একাত্তরে আমার ক’দিন

Posted on by 0 comment
4-9-2019 6-45-18 PM

4-9-2019 6-45-18 PMবিষ্ণু বিশ্বাস: আমি তখন ক্লাস ফোরে উঠেছি। ১৯৭১। মার্চ মাস। একদিন সকালবেলা রান্নাঘর থেকে খেয়ে উঠোনে এসেছি। রেডিওতে কে যেন কথা বলছে! কণ্ঠের সে কি আওয়াজ, আমার গায়ের রোম শিউরে উঠেছে, আমি পা ফেলে আর নড়তে পারি না। কথা বলা শেষ হলে দাদু বললো, শেখ মুজিবের ৭ই মার্চের ভাষণ, রেডিও তার রেকর্ড বাজিয়েছে। শেখ মুজিবের ৭ই মার্চের ভাষণের পর থেকে খানসেনাদের সাথে বাঙালির যুদ্ধ হবে বলাবলি ছেয়ে যেতে থাকে। ঝিনেদার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বিষয়খালী আসতে থাকেন এ-বেলা ও-বেলা। বিষয়খালী বাজারের পাশে আমাদের বাড়ি খড়িখালীতে। নদী আছে একটি তার এপারে। ওপারে ইপিআর-রা বাংকার খুঁড়তে শুরু করেছে। ব্রিজের এপারের মুখে স্থানীয়রা খাদ কাটছে। ব্রিজের মুখের পাশে হাজার বছর বয়সের কড়–ই গাছÑ তার একটা বিশাল ডাল কেটে খাদের ঠিক সামনে রাস্তার উপরে আড়াআড়ি করে রাখা হয়েছেÑ খানসেনারা যাতে কোনোভাবেই ব্রিজ পেরিয়ে ঝিনেদা, কুষ্টিয়া, উত্তরবঙ্গ এবং ঢাকায় যেতে না পারে। স্কুল বন্ধ। রোড দিয়ে গাড়ি চলাচল আগেই বন্ধ হয়ে গেছে। শুধুমাত্র ঝিনেদা থেকে নেতা-কর্মীদের জিপ-ট্রাক বিষয়খালী বাজার পর্যন্ত আসে। যুদ্ধ হবে। যুদ্ধ কী রকম জানা নেইÑ অল্প বয়েস। আমরা অল্প বয়েসীরা এটাকে উৎসবের মতো দেখেছি। সকালে খেয়েই বাজারে চলে আসি। আম দেবদারু বনে বাংকার খোঁড়া হয়েছেÑ তাতে নামি উঠি, রাইফেল কী রকম তা দেখি। ব্রিজের দক্ষিণ দিকে রাস্তার উপরে গাছ কেটে রাখা হচ্ছে তা দেখে বেড়াই।
এপ্রিলের কাছাকাছি। আমের গুটি বড় হয়েছে, খেয়ে বেড়াচ্ছি আর লোকজন যা বলাবলি করছে তা শুনছি। ঢাকায় খানসেনারা রাতে গুলি চালিয়ে লোক মেরে ফেলেছে তা শুনেছি। ভয় এসেছে। আমরা রাত জেগে বারান্দায় বসে থাকিÑ কখন খানসেনারা যশোর ক্যান্টনমেন্ট থেকে বেরিয়ে এদিকে মারতে মারতে আসেÑ বাড়ির বড়রা আর পাড়ার বড়রা ভয় পেয়ে গেছেÑ বুঝেছি।
ঢাকায় খানসেনারা জনগণকে গুলি করে মারবার পরে দেশের শহরবাসীরা গ্রামে যেতে শুরু করে। এই সময় খুলনা যশোরের লোকেরা পায়ে হেঁটে রাস্তার পাশে গ্রামের পাড়ার ভিতর দিয়ে তাদের গ্রামের বাড়ি যেতে থাকে। আমাদের পাড়ার ভিতর দিয়ে আমাদের ছোট গাঙ পেরিয়ে লোকেদের যাওয়া আর ফুরোয় না। যেতে যেতে তারা বলতো যুদ্ধ এসেছে, জল খেতে চাইতো। আমরা ছোটরা কুয়ো থেকে বালতিতে জল তুলে জগে করে নিয়ে গিয়ে তাদের জল খাইয়েছি। মাঠে তখন পাকা গম আর পাকা ছোলা; ঘরে তুলে আনতে কিছু বাকি। সকালে খাওয়ার পরে আমি মামার সাথে ছোলা তুলতে গেছি। ছোলা তুলছি ছোলা তুলছিÑ এমন সময় খট খট, খট খট খট আওয়াজ আসছে কয়ারগাছির দিক থেকেÑ কয়ারগাছি বিষয়খালী থেকে দেড় মাইল দূরে দক্ষিণ দিকে। প্রথমবার আওয়াজের পরে আমি ভাবছি কাঠঠোকরা পাখি বুঝি গাছ ঠোকরাচ্ছে। দ্বিতীয়বার আওয়াজ হলে মামা বললো, মেশিনগানের গুলির শব্দ! খানেরা মারতে মারতে আসছেÑ চল্, বাড়ি চল্ তাড়াতাড়ি।
মাঠ থেকে বাড়ির দূরত্ব অল্প। এক দৌড়ে বাড়ি ফিরে এলাম। বাড়ির এবং পাড়ার সবাই এক জায়গায় জড়ো হয়ে গিয়েছে। বাজার থেকে পাড়ার নেতৃত্বস্থানীয়রা দৌড়ে পাড়ায় এসে ঢুকেছে। তারা বললোÑ খানসেনারা রাস্তার দু-পাশের গ্রামের ওপর গুলি ছুড়তে ছুড়তে আসছে, তাতে মরছে, পুড়ছেÑ এসব হচ্ছে, এখনই দূরের গ্রামের দিকে চলে যেতে হবেÑ বলে কয়েকজন শিশুকে কোলে কাঁধে তুলে নিয়ে তারা দৌড়াতে শুরু করলো। আমরা সবাই তাদের পিছু পিছু দৌড়াতে লাগলাম। সাগরকলা বাগানের ভিতর দিয়ে গাঙ পার হয়ে আমরা আমাদের পুবের দিকের গ্রাম গড়েলা পৌঁছালাম।
এখানটি কতখানি নিরাপদ তা নিয়ে এখানকার লোকের সাথে আমাদের লোকের আলোচনা হলো। আমাদের লোকেরা আরও দূরের গ্রামে যাবার সিদ্ধান্ত নিলো। সিদ্ধান্ত অনুসারে আমরা বড় মাঠের ভিতর দিয়ে আরও দূরের গ্রামে যেতে থাকলাম। আরও লোক আমাদের পিছে পিছে আসছে তা দেখলাম। পিছনে রাস্তার দিকে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দ। বাড়িঘরে আগুন লেগেছে, ধোঁয়া আকাশে উঠছে চোখে পড়ছে। আমাদের কুকুরটা আমাদের সঙ্গ নিয়েছে। আরও অনেক কুকুর লোকের সঙ্গ নিয়েছে চোখে পড়ছে।
প্রায় বারোটার দিকে আমরা তেঁতুলবেড়ে গ্রামে পৌঁছালাম। ওখানে শুনলাম, খানসেনারা গুলি চালাতে চালাতে বিষয়খালী ব্রিজের কাছাকাছি এসেছেÑ ইপিআররা ওদের বিরুদ্ধে পাল্টা গুলি ছুড়ছেÑ যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। আমরা কিছুক্ষণ বসলাম ওখানে। জল খেলাম। একটা গুলি এসে কার গায়ে বিঁধেছে খবর রটলো। এ গ্রামের লোকেরা এখানে নিরাপদ বোধ করছে নাÑ তা বললো আমাদেরকে। তারা আমাদের আরও পুবের দিকের গ্রামের দিকে যেতে বললো।
আমরা আরও পুবের দিকের গ্রামে যেতে থাকলাম। আমরা পুবের দিকের আরও এক গ্রাম পেরিয়ে পরের গ্রামে গিয়ে উঠলাম। গ্রামটির নাম নারাণপুর। এখানে কুঠিবাড়ি। আমরা কুঠিবাড়িতে গিয়ে উঠলাম। বাড়ির উঠোন পেরোলে দক্ষিণের দিকে পুকুর। আমরা পুকুর পাড়ে গাছের ছায়ায় গিয়ে বসলাম। সবুজ দূর্বা ঘাসে ছাওয়া পুকুর পাড়টি। দুপুর পেরিয়ে গেছে। এই প্রথম দুপুরের ওয়াক্তে খাওয়া নেই। যুদ্ধ তখনও শেষ হয়নি। আমাদের ঘরবাড়িতে আগুন লেগে পুড়ে গেছেÑ সে খবর এসেছে। আমার জামা-প্যান্ট, বইপত্র, বইয়ের পৃষ্ঠার ভাঁজে যতেœ রাখা একটি পাঁচ টাকার নোট পুড়ে গেছে বুঝে দুঃখে ভরে গেছে আমার হৃদয়।
বেলা প্রায় চারটের দিকে পুকুর পাড়ের দিকে গুলি আসতে লাগলো। দাদু পুকুর পাড়ের ঢালুতে তাড়াতাড়ি উপুড় হয়ে শুয়ে পড়তে বললো। আমরা তাই করলাম। গুলি আমাদের মাথার ওপর দিয়ে চলে যেতে থাকলো। ভয়ে মাটিতে শরীর মিশিয়ে দিয়ে চোখ বুজে শুয়ে থাকলাম। কিছুক্ষণ পর গুলি যাওয়া বন্ধ হয়েছে, চোখ খুলে পশ্চিমের মাঠের দিকে তাকিয়েছি, দেখি মাঠের পাশে কিছু বাড়িÑ তাতে আগুন লেগেছে। খানসেনাদের কিছু এ পর্যন্ত এসেছে। দেখলাম মাঠের ভিতরে সামনাসামনি বন্দুকযুদ্ধ হচ্ছে। তাতে একজন মরলো বলে মনে হচ্ছে। আমি অবাক হয়ে যুদ্ধের দিকে তাকিয়ে থেকেছি। ছ’টার দিকে যুদ্ধ শেষ হলো। আমরা উঠে দাঁড়ালাম। হতাহতের খবর আসতে শুরু করেছে। ব্রিজ উড়িয়ে দেবার কথা আগেই শোনা গিয়েছিল। খানসেনারা ব্রিজ পেরিয়ে আর সামনের দিকে যেতেই পারেনি। তাদের সরাসরি রুখে দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধারা। আমাদের পরিচিত কয়েকজনের মৃত্যু সংবাদ এসেছে। খানসেনারা না-কি অনেক মরেছে। তারা তাদের লাশ তুলে নিয়ে যশোর ক্যান্টনমেন্টে ফেরত গেছেÑ তারা হেরে গেছে।
সন্ধ্যায় আমাদের খিচুড়ি ভাত খেতে দেয়া হলো। আমরা খেলাম। তারপর শুয়ে পড়লাম। কুঠিবাড়িতে রাত কাটিয়ে আমরা ভোরে উঠে কুলাবাজারের কাছে আমাদের আত্মীয় বাড়ি গ্রাম খালকুলো গেলাম। সেখানে পনেরো দিন মতো ছিলাম। আত্মীয়রা পালা করে আজ এ-বাড়ি কাল ও-বাড়ি করে খাওয়ালোÑ শুতে দিলো।
যুদ্ধ সবে শুরু হয়েছে। দেশ স্বাধীন হতে অনেক দিন লাগবেÑ স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত আমরা আমাদের গ্রামে গিয়ে বাড়ি তুলতে পারবো নাÑ বড়রা বলাবলি করে শরণার্থী হয়ে ইন্ডিয়া যেতে মন স্থির করলো। যে পনেরো দিন ওই গ্রামে থাকা হলো, ওই গ্রামের আমার বয়েসী ছেলে-মেয়েদের সাথে দাড়িপাল্লা নামের আমবাগানে কাঁচামিঠে আম খেয়ে বেড়ানো, বৈচী ফল খাওয়া, মৌচাক ভাঙার পদ্ধতি শিখে ক্ষুদে মৌমাছির চাক ভেঙে মধু খাওয়া ইত্যাদির মধুর স্মৃতি ঘটলোÑ যাবার আগে কান্নায় চোখ ভাঙলো।
পশ্চিম বাংলা যাবার পথে আমরা আমাদের গ্রাম হয়ে গেলাম। আমাদের পাড়ায় ঢুকে দেখলামÑ আমাদের ঘরবাড়ির কোনো চিহ্ন নাই। পাড়ায় যে দুটি বাড়ি টিকে আছে তার একটিতে আমরা খেলাম। এই বাড়িতে একটি ঝুট শালিক খাঁচায় পোষা। সে দুপুরেÑ স্নান করতে যাবি তো চল্, চল্Ñ বলেÑ আমাদের বললো। আমরা স্নান না করে ভয়ে ভয়ে কোনো রকমে খেয়ে রাস্তা পার হয়ে পশ্চিমের গ্রামের দিকে যেতে থাকলাম। যারা থাকলোÑ তারা খুব ভয়ে ভয়ে আছেÑ স্নান রান্না খাওয়া- দাওয়াÑ সব লুকিয়ে লুকিয়ে করছে। আবার খানসেনারা আসবার আগেই তারাও ইন্ডিয়া যাবেÑ সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।
সৌজন্য : যুক্ত
মহান মুক্তিযুদ্ধে আমি ন্যাপ, ছাত্র ইউনিয়ন ও কমিউনিস্ট পার্টির বিশেষ গেরিলা বাহিনীর সদস্য ছিলাম। মেঘালয় রাজ্যের তুরা জেলার বাঘমারা থানার সীমান্তবর্তী মালিকোনা নামক স্থানে বিশেষ গেরিলা বাহিনীর ইয়থ ক্যাম্প ছিল। আমি ঐ ক্যাম্পের দায়িত্ব পালনকালে সীমান্ত এলাকায় কর্তব্যরত একটি মুক্তিযোদ্ধা দলের সাথে আমার যোগাযোগ হয় এবং গেরিলা বাহিনীর ইয়থগণ যখন ক্যাম্পে না থাকে তখন ঐ মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে সীমান্তে আমি কাজ করি। ফলে স্থানীয় বিএসএফ-র অধিনায়ক ক্যাপ্টেন মুরারীর সাথেও আমার পরিচয় হয়। ক্যাপ্টেন মুরারী একজন বাঙালি-প্রেমিক, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি খুবই দরদি এবং রসিক মানুষ ছিলেন। মাঝে মধ্যে কথাবার্তা হলে আমাদের উৎসাহ দিতেন, সাহস দিতেন। নানারকম কথাবার্তা বলে হাস্যরস করতেন। ফলে তিনি ছিলেন সবার কাছে একজন প্রিয় ব্যক্তিত্ব।
বাঘমারা সীমান্ত থেকে মাত্র ২ কিমি দূরে পাকবাহিনীর রানীখং নামক স্থানে ক্যাম্প ছিল। প্রায়ই পাকবাহিনী গুলিবর্ষণ করত এবং বিএসএফ বাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধারাও প্রতিউত্তর দিয়ে পাকবাহিনীকে জবাব দিত। এসব ঘটনার সময় ও আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সাথী বাঙালি জাতির বন্ধু ক্যাপ্টেন মুরারী মুক্তিযোদ্ধাদের সাহস এবং মনোবল জোগাতেন।
তখন সন্ধ্যার পর হতে ভোর পর্যন্ত সমস্ত বাঘমারা এলাকায় কারফিউ জারি থাকত। বাঘমারা সীমান্তের অদূরে পাহাড়ের ওপর বিএসএফ ক্যাম্প ছিল। ক্যাপ্টেন মুরারী ঐ ক্যাম্পের প্রধান ছিলেন এবং তিনি সেখানে থাকতেন।
যে পাহাড়ে বিএসএফ ক্যাম্প ঐ পাহাড়েই ওঠার পথে নিচে গাছ দিয়ে বেরিকেড দেওয়া হতো এবং নিচে পালাক্রমে মুক্তিযোদ্ধারা নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকতেন। একদিন রাত ৮-৯টার সময় ক্যাপ্টেন মুরারী জিপ নিয়ে পাহাড়ে ওঠার সময় ঐ বেরিকেডের কাছে এসে গাড়ি থামিয়ে হর্ন বাজান।
তখন কর্তব্যরত বীর মুক্তিযোদ্ধা চিৎকার দিয়ে বলেন, কেলা গো? ক্যাপ্টেন মুরারী গাড়ি থেকে নামলে বীর মুক্তিযোদ্ধা তাকে স্যালুট করেন। মুরারী সাহেব গাড়িতে উঠলে বেরিকেড উপরে উঠালে গাড়ি পাহাড়ের ওপর চলে যায়।
পরদিন সকালে আমি আমাদের ইয়থ ক্যাম্পের সামনে দাঁড়িয়ে আছি। তখন ক্যাপ্টেন মুরারী মর্নিংওয়াক করে ফিরছিলেন। তিনি আমাকে ডেকে জিজ্ঞেস করলেনÑ
ব্যাটা বাতাওতো কেলা গো কিয়া হে। আমি প্রথমে কিছু বুঝে উঠতে পারছিলাম না। তখন ক্যাপ্টেন সাহেব ঘটনাটি বর্ণনা করলে আমি বুঝতে পারি এবং বলি যে, স্যার ও লোক আপকে পূছা হে-আপ কোন হু? এই কথা শুনে ক্যাপ্টেন সাহেব হাসতে হাসতে আমার পিট চাপড়ালেন এবং বললেন এঁহিবাতÑ আচ্ছা হ্যায় আচ্ছে হ্যায়। আমি উনাকে স্যালুট করলাম, তিনি চলে গেলেন।
ঐ বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি নেত্রকোনা বা কিশোরগঞ্জ মহকুমায় ছিল। এরপর ঘটনাটি মুখে মুখে প্রচার হলে ঐ মুক্তিযোদ্ধার নাম পড়ে যায় ‘কেলা গো’।
আজ অনেক বছর পরে একটি স্মৃতিকথা লিখতে গিয়ে ঐ বীর মুক্তিযোদ্ধার চেহারা হৃদয়পটে ভাসছে; কিন্তু কেলা গো ছাড়া তার আসল নাম কোনোভাবেই মনে করতে পারছি না। জয়তু বীর মুক্তিযোদ্ধা।

শ্রেণী:

বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতি

Posted on by 0 comment
4-9-2019 6-28-32 PM

4-9-2019 6-28-32 PMসাইমন জাকারিয়া: বাংলা ভাষার সাহিত্য-নিদর্শনের মধ্যে চর্যাপদ প্রাচীনতম, যাতে বাংলাদেশের প্রাচীন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের নানা কথা বর্ণিত রয়েছে। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্-র মতে, চর্যা রচিত হয়েছিল ৬৫০ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ১২০০ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে। এই সময়ের মধ্যে আজকের পাহাড়পুরের প্রতœভূমি ‘সোমপুর বৌদ্ধবিহার’ গড়ে উঠেছিল। চর্যার কয়েকজন রচয়িতা এই বিহারের বসবাস করতেন এবং বৌদ্ধ ধর্মানুসারী ছাত্রদের জ্ঞান শিক্ষা দিতেন। গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া যায়, পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহারে শিক্ষক তথা সাধক-কবিগণ প্রাচীন বাংলার সাংস্কৃতিক অভিযাত্রার অনুসারী ছিলেন। তাই তাদের রচনায় সে-সময়ের সাংস্কৃতিক পরিচয়ের মধ্যে গীত, নৃত্য, নাট্য ইত্যাদি পরিবেশনার সবিস্তার বিবরণ লাভ করা যায়। পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহারের স্থাপত্যকীর্তি তথা তার মন্দিরগাত্রে উৎকীর্ণ টেরাকোটা-চিত্রেও স্থানীয় জনতার সামাজিক জীবনচিত্রের সাথে সেই পরিবেশনা শিল্পের কিছু শিল্পীত নিদর্শন প্রত্যক্ষ করা যায়। অতএব, এসব তথ্যের আলোকে খুব সহজেই বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রাচীন ইতিহাসের কিছু পরিচয় তুলে ধরা সম্ভব। এই কাজটি বাংলাদেশের ১২০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত প্রচলিত ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির বিবরণের ক্ষেত্রে যেমন সম্ভব তেমনভাবে ১২০০ খ্রিষ্টাব্দের পরবর্তীকালের ঐতিহ্যের ক্ষেত্রেও করা যেতে পারে।
১২০০ খ্রিষ্টাব্দের পরবর্তীকালে তথা ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত বাংলাভাষায় রচিত বিচিত্র সাহিত্যকীর্তি (পুরাণকাব্য, কীর্তন, পাঁচালি, মঙ্গলকাব্য, প্রণয়কাব্য) ও তার সমসাময়িক কালে বা পরবর্তী নির্মিত প্রতœনিদর্শন বা সাহিত্য-সাংস্কৃতিক কীর্তিনির্ভর বিভিন্ন স্থাপত্যকীর্তির সমন্বিত আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য চর্চার ধারাবাহিক ইতিহাস রচনা করা যেতে পারে।
একইভাবে (মৌখিক ও লিখিত) সাংস্কৃতিক সাহিত্যকীর্তির সাথে স্থাপত্যকীর্তির সম্পর্ক রচনার আলোচনার সাথে ক্ষেত্রসমীক্ষাধর্মী গবেষণায় বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের চর্চা ইতিহাসের পথ ধরে কীভাবে সাম্প্রতিক সময় পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে এবং বর্তমানে তার কিছু কিছু উপাদান বিবর্তন ও রূপান্তরের ধরায় কী ধরনের সম্ভাবনা ও সংকটে পতিত হয়েছে তার বিবরণও নিখুঁতভাবে উপস্থাপন করা যেতে পারে।
বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিবরণমূলক তালিকা তৈরির ক্ষেত্রে ৩টি বিষয়ের সমন্বিত জ্ঞান থাকা প্রয়োজন মনে করিÑ ১. সাহিত্যিক-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সম্পর্কে ধারণা, ২. প্রতœতাত্ত্বিক ঐতিহ্য বা স্থাপত্যকীর্তির সাথে সাংস্কৃতিক-সাহিত্যিক ঐতিহ্যের সম্পর্ক বিচার, ৩. ফিল্ডওয়ার্কের মাধ্যমে জনগোষ্ঠীতে চর্চিত সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের রূপান্তরের ধারা পর্যবেক্ষণ। এই ৩টি জ্ঞানের সমন্বিত বিশেষজ্ঞ পাওয়া অত্যন্ত কঠিন। এখানে ব্যক্তি বিশেষজ্ঞের পাশাপাশি বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিবরণমূলক তালিকা প্রণয়নের প্রতিষ্ঠানিক উদ্যোগের একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস উল্লেখ করব। সে-সঙ্গে বাংলাদেশের বহুমাত্রিক ও বিচিত্র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের পূর্ণাঙ্গ একটি বিবরণমূলক তালিকা তৈরির ক্ষেত্রে গভীর ক্ষেত্রসমীক্ষণ কেন জরুরিÑ সে-সম্পর্কে প্রস্তাব রাখতে চাই।
বাংলায় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য নিয়ে প্রথম আগ্রহের সূচনা হয়েছিল ১৭৮৪ খ্রিষ্টাব্দে স্যার উইলিয়াম জোনস্ কর্তৃক ‘এশিয়াটিক সোসাইটি অব বেঙ্গল’ প্রতিষ্ঠার সময় থেকে। প্রথম পর্যায়ে শ্রীরামপুর মিশন ও ফোর্ট উইলিয়ম কলেজের প-িতবর্গের হাত দিয়ে বাংলার কালচারাল হেরিটেজের মধ্যে জনমানুষের জীবনধারা, রীতিনীতি, আচার-বিচার, প্রথা ইত্যাদি বিষয়ক উপাদান ও উপকরণ সংগৃহীত হয়েছিল। এরপর ব্যক্তিগত পর্যায়ে ১৮৯০ খ্রিষ্টাব্দ থেকে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিচিত্র বিষয় তথা বাউলের গান, ছেলে ভুলানো ছড়া, কবি সংগীত, গ্রাম্যসাহিত্য, মেয়েলি ছড়া, লোকসাহিত্য ইত্যাদি নিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রবন্ধ লিখতে থাকেন এবং গ্রন্থ প্রণয়ন করেন। পরবর্তীতে বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য নিয়ে ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা বেশ জোরালো হয়ে ওঠে। বিশেষ করে, জজ গ্রিয়ারসন আবিষ্কৃত নাথগীতিকা ‘ময়নামতীর গান’; হরপ্রসাদ শাস্ত্রী কর্তৃক বৌদ্ধ সাহিত্য-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের নিদর্শন ‘চর্যা’ আবিষ্কার; বসন্তরঞ্জন রায়-এর সনাতনশাস্ত্রীয় পৌরাণিক প্রণয়কাব্য ‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তন’ আবিষ্কার; আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ কর্তৃক বাংলাদেশের ইসলামী সাহিত্য-সাংস্কৃতিক নিদর্শনের অফুরন্ত ভা-ার আবিষ্কার; চন্দ্রকুমার দে, দীনেশচন্দ্র সেন ও ক্ষিতীশচন্দ্র মৌলিক কর্তৃক ধর্মনিরপেক্ষ সাধারণ মানুষের প্রণয়কাব্যের সংগ্রহ ও প্রকাশনা; আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ, ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্, গুরুসদয় দত্ত, জসীম উদ্দীন, আশুতোষ ভট্টাচার্য, সুকুমার সেন, নীহাররঞ্জন রায়, শশিভূষণ দাশগুপ্ত প্রমুখ প-িতজনের আলোচনার সূত্রে আবহমান বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিচিত্র উপাদান তথা বাংলাদেশের নৃত্য, গীত, নাট্য, কৃত্য ইত্যাদি প্রথম প্রাতিষ্ঠানিক আলোচনায় স্থান করে নেয়।
স্বাধীনতা-পূর্ব বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংগ্রহের জন্য বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ রেখেছে বাংলা একাডেমি। ১৯৬০ থেকে ১৯৭০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানটি নিয়োজিত ও অনিয়োজিত ফোকলোর সংগ্রাহকদের মাধ্যমে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিচিত্র উপাদানের মধ্যে লোকগান, নাট্য, প্রবাদ, ধাঁধা, ছড়া, পুথি ইত্যাদি সংগ্রহ করেছে। কিন্তু ওই সময়ের মধ্যে বাংলা একাডেমির সংগ্রাহকগণ এত উপাদান সংগ্রহ করেছিলেন, যার পূর্ণাঙ্গ প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানটি অদ্যাবধি সম্পন্ন করতে পারেনি। আশার কথা, বাংলা একাডেমি ১৯০০ খ্রিষ্টাব্দের ষাটের দশকে সংগৃহীত ফোকলোরের বিচিত্র উপাদান অঞ্চল ও বিষয়ভিত্তিক করে বিভিন্ন সময়ে ‘লোকসাহিত্য সংকলন’, ‘ফোকলোর সংকলন’ নামে দুটি পর্যায়ে ১ থেকে ৭১টি খ-ে দুটি সিরিজ গ্রন্থ প্রকাশনার কাজ করছে; এরপর ২০১০ থেকে ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত নতুন বিন্যাসে ‘ফোকলোর সংগ্রহমালা’ নামে ১৩৪টি খ-ে আরেকটি সিরিজ গ্রন্থ প্রকাশনার কাজ করেছে। তারপরও কথা থাকে, প্রায় ৬০ বছর আগের সংগ্রহ বর্তমানে প্রকাশনার ক্ষেত্রে নতুন করে ক্ষেত্রসমীক্ষার প্রয়োজন ছিল এবং ৬০ বছর পর স্বাধীন বাংলাদেশের জনজীবনে ফোকলোরের ওই উপাদানসমূহের উপযোগিতার কি রূপান্তর হয়েছে তা পর্যবেক্ষণসহ প্রকাশ করলে আরও ভালো হতো। এর বাইরে বাংলা একাডেমি বিভিন্ন সময়ে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের উপাদান হিসেবে ফোকলোর বিষয়ক বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প প্রণয়ন করেছে, এমনকি এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ ২০০৩-০৫ খ্রিষ্টাব্দে ‘বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষা’ নামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও বাংলা একাডেমি স্বতন্ত্রভাবে বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ‘লোকজ সংস্কৃতি বিকাশ’ নামে প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। কিন্তু অতীত ও বর্তমানের কোনো প্রকল্পে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিবরণমূলক তালিকা তৈরির ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ চোখে পড়েনি। তবে, প্রকল্পসমূহের প্রকাশনা পর্যবেক্ষণ করলে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিবরণমূলক তালিকার জন্য একটি প্রাথমিক তালিকা প্রণয়ন করা যেতে পারে। কিন্তু এ-কথা মনে রাখতে হবে, প্রাথমিক সেই তালিকাকে পূর্ণাঙ্গ করে তুলতে হলে নিশ্চিতভাবেই ফিল্ডওয়ার্কে যেতে হবে। কারণ, আমাদের তত্ত্ব অনুযায়ী বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিবরণমূলক তালিকা তৈরির জন্য সাহিত্য-সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও তার সাথে প্রতœসম্পদ বা স্থাপত্যের সম্পর্ক এবং সর্বশেষ সময় পর্যন্ত তার রূপান্তর প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণ অতি জরুরি।
বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিভিন্ন বিষয়ের পূর্ণাঙ্গ বিবরণমূলক তালিকা তৈরির বেশ কয়েকটি সমস্যার কথা ব্যক্তিগতভাবে ফিল্ডওয়ার্কে গিয়ে বিগত ৩০ বছর ধরেই অনুভব করেছি। সেগুলো হলোÑ প্রথমত; বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় বা তথ্য মন্ত্রণালয় নিজস্ব উদ্যোগে কোনো কালচারাল সার্ভে রিপোর্ট পাওয়া যায় না, দ্বিতীয়ত; বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, বাংলা একাডেমি, সোনারগাঁও লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন ইত্যাদি জাতীয় প্রাতিষ্ঠান নানা ধরনের সাংস্কৃতিক কর্মকা- পরিচালনা করলেও তাদের পক্ষ থেকেও কোনো কালচারাল সার্ভে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়নি, তৃতীয়ত; ব্যক্তিগত পর্যায়ে কিছু ব্যক্তি ফিল্ডওয়ার্কের মাধ্যমে কালচারাল হেরিটেজের বিভিন্ন উপাদান সংগ্রহ করছেন, কিন্তু তাদের সংগ্রহের পূর্ণাঙ্গ তালিকা বা বিবরণ তারা প্রদান করতে সক্ষম হননি, যেমনÑ অধ্যাপক তোফায়েল আহমদ ও মোহাম্মদ সাইদুরের বিচিত্র সংগ্রহের তালিকা আমাদের হাতে নেই, চতুর্থত; বর্তমানে ফিল্ডওয়ার্কের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে শিল্পীরা তথ্য গোপন করেন, অর্থাৎ একই এলাকার একজন শিল্পীর কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে তিনি তার এলাকার অপরাপর জীবিত ও চর্চাকারী শিল্পীর পরিচয় সচরাচার দিতে চান না, এক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিবরণমূলক তালিকার সামগ্রিকতা তথা চলমান ঐতিহ্যের অনেক তথ্য দিতে গবেষক ব্যর্থ হতে পারেন, তাই প্রয়োজন হয়ে পড়ে অধিক সময় ক্ষেপণ এবং বিভিন্ন সূত্র থেকে তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে প্রকৃত চালচিত্রের বিবরণ নথিভুক্ত করা। ব্যক্তিগতভাবে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ফিল্ডওয়ার্কে গিয়ে এমন অভিজ্ঞতা হয়েছে বলেই এ-কথাগুলো উল্লেখ করতে সক্ষম হলাম।
বাংলাদেশের অঞ্চলভিত্তিক সাংস্কৃতিক ভা-ার অন্তহীন। এদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের মধ্যে গানের সঙ্গে জ্ঞানের সম্পর্ক নিবিড়। কেননা, আদিকাল থেকে এদেশের মানুষেরা নিজেদের জীবনাভিজ্ঞতায় প্রাপ্ত জ্ঞান শিক্ষা ও দীক্ষার আলো বৃহত্তর মানুষের কাছে ছড়িয়ে দেবার প্রয়োজনে গানকেই আশ্রয় করেছিল। গানের সুরের সঙ্গে জ্ঞানের বাণীকে মিশিয়ে দিয়ে জ্ঞানকে বাঁচিয়ে রেখেছেন যুগের পর যুগ। তারই ফসল হিসেবে বৌদ্ধ সংস্কৃতির চর্যা বাংলার সীমান্ত ছড়িয়ে রাষ্ট্র হয়েছিল নেপালে, তিব্বতে। আজও সে সকল দেশের মানুষে বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির চর্চায় নিবিষ্ট রয়েছে। একই সঙ্গে গানে ধৃত জ্ঞানের জন্য বাংলাদেশের বৃহত্তর জনজীবনে রাষ্ট্র ও সংবিধানের চাপিয়ে দেওয়া রাষ্ট্রধর্ম ইসলামকে ফাঁকি দিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি টিকে আছে যুগের পর যুগ। তাই হিন্দুদের দেবতার আখ্যান পরিবেশনে মুসলিম জনগণ কার্পণ্য করেনি মোটে; আবার মুসলিম, খ্রিষ্টান, বৌদ্ধ ইত্যাদি বিভিন্ন সম্প্রদায়ের পরিবেশনা-শিল্পে খুব সহজে অন্যরা স্থান নিয়েছে। পরিপূর্ণভাবে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির পরিচিতিমূলক একটি তালিকা তৈরি করতে পারলে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বিচিত্রতার সেই শক্তি পর্যবেক্ষণ করা যাবে। পৃথিবীর মানুষ তখন নব দীক্ষায় উত্তীর্ণ হবে।

শ্রেণী:

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ১৯৭১

Posted on by 0 comment
4-9-2019 6-18-02 PM

4-9-2019 6-18-02 PMএইচ. টি. ইমাম: স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র (Proclamation of Independence) হলো আমাদের স্বাধীনতার সনদ। এই ঘোষণায় সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত হয়েছে কেন, কোন ক্ষমতার বলে এবং পরিস্থিতিতে এই স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা হলো, যে রাষ্ট্রের নাম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ, (People’s Republic of Bangladesh); যার প্রথম রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ঘোষণাটি (Proclamation)  করা হয় ১০ এপ্রিল ১৯৭১। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ঐ দিনই (১০ এপ্রিল) তাজউদ্দীন আহমদকে প্রধানমন্ত্রী করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট মন্ত্রিপরিষদ গঠন করেন। অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি এবং মন্ত্রীগণ ১৭ এপ্রিল ১৯৭১ স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের ভূমিতে (বৈদ্যনাথতলা, মেহেরপুর) আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণ করেন। এই স্থানটিকে চিরস্মরণীয় রাখার জন্য এর নামকরণ করা হয় “মুজিবনগর”। এই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানটি বিপুল সংখ্যক জনতার উপস্থিতিতে সেদিন ছিল উৎসবমুখর। কয়েকশত ভারতীয় এবং অন্যান্য দেশের সাংবাদিক এটি প্রত্যক্ষ করে গোটা বিশ্বে এই নতুন রাষ্ট্রের অভ্যুদয়ের কথা প্রচার করেন।
বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য যে, ১০ এপ্রিল অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিয়োগকৃত প্রধানমন্ত্রী ঐ দিনই কার্যভার গ্রহণ করেন এবং ১১ এপ্রিল জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। ১০ এপ্রিলেই মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক হয় এবং এরপর প্রতিদিনই তারা সভায় মিলিত হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এই সরকারের প্রধান কার্যালয় কলকাতায় স্থাপন করা হয় প্রধানত নিরাপত্তা এবং মুক্তিযুদ্ধে নির্বিঘেœ নেতৃত্ব দেওয়ার কারণে। আমাদের সরকারের বিভিন্ন কার্যাবলি পর্যালোচনা করলেই দেখা যাবে কত ব্যাপক এবং সুসংগঠিত ছিল সরকারের কর্মসূচি এবং গঠন-কাঠামো। এই সরকারের বৈশিষ্ট্য ছিল যে কলকাতায় অবস্থান করলেও এর কর্তৃত্ব গোটা বাংলাদেশেই ছিল, বিশেষ করে মুক্ত এলাকায় (রৌমারি, বেলোনিয়া ইত্যাদি)। বাংলাদেশের অভ্যন্তরেও বিশেষ কয়েকটি অঞ্চলে মুক্তিবাহিনী কখনও শত্রুকে প্রবেশ করতে দেয়নি।
এ প্রসঙ্গে একটি কথা বলা বিশেষ প্রয়োজন যে, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারকে কেবলই ‘মুজিবনগর সরকার’ নামে আখ্যায়িত করে (যেহেতু তার প্রধান কার্যালয় ভারতে অবস্থিত ছিল তাই) তাকে নানাভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার অনেক অপচেষ্টা হয়েছে। স্বাধীনতাবিরোধীরা নানাভাবে চেষ্টা করেছে একে ‘পুতুল সরকার’ বলে পরিচয় দেওয়ার। বিশেষ করে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শহিদ হওয়ার পর থেকে ১৯৯৬ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত এবং ২০০১ সালের অক্টোবর হতে ২০০৬ সাল পর্যন্ত এই স্বাধীনতাবিরোধী চক্র ইতিহাস বিকৃত করে লেখায়, আলোচনায়, টিভি, রেডিও ও সমস্ত প্রচারযন্ত্রকে ব্যবহার করে স্বাধীন সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশকে ছোট করার চেষ্টা করেছে। ইতিহাসকে তো আর বিকৃত করা যায় না, তবে স্বাধীনতা যারা চায়নি তারা এই অপপ্রয়াস অব্যাহত রাখবে এতে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই। পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী তাদের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে চাইবে, এটাই স্বাভাবিক। ইতিহাস-বিকৃতকরণে আমাদের মধ্যে মীরজাফরের মতো বিশ্বাসঘাতকদের অভাব নেই। যারা এই বিশ্বাসঘাতকতায় অংশগ্রহণ করেছে, তাদের নামের তালিকা ইতিহাসের পাতায় একদিন ঠিকই অন্তর্ভুক্ত হবে।
রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রচলিত সংজ্ঞায় একটি স্বাধীন দেশের সরকারের যেসব বৈশিষ্ট্য থাকা আবশ্যক, তার সবই ছিল গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের।
আওয়ামী লীগের মতাদর্শ এবং নির্বাচনী ঘোষণা (Manifesto) অনুসারে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে সরকার গঠিত হয়েছিল সংসদীয় পদ্ধতির। প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার প্রাদেশিক সরকার-কাঠামোর অবয়বে গঠিত হলেও তা ছিল সাবেক পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারের সংক্ষিপ্ত সংস্করণ। হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর অতর্কিত আক্রমণ প্রতিহত করতে মুজিবনগরে গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারকে বহু প্রতিকূল অবস্থা অতিক্রম করতে হয়েছিল। মন্ত্রিসভার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের প্রায় দুই সপ্তাহ পরই পাকিস্তানি বাহিনী মুজিবনগরে আক্রমণ চালায়। এ জন্য মুজিবনগর প্রশাসনকে সুবিধাজনক মুক্তাঞ্চলে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সব কাজকর্ম বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগরের নামেই পরিচালিত হতো। মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময় যুদ্ধের ক্যাম্প অফিস হিসেবে কলকাতার ৮ নম্বর থিয়েটার রোডের বাড়ি ব্যবহৃত হয়। মন্ত্রিসভার সদস্যদের শপথ গ্রহণের পর ১৮ এপ্রিল প্রথম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিদের দপ্তর নিম্নরূপে বণ্টন করা হয়-

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান    :    রাষ্ট্রপতি।
সৈয়দ নজরুল ইসলাম    :    উপ-রাষ্ট্রপতি         (অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি)।
তাজউদ্দীন আহমদ    :    প্রধানমন্ত্রী; প্রতিরক্ষা, তথ্য সম্প্রচার ও যোগাযোগ, অর্থনৈতিক বিষয়াবলি, পরিকল্পনা বিভাগ, শিক্ষা, স্থানীয় সরকার, স্বাস্থ্য-শ্রম-সমাজকল্যাণ, সংস্থাপন ও অন্যান্য যেসব বিষয় কারও ওপর ন্যস্ত হয়নি তার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী।
খন্দকার মোশতাক আহমদ    :    পররাষ্ট্র, আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।
এম  মনসুর আলী    :    অর্থ, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়।
এ এইচ এম কামারুজ্জামান     :    স্বরাষ্ট্র, সরবরাহ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন ও কৃষি মন্ত্রণালয়।
সরকারের দায়িত্ব পালনে নতুন প্রতিষ্ঠান সৃষ্টি
মন্ত্রিবর্গের ওপর অর্পিত দায়িত্বসমূহ সম্পন্ন করতে প্রয়োজনীয় সহায়তা ও সহযোগিতার জন্য নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান সৃষ্টি করতে হয়েছিল। সুদূরপ্রসারী চিন্তা-ভাবনার ভিত্তিতে সৃষ্ট প্রতিষ্ঠানে অভিজ্ঞ, দক্ষ, কর্মঠ, স্বাধীনতার চেতনায় দীপ্ত নতুন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিযুক্ত করা হয়েছিল। মন্ত্রিসভার সব সদস্য সরকারি প্রশাসনকে সচল রাখতে দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজ নিজ অবস্থান থেকে স্বাধীনতার জন্য যে অবদান রেখেছেন তা বাংলাদেশের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখিত থাকবে। মাঠের যুদ্ধরত মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রথম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সবাই মিলে স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রযন্ত্রকে সচল রেখেছিল বলেই আজও আমরা তার সুফল পাচ্ছি। স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের গঠন সম্পর্কে তৎকালীন মন্ত্রিপরিষদ সচিব (নিবন্ধকার) একটা প্রতিবেদন মন্ত্রিসভার সভায় উপস্থাপন করেছিলেন। তাতে স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মোট ১৫টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের কথা ছিল। এগুলো ছাড়াও কয়েকটি সংস্থা মন্ত্রিপরিষদের অধীনে কাজ করত।

ক. প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়
প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাজকর্ম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ স্বয়ং দেখতেন। সশস্ত্র বাহিনী দপ্তর এ মন্ত্রণালয়ের একটা প্রধান অঙ্গ হিসেবে ছিল। প্রধান সেনাপতি, চিফ অব স্টাফ, উপ-সেনাপতি ও বিমান বাহিনী প্রধান, ডিজি, মেডিকেল সার্ভিস ও বিভিন্ন পদবির স্টাফ অফিসার এ দপ্তরের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। সশস্ত্র বাহিনী দপ্তর থেকে বাংলাদেশের যুদ্ধে অবতীর্ণ অঞ্চলগুলোকে ১১টি সেক্টরে বিভক্ত করে সেসব অঞ্চলে সেক্টর কমান্ডার নিয়োগ করা হয়েছিল।

খ. পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
যুদ্ধকালীন সময়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিদেশে মিশন স্থাপনের মাধ্যমে বহির্বিশ্বে অবস্থানরত বাংলাদেশের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল। তাদের মাধ্যমে এই মন্ত্রণালয় বিদেশে জনমত তৈরি এবং বিদেশি রাষ্ট্রসমূহের সমর্থন লাভের জন্য কাজ করেছিল। বাংলাদেশের প্রথম পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দিল্লি, কলকাতা, ওয়াশিংটন, লন্ডন, নিউইয়র্ক, স্টকহোম প্রভৃতি স্থানে বাংলাদেশের মিশন প্রতিষ্ঠায় কাজ করেছিল। জাতিসংঘ, জাপান, সিরিয়া, আফগানিস্তান, লেবানন, নেপাল, বার্মা, শ্রীলংকা, থাইল্যান্ড প্রভৃতি দেশে প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে সমর্থন আদায়েরও চেষ্টা করেছিল।

বঙ্গবন্ধুর নিরাপত্তা ও মুক্তি
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ নিজে তদারকি করতেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী এই তথ্য পাওয়ার সাথে সাথে আমাদের সরকার অত্যন্ত তৎপর হয়ে ওঠেন তার নিরাপত্তা এবং মুক্তির জন্য। এ বিষয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী নিজে বিশ্বব্যাপী সফর করে বিভিন্ন রাজধানীতে জাতির পিতার নিরাপত্তা ও মুক্তির জন্য পাকিস্তানের ওপর চাপ সৃষ্টি করেন। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন ও অন্যান্য বন্ধুপ্রতীম সরকারগুলোও এ বিষয়ে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন।

গ. অর্থ, শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার যুদ্ধ পরিচালনার সময় শিল্প ও বাণিজ্য সংক্রান্ত উল্লেখযোগ্য কাজ করতে না পারলেও অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেছিল। সরকারের আয়-ব্যয়ের হিসাবের জন্য বাজেট প্রণয়ন, বাংলাদেশের অভ্যন্তর এবং অন্যান্য উৎস থেকে প্রাপ্ত সম্পদের হিসাব তৈরি, বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যক্তিগণকে অর্থ দেওয়ার জন্য নীতিমালা প্রণয়ন, আর্থিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা, রাজস্ব ও শুল্ক আদায় এবং আর্থিক অনিয়ম রোধে কমিটি গঠন করা হয়েছিল।
মন্ত্রিপরিষদ গঠিত হওয়ার পর মন্ত্রিসভায় সরকারের অর্থনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনায় সরকারের নতুন নোট ছাপা না হওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানি মুদ্রা ভারতীয় মুদ্রায় রূপান্তর কিংবা পাকিস্তানি মুদ্রার ওপর বাংলাদেশের সিলমোহর দিয়ে বাজারে ছাড়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। সরকার পরিচালনার জন্য অধিকৃত বাংলাদেশের বিভিন্ন ব্যাংক বা ট্রেজারি থেকে নিয়ে আসা অর্থ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গৃহীত হয়েছিল। ভারত সরকার ১০ কোটি রুপির একটি অর্থ সাহায্য দিয়েছিল। বিভিন্ন দেশ থেকে প্রাপ্ত সাহায্য সংরক্ষণের জন্য “বাংলাদেশ ফান্ড” নামে একটি তহবিল প্রতিষ্ঠা করে তা তিনজন সদস্যের স্বাক্ষরে খরচ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। বাংলাদেশের প্রকাশিত ডাকটিকিট বিক্রির অর্থ ও অন্যভাবে অর্জিত অর্থ বাংলাদেশ ফান্ডে জমা রাখা হতো। এই অর্থ মুক্তিসংগ্রামে নিয়োজিত যোদ্ধাদের বেতন, বেসামরিক প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন, মন্ত্রী ও জনপ্রতিনিধিদের বেতন-ভাতা ইত্যাদিতে ব্যয় করা হতো। প্রত্যেক ক্ষেত্রে ব্যয়িত অর্থের যথাযথ ব্যবহার তদারকির ব্যবস্থা ছিল। অর্থ মন্ত্রণালয়ের নিজেদের দপ্তরসহ সব মন্ত্রণালয়ের প্রয়োজনীয় অর্থের জন্য বাজেট প্রদানের ওপর গুরুত্ব দিয়েছিল। প্রতিটি মন্ত্রণালয়ের বাজেট মন্ত্রিসভায় বিশ্লেষণের পর পাস করা হতো। অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাজ বিভিন্ন অফিসারের ওপর ন্যস্ত থাকায় প্রত্যেক বিভাগের কাজকর্মে গতিশীলতা ছিল। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় যুদ্ধকালে ভারত ও বাংলাদেশের দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্যিক বিষয়াদির খুঁটিনাটি দিক পরীক্ষা করেছিল। স্বাধীন হওয়ার পর ভারত কীভাবে বাংলাদেশকে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারে সে-বিষয়ে তখনই চিন্তা-ভাবনা হয়েছিল। এই চিন্তা-ভাবনার ফলস্বরূপ স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে দেশের ভারী শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো জাতীয়করণ করা হয়।

ঘ. মন্ত্রিপরিষদ সচিবালয় ও সাধারণ প্রশাসন বিভাগ
মন্ত্রিপরিষদ সচিবালয়ের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব ছিল বিভিন্ন প্রস্তাব উত্থাপন, সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন, পর্যবেক্ষণ ও লিপিবদ্ধকরণ। কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী ও মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে নিয়ে গঠিত মন্ত্রিপরিষদ সচিবালয়ের অন্যতম দায়িত্ব ছিল বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় সাধন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব (নিবন্ধকার) মুক্তিযুদ্ধ শুরুর দু-মাস পর আগরতলা থেকে মুজিবনগরে গিয়েছিলেন। তাই, ঐ সময়ের মন্ত্রিপরিষদ সভাগুলোর সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদই নিজে লিখে রাখতেন। গোপনীয়তা রক্ষার জন্যও প্রধানমন্ত্রী সভার সিদ্ধান্ত নিজেই লিখতেন।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের অধীনে সাধারণ প্রশাসন বিভাগ নিয়োগ-বদলি, পদায়ন-প্রবেশন, পদোন্নতি, চাকরি-বিধিমালা পর্যবেক্ষণ প্রভৃতি কাজ সম্পন্ন করত। সাধারণ প্রশাসন বিভাগের আওতায় আঞ্চলিক প্রশাসনিক কাউন্সিল গঠিত হয়েছিল।

ঙ. আঞ্চলিক প্রশাসন
আঞ্চলিক প্রশাসন স্থাপনা ও পরিচালনা ছিল একটি সম্পূর্ণ নতুন চিন্তাধারার ফসল। পূর্ণাঙ্গ একটি সরকার প্রতিষ্ঠা, যার অধীনে আঞ্চলিক প্রশাসনসহ বিভিন্ন বিভাগীয় কার্যক্রম চালু থাকবে, যার ভিত্তি হবে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া এবং মূল লক্ষ্য হবে যুদ্ধে নিয়োজিত সেক্টর কমান্ড এবং মুক্তিবাহিনীকে সর্বাত্মক সাহায্য এবং সহযোগিতা। এই লক্ষ্যে ১৯৭১ সালের ১১ জুলাই প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ১১টি সেক্টরের সাথে ১১টি আঞ্চলিক পরিষদ (Zonal Councills) প্রতিষ্ঠা করা হয়। এই পরিষদগুলোতে নির্দিষ্ট এলাকার নির্বাচিত এমএনএ/এমপি-রা এবং অন্যান্য রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সদস্য ছিলেন। তাদের মধ্য থেকেই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এই কাউন্সিলকে প্রশাসনিক সাহায্য দেওয়ার জন্য একজন করে আঞ্চলিক প্রশাসনিক কর্মকর্তা (Zonal Administrative Officer) নিয়োগ করা হয়। সেই সাথে নিযুক্ত হন বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা। বাংলাদেশ সরকার মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর শাসনভার গ্রহণ করার পূর্ব পর্যন্ত এই প্রশাসনিক কাঠামো কার্যকর ছিল।
আঞ্চলিক পরিষদ এবং দপ্তরগুলো থাকার ফলে দেশ সম্পূর্ণভাবে শত্রুমুক্ত হওয়ার আগেই আমাদের নিজস্ব প্রশাসনিক কাঠামো সম্পূর্ণ প্রস্তুত ছিল। সে-কারণে ১৬ ডিসেম্বরই (কোনো ক্ষেত্রে তার আগেই) আমাদের নিয়োজিত সকল জেলা প্রশাসক/পুলিশ সুপার ও অন্যান্য কর্মকর্তা স্ব-স্ব পদে যোগদান করে কালবিলম্ব না করে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রশাসন প্রতিষ্ঠিত করেন। উল্লেখ্য, জোনাল প্রশাসনিক কাউন্সিলগুলোর অধীনে কিছু সাব-কমিটি যেমনÑ অর্থ উপ-কমিটি, ত্রাণ উপ-কমিটি, স্বাস্থ্য উপ-কমিটি, প্রচার উপ-কমিটি এবং শিক্ষা উপ-কমিটি কাজ করত। প্রতিটি জোনে একজন শিক্ষা, একজন ত্রাণ, একজন প্রকৌশলী, একজন তথ্য, একজন হিসাবরক্ষক ও একজন পুলিশ কর্মকর্তা সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে জোনের দায়িত্ব পালন করতেন।

চ. স্বাস্থ্য ও কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং তথ্য মন্ত্রণালয়
মুক্তিযুদ্ধের সময় একজন মহাপরিচালকের নেতৃত্বে প্রথম স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছিল। স্বাস্থ্য বিভাগের দুটি ভাগ ছিল, সেনাবাহিনীর জন্য চিকিৎসাসেবা এবং বেসরকারি চিকিৎসাসেবা। দুটি বিভাগই প্রয়োজনীয় চিকিৎসক নিয়োগ, আহত/নিহতদের জন্য পরিবহন ব্যবস্থা করা, প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র সংগ্রহ করা, মাঠ পর্যায়ে চিকিৎসক দল প্রেরণের ব্যবস্থা করত।

ছ. স্বাধীন বাংলা বেতার
প্রথম স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও বেতার মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠাও একটি উল্লেখযোগ্য অবদান। যুদ্ধের ৯ মাস বাঙালি জনগণের মনোবল বৃদ্ধি করায় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ভূমিকা সর্বজনবিদিত। ১৯৭১ সালের ২১ মার্চ চট্টগ্রাম কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে শুরু করে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই বেতার কেন্দ্র অসাধারণ অবদান রেখেছে।

জ. স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সৃষ্টি
প্রথম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মুক্তাঞ্চল ও শরণার্থী ক্যাম্পে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা এবং প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে শৃঙ্খলা বজায় রাখার দিকে লক্ষ্য রাখত। প্রথমে আইজিপি, পরে সচিব হিসেবে নিযুক্ত জনাব আবদুল খালেক এই মন্ত্রণালয়কে প্রধানত ৩টি ভাগে বিভক্ত করে কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণ করতেন। যুদ্ধকালে এই মন্ত্রণালয় পুলিশের পোশাক, ব্যাজ, মনোগ্রাম ইত্যাদি নির্ধারণ করে। পুলিশের গোয়েন্দা সংগঠনও প্রথম বাংলাদেশ সরকারের আমলে গড়ে তোলা হয়েছিল। এই মন্ত্রণালয় ভারতে অবস্থানকারী বাংলাদেশিদের জন্য ভ্রমণ-দলিল ইস্যু করার কাজও করত।

ঝ. শরণার্থী সমস্যা সমাধানে ত্রাণ কমিটি ও বোর্ড গঠন
শরণার্থী সমস্যা মোকাবিলায় ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিভাগ সৃষ্টি তৎকালীন বাংলাদেশ সরকারের অন্যতম কাজ ছিল। সরকার দুটি কমিটির মাধ্যমে প্রধানত শরণার্থী সমস্যা মোকাবিলা করত। দুটি কমিটির একটি ত্রাণ ও পুনর্বাসন কমিটিতে জনাব জে.জি. ভৌমিককে রিলিফ কমিশনার নিযুক্ত করা হয়েছিল। প্রত্যেক আঞ্চলিক প্রশাসনিক ইউনিটের আওতায় এই কমিটি কাজ করত। অন্য কমিটি উদ্বাস্তু কল্যাণ বোর্ড শরণার্থীদের পুনর্বাসনে নিয়োজিত বিভিন্ন সংগঠনকে সমন্বিত করার দায়িত্ব পালন করত। সংগঠনগুলোর অন্তর্ভুক্ত ছিল বাংলাদেশ রেডক্রস সমিতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি, বাংলাদেশ স্বেচ্ছাসেবক সংস্থা ইত্যাদি। এসব সংস্থার প্রধান হিসেবে যথাক্রমে ডা. আসহাবুল হক এমপিএ, জনাব কামরুজ্জামান এমএনএ এবং ব্যারিস্টার আমীর উল ইসলাম দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

ঞ. সংসদ বিষয়ক বিভাগ এবং কৃষি বিভাগ সৃষ্টি
একটি দেশের সরকার জনগণের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট যেসব কাজ করতে দায়বদ্ধ, তার সবই প্রথম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার দায়িত্ব নিয়ে সম্পাদন করেছিল। সরকার এজন্য পররাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয়ের অধীন সংসদ বিষয়ক বিভাগ প্রতিষ্ঠা করেছিল। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত গঠনে সংসদ বিষয়ক বিভাগের সঙ্গে যুক্ত এমএনএ বা এমপিএ দায়িত্ব পালন করতেন।
যুদ্ধকালে কৃষি বিভাগের তেমন কোনো কাজ না থাকলেও যুদ্ধোত্তর কালে স্বাধীন বাংলাদেশের কৃষি-ব্যবস্থার রূপরেখা প্রণয়নে কৃষি বিভাগ সৃষ্টি করেছিল প্রথম বাংলাদেশ সরকার। জনাব নূরুদ্দিন আহমদকে কৃষি সচিব হিসেবে নিয়োগ দিয়ে সরকার বাংলাদেশে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি, বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ, সহজ শর্তে ঋণ দান প্রভৃতি কর্মসূচি গ্রহণ করে।

ট. প্রকৌশল বিভাগ, পরিকল্পনা সেল সৃষ্টি
পাক-বাহিনীর হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত যোগাযোগ-ব্যবস্থা দ্রুত মেরামতের জন্য এবং সেক্টর কমান্ডারদের নিজ নিজ এলাকায় প্রকৌশল বিষয়ক সমস্যা সমাধানে কিছু প্রকৌশলীকে নিয়োগ প্রদান করে প্রকৌশল বিভাগ সৃষ্টি করেছিল সরকার। যুদ্ধ শেষে এই বিভাগ বড় রেলসেতু এবং সড়কসেতু মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহণ করে।
বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্র বিশেষ করে হাই কমান্ডের পরামর্শের ভিত্তিতে পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা সেল গঠন করেছিল। পাকিস্তান শাসনামলে উন্নয়ন বঞ্চিত সেক্টরসমূহ চিহ্নিত করে সেসব ক্ষেত্রে উন্নয়নের ব্যবস্থা যাতে করা যায়, এ নিমিত্তেই উক্ত সেল গঠিত হয়েছিল। পরবর্তীতে অবশ্য এই সেল পরিকল্পনা কমিশনে রূপান্তরিত হয়। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রশাসনিক কাঠামো নির্মাণে পরিকল্পনা কমিশন নীতিমালা তৈরি করেছিল। পরিকল্পনা কমিশনের চেয়ারম্যান নিযুক্ত হয়েছিলেন ড. মোজাফ্ফর আহমদ চৌধুরী। সদস্যবৃন্দের মধ্যে ছিলেনÑ ড. খান সরওয়ার মুর্শেদ, ড. মোশাররফ হোসেন, ড. এসআর বোস এবং ড. আনিসুজ্জামান। প্লানিং কমিশনের অর্থনীতিবিদ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন সিনিয়র লেকচারার সনৎকুমার সাহাকে।
আমাদের পরিকল্পনা বোর্ড ভারতীয় পরিকল্পনা কমিশনের সহায়তায় মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আগস্ট মাস থেকে যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বাধীন দেশের পুনর্গঠন পরিকল্পনা প্রণয়নে ব্যস্ত ছিল। বেসামরিক প্রশাসন পুনস্থাপন সংক্রান্ত সচিব কমিটির সাথে আমাদের কয়েকজন শ্রদ্ধেয় মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপককে সংশ্লিষ্ট করা হয়েছিল। বাংলাদেশ যখন শত্রুমুক্ত ও স্বাধীন হওয়ার দ্বারপ্রান্তে উপনীত তখন ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর ভারতীয় প্লানিং কমিশনের সদস্য ড. সুখময় চক্রবর্তী আমাদের প্লানিং বোর্ডের সাথে বসে সরবরাহ-ব্যবস্থা, শরণার্থী ও বাস্তুহারা মানুষের প্রত্যাবর্তন ও পুনর্বাসন এবং পুনর্গঠনের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করতে সহযোগিতা করেছিলেন। উল্লেখ করা প্রয়োজন, বাংলাদেশের প্রত্যেক জেলায় আমাদের নিজস্ব ডেপুটি কমিশনার এবং পুলিশ সুপার নিয়োগ করে তাদের নিজ নিজ কর্মস্থলে যোগদানের নির্দেশও দেওয়া হয়েছিল। মুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোর জন্য সম্ভাব্য ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে প্রস্তুত থাকার নির্দেশও প্রথম বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছিল। ঢাকা বিমানবন্দরের গুরুত্বপূর্ণ পদ সিভিল অ্যাসোসিয়েশন ডিরেক্টর। আমাদের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি উইং কমান্ডার মির্জা (অব.) যিনি যুবশিবির দপ্তর পরিচালনা করেছিলেন, তাকে বিমান বন্দরের জাতীয় সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণ করার ব্যবস্থা করতে ১৮ ডিসেম্বর ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছিল। তিনি তৎকালীন গ্রুপ ক্যাপ্টেন খন্দকারের সহায়তায় তার দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

ঠ. বুদ্ধিজীবী হত্যা করে শূন্যতা সৃষ্টির মুখেও সরকারের দৃঢ় অবস্থান
পাকিস্তানি সেনাবাহিনী যখন বুঝতে পারল যে, বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে যাচ্ছে তখন তারা যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ যাতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে, সে জন্য পরিকল্পিত উপায়ে দেশের বহু বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করেছিল। কিন্তু প্রথম বাংলাদেশ সরকার এসব প্রতিকূলতার তোয়াক্কা না করে তার তৎকালীন ছোট পরিসরের প্রশাসনিক কর্মীবৃন্দকে নিয়ে দেশ পরিচালনা করেছিলেন। প্রশাসনযন্ত্র আরও গতিশীল করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি অনুগত সব সহকর্মীকে বিভিন্ন পদে নিযুক্ত করা হয়েছিল। শেরে বাংলা নগরস্থ তথাকথিত বন্দিশিবিরে আটক বন্ধুবর আইয়ুবুর রহমান (সিএসপি ১৯৬৭), আ. ন. ম. ইউসুফ (সিএসপি ১৯৬১), সৈয়দ রেজাউল হায়াত (সিএসপি ১৯৬৭), নূরুল মোমেন খান (পিএসপি ১৯৬১), লোকমান হোসেন (ডিরেক্টর, ডাক ও তার বিভাগ), শাহ মোহাম্মদ ফরিদ (সিএসপি ১৯৬৮) এবং আরও অনেককে সরকারি বিভিন্ন পদে নিয়োগ করা হয়েছিল। এতে সরকারি কাজ গতিশীল হয়।

ড. বাণিজ্য বোর্ড গঠন
শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাণিজ্য বোর্ড নামে একটি সংস্থা গঠিত হয়েছিল প্রথম বাংলাদেশ সরকারের আমলে। বাণিজ্য বোর্ড মুক্তিযুদ্ধ চলাকালেই ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সম্ভাবনা সম্পর্কে আলোচনা করে। বাংলাদেশ শত্রুমুক্ত হওয়ার পর সোভিয়েত বাণিজ্যিক প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসে এবং বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করে। প্রথম বাংলাদেশ সরকারের উদ্যোগের কারণে পরবর্তীতে বাংলাদেশের পাট ও পাটজাত দ্রব্য অতি দ্রুত সমাজতান্ত্রিক দেশগুলোতে রপ্তানি হতে শুরু করে। বাংলাদেশের চামড়া ও চা বিদেশে রপ্তানির বিষয়েও প্রথম সরকার উদ্যোগ নিয়েছিল।

ঢ. যুবশিবির : মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা
ভারতে আগত শরণার্থীদের সেদেশের সরকার আশ্রয়, খাদ্য, চিকিৎসা দিচ্ছিলেন। সেজন্য প্রয়োজন ছিল বিপুলসংখ্যক তাঁবু, খাবার রেশন এবং সামান্য কিছু অর্থ সাহায্য। আমাদের সরকারের তরফ থেকেও সাধ্যমতো সবরকম সাহায্য করা হচ্ছিল। এই শরণার্থীদের মধ্যে বিরাট একটি অংশ ছিল ছাত্র, যুবক, শ্রমিক, কৃষক, বিভিন্ন দলের রাজনৈতিক কর্মী (আওয়ামী লীগ/ছাত্রলীগের সংখ্যা ছিল সর্বাধিক)। এরা আশ্রয়ের জন্য ভারতে যায়নি, গিয়েছিল দেশমাতৃকার ডাকে, দেশকে মুক্ত করার লড়াইয়ে অংশগ্রহণ করতে। তার জন্য প্রয়োজন শৃঙ্খলাবোধ, প্রশিক্ষণ এবং অস্ত্র। প্রশিক্ষণ ও অস্ত্র দিলেই শেষ নয়Ñ তার চেয়ে বড় বিষয় শৃঙ্খলাবোধ থেকে নিয়মনীতির মধ্যে সশস্ত্র সংগ্রামে অংশগ্রহণ। আরেক কথায়, একটি শৃঙ্খলা-ক্রমে (Chain of Command) থেকে নির্ধারিত সমরকৌশল অবলম্বন করে যুদ্ধ।
বৈশিষ্ট্য
১.    আশ্রয়গ্রহণকারী জনসংখ্যার মধ্যে যারা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক তাদের জন্য ভিন্ন শিবির স্থাপন।
২.    প্রথম স্তরে যে শিবিরে তাদের নেওয়া হবে সেগুলো হবে অভ্যর্থনা-শিবির (Reception Camp), এখানে তাদের দেওয়া শারীরিক শিক্ষা (Physical Training), মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধকরণ প্রশিক্ষণ (Motivation) এবং শৃঙ্খলাবোধ (Discipline).
৩.    প্রশিক্ষণ শেষে বাছাই করে যে যে রকম উপযুক্ত সেভাবে নিয়োগ করা হবে। একদল যাবে মূল বাহিনীতে (Base Training); আরেক দল যাবে নিয়মিত বাহিনীর (Regular Force)
সাথে উপযুক্ত প্রশিক্ষণ নিতে; কোনো দল যাবে তথ্য সংগ্রহ ও রেকি (Intelligence Reconaissance) করতে; অন্য আরেকটি বিশেষ দলকে, যারা ছাত্রলীগের সদস্য, তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে ছাত্র-যুব নেতাদের কমান্ডে।
৪.    ভারত-সরকারের জন্য একটি কোনো অতিরিক্ত বোঝা হবে না, বাড়তি খরচও হবে না। যে তাঁবু আর রেশন ছেলেরা পেত শরণার্থী-শিবিরে, সেগুলোকেই অন্যত্র সরিয়ে পৃথক অভ্যর্থনা-শিবিরে সরবরাহ করলেই চলবে।
৫.    উদ্বুদ্ধকরণ (Motivation) এবং শৃঙ্খলা সম্বন্ধে জ্ঞানদান ও শিক্ষা দেওয়ার দায়িত্ব আমাদের।
৬.    পরবর্তীকালে মিলিটারি প্রশিক্ষণ (অধিকাংশই গেরিলা) এবং অস্ত্র সরবরাহ করার দায়িত্ব থাকবে আমাদের ও ভারত সরকারের ওপর যৌথভাবে। সেক্টর কমান্ডাররা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করবেন। শুধুমাত্র পূর্বাঞ্চলেই জুলাই মাসে ৩৩টি যুবশিবির প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

এদের পাশাপাশি ভারতীয় বাহিনীও যুবশিবির থেকে বাছাই করে গেরিলাদের নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করত। রাজনৈতিক ভাবধারায় বিশেষভাবে উদ্বুদ্ধ এবং ছাত্রলীগের সদস্যদের নিয়ে পৃথক বাহিনী গঠন করা হয়েছিল, যার নাম ছিল মুজিব বাহিনী। এদের সংগঠক ছিলেন শেখ ফজলুল হক মণি, জিরাজুল আলম খান, তোফায়েল আহমেদ, আ. স. ম. আবদুর রব, আবদুল কুদ্দুস মাখন, শাহজাহান সিরাজ, নূরে আলম সিদ্দিকী প্রমুখ প্রখ্যাত এবং বিপ্লবী ছাত্রনেতা।

১৯৭১-এর ২৬ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন; সেই সাথে দেশ শত্রুমুক্ত না হওয়া পর্যন্ত সশস্ত্র যুদ্ধের আহ্বান জানিয়েছিলেন। সেই ডাকে সাড়া দিয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বাংলার আপামর জনসাধারণ একটি সফল জনযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। এই সার্থক জনযুদ্ধ পরিচালিত হয়েছিল জাতির পিতার নামে, তার স্বপ্ন ও আদর্শ হৃদয়ে ধারণ করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার দেশকে শত্রু-মুক্ত করেছিলেন ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ এবং পিতাকে মুক্ত করে এনেছিলেন ১০ জানুয়ারি ১৯৭২। এটিই ছিল আমাদের গর্বের গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাফল্য।

শ্রেণী:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গৌরবোজ্জ্বল ৬৯ বছর : ইতিহাসের রেখাচিত্র

Posted on by 0 comment
8-6-2018 6-42-50 PM

8-6-2018 6-42-50 PMরায়হান কবির:

(পূর্ব প্রকাশের পর)
# ১৯৮৬ সালের ১০ জুলাই সংসদ অধিবেশন বসলেও সামরিক আইন বহাল থাকে। সামরিক আইন বহাল রেখেই ১৯৮৬-এর ১৫ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের দিন ধার্য করা হয়। সামরিক শাসকরা বিরোধী দলগুলোর হরতাল, সমাবেশ এবং জনগণের অংশগ্রহণের তোয়াক্কা না করেই গায়ের জোরে ১৫ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠান করে। ১ নভেম্বর সংবিধানের সপ্তম সংশোধনী উত্থাপন করা হয় জাতীয় সংসদে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ১৫ দল সপ্তম সংশোধনীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে সংসদে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকে। বিরোধিতার মুখেও ১০ নভেম্বর সপ্তম সংশোধনী পাস করা হয়। সপ্তম সংশোধনীর দ্বারা ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ থেকে জারিকৃত সকল সামরিক ফরমান, আদেশ, অধ্যাদেশ এবং শাসকদের সকল কৃতকর্ম ‘বৈধতা’ অর্জন করে।
# ১৯৮৬-এর ১০ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে সামরিক আইন প্রত্যাহারের পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেওয়া হয়।
# ১৯৮৭ সালের ১, ২ ও ৩ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের চতুর্দশ জাতীয় কাউন্সিল। কাউন্সিলে সর্বসম্মতিক্রমে শেখ হাসিনাকে সভাপতি ও সাজেদা চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কার্যনির্বাহী সংসদ গঠিত হয়।
# ১৯৮৭ সালের ২৮ অক্টোবর দুই বিরোধী নেত্রী শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়ার মধ্যে বৈঠক হয়। ১৫ দল, ৭ দল এবং ইতোমধ্যে গড়ে ওঠা ৫-দলীয় বাম জোট যুগপৎ আন্দোলনের ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছায়। ১০ নভেম্বর বিরোধী দলগুলোর উদ্যোগে ঢাকা অভিযানের কর্মসূচি নেওয়া হয়। সরকার কর্মসূচি ঠেকাতে ১৪৪ ধারা জারি করে। কিন্তু ১০ নভেম্বর ঢাকার সকল প্রবেশ পথ সরকার বন্ধ করে দিলেও হাজার হাজার মানুষ ঢাকায় সমবেত হয়। সেদিন পুলিশের গুলিবর্ষণে ঢাকার জিরো পয়েন্টের কাছে শরীরে ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরতন্ত্র নিপাত যাক’ লিখে বিক্ষোভরত যুবলীগ কর্মী নূর হোসেন ও কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থেকে আসা সিপিবি-র কর্মী আমিনুল হুদা টিটু নিহত হয়। সরকার শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়াকে ১১ নভেম্বর গৃহে অন্তরীণ করে এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে ব্যাপক ধরপাকড় করে। বিরোধী দলের আহ্বানে ১১ থেকে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত অর্ধদিবস এবং ২১ নভেম্বর থেকে একটানা ৪৮ ঘণ্টার হরতাল বাংলাদেশকে অচল করে দেয়। ২৭ নভেম্বর জেনারেল এরশাদ সারাদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন।
# ১৯৮৮-এর ২৪ জানুয়ারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চট্টগ্রামে ১৫ দলের মিছিলে পুলিশের এলোপাতাড়ি গুলিতে ৯ জন নিহত হয়। ১৯৮৮ সালের ২৩ মার্চ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত ছোট-বড় প্রায় সকল দল এই নির্বাচন বর্জন করে।
# ১৯৮৮ সালের ১২ এপ্রিল ১৯৮৭-এর ২৭ নভেম্বর জারিকৃত জরুরি আইন প্রত্যাহার করা হয়। ১৯৮৮ সালের ৭ জুন জাতীয় সংসদে সংবিধানের অষ্টম সংশোধনী বিল পাস করে ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ১০ জুলাই পাস করা হয় নবম সংবিধান সংশোধনী।
# ১৯৮৯ সালের ১০ আগস্ট শেখ হাসিনার প্রাণনাশের উদ্দেশ্যে তার বাসভবনে ফ্রিডম পার্টির দুষ্কৃতিকারীরা হামলা চালায়। সমগ্র দেশে এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।
# ১৯৯০ সালের ৫ জুন শেখ হাসিনা অবিলম্বে এরশাদের পদত্যাগ দাবি করেন এবং নতুন করে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের আহ্বান জানান। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ১৫ দল (৮ দল) আন্দোলনের কর্মসূচি দেয়। ১৯৯০-এর ১০ অক্টোবর বিরোধী জোট ও দলগুলোর সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশের গুলিবর্ষণে ৫ জন নিহত হয়।
# ১৯৯০ সালের ১৯ নভেম্বর ১৫, ৭ ও ৫ দল অর্থাৎ তিন জোট এরশাদের পদত্যাগ এবং সাংবিধানিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখে ক্ষমতা হস্তান্তরের একটি ফর্মুলা, যা ‘তিন জোটের রূপরেখা’ হিসেবে পরিচিত ঘোষণা করে।
# ১৯৯০-এর ২৪ নভেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর অব্যাহত ছাত্র ধর্মঘট, পেশাজীবীদের আন্দোলন, হরতাল-সমাবেশ-প্রতিবাদের মুখে শাসকগোষ্ঠী মরিয়া আঘাত হানে। ২৭ নভেম্বর বিএমএ নেতা ডা. শামসুল আলম মিলনকে এরশাদের সন্ত্রাসী গু-ারা গুলি করে হত্যা করে। এই দিন বিকেলে শেখ হাসিনাকে আটক করে গৃহবন্দি রাখা হয়। ৪ ডিসেম্বর রাজধানী ঢাকায় অভূতপূর্ব গণ-অভ্যুত্থান সৃষ্টি হয়। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ লক্ষ লক্ষ মানুষ রাজপথে নেমে আসে। শেখ হাসিনা ১৫ দলের সমাবেশ থেকে ‘এই মুহূর্তে এরশাদের পদত্যাগ’ দাবি করেন। জেনারেল এরশাদ পদত্যাগের ঘোষণা দেন। ৫ ডিসেম্বর তিন জোটপ্রধান বিচারপতি শাহাবুদ্দিনের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রস্তাব করেন। অবশেষে তিন জোটের রূপরেখা অনুযায়ী ৬ ডিসেম্বর এরশাদ বিচারপতি শাহাবুদ্দিনের কাছে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। অবসান ঘটে দীর্ঘ ৯ বছরের স্বৈরশাসনের।
# ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি শাহাবুদ্দিনের নির্দলীয় অন্তর্বর্তী সরকারের অধীনে পঞ্চম জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে বিএনপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী জোটভুক্ত দলগুলো ৯৯টি আসন লাভ করে। বিএনপি পায় ১৪২টি আসন। তারপরও সরকার গঠনে বিএনপিকে জামাতের ১৮ সদস্যের সমর্থন নিতে হয়।
# ১৯৯১ সালের ৩১ জুলাই আবদুর রাজ্জাকের নেতৃত্বাধীন বাকশাল আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে একীভূত হওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে, ১৪ আগস্ট থেকে তা কার্যকর হয়। অন্যদিকে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে দলের অভ্যন্তরে আবার উপদলীয় কর্মকা- শুরু হয়। ১৯৯২ সালের ২১ জুন ড. কামাল হোসেন ৪৮ সদস্য বিশিষ্ট ‘গণতান্ত্রিক ফোরাম’ গঠন করেন। এই গণতান্ত্রিক ফোরামই ১৯৯৩ সালের ২৩ আগস্ট ‘গণফোরাম’ নামে রাজনৈতিক দল হিসেবে আবির্ভূত হয়।
# ১৯৯২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি গোলাম আযম ও তার সহযোগীদের বিচারের লক্ষ্যে জাহানারা ইমামকে আহ্বায়ক করে গঠিত হয় জাতীয় সমন্বয় কমিটি। ১৫ ফেব্রুয়ারি আত্মপ্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি। ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে লক্ষ মানুষের সমাবেশে গণ-আদালতের এজলাস বসিয়ে যুদ্ধাপরাধের জন্য গোলাম আযমের ফাঁসির রায় ঘোষণা করা হয়। শেখ হাসিনা একে জনতার বিজয় বলে অভিহিত করেন। কবি সুফিয়া কামাল, জাহানারা ইমাম ও শেখ হাসিনা এক মঞ্চ থেকে গোলাম আযমের ফাঁসির রায় কার্যকর করার দাবিতে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের আহ্বান জানান। সরকার জাহানারা ইমামসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে।
# ১৯৯২ সালের ১৯ ও ২০ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলের দ্বিতীয় দিন ২০ সেপ্টেম্বর নতুন অর্থনৈতিক নীতিমালার আলোকে দলের ঘোষণাপত্র ও গঠনতন্ত্রের সংশোধনী সর্বসম্মতিতে গৃহীত হয়। ওই দিন রাত ৮টায় কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও জেলা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক সমন্বয়ে গঠিত সাবজেক কমিটি ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের রুদ্ধদ্বার কক্ষে বৈঠক বসে এবং শেখ হাসিনাকে সর্বসম্মতভাবে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন প্রশ্নে দীর্ঘক্ষণ আলোচনার পর ২১ সেপ্টেম্বর ভোর পৌনে ৪টায় জিল্লুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে কাউন্সিল।
# ১৯৯৪ সালের ১ জানুয়ারি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফ মেয়র পদে জয়লাভ করেন। কিন্তু সরকার-দলীয় পরাজিত কমিশনার প্রার্থীর ব্রাশফায়ারে ওই দিন ঢাকার লালবাগে ৬ আওয়ামী লীগ কর্মী-সমর্থক নিহত হন।
# মিরপুর ও মাগুরা উপনির্বাচনে বিএনপির ভোট ডাকাতি ও কারচুপির পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ ‘নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার’-এর অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবি উত্থাপন করে। বিরোধী দলগুলো এই দাবি সমর্থন জানায়। গড়ে ওঠে আন্দোলন।
# ১৯৯৪ সালের ২১ সেপ্টেম্বর শেখ হাসিনা উত্তরবঙ্গে গণ-সংযোগের জন্য ট্রেন অভিযাত্রা শুরু করেন। ২৩ সেপ্টেম্বর ঈশ্বরদী ও নাটোরে শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ, বোমাবাজি, হামলা ও সন্ত্রাসী তা-ব চালায় বিএনপি ক্যাডাররা। ৬ ডিসেম্বর সংসদের বিরোধী দলগুলো পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেয়। ২৮ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ থেকে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জামাত ও এনডিপি দলীয় সংসদ সদস্যগণ একযোগে পদত্যাগ করেন।
#১৯৯৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গণে আওয়ামী লীগের বিশেষ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়।
#১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বিএনপি কর্তৃক একদলীয় ভোটারবিহীন নির্বাচন। তীব্র গণ-আন্দোলনের মুখে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে খালেদা সরকার পদত্যাগ করে। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর।
#১৯৯৬ সালের ১২ জুন সপ্তম জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। আওয়ামী লীগ মোট ভোটের ৩৭.৫৩ শতাংশ ভোট ও ১৪৬টি আসন পায়। বিএনপি পায় ৩৩.৪০ শতাংশ ভোট ও ১১৬টি আসন। জাতীয় পার্টি পায় ১৫.৯৯ শতাংশ ভোট ও ৩২টি আসন এবং জামাত পায় ৮.৫৭ শতাংশ ভোট ও ৩টি আসন। বামফ্রন্ট কোনো আসন পায়নি, ভোট পায় ০.৪২ শতাংশ। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ জনগণের রায় নিয়ে দেশ পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করে। ২৩ জুন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা দিবসে শেখ হাসিনা জাতীয় ঐক্যের সরকার গঠন করেন।

১৯৯৬-২০০১ আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামল
বিএনপি আমলের খাদ্য উৎপাদন ১ কোটি ৮০ লাখ টন থেকে ২ কোটি ৬৯ লাখ টনে উন্নীতকরণ। খাদ্যে আত্মনির্ভরশীলতার পথে দেশ। শেখ হাসিনার জাতিসংঘের ‘সেরেস’ পুরস্কার অর্জন।
১৯৯৬ সালের ১২ ডিসেম্বর ভারতের সাথে গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি সম্পাদিত। পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়।
পার্বত্য চট্টগ্রামে ভ্রাতৃঘাতী হানাহানি বন্ধ। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পার্বত্য শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর। শেখ হাসিনার ইউনেস্কোর হুফে বয়েনি শান্তি পুরস্কার লাভ।
যমুনায় বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণকাজ সম্পন্ন।
নারীর ক্ষমতায়ন। স্থানীয় সংরক্ষিত আসনে সরাসরি নির্বাচন প্রথা চালু। পিতার সাথে মাতার নাম লেখা বাধ্যতামূলক করা।
প্রবৃদ্ধির হার ৬.৪ শতাংশে উন্নীতকরণ এবং মুদ্রাস্ফীতি ১.৪৯ শতাংশে নামিয়ে আনা। ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ।
১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো ২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মর্যাদা দান করে।
# ১৯৯৭ সালের ৬ ও ৭ মে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিল শেখ হাসিনাকে সভাপতি ও জিল্লুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক পুনর্নির্বাচিত করে।
# ২০০০ সালের ২৩ জুন পল্টন ময়দানে আওয়ামী লীগের বিশেষ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়।
# ২০০১-০৬, ১ অক্টোবর কারচুপির নির্বাচন। বিএনপি-জামাত জোটের ক্ষমতা দখল। হত্যা, নির্যাতন, দুর্নীতি ও দুঃশাসনের কালো অধ্যায়।
# ২০০২ সালের ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল। শেখ হাসিনা সভাপতি হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হন। সাধারণ সম্পাদক হন মো. আবদুল জলিল এমপি।
# ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা। আইভি রহমানসহ ২৪ নেতাকর্মী নিহত। শেখ হাসিনার কানের পর্দা ফেটে গিয়ে আহত।
# ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বিরোধী দলের আন্দোলনের মুখে বিএনপি-জামাতের নীলনকশার নির্বাচন বাতিল, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বঘোষিত প্রধানের পদ থেকে ইয়াজউদ্দিনের পদত্যাগ। জরুরি অবস্থা ঘোষণা।
ড. ফখরুদ্দীনের নেতৃত্বে নতুন নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দায়িত্বভার গ্রহণ।
শেখ হাসিনাকে রাজনীতি থেকে অপসারণের উদ্দেশ্যে মাইনাস টু ফর্মুলা প্রদান।
১৬ জুলাই, ২০০৭-এ জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার।
বিএনপিতে সংস্কারবাদীদের ভিন্ন কমিটি গঠন। আওয়ামী লীগে সংস্কারবাদীরা কোণঠাসা।
# ২০০৮ : গণ-আন্দোলনের মুখে মাইনাস টু ফর্মুলা ব্যর্থ। শেখ হাসিনাকে মুক্তিদান। ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত। ৩০০টির মধ্যে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের ২৬৪টি আসন লাভ।
#২০০৯ সালের ২৪ জুলাই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অষ্টাদশ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে। কাউন্সিলে পরিবর্তিত বাস্তবতার আলোকে নতুন ঘোষণাপত্র গ্রহণ করা হয়। কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভাপতি এবং সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
# বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তির পর ২০১০ সালের ২৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার দ-প্রাপ্ত আসামির মৃত্যুদ- কার্যকর। জাতি হয় কলঙ্কমুক্ত।
#২০১২ সালের ২৯ ডিসেম্বর দলের আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভাপতি এবং সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
# ২০০৯-১৪ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহাজোট সরকারের সময়কালে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার কর্মযজ্ঞ শুরু হয়। সবগুলো সূচকেই এগিয়ে যায় বাংলাদেশ।
# ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয় লাভ করে আওয়ামী লীগ। তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন জননেত্রী শেখ হাসিনা। ২০০৯ থেকে ২০১৬ বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার প্রধানমন্ত্রিত্বের এ সময়কালে দুর্বারগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।
#২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত তিন মেয়র প্রার্থী নির্বাচিত হন।
# ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত পৌরসভা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের যাত্রা শুরু হয়। এ পর্যন্ত দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত ২৬৫টি পৌরসভার মধ্যে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত ২০২ প্রার্থী জয়লাভ করেন।
# ২০১৬ সালে ৬ ধাপে দেশের ৪ হাজার ১০৪টি ইউনিয়ন পরিষদে প্রথমবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ২ হাজার ৬৬৭টি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বিজয় লাভ করে।
# ২০১৬ সালের ২২ ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে জননেত্রী শেখ হাসিনা সভাপতি এবং ওবায়দুল কাদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন। এই কাউন্সিলের মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য সংখ্যা ৭১ থেকে ৮১-তে উন্নীত করা হয়। একইভাবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যান্য শাখার কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য সংখ্যাও বৃদ্ধি করা হয় এবং স্থানীয় সরকার নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ড গঠনসহ বেশ কিছু সংশোধনী ও নতুন ধারা সংযোজিত হয়।
# ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী  ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভি বিপুল ভোটে জয়লাভ করে।
# ২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর জেলাপরিষদ চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হয় জেলে পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়লাভ করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
# ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘কারাগারের রোজনামচা’ গ্রন্থ।
# ২০১৭ সালের ২০ মে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত হয়।
# ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর ‘জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা (ইউনেস্কো)’ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল হেরিটেজ রেজিস্টার’ বা বিশ্ব ঐতিহ্যের দলিল হিসেবে ঘোষণা করে।
# ২০১৮ সালের ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের স্বীকৃতি অর্জন করে বাংলাদেশ।
# ২০১৮ সালের ২৭ এপ্রিল অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে ‘গ্লোবাল সামিট অন উইমেন’ প্রদানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনাকে ‘গ্লোবাল লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করে।
# ১১ মে শুক্রবার (বাংলাদেশ সময়) দিবাগত রাত ২টা ১৪ মিনিটে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার মহাকাশ কেন্দ্র ‘স্পেস-এক্স’ থেকে নিজস্ব উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট’ উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইট যুগে প্রবেশ করে বাংলাদেশ।
# ২৬ মে কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মজয়ন্তীতে পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলের ‘কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব লিটারেচার (ডি-লিট)’ প্রদান করে।  গণতন্ত্র, নারীর ক্ষমতায়ন, দারিদ্র্য বিমোচন এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন থেকে জনগণের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এ সম্মাননা প্রদান করে ‘কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়’।
[সমাপ্ত]

শ্রেণী:

শেষের সেদিনে মুখোমুখি যারা

Posted on by 0 comment
shPMc

shPMcজাফর ওয়াজেদ: ছিলেন তিনি ক্ষণজন্মা পুরুষ। হিমালয়ের চেয়ে উঁচু যার ব্যক্তিত্ব ও সাহস। নিজ জাতিকেও করে তুলেছিলেন সাহসী যোদ্ধা। স্বাধীন দেশে ষড়যন্ত্রকারীরা শান্তিতে দেশ পরিচালনা করতে দেয়নি। কেমন কেটেছে শেষের দিনগুলো? রাষ্ট্রপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শেষের দিনগুলো কেমন ছিল? ঘাতকের নিঃশ্বাস কি তিনি অনুভব করতে পেরেছিলেন? ‘নাগিণীরা চারিদিকে ফেলিতেছে বিষাক্ত নিঃশ্বাস’; যিনি নিজেই জনসভায় আবৃত্তি করতেন, তিনি কি টের পাবার সময়টুকু পেয়েছিলেন যে ঘাতকরা যে কোনো সময়, যে কোনো মুহূর্তেই আঘাত হানবে? বিশ্বাস তো ছিল তার প্রখর যে, কোনো বাঙালি তাকে হত্যা দূরে থাক, আঘাত করার মতো মানসিকতা রাখে না। ভেবেছিলেন ‘সাড়ে সাত কোটি সন্তানেরে হে মুগ্ধ জননী, রেখেছো বাঙালী করে, মানুষ করো নি’র বিপরীতে তার বাঙালি মানুষে পরিণত হয়েছে; সুতরাং মনুষ্যবিবর্জিত কোনো কর্মকা- বাঙালি করবেÑ এ ছিল ভাবনার জগতে অস্পৃশ্য। অথচ বাস্তবতা ছিল ভিন্ন। ঘাতকরা তখনও ‘শান্তির ললিত বাণী শোনাইবে ব্যর্থ পরিহাস’ করে অস্ত্র শানিয়ে যাচ্ছে ষড়যন্ত্রের নানা ঘুঁটি পাকিয়ে। দেশজুড়ে নানারকম অস্থিরতা, অরাজকতার যে ডালপালা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে, তা নিরসনের পদক্ষেপগুলো দৃশ্যমান হয়ে উঠছে। তার প্রতিটি পদক্ষেপই ছিল শান্তির পরিবেশ সৃষ্টির। আর এই সময়টাতে তিনি দ্রব্যমূল্যকে নিয়ে এসেছিলেন নিয়ন্ত্রণে। সবকিছু সুনসান হয়ে ওঠার মুহূর্তগুলো ধরা দিতে থাকে ক্রমশ।
শেষের দিনগুলোতে খুনিদের সহযোগী, পরামর্শকরাও দেখা-সাক্ষাৎ করেছেন রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে। তারা কি ঘটনাপূর্ব ‘রেকি’ করছিলেন না-কি সবটাই দাফতরিক কাজ ছিল, তা স্পষ্ট হয় পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে সেনাবাহিনীর কতিপয় বিপথগামী সদস্য। এই হত্যা পরিস্থিতি সৃষ্টির নেপথ্যে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষে জড়িত ছিল দেশি-বিদেশি অনেক কুশীলব। সেসব ক্রমশ প্রকাশিত হয় এখনও। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। কিন্তু হত্যার ষড়যন্ত্র আজও সম্পূর্ণ ও সঠিকভাবে অনুদ্ঘাটিত।
১৯৭৫ সালের ১ আগস্ট হতে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত দু-সপ্তাহের দিনগুলোতে রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু কাটিয়েছিলেন খুবই ব্যস্ত সময়। সরকারি কর্মসূচির বাইরেও গঠিত নতুন দল বাকশালের পূর্ণাঙ্গ ‘সেট আপ’ তৈরিতেও ছিলেন ব্যস্ত। পাশাপাশি খুনিরাও ছিল অপতৎপরতায় শশব্যস্ত।
রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবের ১৪ দিনের সরকারি কর্মসূচির তালিকা পর্যালোচনা করলে বিস্ময় জাগে যে, শেষের সেই দিনগুলোতে ব্যস্ততার মাঝেও কেটেছে রাষ্ট্রনায়কের বিচিত্র মানুষের সংস্পর্শে। নেতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল এমন লোকজন ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরাও শেষ দিনগুলোতে তাকে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে দিয়েছে, এমনটা নয়। নানামুখী চাপ তার স্কন্ধজুড়ে তখন।
বিস্ময় বাড়ে যে, বঙ্গবন্ধুর এই সময়ের সাক্ষাৎপ্রার্থী, যারা নেতার সান্নিধ্য পেতে ভিড় করেছিলেন তাদের অনেককেই দেখা গেছে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতের পর তার খুনি ও শত্রুদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ ও হাতে হাত মেলাতে, দখলদার সরকারের মন্ত্রী হতে। ছিল যারা তার পারিষদ। আরও বিস্ময় জাগায় যে, বঙ্গবন্ধুর হত্যার সঙ্গে যেসব দেশ বা তার রাষ্ট্রদূতরা নানাভাবে জড়িত তা ক্রমশ প্রকাশিত হচ্ছে এই একুশ শতকে এসেও। ফাঁস হচ্ছে ষড়যন্ত্রের নানাবিধ জাল। দেখা যায়, শেষের দিনগুলোতে তাদের কয়েকজন বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন, কথা বলেছেন। তারা রাষ্ট্রপতি মুজিবের মানসিক অবস্থা বুঝতে দেখা করেছিলেন সম্ভবত। অনুমান করা যায়, তাদের এই সাক্ষাৎ বঙ্গবন্ধুর ভেতরের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে ‘ঝোপ বুঝে কোপ মারার’ মতোই ছিল হয়তো।
কর্মসূচি ছিল ১৫ আগস্ট সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবর্তন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বঙ্গবন্ধুর। তার একদিন আগে ১৩ আগস্ট রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করেছিলেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। ১৫ আগস্টের ১০ দিন আগে ৫ আগস্ট দেখা করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত ইএ বোস্টার। সর্বশেষ সাক্ষাৎপ্রার্থী ছিলেন ১৪ আগস্ট সাংসদ অধ্যাপক আজরা আলী, যিনি ১৫ আগস্ট মোশতাকের পার্শ্বচর হয়ে যান। এমনকি খুনিদের পক্ষে সাফাই গেয়ে অন্য সাংসদদের মোশতাকের প্রতি আনুগত্য প্রকাশের জন্য চাপ প্রয়োগ করতেন। পরবর্তীতে তিনি মোশতাকের দল ডেমোক্র্যাটিক লীগও করেন। প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী নুরুল ইসলাম চৌধুরী সর্বাধিক সাক্ষাৎ করেছেন একা বা তিন বাহিনী-প্রধানকে নিয়ে পৃথকভাবে।
রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবের দৈনন্দিন সরকারি কর্মসূচিতে নজর দিলে দেখা যায়, সাক্ষাৎপ্রার্থীরা সাক্ষাৎকালে বেশি সময় বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ছিলেন, তা নয়। ১৫ হতে ২৫ মিনিট সময়কাল তারা অতিবাহিত করেন। স্বল্প সময়ে তারা কি হাসিল করেছেন তা স্পষ্ট হয় তাদের পরবর্তী কার্যক্রমে। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কর্মরত অনেকেই পরে খুনিদের সঙ্গে হাতও মেলায়। সর্বশেষ দিন ১৪ আগস্টের তালিকা হতে পেছনের দিকে গেলে ভেসে আসে অনেক নাম, যাদের স্বরূপ উন্মোচিত হয় ১৫ আগস্টের পর।
১৪ আগস্টের তালিকায় দেখা যায় দিনটি ছিল বৃহস্পতিবার। সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক চুং হির বিশেষ দূত সাক্ষাৎ করেন। সকাল ১০টায় নৌবাহিনী প্রধান দেখা করেন, যিনি ১৫ আগস্ট সকালে বেতারে গিয়ে মোশতাকের প্রতি আনুগত্যের ঘোষণা দেন অন্য বাহিনী-প্রধানদের সঙ্গে। ওই দিন সকাল সাড়ে ১০টায় খুনিদের অন্যতম সহযোগী বেতার ও তথ্য প্রতিমন্ত্রী তাহের উদ্দিন ঠাকুর এবং সকাল ১১টায় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী চট্টগ্রামের পটিয়ার নুরুল ইসলাম চৌধুরী ও বিমানবাহিনীর প্রধান এ কে খোন্দকার দেখা করেন। তাদের এই সাক্ষাতের ১৮ ঘণ্টা পর বঙ্গবন্ধু খুন হন। বিমানবাহিনী প্রধান ১৫ আগস্ট সকালে মোশতাকের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা করেন। প্রতিমন্ত্রী পরে মোশতাকের মন্ত্রী হন। সকাল সাড়ে ১১টায় দেখা করেন জাতীয় লীগ সভাপতি আতাউর রহমান খানের দুই কন্যা। এদের জামাতারা এবং সহোদররা পরে বিএনপিতে যোগ দেয়। বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বোস প্রফেসর ড. আবদুল মতিন চৌধুরী দেখা করে পরদিন সমাবর্তন আয়োজন সম্পর্কে বঙ্গবন্ধুকে অবহিত করেন। সন্ধ্যা ৬টায় শিক্ষামন্ত্রী প্রফেসর মোজাফফর আহমদ চৌধুরী ও শিক্ষা সচিব সাক্ষাৎ করেন। ড. মোজাফফর পরে জিয়ারও শিক্ষা উপদেষ্টা হয়েছিলেন। সর্বশেষ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সাক্ষাৎ করেন সংসদ সদস্য অধ্যাপক আজরা আলী এবং শ্রীমতি সুপ্রভা মাঝি। আজরা আলী মোশতাকের ডেমোক্র্যাটিক লীগের নেত্রী হয়েছিলেন। সুপ্রভা সম্পর্কে পরে কিছু জানা যায়নি। অনুমান করা যায়, আজরা আলী সেদিন বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে হয়তো এমন তথ্য নিয়েছেন, যা হত্যাকারীদের পরিকল্পনায় কাজে লেগেছে। ১৩ আগস্ট ছিল বুধবার। সকাল ১১টায় যুক্তরাষ্ট্রে নবনিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এমআর সিদ্দিকী বিদায়ী সাক্ষাৎ করেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় চাঁদপুরের এমপি এমএ রব সাক্ষাৎ করেন।
মঙ্গলবার ১২ আগস্ট সকাল ১০টায় সাক্ষাৎ করেন অর্থমন্ত্রী ড. আজিজুর রহমান মল্লিক, যিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী কর্নেল ফারুকুর রহমানের সম্পর্কে আপন খালু এবং মোশতাকের অর্থমন্ত্রী হিসেবে তিন দিন পর ১৫ আগস্ট সন্ধ্যায় শপথ নেন যখন বঙ্গবন্ধুর লাশ সিঁড়িতে। সন্ধ্যা ৬টায় দেখা করেন সফররত কমনওয়েলথ সেক্রেটারি অধ্যাপক এএফ হোসেন, যিনি পাকিস্তানি।
শিক্ষামন্ত্রী অধ্যাপক ইউসুফ আলী ১১ আগস্ট সোমবার সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। বাকশালের অঙ্গ সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি ছিলেন। ১৭ এপ্রিল মুজিবনগরে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠকারী। এই সাক্ষাতের চার দিন পর তিনি মোশতাকের মন্ত্রী হন। পরে জিয়াউর রহমানেরও শিক্ষামন্ত্রী হয়েছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সাক্ষাৎ করেন কর্মকমিশনের সদস্য আযহারুল ইসলাম।
রোববার ১০ আগস্ট ছিল সাপ্তাহিক ছুটির দিন। পাকিস্তান জামানা হতে এই ছুটি বহাল ছিল। এরশাদ যুগে রোববার ছুটি বাতিল হয়। ৯ আগস্ট শনিবার বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার স্থানীয় প্রতিনিধি ড. স্যাম স্ট্রিট সকাল ১০টায় সাক্ষাৎ করেন। আর সকাল ১১টায় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী নুরুল ইসলাম চৌধুরী ও সেনাপ্রধান জেনারেল শফিউল্লাহ। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সন্ধ্যা ৬টায় বাকশালের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান ও কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যসহ অন্যরা সাক্ষাৎ করেন। এটাই ছিল বঙ্গবন্ধুর বাকশাল নেতাদের প্রতি শেষ ভাষণ। সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় অ্যাটর্নি জেনারেল দেখা করেন।
৮ আগস্ট ছিল শুক্রবার। সকাল ১০টায় প্রথম ও দ্বিতীয় কর্মকমিশনের চেয়ারম্যানদ্বয় দেখা করেন। সকাল সাড়ে ১০টায় রেল প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ আলতাফ হোসেন এবং সাড়ে ১১টায় পানি, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী মোমিনউদ্দিন আহমদ সাক্ষাৎ করেন। এরা দুজন পরে মোশতাকের মন্ত্রী হন। সৈয়দ আলতাফ ছিলেন ন্যাপ (মুজাফফর) নেতা।
৭ আগস্ট বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় সুইজারল্যান্ডের নয়া রাষ্ট্রদূত পরিচয়পত্র পেশ করেন বঙ্গবন্ধুর কাছে। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে ‘প্রাচ্যের সুইজারল্যান্ডে’ রূপান্তর করার যে স্বপ্ন দেখেন, তা ব্যক্ত করেন। পরদিন সংবাদপত্রে তা ছাপা হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী নুরুল ইসলাম চৌধুরী, ১১টায় বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী দেওয়ান ফরিদ গাজী সাক্ষাৎ করেন। এরা দুজনে পরে মোশতাকের মন্ত্রী হন। বেলা ১২টায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন বিদেশ সফরের প্রাক্কালে সাক্ষাৎ করেন, যা ছিল শেষ সাক্ষাৎ। এই দিন বিকেল সাড়ে ৫টায় ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার সমর সেন সাক্ষাৎ করেন। এই সাক্ষাৎকালে মিস্টার সেন সতর্ক করেছিলেন বঙ্গবন্ধুকে নানা ষড়যন্ত্র সম্পর্কে। প্রতিক্রিয়াশীল চক্র মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে বলে তাদের কাছে তথ্য ছিল। সন্ধ্যা ৬টায় জাতীয় কৃষক লীগ কেন্দ্রীয় সদস্য আবদুল আওয়াল এবং ৬টা ১০ মিনিটে কাজী মোজাম্মেল হক এমপি সাক্ষাৎ করেন।
৬ আগস্ট বুধবার দুপুর ১২টায় শ্রমমন্ত্রী জহুর আহমদ চৌধুরী এবং ১২টা ১০ মিনিটে সংস্কৃতি, তথ্য ও বেতারমন্ত্রী কোরবান আলী ও প্রতিমন্ত্রী তাহের উদ্দিন ঠাকুর এবং সচিব মতিউল ইসলাম দেখা করেন।
৫ আগস্ট মঙ্গলবার সকাল ১০টায় সাক্ষাৎ করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত ইএ বোস্টার। বোস্টার জানতেন খুনিদের তৎপরতা। তিনি শেখ মুজিবকে ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সতর্ক করেন নি। বরং ঘটনার অনুচক্র হিসেবে তার ভূমিকা পরে প্রকাশিত হচ্ছে, হবে। হত্যাকা- সংঘটিত করার নেপথ্যে তার ভূমিকার কথা সর্বজনবিদিত। সাড়ে ১০টায় সাক্ষাৎ করেন শিল্পমন্ত্রী। বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে সিলেটের সাংসদ মোহাম্মদ ইলিয়াস, কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী ও গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী সাক্ষাৎ করেন। এই তিন সাংসদের কেউই মোশতাককে সমর্থন করেন নি; না করায় মানিক চৌধুরীকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হয়। এদিন সন্ধ্যা ৬টায় ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার শামসুর রহমান বিদায়ী সাক্ষাৎ করেন এবং গাইডলাইন নেন। ২০ আগস্ট তিনি মোশতাক সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সাক্ষাৎ করেন বেতারের ডিজি আশরাফুজ্জামান খান।
৪ আগস্ট সোমবার। সকাল ১০টায় দেখা করেন পাকিস্তান ফেরত মেজর জেনারেল মাজেদুল হক। ঢাকায় আসার আগের দিনও পাকিস্তান সরকারের অধীনে চাকরি করেছেন। ঢাকায় স্ক্রিনিং বোর্ড তাকে বাদ দেয়। কিন্তু তদবিরে সফল হয়ে সেনাবাহিনীর চাকরি ফিরে পান। পরে জিয়া-খালেদার মন্ত্রী হন। এই দিন বিকেল সাড়ে ৫টায় মোয়াজ্জেম আহমদ চৌধুরী, সন্ধ্যা ৬টায় জাতীয় কৃষক লীগ নেতা রহমত আলী এমপি সাক্ষাৎ করেন। তিনি মোশতাকের ‘স্বনির্ভর বাংলাদেশ’ কর্মসূচির কর্ণধার ছিলেন। সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটে মস্কোতে নিয়োগপ্রাপ্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত শামসুল হক সাক্ষাৎ করেন।
২ আগস্ট শনিবার সকাল পৌনে ১০টায় উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের বিশেষ দূত ইয়াং ফপ দেখা করেন। সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর কফিলুদ্দিন মাহমুদ, সন্ধ্যা ৬টায় সাবেক এমসিএ মোশাররফ হোসেন চৌধুরী এবং সোয়া ৬টায় সিলেটের মোস্তফা শহীদ এমপি সাক্ষাৎ করেন।
১ আগস্ট শুক্রবার দুপুর ১টায় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী নুরুল ইসলাম চৌধুরী এবং দুপুর দেড়টায় পাহাড়ি নেতা মংপ্রু সাইন সাক্ষাৎ করেন।
রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবের এই সরকারি কর্মসূচির বাইরেও অনেক অনির্ধারিত কর্মসূচি থাকত। নির্ধারিত তালিকার বাইরেও অনেক সাক্ষাৎপ্রার্থী আসত। সাধারণত তিনি কাউকে ফিরিয়ে দিতেন না। বাসায়ও দর্শনার্থীর ভিড় থেকেই যেত এবং এটা ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দেশে ফেরার পর হতেই।
বঙ্গবন্ধুর দৈনন্দিন কর্মসূচির যে বিবরণী পাওয়া যায়, তাতে একাধারে বাংলা, খ্রিস্টীয় ও আরবি সন তারিখ মাসের উল্লেখ থাকত। সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের সময়ও।
১ থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত সময়কালে দেখা যাচ্ছে সবচেয়ে বেশি সাক্ষাৎ করেছেন প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী নুরুল ইসলাম চৌধুরী, যিনি মোশতাকের মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ও দায়িত্ব পালন করেন। আর এই মন্ত্রীর অধীনে সশস্ত্র বাহিনীর বিপথগামী একাংশ বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। হত্যার ষড়যন্ত্র উদ্ঘাটিত হলে অনেক ঘটনা, ব্যক্তিবিশেষের ভূমিকা সবই প্রকাশিত হতো। কিন্তু সে কাজটি আজও হয়নি। বর্তমান সরকার দেশ, জাতির স্বার্থে হত্যা-ষড়যন্ত্রের ইতিহাস প্রকাশ করতে পারে।

শ্রেণী:

আওয়ামী লীগবিরোধী প্রচারের ৬ দশক ‘ঢেউয়ের ওপর দিয়ে যেন পালের নৌকো’

Posted on by 0 comment
aa

aaশেখর দত্ত:

(পূর্ব প্রকাশের পর)
সামরিক শাসনবিরোধী সংগ্রাম : ১৯৬২ সাল
১৯৬০ সালের শুরুতেই মৌলিক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় প্রতিদ্বন্দ্বী ছাড়া হ্যাঁ ভোট না ভোট করে স্বৈরশাসক আইয়ুব খান প্রেসিডেন্ট হয়ে ভাবলেন, ক্ষমতাকে আরও নিরঙ্কুশ পাকাপোক্ত ও দীর্ঘস্থায়ী করতে হবে। এই লক্ষ্যে তিনি একদিকে পূর্ব পাকিস্তানের ভাষা সংস্কৃতিকে ধ্বংস করা, শিক্ষাব্যবস্থাকে কায়েমি স্বার্থে ঢেলে সাজানো প্রভৃতির সাথে আওয়ামী লীগ ও কমিউনিস্ট পার্টি এবং ছাত্র আন্দোলন ও সংগঠনকে দমন-পীড়ন ও অপপ্রচারের মাধ্যমে নস্যাৎ করা ষড়যন্ত্র-চক্রান্তে মেতে ওঠে।
প্রসঙ্গত, ভাষা আন্দোলন থেকে সামরিক শাসন পর্যন্ত সময়কালে আওয়ামী লীগের সাথে বাম ও কমিউনিস্টদের রাজনীতির বিভিন্ন প্রশ্নে বিভেদ, আওয়ামী লীগ বিভক্ত হয়ে ন্যাপের সৃষ্টি এবং পরস্পর কাদা ছোড়াছুড়ি হলেও মূলত নবোত্থিত বাঙালি জাতীয়তাবাদী শক্তি ও বাম কমিউনিস্টরা একত্রেই পাকিস্তানের শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রামের মাঠে ছিল। এ কারণ ছাড়াও কমিউনিস্ট নেতারা ছিল মূলত হিন্দু সম্প্রদায়ের। তাই কমিউনিস্ট বিরোধী প্রচারের সাথে হিন্দুবিরোধী প্রচার করে দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষদের বিভ্রান্ত করা সহজ ছিল। তাই দুই দলকে টার্গেট করে সামরিক সরকার অগ্রসর হয়।
নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি হয়েই আইয়ুব খান ‘ব্যুরো অব ন্যাশনাল রিকনস্ট্রাকশন-বিএনআর’ ও ‘পাকিস্তান লেখক শিবির’ নামে দুটো সংস্থা গঠন করে। এই দুই সংগঠনের কাজ হয়ে দাঁড়ায় বুদ্ধিজীবীদের টোপ দিয়ে সংগঠিত করে পাকিস্তানি তমুদ্দুন ও মৌলিক গণতন্ত্রের পক্ষে এবং নবোত্থিত বাঙালি জাতীয়তাবাদকে অঙ্কুরে বিনষ্ট করা এবং কমিউনিস্ট জুজুর ভয় দেখিয়ে বিভ্রান্ত ও বিপথগামী করে জনগণকে সেনাশাসনের পক্ষে রাখা। এ সময়ে উর্দু-বাংলার সংমিশ্রণে রোমান হরফে নতুন ভাষা ‘লিঙ্গুয়া ফ্রাঙ্কা’ এবং জাতীয় শিক্ষা কমিশন কীভাবে পাকিস্তানকে রক্ষা করার সহায়ক হবে, তা নিয়ে প্রচার জোরদার করা হয়। পরোক্ষ সামরিক শাসনের তীব্র দমন-পীড়ন, বাক-ব্যক্তি ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতাহীন অবস্থার মধ্যে তখন প্রচার হতে থাকে আইয়ুব খান আল্লাহ-এর প্রেরিত পুরুষ, রাজনীতিকদের হাত থেকে পাকিস্তানকে রক্ষা করতে তিনি পাকিস্তানের রাজনীতিতে ও ক্ষমতায় এসেছেন।
এতসব করেও সেনাশাসক আইয়ুব খান গণতন্ত্র ও জাতীয় স্বাধিকার আন্দোলনকে গলা টিপে হত্যা করতে পারল না। ১৯৬১ সালে প্রথমে একুশে ফেব্রুয়ারি শহিদ দিবস এবং পরে এপ্রিল-মে মাসে রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকী পালনকে কেন্দ্র করে আবারও আন্দোলন-সংগ্রাম জেগে ওঠে। ফলে শুরু হয় বাংলা ভাষা ও রবীন্দ্রবিরোধী প্রচারণা এবং হুমকি-ধমকি। কবিগুরুকে ‘মুসলিমবিদ্বেষী হিন্দু’ এবং তার সাহিত্য ও সংগীত ‘বিজাতীয়’, ‘ইসলাম তথা পাকিস্তানের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ববিরোধী’, তাকে নিয়ে মাতামাতির অর্থ ‘অখ- রাম রাজত্ব প্রতিষ্ঠার’ তৎপরতা এবং মুসলমানদের জন্য তা ‘হারাম’ ও ‘নিশ্চিত মৃত্যু’ প্রভৃতি বলে প্রচার জোরদার করা হয়।
একপর্যায়ে গণজাগরণের ভয়ে ভীত হয়ে সেনাশাসক আইয়ুব খান ১৯৬২ সালে শুরুতে ক্ষমতার রাজনীতিতে তার প্রতিদ্বন্দ্বী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীকে গ্রেফতার করে। সাথে সাথেই তিনি ‘রাষ্ট্রবিরোধী কাজে লিপ্ত’, ‘কখনও পাকিস্তানের অস্তিত্বকে স্বীকার করেননি’, ‘পূর্ব বাংলাকে বিচ্ছিন্ন করা প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন’, ‘ঘৃণা ছড়াচ্ছেন’, ‘বিদেশি চরদের সাথে তার যোগাযোগ রয়েছে’ প্রভৃতি ধরনের প্রচার সামনে আনা হয়। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো সরকার একদিকে প্রচার করতে থাকে তিনি ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী আবার অন্যদিকে প্রচার করতে থাকে যে, সোহরাওয়ার্দী পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরে ‘গোপন সেল’ প্রতিষ্ঠা করছেন। বলাই বাহুল্য যদি বিচ্ছিন্নতাবাদীই হবেন তবে দুই পাকিস্তানে গোপন সেল প্রতিষ্ঠা করতে গেলেন কেন? বাস্তবে তিনি কখনও গোপন কাজের সাথে জড়িত ছিলেন না এবং এই শব্দ দুটি ছিল গোপন কমিউনিস্ট পার্টির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। তবুও এটা বলার কারণ হলো, গণতান্ত্রিক ও জাতীয় অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামকে কমিউনিস্টদের কারসাজি হিসেবে চিহ্নিত করে সোহরাওয়ার্দী ও আওয়ামী লীগকে গণবিচ্ছিন্ন করা।
ইতোমধ্যে সোহরাওয়ার্দীকে গ্রেফতার করার সাথে সাথে সামরিক শাসনের মধ্যেই শুরু হয়ে যায় ছাত্র আন্দোলন। সাথে সাথেই আইয়ুব খান সাংবাদিকদের কাছে বলেন যে, ‘কলকাতা পূর্ব পাকিস্তানকে তার পশ্চাৎভূমি বানাতে চায়’, ‘প্রকৃত হুমকি আসছে কলকাতা ও আগরতলার কমিউনিস্টদের কাছ থেকে’ ইত্যাদি ইত্যাদি। প্রবাদ বলে, বজ্র আঁটুনি ফসকা গেরো অথবা ঢিল দিলে পাটকেল খেতে হয়। এই দিনগুলোতে পূর্ব বাংলার রাজনীতির মধ্যমণি শেখ মুজিব ‘স্বাধীন বাংলা’ নিয়ে তৎপরতা শুরু করেন এবং এ বিষয়টি নিয়ে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াকে নিয়ে কমিউনিস্ট নেতা মণি সিংহ ও খোকা রায়ের সাথে গোপনে কয়েকবার আলোচনা করেন। এসব বৈঠকেই গণতন্ত্র ও স্বাধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দুই পার্টির মধ্যে আন্দোলন-সংগ্রাম প্রশ্নে সমঝোতা হয়। এই সমঝোতাই নানা চড়াই-উৎরাইয়ের ভেতর দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের দিকে অগ্রসর হয়। এই আন্দোলনের ভেতর দিয়ে সোহরাওয়ার্দী জেল থেকে মুক্তিলাভ করেন। পরবর্তীতে সামরিক শাসন প্রত্যাহার ও শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট স্থগিত করা হয়।
এভাবে আন্দোলনের বিজয় সূচিত হলেও সেনাশাসক আইয়ুব খান ১৯৬২ সালেই মোনায়েম খানকে পূর্ব পাকিস্তনের গভর্নর নিয়োগ করেন। তখন থেকেই শুরু হয় আইয়ুব-মোনায়েমের যুগ, যা কালিমাময় অধ্যায় হিসেবে আমাদের রাজনৈতিক ইতিহাসে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। আইনকানুনের তোয়াক্কা না করে পুলিশ ও গু-াবাহিনী দিয়ে আন্দোলন দমন, বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা হরণ, সংবাদপত্রের কণ্ঠরোধ, দলীয়করণ, দুর্নীতি, সাম্প্রদায়িক ও অন্ধ ভারতবিরোধী প্রচার ছিল এই আমলের বৈশিষ্ট্য।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ঘিরে জনতার জাগরণ : ১৯৬৪ সাল
১৯৬৩ সালে পূর্ব বাংলায় আন্দোলন ছিল স্তিমিত। এ অবস্থায় ডিসেম্বরে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যু হলে আওয়ামী লীগে সোহরাওয়ার্দী যুগের পরিসমাপ্তি ঘটে এবং শেখ মুজিব যুগের আর্বিভাব ঘটে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সোহরাওয়ার্দী ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এনডিএফ)-এর মাধ্যমে গণতন্ত্রের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পক্ষপতি ছিলেন। কিন্তু সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুর পরপরই শেখ মুজিব ১৯৬৪ সালের ২৫ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ পুনরুজ্জীবিত করেন এবং গণতন্ত্র ও পূর্ব বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনকে একসূত্রে গ্রথিত করে সংগঠন ও আন্দোলন গড়ে তোলার কাজে অগ্রসর হন। যা পূর্ব বাংলার জনগণের আন্দোলন-সংগ্রামে যুগান্ত সৃষ্টিকারী মোড় পরিবর্তনের সূচনা করে।
তবে ১৯৬৪ সালের শুরুটা ছিল পূর্ব বাংলার জনগণের জন্য দুর্ভাগ্যজনক। ভারতের কাশ্মীরে হযরত বাল মসজিদ থেকে মহানবীর স্মৃতিবিজড়িত সংরক্ষিত দাড়ি চুরি হলে প্রথমে ভারতের বিভিন্ন স্থানে আর পরে পূর্ব পাকিস্তানের খুলনা, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন জায়গায় হিন্দু-মুসলমান ভ্রাতৃঘাতি দাঙ্গা লেগে যায়। সরকার প্রকাশ্যভাবে এতে উসকানি দেয় এবং সহযোগিতা করে। এই সময় পাকিস্তান সরকার ‘হিন্দু কাফেরদের’ বিরুদ্ধে প্রচারণা তুঙ্গে তোলে। বর্বরতা ও নৃশংসতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে।
এ সময়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার কাজে আওয়ামী লীগ ও ন্যাপ এবং ছাত্র ও বুদ্ধিজীবী সমাজ এগিয়ে আসে। বাম ছাত্র সংগঠন প্রথম থেকেই দাঙ্গা প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। গঠিত হয় দাঙ্গা প্রতিরোধ কমিটি। এই কমিটি সরকারি মদদে দাঙ্গা ও সাম্প্রদায়িক প্রচারণার বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলে ‘পূর্ব বাংলা রুখিয়া দাঁড়াও’। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দাঙ্গা থামাতে এবং এই সেøাগান সামনে আনার ক্ষেত্রে শেখ মুজিবের ভূমিকা ছিল অগ্রগণ্য।
ইতোমধ্যে শুরু হয়ে যায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তোড়জোড়। সরকারি দল কনভেনশন মুসলিম লীগের প্রার্থী হন সেনাশাসক আইয়ুব খান আর সম্মিলিত বিরোধী দল (কপ)-এর প্রার্থী হন পাকিস্তানের ‘জাতির পিতার’ বোন ফাতেমা জিন্নাহ। নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারের পক্ষ থেকে ভারতবিরোধী ও সাম্প্রদায়িক প্রচারণা তুঙ্গে তোলা হয়। ফাতেমা জিন্নাহকে ভোট দেওয়া মানে ভারতের দালাল পূর্ব বাংলায় শেখ মুজিবকে এবং উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশে আবদুল গফফার খান (সীমান্ত গান্ধী)-কে ভোট দেওয়া হবে বলে প্রচার তীব্র করা হয়।
ভারতীয় টাকা-পয়সা ও মদদেই ইসলামি রাষ্ট্র পাকিস্তানে ইসলামকে অবমাননা করার জন্য মহিলা প্রার্থী দেওয়া হয়েছে বলে বিষোদগার চলতে থাকে। মহিলাকে ভোট দেওয়া ধর্মীয় দৃষ্টিতে ‘হারাম’ এবং বাঙালি মুসলমানদের ‘নিচু জাত’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। পূর্ব বাংলার জনগণকে অসম্মান ও হেয় প্রতিপন্ন করতে আইয়ুব খান পল্টন ময়দানের জনসভায় জনগণকে ‘তুমি’ বলে সম্বোধন করেন। ফলশ্রুতিতে তার প্রতি জুতা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এই দিনগুলোতে শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে উপর্যুপরি ‘রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা’ দেওয়া হতে থাকে। উল্লিখিত ধরনের অপপ্রচার, দমন-পীড়ন ও কারচুপির নির্বাচনে পূর্ব বাংলার জনগণের জাগরণ সত্ত্বেও ফাতেমা জিন্নাহ্ পরাজিত হন। তবে এই পরাজয় গণতন্ত্র ও জাতীয় স্বাধিকারের আন্দোলনকে নতুন পথের সন্ধান দেয়।

৬-দফা আন্দোলন ও আগরতলা মামলা
১৯৬৫ সালের সেপ্টেম্বরে পাক-ভারত যুদ্ধের সময় পাকিস্তান সরকারের ধারণা ছিল, এর ফলে পূর্ব বাংলার জনসাধারণের মধ্যে ভারত-বিরোধী ও সাম্প্রদায়িক মনোভাব জোরদার হবে এবং অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক বাঙালি জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রভাব ক্ষুণœ হবে। কিন্তু ধর্মভিত্তিক সাম্প্রদায়িক দলগুলোর সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ও যুদ্ধোন্মদনার প্রচারণা সত্ত্বেও ফল হয় উল্টো। ‘পূর্ব পাকিস্তান অরক্ষিত কেন?’ সেøাগান নিয়ে শেখ মুজিবের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এগিয়ে আসে এবং অসাম্প্রদায়িক বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন নবপর্যায়ে উত্থানের পথ খুঁজে পায়।
যুদ্ধের পরপর আওয়ামী নেতা শেখ মুজিব বাঙালির ‘মুক্তি সনদ’ ৬-দফা ঘোষণা করেন। সাথে সাথে গণতন্ত্র ও স্বাধিকার আন্দোলন নবপর্যায়ে উন্নীত হয়। আইয়ুব-মোনায়েম চক্র ৬-দফা উত্থাপনকারীদের পাকিস্তানের ‘স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের শত্রু’ হিসেবে আখ্যায়িত করে। প্রচার করা হয় যে, ৬-দফা ‘হিন্দু আধিপত্যাধীন যুক্ত বাংলা গঠনের ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত ছাড়া আর কিছু নয়’ এবং তা বাস্তবায়িত হলে ‘মুসলমানেরা বর্ণ হিন্দুদের গোলামে’ পরিণত হবে। মোনায়েম খান বলেন, ‘আমি যতদিন গভর্নর থাকব, ততদিন শেখ মুজিবকে জেলে পচতে হবে।’ এদিকে ৬-দফা জনপ্রিয় হতে থাকলে শেখ মুজিবকে ‘রাষ্ট্রদ্রোহী’ আখ্যায়িত করে জেলে নেওয়া হয় এবং পরবর্তীতে ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’ দায়ের করা হয়।
এ অবস্থায় ধর্মভিত্তিক সাম্প্রদায়িক দলগুলো সরকারের সাথে সুর মিলিয়ে ৬-দফা, শেখ মুজিব ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে থাকে। এখানে উল্লেখ্য যে, এই দিনগুলোতে বাম কমিউনিস্টদের মধ্যে রুশ-চীন দ্বন্দ্ব প্রকট হয়ে প্রকাশ্য রূপ নেয়। রুশপন্থিরা ৬-দফা ও আওয়ামী লীগের পক্ষে এবং চীনপন্থিরা বিপক্ষে অবস্থান নেয়। রুশপন্থি অংশের বক্তব্য ছিল : ৬-দফা পূর্ণাঙ্গ নয়। তবুও এই দাবি নিয়ে আন্দোলনের পক্ষে অবস্থান নিতে হবে এবং শ্রমিক কৃষকের দাবি ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী দাবি যুক্ত করে আন্দোলনকে অগ্রসর করে নিতে হবে। আর চীনপন্থিদের বক্তব্য ছিল : বাঙালি-অবাঙালি পুঁজিপতিদের বিরোধের ফল হচ্ছে ৬-দফা। এটা সিআইএ প্রণীত। তাই ৬-দফাকে তারা সমর্থন না করে বিরোধিতা করে তীব্র অপপ্রচারে নামে। মওলানা ভাসানী জনসভায় বলতে থাকেন যে, ‘সিআইএ ৬-দফা রচনা করে আমাদের বোকা ছেলেদের হাতে তা তুলে দিয়েছে।… ৬-দফায় এ দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের কোনো লাভ হবে না।’ চীনপন্থিরা তখন ‘ডোন্ট ডিস্টার্ব আইয়ুব’ এই সেøাগান নিয়ে অগ্রসর হয়।
এ অবস্থায় রক্তস্নাত ৭ জুনকে কেন্দ্র করে যে আন্দোলন গড়ে ওঠে, তাতে রুশপন্থিরা ছাড়া আর কোনো দল তখন আওয়ামী লীগের সাথে ছিল না। ইতোমধ্যে ১৯৬৭ সালের এপ্রিল মাসে আওয়ামী লীগও বিভক্ত হয়ে যায় এবং বিভক্ত অংশ পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্টে যোগ দিয়ে ৬-দফা, শেখ মুজিব ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। পূর্ব বাংলার রাজনৈতিকদের মধ্যে বিভেদ ও ৬-দফা বিরোধিতার সুযোগে দমন-পীড়ন, অপপ্রচার ও হুমকি-ধমকি চালিয়ে পরিস্থিতিকে নিজেদের পক্ষে নেওয়ার চেষ্টা করে আইয়ুব-মোনায়েম চক্র। তবে তা সম্ভব ছিল না। একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষা শহিদ দিবস পালন, এপ্রিলে নবরূপে বাংলা নববর্ষ পালন, মে মাসে রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তী পালন, মে দিবস পালন এবং দুই অর্থনীতি তথা বৈষম্য নিয়ে প্রচার প্রভৃতির ভেতর দিয়ে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক জাতীয়তাবাদী আন্দোলন আবারও মাথা তুলে দাঁড়াতে থাকে। এ অবস্থায় শঙ্কিত হয়ে তীব্র রবীন্দ্রবিরোধী প্রচার জোরদার করা হয় এবং রেডিওতে রবীন্দ্রসংগীত প্রচার প্রায় বন্ধ করে দেওয়া হয়। সরকারের পক্ষ থেকে কবিগুরুকে হেয় প্রতিপন্ন করে প্রচার করা হয় যে, পহেলা বৈশাখ ও রবীন্দ্রজয়ন্তী উদযাপনের নামে ‘বিদেশি সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ ঘটিয়ে ইসলামি জীবনাদর্শের ভিত্তিতে সৃষ্ট পাকিস্তানের মূলে আঘাত’ হানা হচ্ছে।
এই পটভূমিতে ১৯৬৮ সালের জানুয়ারিতে শেখ মুজিবকে প্রধান আসামি করে সরকার ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’ দায়ের করে। এই মামলা প্রদানের সাথে সাথে পূর্ব বাংলায় রাজনৈতিক মেরুকরণ হয় এবং রুশপন্থি গোপন কমিউনিস্ট পার্টি, ন্যাপ (মোজাফফর) ও ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া) ছাড়া আর কোনো রাজনৈতিক দল ৬-দফা পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করে না। এ বছরে বিরোধী অবস্থান সত্ত্বেও ১৯৬৮ সালের ৭ জুন পালনের মধ্য দিয়ে ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন) ‘ডোন্ট ডিস্টার্ব আইয়ুব’ এই নীতি থেকে সরে আসতে শুরু করে। এদিকে আগরতলা মামলার কৌঁসুলি হিসেবে ৬-দফাবিরোধী অ্যাডভোকেট নেতাদের যোগদান বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে অগ্রসর হতে সহায়তা করে। এদিকে স্বৈরশাসক প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের ভিত্তি পশ্চিম পাকিস্তানেও সরকারবিরোধী ক্ষোভ দানা বেঁধে উঠতে থাকে। ইতোমধ্যে জুলফিকার আলী ভুট্টো সরকারি দল থেকে বের হয়ে এসে ভারতবিরোধী উন্মাদনা জোরদার করে ‘পাকিস্তান পিপলস পার্টি’ গঠন করে। শুরুতেই এই দল পশ্চিম পাকিস্তানে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। তবে পূর্ব পাকিস্তানে সমর্থন পায় না।

ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান
১৯৬৯ সালের শুরুতেই গঠিত হয় ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া), ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন) ও এনএসএফের ভুট্টোপন্থি অংশ নিয়ে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ এবং ১১-দফা প্রণীত হয়। রাজনৈতিক দলগুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে গঠন করে গণতান্ত্রিক সংগ্রাম পরিষদ (ডাক)। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ডাকে আন্দোলন ক্রমেই দানা বেঁধে উঠতে থাকে এবং আসাদ-মতিউরসহ শহিদের রক্তে রঞ্জিত হয়ে ২৪ জানুয়ারি আন্দোলন গণ-অভ্যুত্থানে রূপ নেয়। গণ-অভ্যুত্থান শুরু হওয়ার পর থেকে সরকার হুমকি-ধমকির সাথে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন’, ‘পাকিস্তানকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র’, ‘ভারতের কারসাজি’, ‘কমিউনিস্টদের চক্রান্ত’, ‘কমিউনিজমের বিপদ’ প্রভৃতি ভাঙা রেকর্ডের মতো প্রচার করতে থাকে। কিন্তু ওই প্রচার কিছু দালাল ও অন্ধ মানুষ বাদে বাঙালিদের মধ্যে কোনো প্রভাব বিস্তারে সক্ষম হয় না।
গণ-অভ্যুত্থানের জোয়ারে এই সময় পাকিস্তানি শাসক ও শোষকরা কোণঠাসা ও ভীত হয়ে পড়ে। আইয়ুব খান মাথা নত করে ‘দায়িত্বশীল’ বিরোধী দলের নেতাদের সাথে শাসনতন্ত্র বিষয়ে ফয়সালার জন্য গোলটেবিল বৈঠক আহ্বান করে। ‘দায়িত্বশীল’ শব্দটা উচ্চারিত হয়েছিল শেখ মুজিবকে গোলটেবিল আলোচনা থেকে বাদ দেওয়ার উদ্দেশ্যে। কিন্তু কিছুতেই কিছু হয় না। গণ-অভ্যুত্থান এগিয়ে যায় এবং সরকার আগরতলা মামলা প্রত্যাহার করে শেখ মুজিবকে মুক্তি দেয়। গণজাগরণের ভেতর দিয়ে শেখ মুজিব পূর্ব বাংলার অবিসংবাদিত নেতা রূপে প্রতিষ্ঠিত হয়ে যান। ছাত্রসমাজের পক্ষ থেকে ডাকসুর সহ-সভাপতি তোফায়েল আহমেদ রেসকোর্সের ময়দানে সদ্য কারামুক্ত নেতার গণসম্বর্ধনা সমাবেশে তাকে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করেন। গোলটেবিলে যোগ দিতে শেখ মুজিব যখন পশ্চিম পাকিস্তান যান, তখন সেখানে বিপুল সম্বর্ধনা পান এবং সেøাগান উচ্চারিত হয় ‘পূর্ব পাকিস্তান’ এসেছে।
এই দিনগুলোতে বিশেষত বামপন্থি মহলে এমন প্রচার জোরদার হয় যে, শেখ মুজিব পাকিস্তানি শাসক-শোষকগোষ্ঠী তথা ক্ষমতাসীনদের সাথে আপস করবেন এবং ১১-দফা সম্পর্কে নিশ্চুপ থাকবেন। এসব গুজব মিথ্যা প্রমাণিত হয়। এদিকে সম্বর্ধনা সভার জমায়েত এবং জনগণের আক্রমণাত্মক মনোভাবকে শান্ত এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার জন্য রেডিও পাকিস্তানে শেখ মুজিবের শান্তির বাণী প্রচার করা হতে থাকে। আইয়ুব-মোনায়েম চক্র ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় এই প্রচার ছিল ‘ঠেলার নাম বাবাজি’র সমতুল্য। গোলটেবিলে যোগ দিতে শেখ মুজিব যখন পশ্চিম পাকিস্তান যান, তখন সেখানে বিপুল সম্বর্ধনা লাভ করেন এবং সেøাগান উচ্চারিত হয় ‘পূর্ব পাকিস্তান’ এসেছে।
প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান আহূত গোলটেবিল বৈঠক যে ব্যর্থ হবে, তা আগেই অনুমান করা গিয়েছিল। কেননা ডাক-এ অন্তর্ভুক্ত রাজনৈতিক দলগুলোর শাসনতান্ত্রিক প্রশ্নে একমত হওয়া সম্ভব ছিল না। আওয়ামী লীগ ও ন্যাপের সাথে ধর্মভিত্তিক সাম্প্রদায়িক দক্ষিণপন্থি দলগুলোর মতামতের পার্থক্য ছিল আকাশ-পাতাল। আর পিপলস পার্টির নেতা ভুট্টো ও চীনপন্থি ন্যাপ নেতা মওলানা ভাসানী গোলটেবিল বৈঠক বয়কট করেন। মওলানা ভাসানী তখন পশ্চিম পাকিস্তান গেলে ভুট্টোর সমর্থকরা বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানায় এবং ‘ভাসানী-ভুট্টো ভাই ভাই’ সেøাগান তোলে। গোলটেবিলের বাইরে থেকে দুই নেতাই গরম গরম কথা বলতে থাকেন। এই সময়ে জামায়াতে ইসলাম ও চীনপন্থি ন্যাপ মুখোমুখি দাঁড়ায় এবং পশ্চিম পাকিস্তানের বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে থাকে।
চরম প্রতিক্রিয়াশীল জামায়াত নেতা মওলানা মওদুদী বলেন যে, ‘সমাজতন্ত্র শব্দ উচ্চারণ করিলে জিহ্বা কাটিয়া ফেলা হইবে।’ আর মওলানা ভাসানী বাঙালির স্বাধিকারের প্রশ্নে বাড়তি কথা বলে ‘জ্বালাও-পোড়াও’, ‘ঘেরাও’, ‘মার-কাট’ প্রভৃতি ধরনের বক্তব্য দিতে থাকলে এবং ভুট্টো গোলটেবিলের বিরুদ্ধে কথা বলতে থাকলে পরিস্থিতি ঘোলাটে হয়ে ওঠে। মওলানা ভাসানী জামাতের বিরুদ্ধে ‘গৃহযুদ্ধের’ আহ্বান জানায়। এর মধ্যে গ্রামাঞ্চলে বিডি সদস্যদের পদত্যাগ, শ্রমিকাঞ্চলে ঘেরাও প্রভৃতির ভেতর দিয়ে এক ধরনের বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি হয়। এসবই ছিল নতুন করে সামরিক শাসন আনার নীলনকশা। ইতোমধ্যে প্রথমে ছাত্রনেতা তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘যদি তিনি (মওলানা ভাসানী) সত্যি সত্যিই ১১-দফা সমর্থন করেন, তাহলে তার গোলটেবিলে যাওয়া উচিত এবং শেখ মুজিবের সঙ্গে মিলে ১১-দফা তোলা উচিত।’ একপর্যায়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব দীর্ঘদিনের নীরবতা ভেঙে তার একসময়ের নেতা সম্পর্কে বলেন, ‘মওলানা ভাসানীর কথাবার্তার মধ্যে কোনো সামঞ্জস্য নাই। তাই তাঁর রাজনীতি ত্যাগ করা উচিত। তাঁর বয়স এখন ৮৬ হইয়াছে।’
এদিকে গোলটেবিল ব্যর্থ হয়ে যায়। আইয়ুব খান পদত্যাগ করেন এবং জেনারেল ইয়াহিয়া খান ক্ষমতা দখল করে সামরিক আইন জারি করেন। বিদায় ভাষণে আইয়ুব খান মূলত বলেন যে, ‘দুই পাকিস্তানের কোনো ভবিষ্যৎ নাই। পূর্বাঞ্চল কয়েক বছর টিকে থাকবে আর পশ্চিম পাকিস্তান কোনো রকমে টিকে থাকবে।… আমরা আশা করি, কোনো যাদু সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্নতা থেকে আমাদের রক্ষা করবে।’ বিদায় বেলায় অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে আইয়ুব খানের এই ভবিষ্যৎবাণী ছিল যথাযথ। আসলে দ্বিজাতিভিত্তিক কৃত্রিম রাষ্ট্র পাকিস্তানকে টিকিয়ে রাখার জন্য কোনো যাদুর কাঠি কারও কাছেই ছিল না। তবে কয়েক বছর নয়, দুই বছরের মধ্যেই শুরু হয়ে যায় পূর্ব বাংলাকে স্বাধীন করার জন্য সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ। তবে এর জন্য প্রয়োজন ছিল জনগণের ম্যান্ডেট।

সত্তরের নির্বাচন
সত্তরের নির্বাচনের আগে দুই পাকিস্তানের অবস্থা ছিল দুই রকম। পূর্বাঞ্চলে জনমত ছিল একতরফাভাবে আওয়ামী লীগের অনুকূলে আর পশ্চিমাঞ্চলে অনেকটাই ভুট্টোর অনুকূলে। ১৯৬৯ সালের ডিসেম্বরে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব পূর্ব পাকিস্তানের নাম ‘বাংলাদেশ’ রাখার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। সেই দিনগুলোতে নির্বাচন সামনে রেখে জনমতের প্রবল জোয়ারে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ তথা জাতীয় মূলধারা-বিরোধী প্রচার দানা বেঁধে উঠতে সক্ষম হয়নি। এমনকি কাউন্সিল মুসলিম লীগ, জামায়াতে ইসলাম, নেজামে ইসলাম, পিডিপি একত্র হয়ে ‘ইসলাম পছন্দ ঐক্যজোট’ গঠন করলেও নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন দিতে ব্যর্থ হয় এবং ঐক্যজোট ভেঙে যায়। এ অবস্থায় চীনপন্থি বাম কমিউনিস্টরা ও ন্যাপ প্রধান ভাসানী ‘ভোটের আগে ভাত চাই’, ‘ভোটের বাক্সে লাথি মার, সমাজতন্ত্র কায়েম কর’ প্রভৃতি উগ্রবাম সেøাগান দিয়ে মাঠে নামে এবং উগ্র বক্তৃতা-বিবৃতি দিতে থাকেন। একপর্যায়ে তিনি ‘আসাম ব্যতীত পাকিস্তানের মানচিত্র অসম্পূর্ণ’ ঘোষণা দিয়ে ভারত-বিরোধী প্রচারণা শুরু করেন।
ইতোমধ্যে নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়। ফলে আবারও ক্ষোভ-বিক্ষোভ দানা বেঁধে উঠতে থাকে। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে স্বৈরশাসক ইয়াহিয়া খান ১৯৭০ সালের ৫ অক্টোবর জাতীয় পরিষদ নির্বাচন ও ২২ অক্টোবর প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনের তারিখ এবং নির্বাচনের আইনগত কাঠামো-এলএফও ঘোষণা করেন। নির্বাচনের তারিখ ঘোষণাকে জনগণ স্বাগত জানালেও এলএফও-এর আইনগত নানা দিক বিশেষত শাসনতন্ত্রে ‘ইসলামি আদর্শ রক্ষা করা হবে’ এবং ‘পাকিস্তান ইসলামি প্রজাতন্ত্র বলে অভিহিত হবে’ প্রভৃতি সব কথা পূর্ব বাংলার জনগণের চিন্তা-চেতনা ও দাবি-দাওয়ার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল না। আওয়ামী লীগ ও ন্যাপ এলএফও সংশোধনের আহ্বান জানায়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব এলএফও নিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করার পক্ষে ছিলেন না। তবে তিনি দলীয় ফোরামে বলেন, ‘নির্বাচন সমাপ্ত হলে আমি এলএফও টুকরো টুকরো করে ছিঁড়ে ফেলবো।’ তিনি তখন জনগণের প্রতি আস্থা ও বিশ^াস রেখে দ্রুত নির্বাচন চাইছিলেন। কেননা পূর্ব পাকিস্তানে আওয়ামী লীগের পক্ষে নিরঙ্কুশ গণজাগরণ প্রত্যক্ষ করে পাকিস্তানের শাসক ও শোষকগোষ্ঠী এবং দক্ষিণপন্থি ও প্রতিক্রিয়াশীল দলগুলোর পক্ষ থেকে ভেতরে ভেতরে নির্বাচন বানচাল বা পিছিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছিল।
এ সময়ে ‘নির্বাচনের পরিবেশ নেই’ বলে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র চলতে থাকে। এরই মধ্যে বন্যার অজুহাত দেখিয়ে ইয়াহিয়া খান একতরফাভাবে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করেন। ঘোষিত হয় যে, ৭ ডিসেম্বর জাতীয় পরিষদ ও ১৯ ডিসেম্বর প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ডান ও দক্ষিণপন্থি দলগুলো তারিখ পরিবর্তনকে স্বাগত জানালেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেন যে, যদি ডিসেম্বরে নির্বাচন না হয় তাহলে তিনি দুর্বার গণ-আন্দোলন গড়ে তুলবেন। ১২ নভেম্বর দক্ষিণাঞ্চলে স্মরণকালে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় হলে সরকার আবারও নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের প্রচেষ্টা নেয়। কেবল দক্ষিণপন্থিরাই নয়, ন্যাপ (মোজাফফর) পর্যন্ত এই পরিবর্তনের পক্ষে অবস্থান নেয়। নির্বাচন বয়কটের পক্ষে অবস্থান করেও চীনপন্থি বাম কমিউনিস্টদের নিয়ে মওলানা ভাসানী ‘ভোটের আগে ভাত চাই’ সেøাগান তুলে নির্বাচন পিছানোর পক্ষে দাঁড়ান।
এ পরিস্থিতিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করে বলেন, নির্বাচন নিয়ে যদি কোনো খেলা শুরু হয়, তাহলে তা আগুন নিয়ে খেলার শামিল হবে। সার্বিক বিচারে বলা যায়, সেই সময়ে সব ধরনের প্রতিকূলতা ও প্রচার মোকাবিলা করে সত্তরের ডিসেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত করার সংগ্রামে আওয়ামী লীগ ছিল একা। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পূর্ব পাকিস্তানের ১৬৯ আসনের মধ্যে ১৬৭টি আসনে জয়লাভ করে ৩০০ আসনের জাতীয় পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। বাঙালি জনগণের এই বিজয়ে পাকিস্তানের শাসক-শোষকগোষ্ঠীর মাথায় কার্যত আকাশ ভেঙে পড়ে।

অসহযোগ আন্দোলন
নির্বাচনে বিজয়ের সাথে সাথে পাকিস্তানের শাসক-শোষকগোষ্ঠী ও তাদের পূর্ব পাকিস্তানের দালালরা চক্রান্ত চালানোর সাথে সাথে এমন প্রচার শুরু করে, যাতে আওয়ামী লীগ ৬-দফার ভিত্তিতে শাসনতন্ত্র রচনা না করতে পারে। ক্ষমতায় না বসতে দেওয়ারও চক্রান্ত চলতে থাকে। পাবনায় এমপি রফিক আহমদকে রাতের অন্ধকারে খুন করে হত্যার রাজনীতির ইঙ্গিত দেওয়া হয়। বিজয়ের পরপরই তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেন, ৬-দফার ভিত্তিতে শাসনতন্ত্র রচিত হবে এবং দ্রুত ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে। এটা সহ্য করার মতো অবস্থা পাকিস্তানের শোষক-শাসকগোষ্ঠীর ছিল না। এদিকে পিপলস পার্টির নেতা জুলফিকার আলী ভুট্টো বলেন, তিনি পশ্চিম পাকিস্তানে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা, তাই তার কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে। এ নিয়ে শুরু হয় বাকবিত-া। সংকট গভীর হতে থাকে।
এ সময়ে ইয়াহিয়া খান এলএফও এবং ইসলাম ও পাকিস্তানের অখ-তা অক্ষুণœ রাখার বিষয়টি সামনে আনেন। ভুট্টো বলেন, তার দলের সহযোগিতা ছাড়া অন্য দল কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালনা কিংবা শাসনতন্ত্র রচনা করতে পারবে না। শেখ মুজিব ৬-দফার ভিত্তিতে শাসনতন্ত্র প্রণয়ন ও ১১-দফা বাস্তবায়নের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান ব্যক্ত করেন। এ সময়ে মওলানা ভাসানী টাঙ্গাইলের সন্তোষে সম্মেলন আহ্বান করেন এবং ওই সম্মেলনে তাকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটিতে চীনপন্থি বাম কমিউনিস্ট নেতারা ছাড়াও আতাউর রহমান খান, শাহ আজিজুর রহমান, আমেনা বেগম প্রমুখরা ছিলেন। সেখানে তিনি পূর্ব পাকিস্তানের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। দেশের মানুষ এই ঘোষণাকে আমল দেওয়ার মতো অবস্থায় ছিল না। জনগণ তাকিয়েছিল বাংলার অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দিকে।
এ দিনগুলোতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ‘দেশদ্রোহী’ হিসেবে আখ্যায়িত করার প্রচেষ্টা চলে এবং হত্যা বা ভয়ভীতি দেখিয়ে নত করার জন্য ৬-দফা ও ১১-দফা থেকে সরিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হয়। পরিস্থিতি বুঝে তিনি ইয়াহিয়ার পিন্ডিতে যাওয়ার আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেন। চলতে থাকে ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত। সাথে ভারত-বিরোধী প্রচার। ৩০ জানুয়ারি ‘গঙ্গা’ নামের একটি যাত্রীসহ বিমান কাশ্মীরী মুজাহিদীনরা হাইজ্যাক করে লাহোরে নিয়ে যায়। যাত্রী ও ক্রুদের জিম্মি করে বন্দী মুজাহিদীনদের মুক্তি দাবি করা হয়। ভারত সরকার দাবি অগ্রাহ্য করায় বিমানটি বোমার আঘাতে উড়িয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেন যে, ‘লাহোরে হাইজ্যাককৃত ভারতীয় বিমানটি ধ্বংস করা হয়েছে শুনে বিস্মিত হয়েছি। আমি ঘটনার তদন্তের দাবি জানাচ্ছি।’ ওই বিবৃতিতে তিনি স্বার্থন্বেষীদের শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের বিরোধিতা ও ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত সম্পর্কে জনগণকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান।
এসব প্রচার ও ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের ধারাবাহিকতায় ১ মার্চ প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ৩ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদ অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেন। শুরু হয় অসহযোগ আন্দোলন। ২ মার্চ ঢাকায় অর্ধদিবস, ৩ মার্চ সারাদেশে পূর্ণ হরতাল ও ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গণসমাবেশ আহ্বান করা হয়। এ কর্মসূচি পালনের সময় প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, প্রেসিডেন্ট ও সামরিক আইন প্রধান হিসেবে ‘আমি পরিপূর্ণ ও নিরঙ্কুশভাবে পাকিস্তানের অখ-তা’ রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ইতোমধ্যে তিনি নরমপন্থি এসএম আহাসানকে সরিয়ে প্রথমে লে. সাহেজাদা ইয়াকুব ও পরে গরমপন্থি জেনারেল টিক্কা খানকে পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ও সামরিক আইন প্রশাসক নিয়োগ করেন। সংবাদপত্রের ওপর সেন্সরশিপ চালু হয়।
তবে চাপে পড়ে ইয়াহিয়া খান ২৫ মার্চ জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহ্বান করেন। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’ ঘোষণা করার পর দেশবাসী বুঝে নেয় স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়ে গেছে। তারপর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া কিংবা এ দুজনের সাথে জুলফিকার আলী ভুট্টোর যে আলোচনা হয়, তা ব্যর্থ হওয়া ভিন্ন অন্য উপায় ছিল না। ইতোমধ্যে ২৩ মার্চ ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে স্বাধীন দেশের পতাকা ওড়ানো হয় এবং উত্তোলনকালে কবিগুরুর ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’ গানটি গাওয়া হয়। শুরু হয়ে যায় অস্ত্র ট্রেনিং। এসব ঘটনার ভেতর দিয়ে পাকিস্তান রাষ্ট্রটির কবর রচিত হয় এবং সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।
পাকিস্তানি আমলে বাঙালি জাতি ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের শাসক-শোষকগোষ্ঠী ও এ দেশীয় দালালদের অপপ্রচার ও মিথ্যাপ্রচার বিবেচনায় নিলে রাখাল বালকের সেই ‘বাঘ এসেছে, বাঘ এসেছে’ গল্পের কথা মনে পড়ে। পূর্ব বাংলার মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ বহু আশা-আকাক্সক্ষা ও স্বপ্ন নিয়ে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। শেষ পর্যায়ে তাদের সাথে সাধারণভাবে হিন্দু তফসিল সম্প্রদায়ের মানুষও সমর্থন জুগিয়েছিল। কিন্তু প্রথম থেকেই গণতন্ত্র ও বাঙালি জাতির অধিকার প্রতিষ্ঠার ন্যায্য দাবির আন্দোলনকে শাসক-শোষকগোষ্ঠী ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ আখ্যায়িত করে। ‘বাঘ আসছে, বাঘ আসছে’ বলতে বলতে যেমন একদিন সত্যিই বাঘ চলে আসে এবং মিথ্যাবাদী রাখাল বালককে খেয়ে ফেলে, তেমনি মাত্র ২৩ বছরে ‘সাধের পাকিস্তান’কে রয়েল বেঙ্গল টাইগার খেয়ে ফেলে। এই নিবন্ধের দ্বিতীয় পর্ব বাংলাদেশ আমলে আওয়ামী লীগবিরোধী প্রচার বিবেচনায় নিলে দেখা যাবে, সেই মিথ্যাবাদী রাখাল যেন ভূত হয়ে জাতির ঘাড়ে এখনও চেপে আছে।

শ্রেণী:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গৌরবোজ্জ্বল ৬৯ বছর : সংক্ষিপ্ত রাজনৈতিক ইতিহাস

Posted on by 0 comment
aa

aaরায়হান কবির: (পূর্ব প্রকাশের পর)
* ১৯৭৬ সালের ২৮ জুলাই রাজনৈতিক দল বিধি জারি করা হয়। প্রচ- ও হিং¯্র দমননীতির শিকার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এই সীমিত গণতান্ত্রিক সুযোগ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। দল পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যে ২৫ আগস্ট ঢাকায় দলের সাবেক কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদসহ নেতৃবৃন্দের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। ২৫ আগস্টের বর্ধিত সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয় দলের পূর্ণাঙ্গ কাউন্সিল সাপেক্ষে ১৯৭৫ সালের ৬ জুন পর্যন্ত যে কার্যনির্বাহী সংসদ ছিল সেটিই সংগঠনের কাজ চালিয়ে যাবে। ১৯৭৪ সালে গঠিত নির্বাহী সংসদের সভাপতি এএইচএম কামারুজ্জামান ৩ নভেম্বর ১৯৭৫ নিহত হন। সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক প্রমুখ তখন কারাবন্দি। এমতাবস্থায় সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মহিলাবিষয়ক সম্পাদক সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়।
* ১৯৭৭ সালের ৩ ও ৪ এপ্রিল ঢাকার হোটেল ইডেন প্রাঙ্গণে দলীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত। কাউন্সিলে ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন সম্ভব হয় নি। সিদ্ধান্ত হয় আপাতত পূর্ণাঙ্গ কমিটি না করে একটি সাংগঠনিক কমিটি গঠন করা হবে। সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিনকে আহ্বায়ক করে ১০ দিনের মধ্যে ৪৪ সদস্য বিশিষ্ট সাংগঠনিক কমিটির সদস্যদের নাম ঘোষণার দায়িত্ব দেওয়া হয়। জোহরা তাজউদ্দিন ১৫ এপ্রিল সাংগঠনিক কমিটির সদস্যগণের নাম ঘোষণা করেন।
* ১৯৭৭ সালের ৩০ মে জিয়া তার ক্ষমতাকে বৈধতার ছাপ মারার জন্য দেশব্যাপী গণভোটের আয়োজন করেন। আওয়ামী লীগ গণভোট বর্জন করে।
* ১৯৭৮ সালের ৩, ৪ ও ৫ এপ্রিল তিন দিনব্যাপী আওয়ামী লীগের দ্বি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। আবদুল মালেক উকিলকে সভাপতি ও আবদুর রাজ্জাককে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি গঠন করা হয়।
* ১৯৭৮ সালের ২৩ নভেম্বর হোটেল ইডেন প্রাঙ্গণে আওয়ামী লীগের বিশেষ কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে পাল্টা আওয়ামী লীগ গঠনের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলে গণতান্ত্রিক আন্দোলন বেগবান করতে ভূমিকা রাখে ওই কাউন্সিল।
* ১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি হোটেল ইডেন প্রাঙ্গণে তিন দিনব্যাপী আওয়ামী লীগের দ্বি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগের ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ এই কাউন্সিলে দলে নেতৃত্বের শূন্যতা পূরণ এবং দলকে অধিকতর শক্তিশালী ও সংহত করার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনাকে তার অনুপস্থিতিতে দলের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। আবদুর রাজ্জাক সাধারণ সম্পাদক পুনর্নির্বাচিত হন। এই কাউন্সিলেই প্রথম গঠনতন্ত্র সংশোধন করে সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারক ‘সভাপতিম-লী’ গঠিত হয়।
* ১৯৮১ সালের ১৭ মে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব গ্রহণ করেন।
* ১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর সদস্যদের হাতে জিয়া নিহত। ১৫ নভেম্বর নতুন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শেখ হাসিনার ব্যাপক জনসংযোগ।
* ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ জেনারেল এরশাদের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখল।
* ১৯৮৩ সালের ১১ জানুয়ারি কুখ্যাত রাজাকার আবদুল মান্নান আহূত ‘জমিয়াতুল মোদাররেসিন’ নামক মাদ্রাসা শিক্ষকদের এক সমাবেশে জেনারেল এরশাদ ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও শহীদ মিনার সম্পর্কে ধৃষ্টতাপূর্ণ কটূক্তি করেন। রাজনৈতিক অঙ্গনে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ৩০ জানুয়ারি ১৫টি রাজনৈতিক দল ঐক্যবদ্ধভাবে মহান ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে গড়ে ওঠে ১৫ দলীয় ঐক্য জোট।
* ১৯৮৩ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি মজিদ খানের শিক্ষানীতি বাতিলের দাবিতে মৌন মিছিল করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচিতে পুলিশের গুলিতে জয়নাল, জাফর, কাঞ্চন, মোজাম্মেল ও দীপালি সাহা প্রমুখ পাঁচ ছাত্র নিহত হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাসহ ১৫ দলের নেতৃবৃন্দ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছুটে যান। ১৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে হরতাল পালিত হয়।
* ১৫ ফেব্রুয়ারি ড. কামাল হোসেনের বাসভবনে বৈঠকরত অবস্থায় সেনাবাহিনী আওয়ামী লীগের শেখ হাসিনা, আবদুস সামাদ আজাদ, আবদুল মান্নান, ড. কামাল হোসেন, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আবদুল জলিল, বেগম মতিয়া চৌধুরী, মহিউদ্দিন আহমেদ, মো. রহমত আলী, ডা. এসএ মালেক, গোলাম আকবর চৌধুরী, সাহারা খাতুন, অধ্যাপক মানিক গোমেজ, সিপিবি-র মোহাম্মদ ফরহাদ, মঞ্জুরুল আহসান খান, একতা পার্টির সৈয়দ আলতাফ হোসেন, ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, সাম্যবাদী দলের দীলিপ বড়–য়া ও বাসদের খালেকুজ্জামান প্রমুখ ১৫ দলের নেতাদের গ্রেফতার করে। ওই দিন সন্ধ্যা থেকে সান্ধ্য আইন বলবৎ করা হয়।
সারাদেশে সৃষ্ট উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা এবং শ্বাসরুদ্ধকর পরিবেশেই ঐক্যবদ্ধভাবে ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস পালিত হয়। ১৫ দলের উদ্যোগে রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিটি সর্বজনীন দাবিতে পরিণত হয়। জনমতের চাপে অবশেষে ১ মার্চ ১৯৮৩ শেখ হাসিনাসহ গ্রেফতারকৃত ২৭ নেতা মুক্তি লাভ করেন।
* ১৯৮৩ সালের ১ এপ্রিল থেকে ঘরোয়া রাজনীতির অনুমতি দেওয়া হয় এবং ১৪ নভেম্বর দেশে প্রকাশ্য রাজনীতির ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহৃত হয়। ১৯৮৩ সাল থেকেই সামরিক শাসন ও স্বৈরতন্ত্রবিরোধী আন্দোলনকে অভিন্ন লক্ষ্যে এবং অভিন্ন ন্যূনতম কর্মসূচির ভিত্তিতে যুগপৎ আন্দোলনের ধারায় সংগঠিত করার ব্যাপারে আওয়ামী লীগ উদ্যোগী ভূমিকা পালন করে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৫ দল ও বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গঠিত সাতদলীয় জোট দীর্ঘ আলাপ-আলোচনার পর একটি অভিন্ন ন্যূনতম কর্মসূচি প্রণয়ন করতে সক্ষম হয়। ১৯৮৩ সালের ৬ সেপ্টেম্বর উভয় জোটের সর্বসম্মত ৫-দফা কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
* ১৯৮৪ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ছাত্র মিছিলের ওপর ট্রাক চালিয়ে হত্যা করা হয় সেলিম-দেলোয়ার নামে দুই ছাত্রলীগ কর্মীকে। ১ মার্চ আদমজীতে শ্রমিক নেতা তাজুলকে এবং ২৭ সেপ্টেম্বর হরতালের দিন কালীগঞ্জে সাবেক এমপি ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ ময়েজউদ্দিনকে সরকারি জনদলের গু-াবাহিনী লেলিয়ে দিয়ে হত্যা করা হয়। ১৪ অক্টোবর মানিক মিয়া এভিনিউতে ১৫ দলের উদ্যোগে স্মরণকালের বৃহত্তম মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মহসমাবেশ থেকে ১৫ দল ২১-দফা কর্মসূচি ঘোষণা করে।
* বিরোধী দলের প্রতিবাদ-প্রতিরোধের মুখে একবার উপজেলা নির্বাচন তারিখ ও সংসদ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেও পিছিয়ে আসতে বাধ্য হন এরশাদ। পরে সামরিক আইনের কড়াকড়ি পুনর্বহাল, রাজনৈতিক তৎপরতা নিষিদ্ধ, বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ বন্ধ ঘোষণা এবং রাজনৈতিক নেতাদের আটক রেখে ১৯৮৫ সালের ২১ মার্চ এরশাদ তার ১৮-দফা কর্মসূচির পক্ষে গণভোট অনুষ্ঠান করেন।
* ১৯৮৫ সালের ১ অক্টোবর থেকে ঘরোয়া রাজনীতির ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়। পর্যায়ক্রমে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। ১৯৮৬ সালের ১ জানুয়ারি থেকে প্রকাশ্য সভা-সমাবেশের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়।
* ১৯৮৬ সালের ৭ মে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে ১৫ দল ও সাত দলের মধ্যে ঐকমত্য হয়। সিদ্ধান্ত হয় সামরিক শাসন অবসানের মূল লক্ষ্য হাসিলের উদ্দেশ্য সামনে রেখে দুই জোট ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে অংশ নেবে। ১৫ দল ১৮০টি আসনে এবং সাত দল ১২০টি আসনে প্রার্থী দিয়ে জাতীয় পার্টিকে মোকাবিলা করবে বলে ঐকমত্য হয়। কিন্তু হঠাৎই রহস্যজনক কারণে সাত দল নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেয়। ১৫ দলের অন্তর্ভুক্ত ওয়ার্কার্স পার্টি, বাসদ, শ্রমিক কৃষক সমাজবাদী দল, সাম্যবাদী দলও নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকার কথা ঘোষণা করে। ১৫ দল নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্তে অটল থাকে।
(আগামী সংখ্যায় সমাপ্ত)

শ্রেণী:

বঙ্গবন্ধুর কারাগারের রোজনামচা

Posted on by 0 comment
aa

aaমুনতাসীর মামুন

(শেষ অংশ)
ভিয়েতনাম সম্পর্কে একই সময় লিখেছেন-
“রাশিয়া উত্তর ভিয়েতনাম সরকারকে সামরিক সাহায্য প্রেরণের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। রাশিয়া পূর্ব থেকেই অনেক সাহায্য দিয়াছে। আমেরিকানরা যতই নিজেকে শক্তিশালী মনে করুন, রাশিয়া যখন হ্যানয় সরকারকে সাহায্য করতে আরম্ভ করেছে তখন যুদ্ধে জয়লাভ কখনই করতে পারবে না। এর পরিণতিও ভয়াবহ হবে। একমাত্র সমাধান হলো তাদের ভিয়েতনাম থেকে চলে আসা। ভিয়েতনামের জনসাধারণ নিজেদের পথ নিজেরাই বেছে নিবে।” [পৃ. ১৬০]
পরবর্তী পাঁচ বছরের মধ্যেই তাঁর ভবিষ্যদ্বাণী সফল হয়েছিল।
এ প্রসঙ্গেই আলোচনা করা যেতে পারে রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার নিয়ে, যে কথা আগেও উল্লেখ করেছি। পাকিস্তান ইসলামিক রিপাবলিক। অনেক দেশ তা নয়। তাহলে পাকিস্তানে শান্তি নেই, অন্য দেশে আছে কেন? এই মৌলিক প্রশ্ন তিনি বারবার তুলেছেন। ডিআইজি ধর্মভীরু। তার সঙ্গে আলাপ করতে এসেছেন। তিনি ধর্মকথা আলোচনা শুরু করলেন। শেখ মুজিব বললেনÑ
“ইসলামের কথা আলোচনা করে কি লাভ? পাকিস্তানের নাম তো ইসলামিক রিপাবলিক রাখা হয়েছে। দেখুন না ‘ইসলামের’ আদর্শ চারিদিকে কায়েমের ধাক্কায় ঘুষ, অত্যাচার, জুলুম, বেইনসাফি, মিথ্যাচার, শোষণ এমনভাবে বেড়ে চলেছে যে যারা আল্লায় বিশ্বাস করে না, তারাও নিশ্চয় হাসবে আমাদের অবস্থা দেখে। দেখুন না রাশিয়ায় যেখানে ধর্ম বিশ্বাস করে না সেখানে সমাজতন্ত্র কায়েম করতে চেষ্টা করছে, ঘুষ, শোষণ, বন্ধ হয়ে গিয়েছে। মানুষের বাঁচবার অধিকার স্বীকার করেছে।”
“গ্রেট বৃটেনে দেখুন, ন্যায়ের রাজ্য কায়েম করেছে। বেকার থাকলে সরকার থেকে ভাতা দেয়া হয়Ñ যে পর্যন্ত কাজের বন্দোবস্ত না করতে পারে।… অন্যায়ভাবে কাহাকেও কারাগারে বন্দি করতে পারে না।” [পৃ. ১৬২]
বলাই বাহুল্য এসব মৌলিক প্রশ্নের উত্তর ধর্মভিরু পুলিশ অফিসার দিতে পারেন নি।
আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক মোহাম্মদ মাহমুদউল্লাহকে গ্রেফতার করা হয়। মুজিব মন্তব্য করেছেন, মাহমুদউল্লাহ নিরীহ, খালি অফিসের কাজ করেন, রাজনৈতিক বাক-বিত-ায়ও অংশগ্রহণ করেন না। আফসোস করেছেন। অন্যদিকে ১৯৬৬-৬৭ সালের আমদানি নীতি ঘোষণা হয়েছে। এর ফলে “পূর্ব বাংলার ক্ষুদ্র শিল্পপতিরাও এবার চরম আঘাত খেতে বাধ্য করবে।” এই আমদানি নীতি তাকে ক্ষুব্ধ করে তোলে। তিনি লেখেন [১৬ জুলাই]Ñ
“জেলের মধ্যে বসে এ কথা চিন্তা করে লাভ কি? যার সারাটা শরীরে ঘা, তার আবার ব্যথা কিসের! গোলামের জাত গোলামি কর। আমি কারাগারে আমার বন্ধু-বান্ধব নিয়ে ‘আয়াসেই’ আছি! ভয় নাই, মাহমুদ আলি, জাকির হোসেন, মোনায়েম খান, আব্দুস সবুর খান, মহম্মদ আলী এরকম অনেকেই বাংলার মাটিতে পূর্বেও জন্মেছে, ভবিষ্যতেও জন্মাবে।” [পৃ. ১৬৪]
বর্তমান রাজনীতিবিদদের দেখলে এ কথা কত সত্য বলেই না মনে হয়।
ন্যাপ ও মওলানা ভাসানী সম্পর্কে প্রায়ই নানা নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন বঙ্গবন্ধু। এবং সে সমালোচনা করেছেন নানা ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে। এসব সমালোচনার মাঝে তিনি একটি কথা বলেছেন, যা মনে করি, রাজনীতির মূলমন্ত্র হওয়া উচিত। যারা প্রগতিশীল রাজনীতি করেন অন্তত তাদের ক্ষেত্রে। হেফাজতের প্রতি বর্তমান আওয়ামী লীগের নমিত নীতির এ কারণেই আমরা সমালোচনা করি। মনে হয় বঙ্গবন্ধু থাকলে তিনিও করতেন। তিনি যা মনে করতেন (১৯৬৬) তা হলো, ৬-দফা মেনে নিলে সবার সঙ্গে ঐক্য করা যেতে পারে এবং শত বাধা-বিপত্তি সত্ত্বেও এক্ষেত্রে আপস করেন নি। এখন হয়েছে উল্টোটা। হেফাজতের নীতি মেনে রাজনীতি করতে হবে। হওয়া উচিত ছিল, হেফাজত যদি রাষ্ট্রীয় চার নীতি মানে তাহলেই তাদের দাবি বিবেচনা করা যাবে। বঙ্গবন্ধু লিখেছেনÑ
“মানুষকে আমি ধোঁকা দিতে চাই না। আদর্শে মিল না থাকলে ভবিষ্যতে আবার নিজেদের মধ্যে আত্মকলহ দেখা দিতে বাধ্য। সেদিকটা গভীরভাবে ভাবতে হবে।… যারা আন্দোলনের সময় এগিয়ে আসে নাই তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগ এক হয়ে কাজ করতে পারে না।” (পৃ. ১৬৮)
বাকশাল গঠনের সময় এ কথাই তিনি মনে করেছিলেন।
এখানে তিনি আওয়ামী লীগ ভেঙে ন্যাপ হওয়ার কারণ বলেছেন। বর্তমানে এ বিষয়ে যেসব ন্যারেটিভ এটি তার বিপরীত। প্রচলিত বিবরণ অনুযায়ী, আওয়ামী লীগের একগুঁয়েমির কারণে, বিশেষ করে বৈদেশিক নীতির প্রশ্নে ভাঙন দেখা দেয়। বঙ্গবন্ধু বলছেন, “ওয়ার্কিং কমিটির সভায় বৈদেশিক নীতি নিয়ে কোনো প্রস্তাব পাশ হয়নি। ভাসানী বললেন, না হয়েছে এবং তাকে ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু এ দাবিকে ‘অসত্য’ বলেছেন। গুলিস্তান ও নিউ পিকচার্স হাউসে যে সম্মেলন হয় সেখানে ‘স্বায়ত্তশাসনের কোনো প্রশ্নই ওঠেনি।’ ভাসানী ৮৩৪টি ভোটের মধ্যে ৪৩ ভোট পেয়েছিলেন।” মুজিব লিখেছেনÑ
“আওয়ামী লীগ ভেঙে যখন ন্যাপ করা হলো, তখন বৈদেশিক নীতির উপরই হয়েছিল বলে এতদিন মওলানা সাহেব বলতেন, এবার নতুন কথা শুনলাম। কিছুদিন বেঁচে থাকলে অনেক নতুন কথাই তিনি শোনাবেন। যেমন, তিনি কোনোদিনই মওলানা পাশ করেন নাই তবুও মওলানা সাহেব না বললে বেজার হন।
ন্যাপ কেন হয়েছিল? আদর্শের জন্য নয়। মওলানা সাহেবের মধ্যে পরশ্রীকাতরতা খুব বেশি। সোহরাওয়ার্দী সাহেবের জনপ্রিয়তা সহ্য করতে পারেন নাই এবং তাঁর মধ্যে এতো ঈর্ষা দেখা দেয় যে, গোপনে ইস্কান্দার মির্জার সঙ্গে হাত মিলাতেও তাঁর বিবেকে বাধে নাই। তিনি মির্জা সাহেবকে মিশরের নাসের করতে চেয়েছিলেন।”
এটি বঙ্গবন্ধুর ভাষ্য। ন্যাপ একেবারে আদর্শের কারণে হয়নি তা ঠিক নয়। আদর্শগত পার্থক্য কর্মীদের মধ্যে নিশ্চয় হয়েছিল। তবে, এ বিষয়টি আরও গবেষণার দাবি রাখে। কারণ, যারা ন্যাপ করেছেন তাদের ভাষ্য ভিন্ন।
রাজনীতিবিদদের মধ্যে ব্যক্তিত্বে দ্বন্দ্ব নতুন নয়। সোহরাওয়ার্দীকে মধ্য ডানের মতাদর্শীরা নেতা মনে করতেন। ভাসানীর মধ্যে পরস্পর বিরোধিতা ছিল প্রচুর। কখনও ডান, কখনও মধ্য ডান, কখনও বামপন্থার পক্ষে বলতেন। সোহরাওয়ার্দী, ফজলুল হক ও ভাসানী তখন বর্ষীয়ান নেতা। তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব থাকা স্বাভাবিক এবং সেই দ্বন্দ্ব রাজনীতিতে অস্থিরতা সৃষ্টি করেছিল, অভিঘাত হেনেছিল তাও নয়। ১৯৭০ সালের আগে যখন শেখ মুজিবের উত্থান শুরু হয়েছে তখন তার অগ্রজ নেতারা আবুল মনসুর আহমদ, ইয়ার মোহাম্মদ খান বা আতোয়ার রহমান মেনে নিতে পারেন না। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশভাবে জয়লাভ করলে তিনি অপ্রতিদ্বন্দ্বী নেতায় পরিণত হন। কিন্তু তার একটি গুণ ছিলÑ তার সহকর্মী এবং সমাজের পেশাজীবীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল। তাতের মতামত নিতেন। সহায়তা নিতেন। রাজনৈতিক কর্মসূচি নিজের মতো নিতেন। এজন্য সমসাময়িককালে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে তার গ্রহণযোগ্যতা ছিল বেশি।
এরপর ১৯৬৭ সালের ৩১ মে পর্যন্ত লেখা রোজনামচা পাওয়া গেছে। এ রোজনামচায় দেখি, তিনি ক্রমেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। পরিবারে আর্থিক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। কিন্তু তার স্ত্রী বলছেন, চিন্তা নেই। সব সমস্যার সমাধান হবে। ছেলে-মেয়েদের জন্য চিন্তা লাগছে। বিশেষ করে রাসেলের জন্যÑ
“ ‘৮ ফেব্রুয়ারি ২ বছরের ছেলেটা এসে বলে, আব্বা বালি চালো’। কি উত্তর ওকে আমি দিব। ওকে ভোলাতে চেষ্টা করলাম ও তা বোঝে না আমি কারাবন্দি। ওকে বললাম, ‘তোমার মার বাড়ি তুমি যাও। আমি আমার বাড়ি থাকি। আবার আমাকে দেখতে এসো।’ ও কি বুঝতে চায়! কি করে নিয়ে যাবে এই ছোট্ট ছেলেটা ওর দুর্বল হাত দিয়ে মুক্ত করে এই পাষাণ প্রাচীর থেকে। দুঃখ আমার লেগেছে। শত হলেও আমি তো মানুষ আর ওর জন্মদাতা।” [পৃ. ২৪৯]
বাইরে রাজনীতিতে পরিবর্তন আনার চেষ্টা চলছে বিডিএম করে। এর উদ্যোক্তারা চান আওয়ামী লীগ এতে যোগ দিক। বঙ্গবন্ধু রাজি নন। এরি মধ্যে তার মামলার শুনানি হয়। কিন্তু জামিন হয় না। অন্যান্য কারাগার থেকে তার ‘বন্ধু’ মোস্তাক ও অনুজ কর্মীরা ঢাকা জেলে স্থানান্তরিত হয়েছেন। তাদের অনেকে ২০ সেলে থাকে। ফলে তার সঙ্গে দেখা হয়। তাস খেলে, বই পড়ে, তাদের সঙ্গে গল্প করে দিন কাটান কিন্তু মন পড়ে থাকে ৬-দফার দিকে।
এদিকে আইয়ুব খান এসেছেন ঢাকায়। তাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে বিপুলভাবে। লেখেন বঙ্গবন্ধুÑ
“পূর্ব বাংলার মাটিতে বিশ্বাসঘাতক অনেক পয়দা হয়েছে, আরো হবে, এদের সংখ্যাও কম না। কিন্তু বিশ্বাসঘাতকদের স্থান কোথায় এরা দেখেও দেখে না! বিশেষ করে একদল বুদ্ধিজীবী যেভাবে পূর্ব বাংলার সঙ্গে বেঈমানী করছে তা দেখে আশ্চর্য হতে হয়।
সামান্য পদের বা অর্থের লোভে পূর্ব বাংলাকে যেভাবে শোষণ করার সুযোগ দিতেছে দুনিয়ার অন্য কোথাও এটা দেখা যায় না। ছয় কোটি লোক আজ আস্তে আস্তে ভিখিরি হতে চলেছে। এরা এদের ভবিষ্যৎ বংশধরদের কথাও চিন্তা করেন না।”
শেখ মুজিবের বড় গুণ ছিল তার অগ্রজ বা সমসাময়িকদের প্রকাশ্যে কখনও অপমান করেন নি। ভাসানীর বিরুদ্ধে অনেক তিক্ত কথা ডায়েরিতে লিখেছেন কিন্তু প্রকাশ্যে তাকে শুধু সম্মান নয় সহায়তাও করেছেন। ফজলুল হকের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব ছিল। কিন্তু ফজলুল হকের মৃত্যুবার্ষিকী উপলেক্ষে লিখেছেনÑ
“যখন তিনি ঢাকায় মারা যান সেদিনও আমি জেলে ছিলাম। হক সাহেব ছিলেন পূর্ব বাংলার মাটির মানুষ এবং পূর্ব বাংলার মনের মানুষ। মানুষ তাঁহাকে ভালোবাসতো ও ভালোবাসে। যতদিন বাংলার মাটি থাকবে বাঙালি তাঁকে ভালোবাসবে। শেরে বাংলার মতো নেতা যুগ যুগ পরে দুই একজন জন্মগ্রহণ করে।” [পৃ. ২৩১]
ফজলুল হকের আত্মবিশ্লেষণের তিনি উদ্ধৃতি দিয়েছেন। এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ তাকে বোঝার জন্য। ফজলুল হক বলেছেন তিনি রোমান্টিক। স্বতঃস্ফূর্তভাবে সব সময় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। এ কারণে ক্ষমতার শীর্ষে উঠেছেন, পতনও হয়েছে। কিন্তু কোনো আফসোস নেই। বঙ্গবন্ধু এই উদ্ধৃতি কোথায় পেয়েছেন তা উল্লেখ করেননি, কিন্তু আগে আমি এর উল্লেখ কখনও দেখিনি। তাই এর পুরোটা উল্লেখ করছি এ কারণে যে, ভারতবর্ষের একজন বড় মাপের রাজনীতিবিদের নিজের উক্তি নিজের সম্পর্কে। ফজলুল হক এর শিরোনাম দিয়েছেনÑ সেলফ অ্যানালাইসিস। লিখেছেন
“ÒIn my stormy and chequred life chance has played more than her fair part. The fault has been my own. Never at any time have I tried to be the complete master of my own fate. The strongest impulse of the moment has governed all my actions. When chance has raised me to dazzling height, I have received her gifts without stretched hands. When she has cast me down from my high pinnacle. I have accepted her buffets without complaint. I have my hours of pinnacle and regret. I am introspective enough to take an interest in the examination of my own conscience. But this self analysis has always been ditched. It has never been morbid. It has neither aided nor impeded the fluctuations of my varied career. It has availed me nothing in the external struggle which man wages on behalf of himself against himself. Disappointments have not cured me of ineradicable romanticism. If at times I am sorry for something I have done, remorsearails me only for the things I have left undone..”
১৯৬৮ সালের ১৭ জানুয়ারি গভীর রাতে শেখ মুজিবকে জানানো হয় তিনি মুক্ত। এতে তিনি অবাক হয়েছিলেন কারণ তার বিরুদ্ধে বেশ কটি মামলা ছিল। তার মনে হয়েছিল এর মধ্যে কিছু একটা আছে। কারণ, ঈদের নামাজের সময় তার সঙ্গে কয়েকজনের দেখা হয়েছিল। তাদের একজন চট্টগ্রামের কর্মী তাকে জানিয়েছিলেন, পুলিশ তাকে ২১ আটকে রেখে অত্যাচার করেছে, পা ভেঙে দিয়েছে। তিনি বলেছিলেন, খালি মুজিবের নাম জড়াবার জন্য তার ওপর অত্যাচার করা হয়েছে। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে যে কাগজ দিয়েছে তাতেই তিনি সই করে দিয়েছেন। আরেকদিন কামাল উদ্দিনও জানালেন, তাকে অসম্ভব অত্যাচার করেছে। “আমার শরীর পচাইয়া দিয়েছে। সোজাভাবে শুয়ে থাকতে পারি না। পায়খানার রাস্তায় কি ঢুকিয়ে দিয়েছে যন্ত্রণায় অস্থির। এই দেখুন জ্বলন্ত সিগারেট দিয়ে জায়গায় জায়গায় পোড়াইয়া দিয়েছে। আপনার নাম লেখাইয়া নিয়েছে আমার কাছ থেকে যদিও অনেক বলেছি, শেখ মুজিবের সঙ্গে আমার পরিচয় নাই।”
এই সময় কাগজে দেখেন রুহুল কুদ্দুস, আহমদ ফজলুর রহমানসহ ২৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সুতরাং, আন্দাজ করছিলেন তাকে আবার দেশদ্রোহের কোনো মামলায় জড়ানো হবে। দেখা গেল তার অনুমানই ঠিক। জেলগেট থেকে বেরুবার সঙ্গে সঙ্গেই সেনাবাহিনী তাকে গ্রেফতার করল, সেনা আইনের আওতায়। ক্যান্টনমেন্টে তাকে অফিসার্স মেসে এনে রাখা হলো।
শুরু হলো ‘শেখ মুজিবুর রহমান বনাম রাষ্ট্র’ মামলা। পাকিস্তানিরা নাম দিলÑ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা। বঙ্গবন্ধু বলতেন, ইসলামাবাদ ষড়যন্ত্র মামলা।
এই সময় বেগম মুজিব তাকে ৩২০ পৃষ্ঠার একটি খাতা পাঠান। তিনি মাত্র ৫২ পৃষ্ঠা লেখেন। মামলা শুরু হওয়ার সময় খাতাটি তাকে দেয়া হয়েছিল। এটি তার লেখা শেষ খাতা।
এখানে শেখ মুজিবুর বন্দী জীবনের কথা লিখেছেন। এখানেও মিলিটারি কনফাইনমেন্ট। শুধু তাই নয় সঙ্গে সবসময় থাকতেন একজন পাকিস্তানি অফিসার। কথা বলা নিষেধ। খাবার ছিল সব সময় রুটি আর মাংস। শরীর ছিল তার অসুস্থ। তার ওপর এই খাবার। ঘরের দরজা জানালা বন্ধ। জানালার কাচ লাল রং করা। সন্ধ্যার পর আলো নিভিয়ে মেস এরিয়ার (যেখানে তাকে রাখা হয়েছিল) বাইরে একটা রাস্তায় হাঁটতে তাকে নেয়া হতো। সঙ্গে সেনা পাহারা। একসময় মনে হলো, তারা তাকে যে কোনো সময় গুলি করে মেরে ফেলতে পারে। অজুহাত দেয়া হবে, পালাবার সময় গুলি করা হয়েছে। তারপর থেকে তিনি বললেন, মেস এরিয়ার বাইরে তিনি হাঁটতে যাবেন না। পরবর্তীকালে সার্জেন্ট জহুরুল হককে এ অজুহাতে গুলি করে হত্যা করা হয়।
মাঝে মাঝে দু’একজন অফিসার তাকে ইন্টারগেশন করতে আসতেন। তাদের ভাবসাব দেখে বঙ্গবন্ধু লিখেছিলেনÑ
“কিছু সংখ্যক অতি উৎসাহী সামরিক কর্মচারী একদম পাগল হয়ে গেছে বলে মনে হয়। বিরাট কিছু একটা হয়ে গেছে। দেশকে রক্ষা করার সমস্ত দায়িত্বই যেন তাদের ওপরই পড়েছে। একটু গন্ধ পেলেই হলো, আর যায় কোথায়Ñ একদম লাফাইয়া পড়ে অত্যাচার করার জন্য। তাদের ধারণা পূর্ব বাংলার জনসাধারণের সকলেই রাষ্ট্রদ্রোহী। বুদ্ধি আক্কেল সব কিছু পশ্চিম বাংলা থেকে চালান হয়ে ঢাকায় আসে। তাদের ভাবসাব দেখে মনে হয় পূর্ব বাংলার ব্যবসা-বাণিজ্য টাকা-পয়সা জমি-জমা হিন্দুদের দ্বারা পরিচালিত। দুই একজন আমাকে কথায় কথায় বলেছে, এখনো বাঙালিরা হিন্দুদের দ্বারা পরিচালিত এবং তাদের ওপরই নির্ভরশীল। কিন্তু কোথায় যে হিন্দুদের কর্তৃত্ব আমার জানা নেই। বর্ণ হিন্দুরা প্রায় সকলেই পূর্ব বাংলা ছেড়ে চলে গেছে, কিছু সংখ্যক নিম্নবর্ণের হিন্দু আছে। পশ্চিম পাকিস্তানের প্রায় প্রত্যেকটা কর্মচারীর ধারণা পূর্ব বাংলার লোক হিন্দুদের দ্বারা পরিচালিত।” (পৃ. ২৬৬)
এ মনোভাব থেকে পাকিস্তানিরা গত ৭০ বছর মুক্ত হয়নি। আসলে, আমরাই বেশি মোহগ্রস্ত ছিলাম ধর্মের নামে বাসভূমি করার এবং পাকিস্তানিদের সঙ্গে থাকার। বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন কিন্তু এক বছরের মাথায় তার সেই মোহ কেটে গিয়েছিল। তার সমসাময়িকদের সেই মোহ থেকে বেরুতে সময় লেগেছিল। ১৯৯৮-৯৯ সালে, পাকিস্তানের উচ্চপর্যায়ের নীতি-নির্ধারকদের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। সেখানে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট লেঘারি, প্রধানমন্ত্রী বেনজীর ভুট্টো থেকে নিয়াজীও ছিলেন। উপর্যুক্ত ধারণা থেকে তারা তখনও মুক্ত হননি। বর্তমান রাজনীতি বিশ্লেষণ করলেও দেখব, বেশ কটি রাজনৈতিক দল এখনও বাংলাদেশে পাকিস্তানের প্রতি অনুরক্ত, যদিও পাকিস্তান তাদের বিবেচনা করে ভৃত্য হিসেবে।
বঙ্গবন্ধুর খাবারের প্রচ- অসুবিধা হচ্ছিল। জেলে থাকতেই আমাশয় আক্রান্ত হয়েছিলেন। একজন বাঙালি বাবুর্চির কথা বলেছিলেন। তারা রাজি হয়নি। “তাদের কথা, সিকিউরিটির জন্য বাঙালি বাবুর্চি রাখা যায় না। একটা আশ্চর্য ব্যাপার আমার চোখে পড়ল।… বাঙালিদের তারা ব্যবহার করতে প্রস্তুত, কিন্তু বিশ্বাস করতে রাজি নয়। আর বিশ্বাস করেও না। সকলকেই সন্দেহ করে। তাদের ধারণা প্রায় সকলেই নাকি আমার ভক্ত। মনে মনে সকলেই নাকি আলাদা হতে চায়।” (পৃ. ২৬৬)
এখানেই বিবরণ শেষ। যদি শেষ অবধি তিনি লিখতে পারতেন তাহলে আমাদের ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের একটি ভাষ্য পেতাম। আগরতলা মামলা সম্পর্কে বঙ্গবন্ধু কখনও কিছু বলেন নি। এটি ঠিক, এদের অনেকের সঙ্গে প্রথম দিকে তার যোগাযোগ হয়েছিল কিন্তু তিনি এদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন নি। শুধু সেনাদের দ্বারা গঠিত গ্রুপ সরকার উৎখাত করতে পারবে এটি তিনি বিশ্বাসও করেন নি এবং সেনাদের বিশ্বাসের কারণটাও পাননি। তবে, যারা যুক্ত ছিলেন ওই ধরনের পরিকল্পনায় তাদের অশ্রদ্ধা করার কোনো কারণ নেই; কিন্তু ওই ধরনের পরিকল্পনা ছিল অবাস্তব। পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধুকে জড়িয়েছিল রাজনৈতিক সুবিধা পাওয়ার আশায় কিন্তু তা বুমেরাং হয়ে গিয়েছিল। কারণ, অন্তিমে এই মামলা গণ-অভ্যুত্থানে ভেসে গিয়েছিল, শেখ মুজিবুর রহমান বঙ্গবন্ধুতে পরিণত হয়েছিলেন, তার কিছুদিন পর জাতির জনকে। বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পড়ে আমরা মুগ্ধ হয়েছিলাম। ধরে নিতে পারি, ১৯২০ থেকে ১৯৫৪ প্রায় ৩৪ বছরের জীবন কাহিনি বর্ণিত হয়েছে। ‘কারাগারের রোজনামচা’ ১৯৬৬-১৯৬৮ সালের। মাঝখানের ১২ বছর বাদ। তারপরও বলা যাবে এ দুটি গ্রন্থ থেকে তার বেড়ে ওঠা, রাজনৈতিক জীবন, রাজনীতির দর্শন সম্পর্কে একটি ধারণা মেলে। কারণ, ১৯৬৯-১৯৭৫ সালে তিনি তার সেই রাজনীতির দর্শন বা বিশ্বাস অনুযায়ীই কাজ করেছিলেন।
কারাগারের রোজনামচায় তিনি পাকিস্তান সম্পর্কে তার ধারণা স্পষ্ট করেছেন। পাকিস্তান সম্পর্কে তার কোনো মোহ ছিল না। জালেমের শাসন হিসেবেই নিয়েছিলেন। এর বিপরীতে তার মনে হয়েছিল ৬-দফাই বাঙালির মুক্তির সনদ। ৬-দফা এবং একে কার্যকর করার প্রক্রিয়া ছাড়া আর কোনো চিন্তা তার ছিল না এবং অভ্যন্তরীণ রাজনীতিকে এর পরিপ্রেক্ষিতেই বিচার করেছেন। তিনি তার সঙ্গেই জোটে আগ্রহী যিনি ৬-দফায় বিশ্বাস করেন। ন্যাপ তখন প্রধান বিরোধী দল। মওলানা ভাসানী এর নেতা। ভাসানী এবং ন্যাপ নেতাদের আইয়ুব তোষণনীতি তিনি পছন্দ করেন নি। এর সমালোচনা করেছেন বারবার।
পুরো রোজনামচায় গরিব বাঙালির প্রতি তার ভালোবাসাই প্রতিধ্বনিত হয়েছে। বাঙালি যারা ৬-দফা বিশ্বাস করে না তাদের প্রতি দুঃখিত হয়েছেন। গরিবদের প্রতি ভালোবাসার কারণেই সমাজতন্ত্রের প্রতি তার পক্ষপাত ছিল। আর অসাম্প্রদায়িক মনোভাব তার সব সময়ই ছিল।
১৯৬৬ সালে দেশে বসে খাবারের অভাবের কথা শুনছিলেন। জেলে এক রক্ষী বলছিলেন, দেশে বোধহয় কচু গাছও নেই। লিখেছেন তিনিÑ
“বললাম, এই তো আইয়ুব খান সাহেবের উন্নয়ন কাজের নমুনা, মোনায়েম খাঁ সাহেবের ভাষায় চাউলের অভাব হবে না, গুদামে যথেষ্ট আছে। যে দেশের মা ছেলে বিক্রি করে পেটের দায়ে, যে দেশের মেয়েরা ইজ্জত দিয়ে পেট বাঁচায়, সে দেশও স্বাধীন এবং সভ্য দেশ। গুটি কয়েক লোকের সম্পদ গড়লেই জাতীয় সম্পদ গড়া হয় বলে যারা গর্ব করে তাদের সম্বন্ধে কি-ই বা বলব!”
আমাদের দেশে উন্নয়নের মডেল সাধারণ এ রকমই মনে করা হয়। এখন উন্নয়ন দৃশ্যমান, দারিদ্র্য হ্রাস পাচ্ছে, কিন্তু একই সঙ্গে বলতে হয় সম্পদ গুটিকয় মানুষের হাতেই কেন্দ্রীভূত হচ্ছে এবং এই সম্পদের একটি বড় অংশ লুট করা। বাংলাদেশে যে পরিমাণ খেলাপি ঋণ তা পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে তা ভাগ করে নিয়েছে ৪০-৫০ জন। এই অবস্থা বেশিদিন চললে সামাজিক বিস্ফোরণ ঘটার সম্ভাবনা থেকে যায়।
এর বিপরীতে লিখেছেন বঙ্গবন্ধু “বাঙালি জাতটা এত নিরীহ, না খেয়ে মরে যায় কিন্তু খেতে আজও শিখে নাই। আর ভবিষ্যতেও খাবে সে আশা করা ভুল।” [২.১৫৩] ’৪২-এর মন্বন্তরের সময় মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ও তার গল্পে এ কথাই লিখেছিলেন। এ বৈশিষ্ট্যের জন্য এখনও এ দেশে দৃশ্যমান লুটেরারা সব সময় বেঁচে যায়, তাদের রক্ষা করা হয়।
স্বদেশী আন্দোলনকারী, আগেই লিখেছি এবং কমিউনিস্ট নেতা এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ছাড়া বাঙালি ও বাংলার [বাংলাদেশ] জন্য এত ত্যাগ কেউ করেন নি। কিন্তু, আশ্চর্য এই যে, এইসব ত্যাগী মানুষের স্মৃতি সবাই বিস্মৃত হয়। এই ত্যাগের বিনিময়ে যারা ক্ষমতায় আসেন তারাই তার (বা তাদের) স্মৃতি অবলেপনে মগ্ন থাকেন। ১৯৪৭ পর্যন্ত এ দেশে যত বিপ্লবী প্রাণ দিয়েছেন তাদের অধিকাংশের স্মৃতি আমরা ধরে রাখিনি। ১৯৪৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত দেশ স্বাধীন ও জিয়া-এরশাদের মতো জোট আইয়ুব খাঁদের হাত থেকে দেশকে মুক্ত রাখার জন্য যারা আত্মত্যাগ করেছেন, তারা খুব কমই মূল্যায়িত হয়েছেন। ধরা যাক, ১৯৬৯ সালের শহীদ মতিউরের কথা। সেই কিশোর গুলি খাওয়াতে ১৯৬৯ সালের গণ-আন্দোলন নতুন মাত্রা লাভ করে। সাহিত্যিক সাংবাদিক ফয়েজ আহমদের উদ্যোগে গুলিস্তান থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত সবুজ চত্বরটির নামকরণ করা হয় ‘মতিউর শিশু পার্ক’। আজ সে সবুজ চত্বরটি ক্ষতবিক্ষত এবং সেই নামটিও উধাও। এমন কী বঙ্গবন্ধু পর্যন্ত ‘বন্ধু’ মোশতাককে যতটা গুরুত্ব বা মূল্যায়ন করেছেন, মুক্তিযুদ্ধ যারা চালিয়েছেন তাদের তেমন গুরুত্ব দেননি। মূল্যায়ন করেন নি এবং এর ফল কী হয়েছে তা সবারই জানা। জানি না, বাঙালি আদৌ তার এই বৈশিষ্ট্য থেকে মুক্ত হতে পারবে কি না। যেমন, লিখেছিলেন বঙ্গবন্ধু, পরশ্রীকাতরতা শব্দটি একমাত্র বাংলা ভাষার অভিধানেই আছে, অন্য কোনো ভাষায় নেই।
শেখ হাসিনা অত্যন্ত মমতায় এ পা-ুলিপিগুলো সংরক্ষণ করেছিলেন এবং প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কারাগারের রোজনামচায়, বঙ্গবন্ধুর পা-ুলিপির মূল ভাষা রক্ষা করা হয়েছে। তিনি বক্তৃতা যেমন মিশ্র ভাষায় দিতেন, পা-ুলিপিও রচিত হয়েছে সেই মিশ্র ভাষায়। এতে বরং বঙ্গবন্ধুকেÑ যাকে আমরা দেখেছি, তাকে খুঁজে পাওয়া যায়। শেখ হাসিনা ও তার সম্পাদকীয় টিমকে অভিনন্দনÑ এ রকম সুমুদ্রিত গ্রন্থটি বাঙালিদের উপহার দেয়ার জন্য।

শ্রেণী:

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে শান্তি ও সম্প্রীতি অর্জনে অগ্রগতি, প্রতিবন্ধকতা ও করণীয়

Posted on by 0 comment
aa

aaড. নূহ-উল-আলম লেনিন:

পূর্বকথা
আজকের সেমিনারের শিরোনাম ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে শান্তি ও সম্প্রীতি অর্জনে প্রতিবন্ধকতা ও করণীয়’। আমি কোনো ব্যাখ্যা না করেই বলব, সেমিনারের শিরোনাম ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে শান্তি ও সম্প্রীতি অর্জনে অগ্রগতি, প্রতিবন্ধকতা ও করণীয়’ হওয়া বাঞ্ছনীয় ছিল। এ কথা ভুলে গেলে চলবে না যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে এখন কোনো যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে না বা এ অঞ্চলটি এখন আর শান্তিচুক্তি-পূর্ব আশির দশকের রক্তাক্ত উপত্যকা নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রথম সরকারের আমলে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তি সম্পাদন ও বিদ্রোহীদের আনুষ্ঠানিক অস্ত্র সমর্পণের ভেতর দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে দীর্ঘ দুই দশকের রক্তপাত ও সংঘাতের অবসান হয়েছে। বিপুল সংখ্যক (প্রায় ৬৪ হাজার) চাকমা উদ্বাস্তুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন এবং তাদের পুনর্বাসন, অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তুদের স্বগৃহে প্রত্যাবর্তন, সর্বোপরি গত দুই দশকে শান্তিচুক্তির অধিকাংশ ধারার বাস্তবায়নের পর পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে স্থায়ী শান্তির ভিত্তি রচিত হয়েছে। এ কারণেই আমি সেমিনারের শিরোনামকে সম্প্রসারিত করাকে যথার্থ বলে মনে করি।
না, আমি পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের শান্তির প্রশ্নটিকে সরলীকরণ করে দেখছি না। যুদ্ধাবস্থা/গৃহযুদ্ধের অবসান এবং পার্বত্য অঞ্চলে সংবিধানের আওতায় স্বশাসনের একটা ঐতিহ্য গড়ে উঠলেও, বিচ্ছিন্ন বিক্ষিপ্তভাবে এখনও পাহাড়ে অনাকাক্সিক্ষত সন্ত্রাসী কর্মকা- ঘটছে। দ্বিতীয়ত; পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শিক্ষাক্ষেত্রে এবং জনগণের জীবনমানের দৃশ্যমান অগ্রগতি সাধিত হওয়া সত্ত্বেও পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর মধ্যে আস্থার সংকট সৃষ্টির পরিকল্পিত অপতৎপরতা বন্ধ হয়নি। আমি বিষয়টির এই জটিলতা তথা ডায়নামিকসকে বিবেচনায় রেখেই শান্তিচুক্তির বাস্তবায়ন এবং অসম্পূর্ণ করণীয় সম্পর্কে আলোপাত করব।

ঐতিহাসিক পটভূমি
পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে শান্তির প্রশ্নটি কোনো একাডেমিক আলোচনার বিষয় নয়। এটি একটি বাস্তব রাজনৈতিক সমস্যা। এই সমস্যার রয়েছে ঐতিহাসিক পটভূমি এবং রক্তাক্ত ইতিহাস। এ কথা আমরা সবাই জানি, পার্বত্য অঞ্চলের সমস্যা আকস্মিকভাবে দেখা দেয়নি। পার্বত্য অঞ্চলের জনগণের নৃতাত্ত্বিক, ভাষা ও সংস্কৃতি, ধর্ম এবং জীবনধারা বাংলাদেশের সমভূমি অঞ্চলের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর মতো নয়। তাদের সমস্যার প্রকৃতিও আলাদা। আমি প্রাক-ঔপনিবেশিক আমলের ইতিহাস সম্পর্কে বলছি না। মনে রাখতে হবে, ১৭৫৭ সালে পলাশীর পরাজয়ের পরপরই কিন্তু পুরো বাংলা ইংরাজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির প্রত্যক্ষ শাসনাধীন হয়নি। তবে পলাশী যুদ্ধের পর মীরজাফরকে হটিয়ে বাংলার নবাবী দখল করেন মীরকাশিম। তার ক্ষমতা দখলে ইংরেজরা সহায়তা করায় ১৭৬০ খ্রিস্টাব্দের ১৫ অক্টোবর মীরকাশিম ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে উপহার হিসেবে চট্টগ্রাম দান করে। বস্তুত; ১৭৬০ থেকেই চট্টগ্রাম (পার্বত্য চট্টগ্রামসহ) ইংরেজ কোম্পানির প্রত্যক্ষ শাসনাধীন হয়। ১০০ বছর শাসনের পর ১৮৬০ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটিশ শাসকরা চট্টগ্রামকে দুই ভাগে বিভক্ত করে। পার্বত্য চট্টগ্রাম তখন থেকে স্বতন্ত্র জেলার মর্যাদা লাভ করে। তবে লুসাই পাহাড় ইংরেজ অধিকারে আসার পর ১৮৯১ খ্রিস্টাব্দ থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামকে জেলার মর্যাদা থেকে মহকুমায় নামিয়ে আনা হয়। ১৯০০ সালে পুনরায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলার মর্যাদা ফিরে পায়।
১৮৮১ সালের ১ সেপ্টেম্বর ব্রিটিশ সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামকে ৩টি সার্কেলে চাকমা, মোং ও বোমং সার্কেলে বিভক্ত করে। পরবর্তীকালে প্রতিটি সার্কেলকে অনেকগুলো মৌজায় ভাগ করা হয়।
১৮৮১ সালে ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম ফ্রন্টিয়ার পুলিশ অ্যাক্ট’ চালু করে পাহাড়িদের সমন্বয়ে স্বতন্ত্র স্থানীয় পুলিশ বাহিনী গড়ে তোলা হয়।
১৯০০ সালের ১ মে ব্রিটিশ সরকার বহুল পরিচিত পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসনবিধি ১৯০০ (Chittagong Hill Tracts Regulation 1900 Act) জারি করে। পরবর্তীকালে বহুবার এই আইন সংশোধিত হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই আইনের অন্তর্নিহিত কতিপয় ধারা পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর জন্য চরম অবমাননাকর ও প্রতিক্রিয়াশীল হওয়া সত্ত্বেও পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতি নেতৃবৃন্দ কিন্তু ওই এলাকার ভূমিতে তাদের অধিকারসহ পাহাড়ি জাতিসত্তাগুলোর সংস্কৃতি ও স্বাতন্ত্র্য সংরক্ষণে ১৯০০ সালের শাসনবিধিকে রক্ষাকবচ হিসেবে মনে করেন।
১৯০০ সালের আইন ১৯৩৫ সালের ভারত শাসন আইনের সাথে সংগতিপূর্ণ করে পুনর্বিন্যস্ত করা হয়। ১৯০০ সালের আইন সংশোধিত হলেও এবং পার্বত্য জনগোষ্ঠীকে সমতলের জাতীয় সংগ্রামের মূলধারা থেকে বিচ্ছিন্ন করতে সক্ষম হলেও এই আইন পার্বত্য চট্টগ্রামে অ-উপজাতীয়দের অভিবাসনের প্রবল স্রোতকে বহুলাংশে রোধ করতে সক্ষম হয়।

পাকিস্তান আমল
পার্বত্য জনগোষ্ঠীর মধ্যে গত শতাব্দীর গোড়া থেকেই স্বাতন্ত্র্যবোধের চেতনা সাংগঠনিক রূপ নিতে থাকে। দেশভাগ ও রেডক্লিফ রোয়েদাদের ফলে ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পার্বত্য চট্টগ্রাম পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়। তবে দেশভাগের আগে পার্বত্য জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্বকারী চাকমা রাজা ও উপজাতীয় নেতৃবৃন্দ ভারতের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার ব্যর্থ চেষ্টা করেন। স্মর্তব্য যে, এই চাকমা রাজা ত্রিদিব রায় ও মারমা রাজাসহ উপজাতীয় নেতৃবৃন্দের অনেকেই ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠারও বিরোধিতা করেন। যদিও ‘ত্রিপুরা’ উপজাতি ও মানিকছড়ির মোং প্রু সাইন চৌধুরীসহ অনেক উপজাতীয় তরুণ এবং নেতৃবৃন্দ মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ করে।
চাকমা ও উপজাতীয়দের এই দৃষ্টিভঙ্গিকে দুই সামরিক শাসক শাস্তিযোগ্য অপরাধ মনে করে।
পাকিস্তানের সামরিক একনায়ক, চরম সাম্প্রদায়িক মনোভাবাপন্ন জেনারেল আইউব খান উপজাতীয়দের পাকিস্তান থেকে বিতাড়নের গোপন অভিলাষে ১৯৫৮ সালে কাপ্তাই বিদ্যুৎ প্রকল্প হাতে নেয়। কৃত্রিমভাবে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিপুল এলাকায় বাঁধ দিয়ে জলাধার বা লেক তৈরি করা হয়। ১৯৬০ সালে কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণ শেষ হওয়ার পরিণতিতে ১ লাখ পাহাড়ি মানুষ বাস্তুভিটা ও জমিহারা হয়ে পড়ে। ফলে পার্বত্য চট্টগ্রামের মোট চাষযোগ্য জমির ৫৬.০৬ শতাংশ, অর্থাৎ ৫৪ হাজার একর জমি পানিতে তলিয়ে যায়। পুরনো রাঙ্গামাটি শহর চিরদিনের মতো কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ডুবে যায়। ৫৪ হাজার একর প্রথম শ্রেণির জমির পরিবর্তে উদ্বাস্তুদের বনাঞ্চল থেকে ১ হাজার একর জমি বন্দোবস্ত দেওয়া হয়। বিপুল সংখ্যক (প্রায় লক্ষাধিক) চাকমা দেশ ছেড়ে ভারতে আশ্রয় নেয়। এমন কী আইউব খাঁ পার্বত্য চট্টগ্রামের (১৯০০ সালের আইনে) উপজাতীয় এলাকার মর্যাদাটুকু ছিনিয়ে নেয় ১৯৬৩ সালে। ফলে পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙালি অভিবাসন শুরু হয়। ১৯৪৭ সালে যেখানে উপজাতি ও অ-উপজাতি জনসংখ্যার অনুপাত ছিল যথাক্রমে ৯৭ শতাংশ ও অনূর্ধ্ব ৩ শতাংশ, ১৯৭০ সালে সেটা বেড়ে দাঁড়ায় যথাক্রমে ৮৫ শতাংশ ও ১৫ শতাংশ।
স্বাধীনতাত্তোর কালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ত্রিদিব রায়কে পদচ্যুত করে দেবাশীষ রায়কে চাকমা রাজা হিসেবে ঘোষণা করেন। তিনি চাকমা, ম্রোং-সহ পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতীয় জনগোষ্ঠীকে জাতীয় মূলধারার সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান। কোনোরকম প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা থেকে বাঙালিদের বিরত করেন।
পক্ষান্তরে উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর বঞ্চনা, তাদের ভূমি দখল, স্বশাসনের আকাক্সক্ষা প্রভৃতি ইস্যুকে পুঁজি করে ১৯৭৩-এ সংসদ সদস্য নির্বাচিত মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা মাওবাদী ভাবাদর্শে প্রভাবিত হয়ে ‘জু¤œ জাতীয়তাবাদের’ সেøাগান তোলেন। ১৯৭২ সালে তিনি জনসংহতি সমিতি নামে রাজনৈতিক সংগঠন গড়ে তোলেন। ১৯৭৩ সালে গঠিত হয় জনসংহতি সমিতির সামরিক শাখা শান্তিবাহিনী।
জনসংহতি সমিতিকে আত্মঘাতী হানাহানি ও রক্তপাতের পথ থেকে শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধানের পথে এগিয়ে আসতে উদ্বুদ্ধ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু। এমএন রায় বঙ্গবন্ধু গঠিত বাকশাল কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭৫ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি রাঙ্গামাটি সফরে গিয়ে সর্বপ্রথম উপজাতীয় জনগোষ্ঠীকে ‘জাতীয় সংখ্যালঘু’ হিসেবে ঘোষণা করেন। তিনি ক্ষুদ্র জাতিসত্তার অধিকার তাদের সংস্কৃতি, জাতিসত্তাগত স্বাতন্ত্র্য এবং জীবনধারাকে রক্ষার প্রতিশ্রুতি দেন।

অশান্তির জনক জিয়াউর রহমান
কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর পার্বত্য চট্টগ্রামের দৃশ্যপট বদলে যায়। সেনাশাসক জিয়াউর রহমান তার পূর্বতন প্রভু আইউব খানের ইসলামি ভাবাদর্শ এবং প্রতিহিংসা পরায়ণতা দ্বারা উদ্বুদ্ধ হন। পার্বত্য সমস্যার শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধানের পথে না গিয়ে সামরিক শক্তি দিয়ে এবং একইসঙ্গে জাতিগত সংকীর্ণতা দিয়ে পার্বত্য জনগোষ্ঠীর কণ্ঠরোধ করার পথ গ্রহণ করেন। একদিকে সেনাবাহিনীকে পাকিস্তান দখলদার বাহিনীর কায়দায় উপজাতীয় জনগোষ্ঠীকে দমন করার কাজে ব্যবহার, অন্যদিকে সমতল থেকে লাখ লাখ বাঙালিকে পার্বত্য অঞ্চলে অভিবাসী হিসেবে এনে জবরদস্তি করে উপজাতীয়দের জমি-ভিটেমাটি থেকে উৎখাত এবং অ-উপজাতীয়দের বসতি গড়ে তোলেন। ‘১৯৭৯ সালে জিয়াউর রহমানের সভাপতিত্বে এক গোপন বৈঠকে ৩০ হাজার বাঙালি পরিবারকে পার্বত্য অঞ্চলে পুনর্বাসিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এবং এর জন্য ৬৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়। ১৯৮১ সালে ১ লাখ বাঙালি পরিবারকে ৫ একর জমি ও নগদ ৩ হাজার ৬০০ টাকা দিয়ে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হয়। ১৯৭৯ থেকে ১৯৮১ সালের মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রামে পুনর্বাসিত বাঙালির সংখ্যা দাঁড়ায় ২ লক্ষাধিক। ১৯৭৪ সালে পাহাড়ি-বাঙালি জনসংখ্যার অনুপাত যেখানে যথাক্রমে ৭৩ শতাংশ এবং ২৪ শতাংশ ছিল, ১৯৮১ সেই অনুপাত এসে দাঁড়ায় ৬০ শতাংশ এবং ৪০ শতাংশে। জিয়াউর রহমানের এই নীতি পাহাড়ি বাঙালিদের মধ্যে সংখ্যাগত ভারসাম্য আনতে সক্ষম হলেও পাহাড়িদের সশস্ত্র আন্দোলন বা ইনসার্জেন্সি বন্ধ করতে পারেনি। বরং তা আরও ব্যাপক ও তীব্র করে তোলে।’ [জুম পাহাড়ে শান্তির ঝরণাধারা : ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি, সম্পাদক নূহ-উল-আলম লেনিন, পৃ. ৩৫]
এই ছিল পাহাড়ে যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি এবং শান্তিবাহিনী কর্তৃক ‘শান্তি’ বিনষ্টের প্রেক্ষাপট। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর, এমএন লারমা আত্মগোপনে চলে যান। সেনাশাসকরা জাতিগত নিপীড়নের এবং সামরিক সমাধানের পথ গ্রহণ করে। জনসংহতি সমিতি ও শান্তিবাহিনীও সশস্ত্র সংগ্রামের পথ বেছে নেয়। দুই দশক ধরে পার্বত্য চট্টগ্রামে অনবরত রক্তক্ষরণ হতে থাকে। বাংলাদেশের এক-দশমাংশ এলাকাজুড়ে ইনসার্জেন্সি মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। যুদ্ধাবস্থা ও গৃহযুদ্ধের ফলে ৬৫ হাজারের বেশি বাংলাদেশের নাগরিক, চাকমা শরণার্থী ভারতের ত্রিপুরায় আশ্রয় গ্রহণ করে। ২০ বছরব্যাপী এই সহিংসতায় প্রতিদিন বাংলাদেশের ১ কোটি টাকা ব্যয় হতে থাকে। সশস্ত্র সংঘাতে বাঙালি, উপজাতীয়, সেনা সদস্য ও শান্তিবাহিনীর সম্মিলিত নিহত ও আহতের সংখ্যা ২০ হাজার ছাড়িয়ে যায়। লাখ লাখ টাকার সম্পদ ধ্বংস হয়। পার্বত্য চট্টগ্রাম পরিণত হয় মৃত্যু উপত্যকায়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশ মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে অভিযুক্ত হয়।

জননেত্রী শেখ হাসিনার শান্তি উদ্যোগ : শান্তিচুক্তি সম্পাদন
১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা নির্বাচনে জয়লাভ করেন। তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যার শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধানের ঘোষণা দেন। রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার দেড় বছরের মাথায় সম্পাদিত হয় ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি। দেশে তো বটেই, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এই চুক্তি বিপুল প্রশংসা অর্জন করে। জননেত্রী শেখ হাসিনা শান্তি স্থাপনে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করায় ইউনেস্কো জাতিসংঘের সবচেয়ে সম্মানজনক ‘হুফে বয়েনি’ পিস অ্যাওয়ার্ডে তাকে ভূষিত করে। দীর্ঘ দুই দশকের রক্তপাতের অবসান হয়। শান্তিবাহিনীর সশস্ত্র যোদ্ধারা আনুষ্ঠানিকভাবে অস্ত্র সমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসে। শান্তিবাহিনী ভেঙে দেওয়া হয়। ভারতে আশ্রিত ৬৪ হাজার শরণার্থী মাতৃভূমিতে ফিরে আসে। তাদের পুনর্বাসনের জন্য শান্তিচুক্তির অঙ্গীকার মোতাবেক পরিবার পিছু ৫০ হাজার নগদ টাকা এবং ঘরবাড়ির ব্যবস্থা করা হয়।
প্রসঙ্গত একটা কথা স্মর্তব্য। নিশ্চয়ই আমরা ভুলে যাইনি, সে সময়ের বিরোধী দল বিএনপি এবং তাদের মিত্র জামাতসহ সাম্প্রদায়িক শক্তিগুলো পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির কী ধরনের তীব্র বিরোধিতা করেছিল। বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া শান্তিচুক্তির বিরোধিতা করতে গিয়ে এ কথাও বলেছিলেন যে, ‘শান্তিচুক্তি হলে ফেনী পর্যন্ত ভারতের দখলে চলে যাবে।’ শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের পর শান্তিবাহিনীর প্রথম আনুষ্ঠানিক অস্ত্র সমর্পণের দিনটিতেও বিএনপি-জামাত জোট পার্বত্য চট্টগ্রামে হরতাল আহ্বান করেছিল। পার্বত্য অঞ্চলে অভিবাসী বাঙালি জনগোষ্ঠীকে সাম্প্রদায়িক ও জাতিগত উগ্রতার দিকে ঠেলে দিয়ে তারা পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রধান প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়িয়েছিল। এখনও এই অপশক্তি পার্বত্য অঞ্চলে অশান্তি ও অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য গোপনে ও প্রকাশ্যে বহুমুখী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে অর্জিত সাফল্য
শান্তিচুক্তি সম্পাদনের পর দুই দশক পেরিয়ে গেছে। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে পারে শান্তিচুক্তি কতটা বাস্তবায়িত হয়েছে। শান্তিচুক্তি সম্পাদনের এই প্রায় ২১ বছরের মধ্যে বিএনপি-জামাত জোট ও তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় থেকেছে প্রায় সাড়ে সাত বছর। ১৯৯৭ সালে শান্তিচুক্তি সম্পাদনের পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল সাড়ে তিন বছর। ২০০১ সালের অক্টোবরে ক্ষমতাসীন হওয়ার পর পাঁচ বছর বিএনপি-জামাত জোট ও ইয়াজউদ্দিন-ফখরুদ্দিনের তত্ত্বাবধায়ক সরকার সাত বছর ক্ষমতায় ছিল। স্বভাবতই এই দুটি সরকার শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে আগ্রহী ছিল না। ফলে ২১ বছরের সাড়ে সাত বছরই জাতীয় জীবন থেকে অপচিত হয়। শান্তিচুক্তির বাস্তবায়ন পিছিয়ে যায়।
এই অভিজ্ঞতা সত্ত্বেও এখন নির্দ্বিধায় বলা যেতে পারে, শতভাগ না হলেও শান্তিচুক্তির সিংহভাগ বাস্তবায়িত হয়েছে। সাধারণভাবে পাহাড়ে শান্তি বিরাজ করছে। যুদ্ধ, হিংসা ও রক্তপাত বন্ধ হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে বক্তৃতা প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘শান্তিচুক্তির ৭২টি ধারার মধ্যে ৪৮টি ধারা পূর্ণ বাস্তবায়িত হয়েছে। ১৫টি ধারা আংশিক এবং ৯টি ধারা বাস্তবায়নাধীন আছে।’ শান্তিচুক্তির একটি প্রধান শর্ত ছিল শান্তিবাহিনীর অস্ত্র সমর্পণ এবং অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামে অস্থায়ী সেনা ক্যাম্পগুলো প্রত্যাহার করে নেওয়া। শান্তিবাহিনী অস্ত্র সমর্পণ করেছে বটে, তবে জনসংহতি সমিতির একাংশের বিরোধিতা এবং তাদের মধ্যে ইউপিডিএফ নামে নতুন সশস্ত্র গ্রুপের উত্থানের ফলে কিছু কিছু সন্ত্রাসীর হাতে অস্ত্র রয়ে গেছে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘২৫২টি অস্থায়ী ক্যাম্পের মধ্যে গত ১৭ বছরে ২৩৮টি ক্যাম্প প্রত্যাহার করা হয়েছে। বাকিগুলোও ধাপে ধাপে প্রত্যাহার করা হবে।’
পার্বত্য চট্টগ্রামে স্থায়ী এবং টেকসই শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রধান ইস্যু হচ্ছে ভূমি সমস্যার সমাধান। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী ১৯৯৯ থেকে এ পর্যন্ত ৫টি ভূমি কমিশন গঠন করা হয়েছে। গভীর জটিল এবং স্পর্শকাতর এই ভূমি সমস্যার সমাধানে অপ্রত্যাশিতভাবে বেশ সময় লাগছে। পার্বত্য অঞ্চলের ভূমি মালিকানার ঐতিহাসিক বৈশিষ্ট্য, কৃষিব্যবস্থা এবং সমাজ সংগঠনের স্বরূপ অনুধাবন করতে না পারলে এই সমস্যার জট সকলের বোধগম্য হবে না। পার্বত্য চট্টগ্রামকে ঔপনিবেশিক যুগে বলা হতো খধহফ ড়ভ এড়ফ। সমতলের মতো পাহাড়ে যেমন কোনো ভূমি জরিপ এবং জমির মালিখানার রেকর্ড হয়নি, তেমনি জুমচাষে অভ্যস্ত জনগোষ্ঠীর ঘন ঘন চাষাবাদ এলাকা ও বসতি পরিবর্তনের ফলে স্থায়ী ভূমি মালিকানার ধারণাটিও সেখানে ঐতিহাসিকভাবে গড়ে ওঠেনি। বরং ভূমির ওপর ব্যক্তিগত স্বত্বের পরিবর্তে পার্বত্য অঞ্চলে গোত্রীয় বা কমিউনিটি মালিকানার একটি প্রাক-সামন্ততান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ে ওঠে।
কিন্তু কালের বিবর্তনে বর্তমানে এই প্রিমিটিভ ব্যবস্থাটি সমকালীন বাস্তবতার সাথে সংগতিপূর্ণ নয়। চুক্তির একটি বড় অনুষঙ্গ হচ্ছে, এই ব্যবস্থার পরিবর্তন করে পার্বত্য অঞ্চলের জমির ওপর ভূমিপুত্রদের ব্যক্তিগত-পারিবারিক মালিকানা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য স্থির করা। এ উদ্দেশ্যে প্রণীত হয় ‘ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন-২০০১’। ইতোমধ্যে সকল পক্ষের সম্মতিতে এই আইনের কতিপয় সংশোধনীও গৃহীত হয়েছে। আইনটি এখন ‘ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন (সংশোধিত) আইন-২০১৬’ বলে অভিহিত হবে। এখন এই আইনের ভিত্তিতে প্রাসঙ্গিক বিধিমালা প্রণয়নের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করা প্রয়োজন। ভূমির ওপর স্থানীয় উপজাতীয় জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ভূমি জরিপের কর্মসূচিও গ্রহণ করা হয়েছে।
চুক্তি অনুযায়ী পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদ এবং ৩টি পার্বত্য জেলা পরিষদ গঠিত হয়েছে। সরকার পর্যায়ক্রমে আঞ্চলিক পরিষদ ও জেলা পরিষদসমূহের হাতে চুক্তি মোতাবেক স্থিরিকৃত বিষয়াবলী হন্তান্তর করা হয়েছে এবং হচ্ছে। চুক্তির অঙ্গীকার অনুযায়ী ১৮৮১ খ্রিস্টাব্দের মতো পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদের অধীনে স্থানীয় পুলিশ বাহিনী গড়ে তোলার বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ভূমি, বন ও পরিবেশ সংক্রান্ত বিষয়াবলিও পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদের কাছে ন্যস্ত করার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। আশা করা যায়, উল্লিখিত বিষয়ে বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর মনে আস্থার সংকট থাকবে না।
অনেক আগেই পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক আলাদা মন্ত্রণালয় গঠিত হয়েছে। একজন মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রী ও উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর ভেতর থেকে নিয়োগ করা হয়ে থাকে। এই পদক্ষেপ সংবিধানের আওতায় পার্বত্য চট্টগ্রামের বিশেষ মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া পরিবীক্ষণ কমিটি করে দিয়েছেন।
গত দুই দশকে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে বিপুল উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলছে। তিন পার্বত্য জেলায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন, দুর্গম পার্বত্য এলাকায় রাস্তাঘাট নির্মাণ, তিন জেলায় তথ্যপ্রযুক্তির (মোবাইল ফোন) ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি, রাঙ্গামাটিতে একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা, ১৭৬টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ ও সংস্কার, আধুনিক কৃষি ব্যবস্থার সম্প্রসারণ, কৃষি পণ্যভিত্তিক প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পের প্রসার, পর্যটন শিল্পের নতুন নতুন সুযোগ সৃষ্টি, বিভিন্ন নৃ-জাতিগোষ্ঠীর ভাষা, সংস্কৃতি এবং জীবনধারা সংরক্ষণের উদ্যোগসহ বহুমুখী উন্নয়নমূলক কর্মকা- এগিয়ে চলেছে। শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে পার্বত্য অঞ্চলের তরুণ-তরুণীদের জন্য কোটা সংরক্ষণের ফলে ইতোমধ্যে সরকারের বিভিন্ন স্তরে, উচ্চপদে উপজাতীয়গণ নিয়োগ পাচ্ছেন।
পার্বত্য জনগোষ্ঠীর স্বতন্ত্র জাতিসত্তাগত সাংবিধানিক স্বীকৃতি, বাংলাদেশে বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য সাধন এবং ক্ষুদ্র নৃ-জাতিগোষ্ঠীর আত্মপরিচয় প্রতিষ্ঠার পথে ঐতিহাসিক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর ২৩(ক) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, “রাষ্ট্র বিভিন্ন উপজাতি, ক্ষুদ্র জাতিসত্তা, নৃ-গোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের অনন্য বৈশিষ্ট্যপূর্ণ আঞ্চলিক সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্য সংরক্ষণ, উন্নয়ন ও বিকাশের ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন।” পূর্বে ধারণা ছিল ইউনিটারি রাষ্ট্রব্যবস্থায় উপজাতি ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তার স্বাতন্ত্র্য রক্ষার কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার এই ভ্রান্ত ধারণার অপনোদন করেছেন।

aaকতিপয় প্রতিবন্ধকতা ও করণীয় প্রসঙ্গে
এতসব অগ্রগতি ও সাফল্যের পথ যে কুসুমাস্তীর্ণ নয়, ভুক্তভোগী সকলেই তা অবগত আছেন। আজকের সেমিনারে পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি ও সম্প্রীতি অর্জনে প্রতিবন্ধকতা ও করণীয় সম্পর্কের বিষয়টি ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে আমার ধারণাসমূহ ইতোমধ্যে আমি স্পষ্ট করার চেষ্টা করেছি। আমি মনে করি, পার্বত্য চট্টগ্রামে মূলগতভাবে শান্তি স্থাপিত হয়েছে, যুদ্ধাবস্থার অবসান এবং রক্তপাত বন্ধ হয়েছে। চুক্তি বাস্তবায়নে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জিত এবং অগ্রগতির ধারা অব্যাহত আছে। কিন্তু তারপরও শান্তি, সম্প্রীতি এবং চুক্তি বাস্তবায়নে কিছু প্রতিবন্ধকতার প্রশ্নটি অবান্তর নয়।
প্রথমত; শান্তির কথাই ধরা যাক। ২১ বছর আগে পার্বত্য অঞ্চলে অশান্তি এবং রক্তপাতের জন্য দুটি প্রতিপক্ষ ছিল। কিন্তু ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর শান্তিচুক্তি সম্পাদন ও জনসংহতি সমিতির সামরিক উইং শান্তিবাহিনীর অস্ত্র সমর্পণের ভেতর দিয়ে এখন আর ইনসার্জেন্সি যেমন নেই, তেমনি রাষ্ট্র ও পার্বত্য জনগোষ্ঠী আর পরস্পরের প্রতিপক্ষ নয়। শান্তিচুক্তি সম্পাদন হওয়ায় জনসংহতি সমিতি এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ রাষ্ট্র কার্যত একপক্ষে পরিণত হয়েছে। কিন্তু তারপরও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পার্বত্য অঞ্চলে বিশেষত খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটি জেলায় বিচ্ছিন্ন-বিক্ষিপ্তভাবে কিছু সহিংস ঘটনা ঘটেছে। তবে সহিংসতা রাষ্ট্র বনাম অন্যদের মধ্যে নয়। সহিংসতার কারণ জনসংহতি সমিতির যে অংশটি অস্ত্র পরিত্যাগ করেনি তারা এবং ইউপিডিএফ নামক বিভ্রান্ত ও বৈরী গোষ্ঠীটির সন্ত্রাসী কর্মকা-। এই সংঘাতও মূলত নিজেদের মধ্যে। এখানে সরকার, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বা সেনাবাহিনী কারও প্রতিপক্ষ নয়।
প্রশ্ন হচ্ছে উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর পরস্পরবিরোধী অংশের এই অন্তর্দলীয় সহিংস তৎপরতা এবং শান্তি বিঘিœত করার অপচেষ্টার দায় কার? পার্বত্য অঞ্চলের জনগণের সামগ্রিক কল্যাণ, শান্তি ও উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হলে এ ব্যাপারে জনসংহতি সমিতি ও অন্যান্য আঞ্চলিক দলকেই সর্বাগ্রে এগিয়ে আসতে হবে। তাদের মধ্যে সমঝোতা প্রতিষ্ঠা, অস্ত্র ও সহিংসতা পরিহার এবং শান্তিচুক্তির প্রতি শর্তহীন আনুগত্যই পার্বত্য অঞ্চলে স্থায়ী ও টেকসই শান্তির বাতাবরণ সৃষ্টি করতে পারে।
দ্বিতীয়ত; আমরা এ কথাও বিস্মৃত হই না যে, পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়ন ব্যাহত করার মতো উসকানিদাতার অভাব আছে। অ-উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর প্রতি কৃত্রিম দরদ দেখাতে গিয়ে বিএনপি-জামাত জোট ও উগ্র জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো যে এখানে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে না, এ কথা কেউ হলফ করে বলতে পারবে না। এ ব্যাপারে অভিবাসী বাঙালি জনগোষ্ঠীকে বিভ্রান্ত ও প্ররোচিত করার সকল অপচেষ্টাকে কঠোর হাতে দমন করতে হবে এবং তাদের মধ্যে সম্প্রীতির মনোভাব গড়ে তোলার জন্য একদিকে সরকারের, রাজনৈতিক দলগুলোর এবং অন্যদিকে উপজাতীয় ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তাগুলোর মিলিত প্রচেষ্টা অপরিহার্য।
তৃতীয়ত; আমাদের ভুলে গেলে চলবে না, দেশের বাইরে থেকেও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো খোদ উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর ভিতরে সহিংসতার উসকানি দিতে পারে। বাইরে থেকে অস্ত্র-অর্থ দিয়ে তারা উপজাতীয় জনগোষ্ঠী এবং অ-উপজাতীয়দের ভেতরে সশস্ত্র গ্রুপ গড়ে তোলা, সংঘাতে প্ররোচিত করা এবং সর্বোপরি বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্বকে ক্ষুণœ এবং শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিরোধী তৎপরতা চালাতে পারে। এদের ব্যাপারে সবাইকে সমভাবে সতর্ক থাকতে হবে।
চতুর্থত; শান্তিচুক্তির অবশিষ্ট ধারাগুলোর দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। পারস্পরিক অবিশ্বাস ও আস্থার সংকট দূর করতে না পারলে, যে ‘ক্ষত’ সৃষ্টি হয়েছে, তা সারানো যাবে না। আমি মনে করি, এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার ও দিক-নির্দেশনা অনুযায়ী বাস্তবায়নাধীন ও প্রক্রিয়াধীন ১৫ + ৯টি ধারার সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত করতে হবে। সরকারের সদিচ্ছা নিয়ে কেউ যেন প্রশ্ন তুলতে না পারে।
বস্তুত; ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তির প্রশ্নটিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে এই সমস্যার স্থায়ী ও টেকসই সমাধানই হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের মর্মবাণী।
পঞ্চমত; পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদ ও পার্বত্য জেলা পরিষদগুলোকে আরও সক্রিয় এবং দায়িত্বশীল করে তুলতে হবে। চুক্তি অনুযায়ী অবশিষ্ট যে বিষয়গুলো পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদের হাতে ন্যস্ত করার কথা, তা সম্পন্ন করা হলে এ নিয়ে অহেতুক অসন্তোষ ছড়ানো এবং আস্থাহীনতা সৃষ্টির প্রয়াস বন্ধ হবে। মনে রাখতে হবে, সমস্যা জিইয়ে রাখলে আখেরে তা কারও জন্যই মঙ্গল বয়ে আনবে না।
এই ৫টি মূল করণীয় ছাড়াও আরও কিছু ছোটখাটো সমস্যা আছে যেগুলোর সমাধান শান্তি ও সম্প্রীতি অর্জনের প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সহায়ক হবে।

শান্তি ও সম্প্রীতির পক্ষে সহায়ক আরও কিছু পদক্ষেপ
ক. পার্বত্য অঞ্চলে চাষাবাদ, বাগান সৃষ্টি ও শিল্পের নামে একদল ভূমিদস্যু সরকারের খাসজমি এবং উপজাতীয় জনগণের বসতভিটা ও জমি দখল করে নিচ্ছে বলে অভিযোগ আছে। আমি ব্যক্তিগতভাবেও জানি অবৈধ দখলদাররা ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে উপজাতীয়দের জমি-ঘরবাড়ি গ্রাস করছে। ফলে অনেকেই দেশান্তরি হচ্ছে। এই বে-আইনি অপতৎপরতা বন্ধ করতে হবে।
খ. পার্বত্য চট্টগ্রামে কর্মরত উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাদের ব্যক্তিগত আচরণ এবং সরকারের নীতি বাস্তবায়নে তাদের সততা ও দক্ষতা আস্থার পরিবেশ সৃষ্টির জন্য অপরিহার্য। বহিরাগত ঔপনিবেশিক শাসকদের দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে পার্বত্য অঞ্চলের জনগণের হৃদয়-মন জয় করা যাবে না। বরং মনে রাখা দরকার উপজাতি ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষগুলো এ দেশেরই মানুষ, আমরা তাদের প্রভু নই। তাদের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করতে পারলে অনেক কাজ সহজ হয়ে যাবে।
গ. পার্বত্য অঞ্চলে রয়েছে বহুপাক্ষিক অথরিটি বা কর্তৃপক্ষ। এক্ষেত্রে সমন্বয়ের অভাব, সমস্যার সৃষ্টি করে। পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদ, জেলা পরিষদ, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সেনা কর্তৃপক্ষ, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন পরিষদÑ প্রভৃতির মধ্যে কাজের সমন্বয় থাকা অপরিহার্য।
ঘ. পাবর্ত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য স্বতন্ত্র উন্নয়ন বোর্ড আছে। তবে পর্যটন শিল্পসহ এই অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য পরিকল্পনা প্রণয়নের কথা একসময় আলোচিত হয়েছে। আমি সম্যক জানি না, এ ব্যাপারে আলাদা কোনো অগ্রগতি আছে কি নেই।
ঙ. কর্ণফুলি পেপার মিলটি পুনরায় চালু করার উদ্যোগ নেওয়া জরুরি। এটি আমাদের জাতীয় সম্পদ। বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থানের সাথে এটি জড়িত। রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের এই পেপার মিলটি পুনরায় চালু করতে পারলে একদিকে যেমন অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে, অন্যদিকে আমাদের সংবাদপত্র শিল্প ও পুস্তক শিল্পের চাহিদা পূরণে ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে। একইসঙ্গে পার্বত্য অঞ্চলে বন-সংরক্ষণ ও বনায়নের ধারা বেগবান করতে হবে।
চ. পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষুদ্র জাতিসত্তা ও নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংরক্ষণে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট’-এর একটি শাখা পার্বত্য অঞ্চলে স্থাপন করা যেতে পারে। অনেক ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব মৌখিক ভাষা থাকলেও তাদের বর্ণমালা নেই। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের মতামত ও পছন্দের ভিত্তিতে লিপি বা বর্ণমালা প্রচলন, অন্তত প্রাথমিক পর্যায়ে মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষার ব্যবস্থা এবং তাদের জীবনধারার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণÑ সামগ্রিকভাবে পাহাড়িদের মধ্যে বাংলাদেশের মূলধারার জনগণের সাথে সম্প্রীতি, বন্ধুত্ব ও সংহতিবোধ বাড়াতে সহায়ক হবে।
ছ. পার্বত্য জনগণের জীবনধারা, ইতিহাস, ঐতিহ্য, ভাষা, সংস্কৃতি, খাদ্যাভাস, লোক সংস্কৃতি এবং তাদের আধুনিক জীবনধারায় উত্তরণের লক্ষ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটি ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে।

‘সবার উপরে মানুষ সত্য’
শেষ করতে চাই এ কথা বলে যে, পার্বত্য চট্টগ্রাম যেমন বাংলাদেশের অবিচ্ছেদ্য অংশ, তেমনি উপজাতীয়, ক্ষুদ্র জাতিসত্তা ও নৃ-গোষ্ঠীও বাংলাদেশের অবিচ্ছিন্ন মানবসত্তা। আমাদের সংবিধানে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ‘মানবসত্তাকে সর্বোচ্চ’ স্থান দেওয়া হয়েছে। বাঙালি জাতি তার ঐতিহ্যগত ধর্ম সহিষ্ণুতা, সংশ্লেষণের ধারা এবং ‘সবার উপরে মানুষ সত্য’Ñ এই বোধ থেকে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর সঙ্গে অর্থপূর্ণ মেলবন্ধন রচনা করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। একইভাবে বাংলাদেশের বড়-ছোট সকল জাতিসত্তা, সকল ধর্মানুসারী এবং সংস্কৃতির মানুষ প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশকে শান্তি, সম্প্রীতি, উন্নয়ন ও গণতন্ত্রের পীঠস্থান হিসেবে গড়ে তুলবেÑ এটাই আমাদের সবার প্রত্যাশা।

শ্রেণী:

সংবিধান ও বাজেট

Posted on by 0 comment
aa

aaমসিউর রহমান: ‘বাজেট’ শব্দটি বহুল ব্যবহৃত। ব্যক্তি, পরিবার, মুদি দোকান, বহুজাতিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানÑ সকলের নির্দিষ্ট সময়ের আয়-ব্যয়ের হিসাব এবং আয়-ব্যয় নিয়ন্ত্রণের কৌশল বাজেটে অন্তর্ভুক্ত হয়। সরকারের আয়-ব্যয়ের হিসাব বোঝাতে সংবিধানে বাজেট শব্দটি ব্যবহার করা হয়নি, ‘অনুমিত আয় ও ব্যয়’ বা ‘বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি’ ব্যবহার করা হয়েছে :
“প্রত্যেক অর্থ-বৎসর সম্পর্কে উক্ত বৎসরের জন্য সরকারের অনুমিত আয় ও ব্যয়-সংবলিত একটি বিবৃতি (এই ভাগে ‘বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি’ নামে অভিহিত) সংসদে উপস্থাপিত হইবে।” [পরিচ্ছেদ ৮৭(১)]
২. সংবিধান কতিপয় ব্যয়কে দায়যুক্ত শ্রেণিভুক্ত করেছে যথা : রাষ্ট্রপতির পারিশ্রমিক ও দপ্তর সংশ্লিষ্ট ব্যয়, স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার, সুপ্রিমকোর্টের বিচারকগণ, সুদ, পরিশোধÑ তহবিলের দায় (সিংকিং ফান্ড), আদালত বা ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে রায়, ইত্যাদি বাবদ ব্যয়। দায়যুক্ত ব্যয়ের প্রস্তাব সংসদ আলোচনা করতে পারে, কিন্তু দায়যুক্ত ব্যয়ের দাবি ভোটে অনুমোদিত বা প্রত্যাখ্যান করা যায় না। [পরিচ্ছেদ ৮৮, ৮৯(১)] যে সকল প্রতিষ্ঠান সাধারণ বা দলীয় রাজনৈতিক বিতর্কের বাইরে রাখা হয়, সে সকল প্রতিষ্ঠানের ব্যয় ‘দায়যুক্ত শ্রেণিভুক্ত’।
৩. দায়যুক্ত নয় এমন সকল অন্যান্য মঞ্জুরি দাবি সংসদে বিতর্কের বিষয় এবং ভোটে অনুমোদন বা প্রত্যাখ্যান করা যায়। সংসদ সরকার প্রস্তাবিত ‘মঞ্জুরি দাবি’ কমাতে পারে কিন্তু বাড়াবার অধিকার নাই। [পরিচ্ছেদ ৮৮, ৮৯(১ ও ২)]
৪. সরকারের রাজস্ব এবং প্রাপ্তির হিসাব সংসদ অনুমোদন করে না; আর্থিক বিবৃতিতে প্রস্তাবিত ব্যয়ের জন্য পর্যাপ্ত আর্থিক সংস্থানের ব্যবস্থা আছে কি না বোঝাবার জন্য সরকারের আয়ের হিসাব দেয়া হয়। তবে রাজস্ব আহরণ বা কর-আরোপ সংক্রান্ত সকল বিষয় সংসদ কর্তৃক অনুমোদিত হতে হয় :
“সংসদের কোনো আইনের দ্বারা বা কর্তৃত্ব ব্যতীত কোনো কর আরোপ বা সংগ্রহ করা যাইবে না।” [পরিচ্ছেদ ৮৩]
৫. কোনো অর্থ বিল অথবা সরকারি অর্থ ব্যয়ের প্রশ্ন জড়িত কোনো বিল রাষ্ট্রপতির সুপারিশ ছাড়া সংসদে উত্থাপন করা যায় না। তবে সংসদ প্রস্তাবিত কর হার হ্রাস করতে অথবা কর বিলোপ করতে পারেÑ সেজন্য রাষ্ট্রপতির অনুমোদন দরকার হয় না। দায়যুক্ত মঞ্জুরি দাবি ব্যতীত অন্যান্য মঞ্জুরি দাবি সংসদে উত্থাপনের জন্য রাষ্ট্রপতির পূর্বানুমতির প্রয়োজন, তবে সংসদ মঞ্জুরি দাবি (দায়যুক্ত দাবি বাদে) হ্রাস করতে বা প্রত্যাখ্যান করতে পারে। [পরিচ্ছেদ ৮২, ৮৯(২ ও ৩)]
৬. সংসদ কর্তৃক আইন পাস হবার পর তা অনুমোদনের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে উপস্থাপন করা হয়। রাষ্ট্রপতি ১৫ (পনেরো) দিনের মধ্যে আইন অনুমোদন করেন অথবা পর্যবেক্ষণসহ পুনর্বিবেচনার জন্য পাঠান, পুনর্বিবেচিত আইন পাঠাবার পর সাত দিনের মধ্যে সম্মতি দেবার বিধান বলবৎ আছে। অর্থ বিলের ওপর পর্যবেক্ষণ করা অথবা অনুমোদন প্রত্যাখ্যান করার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির নাই। [পরিচ্ছেদ ৮০]
৭. কোনো বিল মানিবিল কি না মাননীয় স্পিকার সে সম্পর্কে প্রত্যয়ন করেন; স্পিকারের প্রত্যয়নই চূড়ান্ত। সংসদ কর্তৃক অনুমোদিত মানিবিলে অনুমোদন রাষ্ট্রপতির পক্ষে বাধ্যতামূলক; মানিবিল পর্যবেক্ষণসহ পুনর্বিবেচনার জন্য ফেরত দেবার ক্ষমতা তার নাই। [পরিচ্ছেদ ৮০(৩), ৮১(১, ২)]
৮. সংবিধান মানিবিলের বিবরণ ও সংজ্ঞা দিয়েছে : কর আরোপ, নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণ; সরকারের ঋণ গ্রহণ, গ্যারান্টি দেয়া, সরকারের আর্থিক দায়-দায়িত্ব সম্পর্কে আইন সংশোধন; সংযুক্ত তহবিলের রক্ষণাবেক্ষণ, অর্থ জমা বা উত্তোলন, দায় আরোপ, দায় রদবদল বা বিলোপ; সংযুক্ত তহবিল বা প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবের রক্ষণাবেক্ষণ, নিরীক্ষা ইত্যাদি। কিন্তু শুধু নিম্নোক্ত কারণে কোনো বিল অর্থবিল বলিয়া গণ্য নয় :
কোনো জরিমানা বা অন্য অর্থদ- আরোপ বা রদবদল, কিংবা লাইসেন্স-ফি বা কোনো কার্যের জন্য ফি বা উসুল আরোপ বা প্রদান কিংবা স্থানীয় উদ্দেশ্যসাধনকল্পে কোনো স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক কোনো কর আরোপ, নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণের বিধান করা হইয়াছে, কেবল এই কারণে কোনো বিল অর্থবিল বলিয়া গণ্য হইবে না। [পরিচ্ছেদ ৮১(২)]
৯. বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি ছাড়াও সংবিধান অপ্রত্যাশিত বা আকস্মিক পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য কিছু নমনীয় পদ্ধতির ব্যবস্থা করেছে। কোনো কর্ম বিভাগের (সার্ভিস) জন্য অপর্যাপ্ত ব্যয় অনুমোদিত হলে অথবা ব্যয়ের অনুমোদন না থাকলে, রাষ্ট্রপতি সম্পূরক ব্যয় অথবা অতিরিক্ত ব্যয়ের অনুমতি দিতে পারেন। ব্যয় অনুমোদনের সাধারণ নিয়ম অনুসরণ করে সম্পূরক বা অতিরিক্ত ব্যয় অনুমোদন করা হবে। [পরিচ্ছেদ ৯১] আমাদের বাজেট পদ্ধতিতে সম্পূরক ও অতিরিক্ত ব্যয়ের পার্থক্য করা হয় না। বৎসর শেষে, সকল অতিরিক্ত ব্যয় সম্পূরক ব্যয় হিসাবে সংসদে প্রস্তাব পেশ করা হয়।
১০. সম্পূরক বাজেট ও সংশোধিত বাজেটের মধ্যে পার্থক্য আছে। মূল বাজেটের অনুমোদিত ব্যয় এবং অতিরিক্ত অথবা সম্পূরক ব্যয় সম্পূরক বাজেটের অন্তর্ভুক্ত হয়; প্রকৃত ব্যয় মূল অনুমোদিত ব্যয়ের কম হলে তা পরিবর্তন করা হয় না। সংশোধিত বাজেটে হ্রাসকৃত ব্যয় ধরা হয়, তাই সংশোধিত বাজেট সম্পূরক বাজেট হতে ছোট হতে পারে।
১১. অর্থবছর শুরু হওয়ার আগে (১ জুলাই) আর্থিক বিবৃতি অনুমোদন বাধ্যতামূলক। কোনো কারণে যদি ঐ সময়ের মধ্যে আর্থিক বিবৃতি অনুমোদিত না হয়, তাহলে সংসদ প্রস্তাবিত ব্যয়ের আংশিক মঞ্জুরি দিতে পারে। উক্ত আংশিক মঞ্জুরি চূড়ান্ত মঞ্জুরির অংশ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়। [পরিচ্ছেদ ৯২(১)] ১৯৮০-এর দশকে সংসদ আনুমানিক তিন মাসের ব্যয়ের অগ্রিম মঞ্জুরি দিত; আগস্ট বা সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত বাজেট আলোচনা চলত। ১৯৯০-এর দশক হতে অগ্রিম মঞ্জুরি ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেছে; জুন মাসের মধ্যেই সম্পূরক বাজেট এবং নতুন বছরের বাজেট (১ জুলাই হতে কার্যকর) আলোচনা ও অনুমোদন সমাপ্ত হয়। যুক্তরাজ্য পার্লামেন্ট একবার অনুমোদিত বাজেটের ৫৬ শতাংশ অগ্রিম অনুমোদন দিয়েছিল।
১২. যদি এমন পরিস্থিতির উদ্ভব হয় যে, ব্যয়ের পরিমাণ ও বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে সরকার কোনো স্পষ্ট ধারণা করতে পারে না এবং মঞ্জুরি দাবির জন্য যে সকল তথ্য ও যুক্তি সাধারণত দেয়া হয় তা দেয়া সম্ভব হয় না, তাহলে সরকারের সীমাবদ্ধতা বিবেচনা করে সংসদ নামমাত্র বা প্রতীকী ব্যয় অনুমোদন করতে পারে। তবে ঐ বৎসরের মধ্যে নির্ভরযোগ্য তথ্য উপস্থাপন করে প্রকৃত ব্যয় নিয়মানুগ করতে হয়। [পরিচ্ছেদ ৯২(১)(খ)]
১৩. সংসদ চলতি বছরের প্রয়োজন মিটাবার জন্য ব্যয় অনুমোদন করে। চলতি বছরের প্রয়োজন নয় এমন প্রয়োজন হলে সংসদ বিশেষ ব্যয় অনুমোদন করতে পারে। [পরিচ্ছেদ ৯২(গ)] এরূপ ব্যয়ের দৃষ্টান্ত অতি বিরল। লর্ড মে উল্লেখ করেছেন যে, যুক্তরাজ্য সংসদ একবার দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালনকারী একজন স্পিকারের সম্মানার্থে মূর্তি স্থাপনের জন্য এরূপ ব্যয় অনুমোদন করেছিল। ইরান-ইরাক যুদ্ধের সময় ইরাক হতে প্রত্যাবর্তনকারী বাঙালিদের কাছ হতে ইরাকি দিনার কেনার জন্য এ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছিল। এরূপ ব্যয় নিয়মিত ব্যয়ে পরিণত হয় না; নিয়মিত ব্যয় এবং এককালীন আকস্মিক ব্যয়ের পার্থক্য নির্ধারণের জন্য এই পদ্ধতি সহায়ক। [পরিচ্ছেদ ৯২(গ)] তবে সংস্কৃতি ঐতিহ্য সংরক্ষণের জন্য সরকার যদি বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মূর্তি স্থাপন কর্মসূচি গ্রহণ করে, তাহলে ঐ কর্মসূচি সাধারণ সেবা হিসেবে বাজেটে অন্তর্ভুক্ত হবে।
১৪. সংসদ দুটি পর্বে সরকারি তহবিল হতে ব্যয় অনুমোদন করে। প্রথম পর্বে বিভিন্ন কর্ম বিভাগের জন্য বিবিধ প্রয়োজন মিটাবার জন্য (যথা : বেতন-ভাতা, ভ্রমণ, অফিস পরিচালনা ইত্যাদি) অনুমোদন দেয়া হয় এবং সর্বমোট ব্যয় অনুমোদিত হয়। দ্বিতীয় পর্বে সংযুক্ত তহবিল হতে অর্থ উত্তোলনের জন্য টাকার পরিমাণ নির্দিষ্ট করে আইন করা হয়। সরকার আইন দ্বারা নির্ধারিত অর্থ উত্তোলন এবং ব্যয় করতে পারে। [পরিচ্ছেদ ৯০]
১৫. সরকার কর্তৃক প্রাপ্ত সকল অর্থ সংযুক্ত তহবিল অথবা প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবে জমা হয়। সংযুক্ত তহবিলে সংজ্ঞার বা বিবরণ নিম্নরূপ :
সরকার কর্তৃক প্রাপ্ত সকল রাজস্ব, সরকার কর্তৃক সংগৃহীত সকল ঋণ এবং কোনো ঋণ পরিশোধ হইতে সরকার কর্তৃক প্রাপ্ত সকল অর্থ একটি মাত্র তহবিলের অংশে পরিণত হইবে এবং তাহা “সংযুক্ত তহবিল” নামে অভিহিত হইবে। [পরিচ্ছেদ ৮৪(১)]
১৬. সরকারের কোনো কর্মকর্তা বা প্রতিষ্ঠান সংযুক্ত তহবিলে জমা হবে না এমন কোনো টাকা পেলে তা প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবে জমা হয় :
(ক) রাজস্ব কিংবা এই সংবিধানের ৮৪ অনুচ্ছেদের (১) দফার কারণে যেরূপ অর্থ সংযুক্ত তহবিলের অংশে পরিণত হইবে, তাহা ব্যতীত প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত কিংবা প্রজাতন্ত্রের বিষয়াবলীর সহিত সংশ্লিষ্ট কোনো ব্যক্তি কর্তৃক প্রাপ্ত বা ব্যক্তির নিকট জমা রহিয়াছে, এইরূপ সকল অর্থ; অথবা
(খ) যে কোনো মোকদ্দমা, বিষয়, হিসাব বা ব্যক্তি বাবদ যে কোনো আদালত কর্তৃক প্রাপ্ত বা আদালতের নিকট জমা রহিয়াছে, এইরূপ সকল অর্থ। [পরিচ্ছেদ ৮৬ (ক, খ)]
প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবে অর্থ জমা বা উক্ত হিসাব হতে অর্থ উত্তোলন ও ব্যয় আইন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। প্রজাতন্ত্রের জমা অর্থ বাজেটে রাজস্ব প্রাপ্তি খাতে স্থানান্তর করে ব্যয় অনুমোদন করতে হয়। [পরিচ্ছেদ ৮৫]
১৭. প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবের ধারণায় অস্পষ্টতা রয়েছে। প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবে জমা অর্থের রক্ষণাবেক্ষণ দায়িত্ব সরকারের; কিন্তু প্রকৃত অর্থে সরকার এ অর্থের মালিক নয়। উদাহরণ : সরকারি কর্মকর্তারা সাধারণ ভবিষ্য তহবিলে টাকা জমা দেন, সরকার সমপরিমাণ টাকা অনুদান হিসাবে জমা করেন, এ টাকা ব্যবহারের জন্য সরকার নির্দিষ্ট হারে সুদ দেয়, যা ঐ ভবিষ্য তহবিলে জমা হয়। সরকারি কর্মকর্তা নির্ধারিত সময়ে সুদসহ সমুদয় অর্থ উত্তোলন করতে পারেন (নিজের জমা + সরকারের জমা + সরকারের দেয়া সুদ)। বিতর্কিত রাজস্ব সংক্রান্ত মোকদ্দমায় ১০% – ৫০% অগ্রিম জমা, মামলা-মোকদ্দমার ফাইন, ইত্যাদি রাজস্ব হিসাবে সংযুক্ত তহবিলে জমা হবে না প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাবে জমা হবে বিষয়টি বিশ্লেষণ ও স্পষ্ট হওয়া বাঞ্ছনীয়।
১৮. সংসদ যথাসময় বাজেট অনুমোদন না করতে পারলে রাষ্ট্রপতি একটি বিশেষ ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারেন। প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে উক্ত বৎসরের আর্থিক বিবৃতি অনধিক ৬০ দিন (অর্থাৎ ২/১২ = ১৬.১৬) ব্যয়ের অনুমতি দিতে পারে। [পরিচ্ছেদ ৯২(৩)] এ ব্যবস্থার রাজনৈতিক দিক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অথবা সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা নিয়ে মতপার্থক্য থাকলে, তা দূর করতে সময় লাগে। ৬০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি না হলে, সংসদ ভেঙে যায় এবং ৯০ দিনের মধ্যে নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।
১৯. সংসদ ভেঙে যাওয়া অবস্থায় রাষ্ট্রপতি সরকারের ব্যয় নির্বাহের জন্য অধ্যাদেশ জারি করতে পারেন। [পরিচ্ছেদ ৯৩(৩)] উক্ত উপ-ধারায় রাজস্ব কর আরোপ সম্পর্কে কোনো উল্লেখ নাই, ফলে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। রাজস্ব আহরণ না হলে ব্যয় নির্বাহ সম্ভব নয়। [পরিচ্ছেদ ৮৩, পূর্বে উদ্ধৃত] দীর্ঘ সময় সামরিক শাসন বজায় থাকলে অধ্যাদেশ জারি করে কর আদায় করা হয়। অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে রাজস্ব আহরণের বৈধতা সম্পর্কে কোনো প্রামাণ্য মতামত/ব্যাখ্যা এখনও পাওয়া যায়নি।
২০. বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি অনুমোদনের জন্য নির্ধারিত নিয়ম-নীতির মধ্যে দায়বদ্ধতার মৌলিক বিধান খুঁজে পাওয়া যায়। সংসদে পর্যাপ্ত যুক্তি, তথ্য ও প্রাক্কলনসহ প্রস্তাব উপস্থাপন করতে হবে। যে সকল ক্ষেত্রে সরকারের পক্ষে এ শর্ত মানা সম্ভব নয়, সংবিধান সে সকল ক্ষেত্রে ভোট অন অ্যাকাউন্ট, ভোট অন ক্রেডিট ইত্যাদি ব্যতিক্রম নির্দেশ করেছে। সংসদে যে দাবি উপস্থাপন করা হয় তা বাস্তব ও বিশ্বাসযোগ্য হওয়া আবশ্যক। অতি রঞ্জিত প্রস্তাব সংবিধানের বিধির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। যথা : আর্থিক কর্মকা- আকস্মিক কোনো বছর ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে অথবা অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি স্থিতিশীল বা সীমিত থাকা সত্ত্বেও রাজস্ব ২০-২৫ ভাগ বৃদ্ধি পাবেÑ এ জাতীয় প্রাক্কলন বাস্তবানুগ নয়।
২১. বাজেটের কলেবর এবং বাস্তবায়ন যোগ্যতা নিয়ে অনেক মন্তব্য হয়েছে, যা সম্পূর্ণ প্রাসঙ্গিক মনে হয় না। গত কয়েক বছর ৬-৭ শতাংশ আর্থিক প্রবৃদ্ধি হয়েছে, ৫-৭ শতাংশ মূল্যস্ফীতিসহ অভিহিত (নমিনাল) প্রবৃদ্ধির হার ১১-১৪ শতাংশ হয়েছে। রাজস্ব প্রশাসনের উন্নতির ফলে ৫-৬ পার্সেন্টেজ পয়েন্ট রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি পেলে সর্বোচ্চ রাজস্ব বৃদ্ধি হবে ২০ শতাংশ। রাজস্বের অনুপাত ১১-১২ শতাংশ এবং ঘাটতি বাজেট ব্যয় প্রায় ৪.৫ শতাংশে স্থিতিশীল ছিল। বাজেটের কলেবর অর্থনৈতিক কর্মকা-ের সম্প্রসারণের সাথে সংগতিপূর্ণ; অতিমাত্রায় বাড়েনি বা হ্রাস পায়নি।

শ্রেণী: