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটে। ওই নৃশংস হামলায় ২৪ জন নিহত ও নেতাকর্মী-আইনজীবী-সাংবাদিকসহ পাঁচ শতাধিক লোক আহত হন। নিহতদের মধ্যে ছিলেন তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের পতœী আইভি রহমান। তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অন্যান্য নেতা এই গ্রেনেড হামলা থেকে বেঁচে যান। দীর্ঘ ১৪ বছর ২ মাস ১৯ দিনের মাথায় গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণা করা হলো।

’৭৫-এর ধারাবাহিকতায় রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস : গ্রেনেড হামলা মামলার বিচারক রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেছেন, ২১ আগস্টের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার যে ষড়যন্ত্র, তার মূল পরিকল্পনা হয়েছিল হাওয়া ভবনে। ইনডেমনিটি বিলের মাধ্যমে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র দেশে শুরু হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যার দীর্ঘ ২৩ বছর ২ মাস পর জাতি, জাতির পিতা হত্যার দায় থেকে কলঙ্কমুক্ত হয় বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ জাতির পিতাকে হত্যা করার পর চার জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। কিন্তু ষড়যন্ত্র থেমে না গিয়ে বহমান থাকে। পরবর্তীতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শনিবার আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করার হীন প্রচেষ্টা চালানো হয়। শেখ হাসিনাকে ‘হালকা নাশ্তা’ করানো হবে : এই উদ্ধৃতি দিয়ে দেশীয় জঙ্গি সংগঠনের কতিপয় সদস্য আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের সহায়তায় হামলা করে। তৎকালীন রাষ্ট্রযন্ত্রীয় সহায়তায় প্রকাশ্য দিবালোকে ঘটনাস্থল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের সম্মুখেযুদ্ধে ব্যবহৃত স্পেশালাইজড মারণাস্ত্র, আর্জেস গ্রেনেড বিস্ফোরণের মাধ্যমে ঘটনা ঘটানো হয়। প্রশ্ন ওঠে কেন এই মারণাস্ত্রের ব্যবহার? রাজনীতি মানেই কি বিরোধী দলের ওপর পৈশাচিক আক্রমণ? শুধু আক্রমণই নয় দলকে নেতৃত্বশূন্য করার ঘৃণ্য অপচেষ্টা। রাজনীতিতে অবশ্যম্ভাবীভাবে ক্ষমতাসীন দল ও বিরোধী দলের মধ্যে শত বিরোধ থাকবে। তাই বলে বিরোধী দলকে নেতৃত্বশূন্য করার প্রয়াস চালানো হবে। এটা কাম্য নয়। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের ক্ষমতায় যে দলই থাকবে, বিরোধী দলের প্রতি তাদের উদার নীতি প্রয়োগের মাধ্যমে গণতন্ত্র সুপ্রতিষ্ঠিত করার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা থাকতে হবে। বিরোধীদলীয় নেতাদের হত্যা করে ক্ষমতাসীনদের রাজনৈতিক ফায়দা অর্জন করা মোটে গণতান্ত্রিক চিন্তার বহিঃপ্রকাশ নয়।
গত ১৮ সেপ্টেম্বর উভয়পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হলে রায় ঘোষণার জন্য গত ১০ অক্টোবর তারিখ ধার্য করে দেন আদালত। সে অনুযায়ী ১০ অক্টোবর জনাকীর্ণ রায় ঘোষণা করেন আদালত। কার্যক্রম শুরুর আগেই কারাগারে থাকা ৩১ আসামিকে এজলাসে হাজির করা হয়। ১৮ আসামি পলাতক।
যাদের মৃত্যুদ- দেওয়া হয়েছে : আদালত ১৯ আসামিকে মৃত্যুদ- দিয়েছেন। তারা হলেনÑ সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর (উপস্থিত), বিএনপি-জামাত জোটের সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু (উপস্থিত), তার ভাই মাওলানা তাইজউদ্দীন (পলাতক), হুজির সাবেক আমির মাওলানা শেখ আবদুস সালাম (উপস্থিত), কাশ্মীরী জঙ্গি আবদুল মাজেদ ভাট (উপস্থিত), আবদুল মালেক ওরফে গোলাম মোহাম্মদ ওরফে জিএম (উপস্থিত), মাওলানা শওকত ওসমান (উপস্থিত), মহিবুল্লাহ ওরফে অভি (উপস্থিত), মাওলানা আবু সাঈদ ওরফে ডা. জাফর (উপস্থিত), আবুল কালাম আজাদ ওরফে বুলবুল (উপস্থিত), জাহাঙ্গীর আলম (উপস্থিত), হাফেজ মাওলানা আবু তাহের (উপস্থিত), হোসাইন আহম্মেদ তামিম (্উপস্থিত), মঈন উদ্দিন শেখ ওরফে মুফতি মঈন ওরফে আবু জান্দাল (উপস্থিত), মো. রফিকুল ইসলাম ওরফে সবুজ ওরফে খালিদ সাইফুল্লাহ ওরফে শামিম ওরফে রাশেদ (উপস্থিত), মো. উজ্জ্বল (উপস্থিত), এনএসআইয়ের সাবেক মহাপরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী (উপস্থিত), ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আবদুর রহিম (উপস্থিত) ও হানিফ পরিবহনের মালিক হানিফ (উপস্থিত)। এই আসামিদের দ-বিধি ৩০২, ১২০ খ, ৩৪ ধারায় হত্যার দায়ে মৃত্যুদ-ের পাশাপাশি ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। দ-বিধির ৩০৭ ধারায় অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে গুরুতর জখম করার দায়ে যাবজ্জীবন কারাদ- ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদ- দেওয়া হয়েছে। বিস্ফোরক আইনের ৩ ও ৬ ধারায় হত্যার দায়ে মৃত্যুদ-ের পাশাপাশি ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বিস্ফোরক আইনের ৪ ও ৬ ধারায় অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে গুরুতর জখম করার দায়ে ২০ বছরের কারাদ- ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদ- দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে এই ১৯ আসামির ক্ষেত্রে কেবল মৃত্যুদ-ের শাস্তিই কার্যকর হবে। মৃত্যু পর্যন্ত ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তাদের দ- কার্যকর করতে বলা হয়েছে রায়ে।

যাদের যাবজ্জীবন কারাদ- হয়েছে : এ মামলায় ১৯ জনকে যাবজ্জীবন সাজা দেওয়া হয়েছে। যাদের যাবজ্জীবন কারাদ- দেওয়া হয়েছে তারা হলেনÑ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান (পলাতক), খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক উপদেষ্টা হারিছ চৌধুরী (পলাতক), বিএনপি নেতা ও সাবেক এমপি কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ (পলাতক), হুজি সদস্য হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, শাহাদাৎ উল্লাহ ওরফে জুয়েল (উপস্থিত), মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে আবু হোমাইরা ওরফে পীর সাহেব (উপস্থিত), মাওলানা সাব্বির আহমেদ আহম্মেদ ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির (উপস্থিত), আরিফ হাসান ওরফে সুমন ওরফে আবদুর রাজ্জাক (উপস্থিত), আবুবকর ওরফে হাফেজ সেলিম মাওলাদার (উপস্থিত), আরিফুল ইসলাম আরিফ (উপস্থিত), হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া (উপস্থিত) মহিবুল মুত্তাকিন ওরফে মুত্তাকিন (পলাতক), আনিসুল মুরছালিন ওরফে মুরছালিন (পলাতক), মো. খলিল (পলাতক), জাহাঙ্গীর আলম বদর (পলাতক), মো. ইকবাল, লিটন ওরফে মাওলানা লিটন (পলাতক), মুফতি শফিকুর রহমান, মুফতি আবদুল হাই (পলাতক), রাতুল আহমেদ ওরফে রাতুল বাবু (পলাতক)। তাদের দ-বিধি ৩০২, ১২০ খ, ৩৪ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদ-, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদ- দেওয়া হয়েছে। দ-বিধি ৩০৭, ১২০ খ, ৩৪ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদ-, ৫০ হাজার টাকা জনিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদ- দেওয়া হয়েছে। বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের ৩ ও ৬ ধারায় যাবজ্জীবন, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদ- দেওয়া হয়েছে।
বিস্ফোরক আইনের ৪ ও ৬ ধারায় ২০ বছরের কারাদ- ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদ- দেওয়া হয়েছে। সব সাজা একযোগে কার্যকর হবে বলে এই ১৯ আসামির ক্ষেত্রে কেবল যাবজ্জীবন কারাদ- কার্যকর হবে।

১১ জনকে ভিন্ন মেয়াদে কারাদ- : এছাড়া পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) আশরাফুল হুদা (উপস্থিত) ও শহুদুল হক (উপস্থিত), খালেদা জিয়ার ভাগ্নে লেফটেন্যান্ট কমান্ডার (অব.) সাইফুল ইসলাম ডিউক (উপস্থিত), লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) সাইফুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার (পলাতক), মেজর জেনারেল (অব.) এটিএম আমিন (পলাতক), ডিএমপির সাবেক উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) খান সাঈদ হাসান (পলাতক), আরেক সাবেক উপ-কমিশনার (পূর্ব) ওবায়দুর রহমান খান (পলাতক), সাবেক আইজিপি খোদাবক্স চৌধুরী (উপস্থিত), সিআইডির সাবেক বিশেষ সুপার রুহুল আমিন (উপস্থিত), সাবেক এএসপি আবদুর রশিদ (উপস্থিত), সাবেক এএসপি মুন্সি আতিকুর রহমান (উপস্থিত) দুই বছর করে কারাদ- ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে সশ্রম কারাদ- দেওয়া হয়েছে। আরেক ধারায় খোদা বক্স চৌধুরী, রুহুল আমিন, আবদুর রশিদ ও মুন্সি আতিকুর রহমানকে তিন বছর করে কারাদ- ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে কারাদ- দিয়েছেন আদালত। চৌদ্দ বিবেচ্য বিষয় নির্ধারণ করে তা পর্যালোচনা, সাক্ষ্য-তথ্য প্রমাণের আলোকে এ মামলার রায় ও আদেশ দেওয়া হয়েছে বলে আদালতের রায়ে বলা হয়।

১৪ বিবেচ্য বিষয় : ১৪ বিবেচ্য বিষয় নির্ধারণ করে তা পর্যালোচনা, সাক্ষ্য-তথ্য প্রমাণের আলোকে এ মামলার রায় ও আদেশ দেওয়া হয়েছে বলে আদালতের রায়ে বলা হয়। এ বিবেচ্য বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে : ১) অভিন্ন অভিপ্রায়ে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রমূলক সভা করে পূর্বপরিকল্পিতভাবে আসামি আহসান উল্লাহ কাজলের ভাড়া করা ফ্লাটে বাড়ি নং ম-৩০ পশ্চিম মেরুল বাড্ডায় মৃত জয়নাল আবেদিনের তিনতলা বাড়ির গ্যারেজ সংলগ্ন পূর্ব পার্শে¦র তিন কক্ষবিশিষ্ট ফ্ল্যাটে থেকে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঘটনাস্থল ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে হামলার জন্য আসামিরা একত্রিত হয়ে পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি গ্রহণ করে কি না ও গ্রেনেড নিক্ষেপকারীরা এই ঘটনাস্থল থেকে গ্রেনেড সংগ্রহ করে কি না; ২) অবসরপ্রাপ্ত খাদ্য পরিদর্শক রুহুল আমিনের বাড়ি হোল্ডিং নম্বর ২/৫ আনন্দনগর বাড্ডা, আসামি মুফতি আবদুল হান্নান মুন্সি উক্ত বািড় ভাড়া নিয়ে অভিন্ন অভিপ্রায়ে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র করে জঙ্গি কর্মে নিযুক্ত ছিল কি না; ৩) মেরুল বাড্ডার রাউজক প্লট নং-৫৩ লে. কর্নেল গোলাম রাব্বানী (অব.)-এর চারতলা বাড়ির তৃতীয় তলার উত্তর অংশের ফ্ল্যাট আসামিগণ ভাড়া নিয়ে গ্রেনেড সংরক্ষণ করত কি না। এবং বিভিন্ন গ্রেনেড হামলায় উক্ত বাড়ি থেকে গ্রেনেড সরবরাহ হয়েছে কি না; ৪) রোড নং-৫/এ, বাড়ি নং-৬১, ধানমন্ডির আবাসিক এলাকার, বাড়িটি বিএনপি-জামাত চারদলীয় জোট সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর দ্বিতল সরকারি বাসভবন, উক্ত বাসভবনে ১৮.০৮.০৪ইং তারিখে আবদুস সালাম পিন্টু, লুৎফুজ্জামান বাবর, আসামি মুফতি হান্নান মুন্সি, আসামি আহসান উল্লা কাজল, মাওলানা আবু তাহের, মাওলানা তাইজ উদ্দিনগণ ২১.০৮.০৪ইং তারিখে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলার মাধ্যমে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে গ্রেনেড নিক্ষেপ করে হত্যার ষড়যন্ত্র করে কি না। ১৮.০৮.০৪ তারিখে পরিকল্পনা গ্রহণ করে গ্রেনেড প্রাপ্তি, অর্থবল, প্রশাসনিক সহায়তা বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণপূর্বক ২০.০৮.০৪ তারিখে আসামি আহসান উল্লাহ কাজল ও মুফতি মঈন ওরফে আবু জান্দাল তৎকালীন উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ধানমন্ডির বাসা থেকে আসামি মাওলানা তাইজ উদ্দিনের সরবরাহকৃত ১৫টি আর্জেস গ্রেনেড এবং নগদ ২০ হাজার টাকা সংগ্রহ করেন কি না; ৫) প্লট নং-৩, সেকশন-১, ব্লক-সি, মিরপুর মসজিদ-ই-আকবর আসামি আবু তাহের শিক্ষকতা করতেন কি না। ১৯.০৮.০৪ তারিখে আসামি আহসান উল্লা কাজল, মাওলানা আবু তাহের, আবদুস সালাম পিন্টু, মুফতি মঈন পরিকল্পনা ও অপরাধ সংঘটনের জন্য প্রয়োজনীয় শলাপরামর্শ ও ষড়যন্ত্র করেন কি না; ৬) ৩/১১ আলী অ্যান্ড নুর রিয়াল এস্টেট সাত মসজিদ রোড মোহাম্মদপুর বাড়ির নিচতলায় হরকত-উল-জিহাদ আল ইসলামী সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালিত হতো কি না; ৭) গুলশান থানাধীন লালাসরাই মৌজাস্থিত রোড নং-১৩, ব্লক নং-ডি, বাড়ি নং-৫৩, বনানী মডেল টাউনস্থ জনৈক আশেক আহম্মেদ পিতা আবদুল খালেকের বাসা, যে বাসাটি হাওয়া ভবন নামে পরিচিত, উক্ত হাওয়া ভবন বিএনপি-জামাত ঐক্য জোট সরকারের কার্যক্রমের কেন্দ্রবিন্দু ছিল কি না। উক্ত ঘটনাস্থলে পলাতক তারেক রহমান অপরাধ সংঘটনের জন্য ষড়যন্ত্রমূলক সভা করে কি না। ও জঙ্গি নেতারা তারেক রহমানের সঙ্গে বিভিন্ন সময় মিটিং করে কি না; ৮) মোহাম্মদপুর থানাধীন আলী অ্যান্ড নুর রিয়েল এস্টেট এলাকাধীন সাত গম্বুজ মসজিদে ঘটনার পূর্বে আসামি মুফতি আবদুল হান্নান মুন্সি, মাওলানা আবদুস সালাম, মাওলানা তাইজ উদ্দিন, মাওলানা আবদুর রউফ, আবদুল মাজেট ভাট, অভিন্ন অভিপ্রায়ে ও ষড়যন্ত্রমূলক সভা করে তৎকালীন বিরোধীদলীয় ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ নেতাদের হত্যার পরিকল্পনা করে কি না; ৯) মোহাম্মদপুর সুপার মার্কেটের কাছে জেহাদ আল ইসলামীর অফিসে ও খিলগাঁও থানা এলাকায় হরকত-উল-জিহাদ আল ইসলামী বাংলাদেশের প্রধান কার্যালয়ে বিভিন্ন সময় আসামিগণ অভিন্ন অভিপ্রায়ে অপরাধ অপরাধমূলক সভা ও ষড়যন্ত্র করে কি না; ১০) অভিন্ন অভিপ্রায়ে ও পূর্ব পরিকল্পনার আলোকে পরস্পর যোগসাজশে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ঘটনায় জাড়িত আসামিদের গ্রেনেড আক্রমণ পরিচালনার সুবিধার্থে ও অপরাধীদের রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করার অপরাধ সংঘটিত হয়েছে কি না; ১১) অভিন্ন অভিপ্রায়ে ও পূর্ব পরিকল্পনার আলোকে প্রশাসনিক সহায়তা প্রদান করে মামলার ঘটনার ব্যবহৃত অবিস্ফোরিত সংরক্ষণযোগ্য তাজা গ্রেনেড আলামত হিসেবে জব্দ করার পর ও তা সংরক্ষণের ব্যবস্থা না করে এবং আদালতের অনুমতি গ্রহণ না করে অপরাধীদের বাঁচানোর উদ্দেশ্যে সেনাবাহিনী কর্তৃক ধ্বংস করার ও আলামত নষ্ট করার অপরাধ সংঘটিত হয়েছে কি না; ১২) অভিন্ন অভিপ্রায়ে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র সংক্রান্ত সভা ও পূর্ব পরিকল্পনার আলোকে পরস্পর যোগসাজশে উদ্দেশ্যমূলকভাবে আসামিদের সহায়তা করার লক্ষ্যে আসামিদের নির্বিঘেœ ঘটনাস্থল ত্যাগ করতে ও পরবর্তীতে আসামিদের অপরাধের দায় থেকে বাঁচানোর সুযোগ করে দেওয়ার অপরাধ সংঘটিত হয়েছে কি না; ১৩) প্রকৃত আসামিগণের বিরুদ্ধে কোনো প্রকার আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ না করে বরং তাদের রক্ষা করার জন্য প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে অন্য লোকের ওপর দায় বা দোষ চাপিয়ে প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার লক্ষ্যে মিথ্যা ও বানোয়াট স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করার অপরাধ সংঘটিত হয়েছে কি না; ১৪) উল্লেখিত ঘটনাস্থলসমূহে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র ও পূর্ব পরিকল্পনা করে পরবর্তীতে মূল ঘটনাস্থল আওয়ামী লীগ কার্যালয় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের সম্মুখে ঘটনার তারিখ ও সময় আর্জেস গ্রেনেড হামলার প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের নেতৃস্থানীয় নেতাকর্মীসহ                ২৪ জনকে হত্যা এবং তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও                  বর্তমান প্রধানমন্ত্রীসহ অসংখ্য নেতাকর্মীকে গুরুতর আহত               করার অপরাধে আসামিগণকে দ-বিধির ১২০বি/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৩০২/১০৯/২০১/২১২/২১৭/২১৮/২৩০ ও ৩৪ ধারায় শাস্তি প্রদান করা যায় কি না।

আদালতের পর্যবেক্ষণ : রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, ২১ আগস্টের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার যে ষড়যন্ত্র, তার মূল পরিকল্পনা হয়েছিল হাওয়া ভবনে। ইনডেমনিটি বিলের মাধ্যমে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র দেশে শুরু হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যার দীর্ঘ ২৩ বছর ২ মাস পর জাতি, জাতির পিতা হত্যার দায় থেকে কলঙ্কমুক্ত হয় বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ জাতির পিতাকে হত্যা করার পর চার জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। কিন্তু ষড়যন্ত্র থেমে না গিয়ে বহমান থাকে। পরবর্তীতে ২০০৩ সালের ২১ আগস্ট শনিবার আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করার হীন প্রচেষ্টা চালানো হয়। শেখ হাসিনাকে হালকা নাশতা করানো হবে : এই উদ্ধৃতি দিয়ে দেশীয় জঙ্গি সংগঠনের কতিপয় সদস্য আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের সহায়তায় হামলা করে। তৎকালীন রাষ্ট্রযন্ত্রীয় সহায়তায় প্রকাশ্য দিবালোকে ঘটনাস্থল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের সম্মুখে যুদ্ধে ব্যবহৃত স্পেশালাইজড মারণাস্ত্র, আর্জেস গ্রেনেড বিস্ফোরণের মাধ্যমে ঘটনা ঘটানো হয়। প্রশ্ন ওঠে কেন এই মারণাস্ত্রের ব্যবহার? রাজনীতি মানেই কি বিরোধী দলের ওপর পৈশাচিক আক্রমণ? শুধু আক্রমণই নয় দলকে নেতৃত্বশূন্য করার ঘৃণ্য অপচেষ্টা। রাজনীতিতে অবশ্যম্ভাবীভাবে ক্ষমতাসীন দল ও বিরোধী দলের মধ্যে শত বিরোধ থাকবে। তাই বলে বিরোধী দলকে নেতৃত্বশূন্য করার প্রয়াস চালানো হবে। এটা কাম্য নয়। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের ক্ষমতায় যে দলই থাকবে, বিরোধী দলের প্রতি তাদের উদার নীতি প্রয়োগের মাধ্যমে গণতন্ত্র সুপ্রতিষ্ঠিত করার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা থাকতে হবে। বিরোধীদলীয় নেতৃবৃন্দকে হত্যা করে ক্ষমতাসীদের রাজনৈতিক ফায়দা অর্জন করা মোটেই গণতান্ত্রিক চিন্তার বহিঃপ্রকাশ নয়। সাধারণ জনগণ রাজনীতি চায় না। সাধারণ জনগণ চায় যে কোনো রাজনৈতিক দলের সভা, সমাবেশে যোগ দিয়ে সেই দলের নীতি, আদর্শ ও পরিকল্পনা সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান ধারণ করা। আর সেই সভা সমাবেশে আর্জেস গ্রেনেড বিস্ফোরণ করে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ জনগণকে হত্যার এ ধারা চালু থাকলে পরবর্তীতে দেশের সাধারণ জনগণ রাজনীতিবিমুখ হয়ে পড়বে। অত্রাদালত চায় না সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.)-এর দরগা শরিফের ঘটনার সাবেক অর্থমন্ত্রী এসএম কিবরিয়ার ওপর নৃশংস হামলার, রমনা বটমূলে সংঘটিত বোমা হামলার এবং অত্র মোকদ্দমার ঘটনার তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর নৃশংস বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলার পুনরাবৃত্তি।
অত্রাদালত সাক্ষীর কাঠগড়ায় গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত মাকে দুর্বিষহ কষ্ট পেয়ে মৃত্যুবরণ প্রত্যক্ষ করা পিডাব্লিউ ১৯৭ নাজমুল হাসান পাপনের ও তৎ স্ত্রী পিডাব্লিউ ১৯৮ রোকসানা হাসানের কষ্ট প্রত্যক্ষ করেছেন, আরও প্রত্যক্ষ করেছেন পিডাব্লিউ ১৭৫ মোসাম্মাৎ উম্মে কুলসুম রেনুকা, নুজহাত এ্যানী, রাশেদা আক্তার রুমা, নীলা চৌধুরী ঘটনার সময় ঘটনাস্থল থেকে যারা গ্রেনেড হামলার মারাত্মকভাবে জখম হয়ে দেশে-বিদেশে চিকিৎসার পরও এখনও দুর্বিষহ জীবনযাপন করছেন তাদের চোখে ঘুম নেই গ্রীষ্ম বা শীত সব সময়ই শরীরের বিভিন্ন অংশে স্পিøন্টারের তীব্র যন্ত্রণার কুঁকড়ে যাচ্ছেন। যাদের পরিবারের সুস্থ সদস্যগণ প্রাণহীনভাবে বেঁচে রয়েছেন তাদের আদালত গভীরভাবে পর্যালোচনা করেছেন। পিডাব্লিউ অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি, কাজী জাফরুল্লাহ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম এমপির আদালতে সাক্ষ্য, ঘটনার তারিখে সময়ে ঘটনাস্থলেই যে মারাত্মক ও ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল সে মর্মে বক্তব্য। আদালত গভীরভাবে পিডাব্লিউ ১২৭ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, নাক কান, গলা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে যিনি তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রীর কানের চিকিৎসা করেন। তার জবানবন্দি পর্যালোচনা করা হয়। ঘটনার সময় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ফলে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রীর ডান কানে গুরুতর জখম হয়। আসামিগণকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের মাধ্যমে উল্লেখিত নৃশংস ও ন্যক্কারজনক ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধ সম্ভব বলে আদালত মনে করেন।
সার্বিক পর্যালোচনায় দেখা যায়, মূল ঘটনার পূর্বে বিভিন্ন ঘটনাস্থলে অত্র মোকদ্দমার আসামিগণ অভিন্ন অভিপ্রায়ে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র সভা করে পরিকল্পিতভাবে অত্র মোকদ্দমার ঘটনাস্থল ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউর সামনে ঘটনার তারিখ ও সময় মারাত্মক সমরাস্ত্র আর্জেস গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ ২৪ জনকে হত্যা করে ও শতাধিক নেতাকর্মীকে মারাত্মকভাবে জখম করে মর্মে আসামিগণের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রসিকিউশন পক্ষ প্রমাণে সক্ষম হয়েছে। সে প্রেক্ষিতে আসামিগণকে শাস্তি প্রদান করা যুক্তিসংগত বলে অত্রাদালত মনে করেন।

পাঠকের মন্তব্য:

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না। তারকাচিহ্নযুক্ত (*) ঘরগুলো আবশ্যক।

*