দিনপঞ্জি : মার্চ ২০২০

০১ মার্চ

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বীমা খাতকেও প্রযুক্তিনির্ভর এবং দুঃসময়ে বীমা থাকার বিভিন্ন সুবিধা সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করার জন্য বীমা কোম্পানিগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, বীমাকে প্রযুক্তিনির্ভর করতে হবে। বীমার যে কোনো কিছু অর্থাৎ বীমার দাবি নিষ্পত্তি থেকে শুরু করে বীমাসেবা আরও সহজ করতে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার অপরিহার্য। এটি করলে পরে দুর্নীতি দূর হবে। এর থেকে মানুষ উপকার পাবে। পৃথিবীর সব দেশ এখন আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন হয়ে গেছে। সেক্ষেত্রে আমি মনে করি, আমাদের দেশেও পুরো বীমা সিস্টেমটাকে একটা ডিজিটাল পদ্ধতিতে আপনারা দাঁড় করাবেন। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বীমা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী রাজনীতির পাশাপাশি জীবিকার প্রয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বীমা কোম্পানিতে কাজ করার কথা উল্লেখ করে বীমা শিল্পের উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, দেশের সব বীমা প্রতিষ্ঠানকে অটোমেশন পদ্ধতির আওতায় নিয়ে আসায় বীমা খাতের অনেক উন্নতি হবে। সঙ্গে সঙ্গে অনেক সমস্যাও সমাধান হবে। কেউ আর কর ফাঁকি দিতে পারবে না। দেশের রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পাবে।

০৪ মার্চ

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সম্ভাবনাময় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতকে (এসএমই) এগিয়ে নিতে ৫-দফা নির্দেশনা দিয়ে শুধু চাকরির পেছনে না ছুটে প্রশিক্ষণ ও ঋণ নিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা শুরু করতে তরুণদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে সরকারের বিনা জামানতে ব্যাংক ঋণ কর্মসূচির কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, অনেকে পাস করে শুধু চাকরির পেছনে ছুটে না বেড়িয়ে ঋণ নিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা শুরু করতে পারেন। কর্মসংস্থান ব্যাংকের মাধ্যমে বিনা জামানতে ক্ষুদ্র ঋণ দেওয়া হয়, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা সেভাবে অর্থ নিতে পারেন। এসএমই ফাউন্ডেশন থেকেও ঋণ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। রাজধানী খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ৯ দিনব্যাপী ‘৮ম জাতীয় এসএমই পণ্যমেলা-২০২০’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে প্রধানমন্ত্রী ঋণের সুদের হার এক অংকে নামিয়ে আনার উদ্যোগ প্রসঙ্গে বলেন, ঋণের সুদের হার অত্যন্ত বেশি, সেই সুদের হার কমিয়ে আনারও আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। সিঙ্গেল ডিজিটে আমরা নামিয়ে আনতে চাচ্ছি। যাতে আমাদের উদ্যোক্তারা ঋণ নিয়ে তা সহজে বিনিয়োগ করতে পারে। সেই সুবিধাটা আমরা সৃষ্টি করে দিচ্ছি। আর আমাদের এসএমই খাতে উৎপাদিত অনেক পণ্য বিশ্বমানের। এগুলোর সঙ্গে আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য জড়িত। কাজেই এই এসএমই খাত উন্নয়নে আমাদের বেশ কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
  • দেশের সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিতকরণে সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহারে প্রতিটি খাতে বিশেষ করে সম্ভাবনাময় খাতগুলোতে আরও গবেষণা চালানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, ‘বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান আমি গড়ে তুলেছি। যাতে করে আমাদের যতটুকু সম্পদ রয়েছে সেটাকে যেন যথাযথভাবে কাজে লাগাতে পারি। কারণ গবেষণা ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়।’ সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি (এনএসটি) ফেলোশিপ এবং বিজ্ঞানী ও গবেষকদের জন্য গবেষণা অনুদান প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এ-কথা বলেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের খাদ্য, শিক্ষা, চিকিৎসা সর্বক্ষেত্রেই গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে। ১৯৯৬ সালে ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর গবেষণার জন্য বিশেষ বরাদ্দ প্রদান করে। কারণ বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের চলতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘প্রযুক্তির ব্যবহার মানুষের জীবনকে অনেক বেশি সহজ করে তোলে এবং প্রতিটি সময় ও মুহূর্তকে কাজে লাগানো যায়। আমরা মোবাইল ফোনকে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়াতেই এটি এখন মানুষের হাতে হাতে চলে এসেছে।’

০৭ মার্চ

  • আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণকে যারা অস্বীকার করেন, প্রকারান্তরে তারা স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করেন। সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের সামনে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের সামনে তিনি এ-কথা বলেন।

০৮ মার্চ

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারী ধর্ষণকে বিশ্বব্যাপী সমস্যা হিসেবে উল্লেখ করে তা প্রতিরোধে ভুক্তভোগী নারীর পাশে পুরুষ সমাজকেও সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, নারী ধর্ষণ শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বব্যাপী একটি সমস্যা। ধর্ষণ প্রতিরোধে পুরুষদেরও এগিয়ে আসতে হবে। কারণ এই নারী ধর্ষণকারী তো পুরুষরাই। কাজেই পুরুষ সমাজের পক্ষ থেকে আমরা চাই যে তাদেরও সোচ্চার হতে হবে। রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী নারীদের ওপর পাশবিক অত্যাচার যারা করে তাদের ‘পশুরও অধম’ আখ্যা দিয়ে বলেন, যারা নারীদের ওপর এ-ধরনের পাশবিক অত্যাচার করে, তারা সমাজে সব থেকে জঘন্য। তাদের মানুষ বলতে ইচ্ছে করে না, বলতে ইচ্ছে করে এরা পশুর চেয়েও অধম। এদের বিরুদ্ধে পুরুষ সমাজকেও ব্যবস্থা নিতে হবে। নারীরা সব সময় নানা ধরনের যন্ত্রণার শিকার হয়, সেটা আমরা দেখেছি। সেটা মোকাবেলা করার জন্য আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপও নিয়েছি। আমরা সেভাবে বিভিন্ন আইনও করেছি। আইনগতভাবে আমরা বিভিন্ন শাস্তিরও ব্যবস্থা করেছি। তিনি বলেন, নারীরা যত শিক্ষিত হবে সমাজ তত দ্রুত এগোবে মন্তব্য করে তিনি বলেন, অর্ধেক অংশকে অকেজো রেখে সমাজ সঠিকভাবে চলতে পারে না।

১১ মার্চ

  • করোনাভাইরাসের মতো মানবিক এবং সংবেদনশীল বিষয় নিয়ে বিএনপি ‘নোংরা রাজনীতি’ করছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। তিনি বলেছেন, আন্দোলন ও ভোটে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি রাজনৈতিক ইস্যু খুঁজছে। করোনাভাইরাস নিয়ে তারা তাদের সেই নিকৃষ্ট রাজনীতির আশ্রয় নিয়েছে। আমি অনুরোধ করবÑ এ-ধরনের মানবিক ও সংবেদনশীল বিষয় নিয়ে রাজনৈতিক বিষোদগার থেকে বিরত থাকতে। দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক এবং দলের এমপি ও দুই সিটি মেয়রদের সঙ্গে এ যৌথসভা হয়। সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যেখানে করোনাভাইরাসের উপস্থিতির সঙ্গে সঙ্গে প্রস্তুতি নিয়েছে। কেন্দ্রীয়ভাবে এবং সরকারের স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে শুরু করে হাসপাতাল, বিমানবন্দর সব জায়গায় প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। প্রস্তুতির ঘাটতি নেই। প্রস্তুতি আছে বলেই ইতালি থেকে আসা দুজনের দেশে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। সরকারও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে। সংক্রমিত আরও একজনের বিষয়েও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

১৭ মার্চ

  • যারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম মুছে ফেলতে চেয়েছিলেন রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় তাদের নাম মুছে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। তিনি বলেন, পঁচাত্তরের পরে যারা জাতির পিতার নাম মুছে ফেলতে চেয়েছিল, রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় তাদের নাম একদিন মুছে যাবে। তারা আজ নিশ্চিহ্ন হওয়ার পথে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে রক্ষিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলেছে। আরও এগিয়ে যাবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে এসে আমরা নতুন করে নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করেছি। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা আমরা কায়েম করবই।

৩১ মার্চ

  • করোনা মোকাবেলায় সব থেকে বেশি প্রয়োজন ছিল সচেতনতা সৃষ্টি করা। সেটা আমরা করতে পেরেছি বলেই তিন মাসের কাছাকাছি হয়ে গেল আমরা পরিস্থিতি যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ-কথার পাশাপাশি বলেছেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের যাবতীয় প্রস্তুতি রয়েছে। তিনি মানুষের কল্যাণের দিকে তাকিয়ে লোকসমাগম যাতে না হয়, সে-জন্য এবার আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলা নববর্ষ পালন না করতে দেশবাসীকে অনুরোধ জানিয়েছেন। করোনা পরিস্থিতিতে ত্রাণ বিতরণে কোনোরকম দুর্নীতি বা অনিয়ম হলে এক চুলও ছাড় দেওয়া যাবে না বলে তিনি হুঁশিয়ারি দেন। ভাইরাস থেকে সুরক্ষার পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) শুধু চিকিৎসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদেরই ব্যবহার করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা সরকারের সামাজিক নিরাপত্তার সহযোগিতা পাচ্ছে সেটা অব্যাহত থাকবে। তাদের বাইরেও এই সময়ে যাদের সহযোগিতার প্রয়োজন তাদের সেটা করা হবে। তিনি বলেন, দরকার হলে মোবাইলের মাধ্যমে অর্থ পৌঁছে দেব। খাদ্য পৌঁছে দেব। আমাদের কিন্তু অভাব নেই। যথেষ্ট খাদ্য মজুদ আছে। আমরা চাই না দেশের মানুষ কষ্ট পাক। সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশের মাঠ পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকরা ছাড়াও ভিডিও কনফারেন্সে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তারা যুক্ত ছিলেন।
  • গ্রন্থনা : আশরাফ সিদ্দিকী বিটু
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply