প্রয়াতজন : শ্রদ্ধাঞ্জলি

63-aউত্তরণ প্রতিবেদন:  সাবেক প্রধান বিচারপতি রুহুল আমিন
সাবেক প্রধান বিচারপতি এমএম রুহুল আমিন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি … রাজিউন)। গত ১৭ জানুয়ারি ভোরে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। ১৯ জানুয়ারি মরহুমের লাশ দেশে পৌঁছায়। ওই দিন সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।
বিচারপতি এমএম রুহুল আমিন ২০০৮ সালের ১ জুন থেকে ২০০৯ সালের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বিচারপতি রুহুল আমিন ১৯৪২ সালের ২৩ ডিসেম্বর লক্ষ্মীপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৩ সালে এমএ এবং ১৯৬৬ সালে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৬৭ সালে জুডিসিয়াল সার্ভিসে যোগ দেন তিনি। ১৯৮৪ সালে জেলা ও দায়রা জজ হন। ১৯৯৪ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি হন রুহুল আমিন। ২০০৩ সালের ১৩ জুলাই আপিল বিভাগের বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান।
আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি মাহফুজুল
63-bঐতিহাসিক আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ২২তম আসামি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহযোগী মাহফুজুল বারী আর নেই। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মিরপুর হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৩ জানুয়ারি সকালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে … রাজেউন)। আওয়ামী লীগের কেন্দ্র্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাবেক সদস্য ছিলেন মাহফুজুল বারী। আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগেরও সাবেক সাধারণ সম্পাদক তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাহফুজুল বারীর মৃত্যুতে গভীর শোক করেছেন। প্রধানমন্ত্রী এক শোক বার্তায় গভীর শ্রদ্ধার সাথে ’৭৫-পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্র্রীয় কমিটির সাবেক এই সদস্যের অবদানের কথা স্মরণ করেন। শেখ হাসিনা মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। মাহফুজুল বারী পাকিস্তান বিমানবাহিনী সদস্য ছিলেন। তিনি ১৯৬৭ সালের নভেম্বরে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেফতার হন এবং ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুর সাথে মুক্তি পান। মুক্তিযুদ্ধে মাহফুজুল বারী ২ নম্বর সেক্টরে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করেন। তিনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর হত্যাকা-ের প্রতিবাদে কলকাতা চলে যান। এরপর তিনি কানাডায় গিয়ে সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকেন। এক মাস আগে তিনি দেশে আসেন। মাহফুজুল বারীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রামগতি থানা কেন্দ্রীয় সমবায়ের ও ডর্প’র প্রতিষ্ঠাতা এবং গুসি আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বিজয়ী এএইচএম নোমান। একই সাথে তিনি মরহুমের রুহের মাগফেরাত ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।
অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান
63-cনরসিংদী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান (৭২) গত ১ ফেব্রুয়ারি ভোরে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে … রাজেউন)। তিনি স্ত্রী, দুই মেয়ে রেখে যান। তিনি দীর্ঘদিন শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভুগছিলেন। তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে নরসিংদীতে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার মৃত্যুতে নরসিংদীর আইনজীবী সমিতির সদস্যরা তার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে কর্মবিরতি পালন করেন। আইনজীবীসহ দলীয় নেতাকর্মীরা কালোব্যাজ ধারণ করেন। বিকেলে বাদ আছর তার লাশ নিয়ে যাওয়া হয় নরসিংদী স্টেডিয়ামে। সেখানে সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে তার লাশ নরসিংদী শহরের রাঙ্গামাটিস্থ ঈদগাহ গোরস্তানে দাফন করা হয়। তার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেন। এক শোক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী তার রুহের মাগফিরাত কামনা ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এ ছাড়া আসাদুজ্জামানের মৃত্যুতে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি গভীর শোক প্রকাশ করেন।
ইস্পাহানির চেয়ারম্যান মির্জা আলী বেহরুজ
63-dদেশের অন্যতম পুরনো ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ইস্পাহানি গ্রুপের চেয়ারম্যান মির্জা আলী বেহরুজ ইস্পাহানি আর নেই। গত ২৩ জানুয়ারি ভোর সাড়ে ৫টায় ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে তিনি মারা যান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এক শোক বার্তায় তিনি শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। চা, টেক্সটাইল, খাদ্য, পাট, শিপিংসহ বিভিন্ন খাতে প্রায় ২০০ বছর ধরে ব্যবসা চালিয়ে আসছে এমএম ইস্পাহানি গ্রুপ। যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনা করা আলী বেহরুজ ইস্পাহানি ইসলামিয়া চক্ষু ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, ইস্পাহানি পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির (আইইউবি) ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

Category:

Leave a Reply