দেশের সব প্রতিবন্ধী ভাতা পাবেন

Posted on by 0 comment

4-9-2019 6-31-00 PMউত্তরণ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর কল্যাণে তার সরকারের পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরে বলেছেন, সরকার আগামী বাজেট থেকে দেশের সব প্রতিবন্ধীকে ভাতা প্রদান করবে। একই সঙ্গে প্রতিটি বিভাগীয় শহরে অটিজম পরিচর্যা কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। গত ২ এপ্রিল রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১২তম বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস-২০১৯ উপলক্ষে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি আরও বলেন, বর্তমানে সরকার ১০ লাখ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে মাসিক ৭০০ টাকা হারে ভাতা প্রদান করছে এবং সেন্সাস রিপোর্ট অনুযায়ী দেশে এখন ১৪ লাখ প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠী রয়েছে। যারা আগামীতে ভাতার আওতায় আসবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, অটিজম আক্রান্ত শিশুরা সুস্থ পরিচর্যা পেলে স্বাভাবিকভাবে জীবনে সকলের সঙ্গে মিলে চলতে পারবে। তারা কোনো একটি বিশেষ ক্ষেত্রে পারদর্শী হয়, এদের মাঝে যে সুপ্ত জ্ঞান এবং প্রতিভা থাকে, সেটাকে কাজে লাগাতে হবে। তাদের কেউ যেন বোঝা মনে না করে। তিনি প্রতিবন্ধীদের মেধাকে কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। প্রতিবন্ধীদের জন্য তার সরকার এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় আধাঘণ্টা সময় বাড়িয়ে দিয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা এ-সময় ‘মুক্তা পানি’ মিনারেল ওয়াটারের বোতল হাতে নিয়ে অনুষ্ঠানের সবাইকে দেখিয়ে বলেন, এটিও কিন্তু আমাদের প্রতিবন্ধীরাই তৈরি করছে। তিনি এই পানি কেনার জন্যও সকলের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা প্লাস্টিক এবং বেত দিয়ে মোড়া তৈরি করছে। তিনি সুযোগ পেলেই এগুলো সংগ্রহ করেন এবং ব্যবহার করেন। প্রধানমন্ত্রী প্রতি বছর দুই ঈদ এবং নববর্ষের জন্য যেসব শুভেচ্ছা কার্ড পাঠান সেগুলো প্রতিবন্ধীদের চিত্রাঙ্কন থেকেই নির্ধারিত মূল্য দিয়ে সংগ্রহ করা বলে তিনি উল্লেখ করেন।
অটিজম আক্রান্ত শিশুদের জীবনকে অর্থবহ করে তুলতে তার সরকারের বিভিন্ন প্রচেষ্টার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই অটিজম শিশু জন্মানোর ক্ষেত্রে মা-বাবা কারোরই কিছু করার থাকে না। তথাপি আমাদের সমাজে এজন্য মা’কেই যে দোষারোপ করা হয়, সেটি বন্ধেরও আহ্বান জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন, ২০১৩’ এবং ‘নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট আইন, ২০১৩’ নামে দুটি আইন পাস করেছে। এ সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় বিধিও প্রণয়ন করা হয়েছে। ২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ‘নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট’। এ পর্যন্ত সরকার এই ট্রাস্টকে ৭০ কোটি ৯৭ লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেছে। চলতি অর্থবছরে ১ হাজার ২০০ জন অস্বচ্ছল নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে ৭০ লাখ টাকা চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করা হবে। তিনি বলেন, পর্যায়ক্রমে দেশের ৮টি বিভাগীয় শহরে বৃহৎ পরিসরে প্রতিবন্ধী পরিচর্যা কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। যখন সম্ভব হবে তখন প্রত্যেক জেলাতেই এ ধরনের কেন্দ্র করে দেওয়া হবে।
প্রতিবন্ধীদের ক্রীড়াক্ষেত্রে বিশেষ কৃতিত্বের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী জানান, জাতীয় সংসদ চত্বরে প্রতিবন্ধী ছেলে-মেয়েদের খেলাধুলার জন্য ৪ দশমিক ১৬ একর জমি সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অনুকূলে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ঢাকার অদূরে সাভারে প্রায় ১২ একর জমিতে ৪৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ইনক্লুসিভ প্রতিবন্ধী স্পোর্টস কমপ্লেক্স স্থাপনের ডিপিপি প্রণয়নের কাজ চলছে।
সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য এবং পরিবারকল্যাণমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালিক এমপি, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরিফ আহমেদ এমপি, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান রাশেদ খান মেনন এমপি, মন্ত্রণালয়ের সচিব জোয়েনা আজিজ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। অটিজম আক্রান্তদের পক্ষে একজন এসএসসি পরীক্ষার্থী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

Category:

Leave a Reply