তালুকদার আবদুল খালেক মেয়র নির্বাচিত

Posted on by 0 comment

june2018উত্তরণ প্রতিবেদন: খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিপুল ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর চেয়ে ৬৭ হাজার ৯৪৬ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন তিনি। বেশ উৎসবের মেজাজেই ভোটগ্রহণ শুরু হয়। গত ১৫ মে সকাল ৮টা হতে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ভোটকেন্দ্রগুলোতে সকাল থেকেই ভোটাররা জড়ো হতে থাকেন।
ভোটের দিন রাতে নগরীর সোনাডাঙ্গা এলাকার বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে স্থাপিত নির্বাচনী ফলাফল সংগ্রহ ও ঘোষণা কেন্দ্রে রিটার্নিং কর্মকর্তা ঘোষিত ফলাফল থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেককে বেসরকারিভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয়। খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটার সংখ্যা ৪,৯৩,০৯৩।
সর্বশেষ প্রাপ্ত ফলাফলে খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মোট ২৮৯ কেন্দ্রের মধ্যে ২৮৬টি কেন্দ্রে তালুকদার আবদুল খালেক (আওয়ামী লীগ) ১,৭৬,৯০২ ও নজরুল ইসলাম মঞ্জু (বিএনপি) ১,০৮,৯৫৬ ভোট পেয়েছেন। এছাড়া ৩টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত রয়েছে। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ৬৭ হাজার ৯৪৬ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন তিনি। সব কেন্দ্রের মধ্যে দুটি কেন্দ্রে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে একটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী অন্যটিতে বিএনপি প্রার্থী জয়ী হন।
এ নির্বাচনে মোট পাঁচজন প্রার্থী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। অন্য তিনজন হলেন কাস্তে প্রতীক নিয়ে সিপিবির মিজানুর রহমান বাবু, লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে জাতীয় পার্টির শফিকুর রহমান মুশফিক এবং হাতপাখা নিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাওলানা মুজাম্মিল হক।
বেসরকারিভাবে বিজয়ী হওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় তালুকদার আবদুল খালেক বলেন, বিপুল ভোটের ব্যবধানে আমাকে নির্বাচিত করায় খুলনাবাসীকে ধন্যবাদ জানাই। এটি উন্নয়নের বিজয় হয়েছে। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আমি খুলনার উন্নয়ন করে যেতে চাই। একইসঙ্গে তিনি সংসদ সদস্যপদ থেকে পদত্যাগ করে মেয়র পদে নির্বাচন করতে আদেশ দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান। এ সময় তার সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীরা তাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন। পরে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গেলে সেখানেও তাকে আনন্দে উৎফুল্ল নেতাকর্মীরা ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। তালুকদার খালেক বলেন, অবশ্যই। আমি যখন খুলনার মেয়র ছিলাম, তখন তিনি (নজরুল ইসলাম মঞ্জু) এমপি ছিলেন। সে আমার ছোট ভাইয়ের মতো। আমরা যখন খুলনা শহরে বিভিন্ন আন্দোলনে মাঠে ছিলাম, সেও সেই আন্দোলন-সংগ্রামে ছিল। মাঠ পর্যায়ের একজন নেতা। এটা আমি অস্বীকার করি না। কাজেই নির্বাচনে একজন হারবে একজন জিতবে। অতএব এই সমস্ত কিছু মেনে নিয়েই আমাদের চলতে হবে। তিনি আরও বলেন, সকাল থেকে ৪টা পর্যন্ত আমি বিভিন্ন কেন্দ্রে গেছি। উনি কোনো কেন্দ্রে গেছে, আমি জানি না। আমার সঙ্গে অনেক সাংবাদিক ছিল। কোনো কেন্দ্রে আমার চোখের সামনে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি।
২০ মে বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক। এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মেয়র পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার সুযোগ দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান তালুকদার আবদুল খালেক। আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করায় খুলনার জনগণকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই সঙ্গে খুলনার মানুষের উন্নয়নে যথাযথ ভূমিকা পালনে নতুন মেয়রকে নির্দেশনাও দেন তিনি। এ জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সব রকমের সহযোগিতারও আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী।

Category:

Leave a Reply