ই-গভর্নমেন্ট সেবায় ১২৪ থেকে ১১৫তম স্থানে বাংলাদেশ

Posted on by 0 comment

উত্তরণ ডেস্ক: অনলাইনে সরকারি সেবা প্রদান নিয়ে সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিষয়ক বিভাগ (ইউএনডিএসএ)। সংস্থাটি জাতিসংঘ সদস্যভুক্ত ১৯৩ দেশের অনলাইন সেবার মূল্যায়ন করে ই-গভর্নমেন্ট ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্স (ইজিডিআই) প্রকাশ করেছে।
গত ২২ জুলাই বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি)-এর সম্মেলন কক্ষে ইউএনডিএসএ প্রকাশিত জরিপ রিপোর্টের ওপর এক্সেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ যৌথভাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব জুয়েনা আজিজ, একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের প্রকল্প পরিচালক মো. মুস্তাফিজুর রহমান, এটুআই-এর পলিসি অ্যাডভাইজার আনীর চৌধুরীসহ আরও অনেকে।
প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বিশ্বের ১৯৩ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১১৫তম। মূল্যায়নে ০.৪৮৬২ পয়েন্ট অর্জন করে বাংলাদেশ বৈশ্বিক হিসাবে মধ্যম মানের দেশগুলোর মধ্যে অবস্থান করছে। এতে ৩টি উপ-সূচকে বাংলাদেশ পেয়েছে যথাক্রমে অনলাইন সেবায় ০.৭৮৪৭ পয়েন্ট, টেলিকম অবকাঠামোতে ০.১৯৭৬ এবং মানবসম্পদে ০.৪৭৬৩ পয়েন্ট। প্রতি দুই বছর অন্তর প্রকাশিত এ প্রতিবেদনে ২০১৬ সালে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১২৪তম। ফলে দুই বছরে ই-গভর্নমেন্ট সেবায় বাংলাদেশের ১০ ধাপ অগ্রগতি হয়েছে। একটি দেশ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) ব্যবহার করে জনগণকে কতটুকু সেবা দিচ্ছে তার ওপর ভিত্তি করে এ সূচক তৈরি করা হয়।
সম্মেলনে মোস্তাফা জব্বার বলেন, সরকার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে নানা উদ্যোগ গ্রহণের ফলে, বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে ডিজিটাল সরকার ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ দিন দিন অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী এবং আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ এবং রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে সরকার কাজ করছে।
উল্লেখ্য, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ই-গভর্নমেন্ট সার্ভেতে ভারতের অবস্থান ৯৬তম, ভুটান ১২৬তম, পাকিস্তান ১৪৮তম, শ্রীলংকা ৯৪তম, মিয়ানমার ১৫৭তম এবং আফগানিস্তান আছে ১৭৭তম অবস্থানে। এ তালিকায় চীনের অবস্থান ৬৫তম। বৈশ্বিক এ তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে ডেনমার্ক, দ্বিতীয় অস্ট্রেলিয়া এবং তৃতীয় দক্ষিণ কোরিয়া।

Category:

Leave a Reply