বিজয়ের মাসে ডটবাংলা ডোমেইন জয়

Posted on by 0 comment

53সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর: এ বছরের বিজয় দিবস পেয়েছে অন্য একটি মাত্রা। বাংলা ভাষার জন্য একটি চমৎকার খবর নিয়ে। এ বছরের বিজয় দিবস থেকে শুরু হলো ডটবাংলা ডোমেইনের নিবন্ধন। আমাদের বর্ণমালার এক নতুন ডিজিটাল স্বীকৃতি। আগে ইন্টারনেটে বাংলা লেখার সুযোগ ছিল। কিন্তু ডোমেইন নাম বা ওয়েবসাইটের ঠিকানা বাংলায় লেখার সুযোগ ছিল না। এর মাধ্যমে সেই সুযোগটি তৈরি হলো। এখন থেকে ওয়েব ঠিকানা কেবল ইংরেজিতেই নয়, রাখা যাবে বাংলাতেও। অর্থাৎ কেবল রোমান হরফে নয়, লেখা যাবে বাংলা বর্ণমালাতেও। পাশাপাশি বাংলা ভাষায় তথ্য খোঁজার ক্ষেত্রেও প্রাসঙ্গিক তথ্য পেতে সুবিধা হবে। বাংলা ডিজিটাল কন্টেন্ট নির্মাণের কাজও আরও একধাপ এগিয়ে যাবে। তবে এ অর্জনটি শুধু বাংলা লেখার সুবিধা নয়। এর মাধ্যমে ইন্টারনেট বিশ্বে বাংলাদেশকে বাংলা ভাষার প্রধান রক্ষক ও পৃষ্ঠপোষক হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হলো। কারণ এখন থেকে সারা পৃথিবীর বাংলা ভাষাভাষিদের এই ডোমেইন শুধু বাংলাদেশের কাছ থেকেই কিনতে হবে। এটি বাংলা ভাষার যাত্রায় একটি বড় অর্জন এবং এটি চালু করা আওয়ামী লীগ সরকারের একটি বৃহৎ এবং ঐতিহাসিক সফলতা।
এ বিষয়টি জাতির শুধু আওয়ামী লীগের কাছ থেকেই প্রত্যাশিত ছিল। প্রথম কারণটি হলো প্রযুক্তিবান্ধব সরকার হিসেবে বিগত সময়ে আওয়ামী লীগের অবস্থান ও শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প। আর তার অতীতে রয়েছে বাংলা ভাষার প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু ও তার দল আওয়ামী লীগের দীর্ঘ সংগ্রামের ইতিহাস।
১৯৪৮ সালের ১১ মার্চে তার প্রথম গ্রেফতার। এরপর সরকার ছাত্রদের দাবি মেনে নিয়ে, চুক্তির মাধ্যমে তাকে সহ ভাষা আন্দোলনের অন্য নেতৃবৃন্দের কারামুক্তিই ছিল রাষ্ট্রের কাছে বাংলা ভাষার প্রথম দাফতরিক স্বীকৃতি।
’৫২-র ভাষা আন্দোলনের চেতনাকে, শহীদের আত্মাহুতিকে তিনি দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে উজ্জীবিত রেখেছিলেন। ভাষাকে তিনি আমাদের স্বাধিকারের প্রসঙ্গের সাথে মিশিয়ে দিয়েছিলেন। আর বাঙালির স্বাধিকারের সাথে জড়িয়ে যাওয়া ছিল ভাষাটির ভবিষ্যতে সগৌরবে বেঁচে থাকার শক্তিশালী মন্ত্র।
স্বাধীন বাংলাদেশে বাংলা রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা অর্জন করে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ’৭২-এর সংবিধানে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে গ্রহণ করে। বঙ্গবন্ধুর বাংলায় দেওয়া জাতিসংঘের ভাষণ ছিল বাংলার প্রথম আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রবেশ। আর তার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আসে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে। ১৯৯৯ সালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষিত হয় একুশে ফেব্রুয়ারি।
সর্বশেষ অর্জনটিও এলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে। ২০১০ সালের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে তিনি বাংলা বর্ণমালার আরেক স্বীকৃতি আদায়ের সংগ্রামের ঘোষণা দেন। ঘোষণা দেন তার সরকার বাংলায় কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন চালুর প্রক্রিয়া শুরু করেছে। অর্থাৎ, ডটবাংলা ডোমেইন। সোজা কথায়, এই ডোমেইন চালু হলে ওয়েব অ্যাড্রেস হবে বাংলা বর্ণমালাতেই। এর আগে তার নির্দেশনায় ২০০৯ সালের ডিসেম্বরে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়কে বাংলা ডোমেইন স্বত্ব নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে জাতীয় সংসদের এ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি। তার ভিত্তিতে একটি প্রস্তাব তৈরি করে, সেটা পাঠানো হলো অনুমোদনের জন্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই প্রস্তাব অনুমোদন করেন গত ৩ ফেব্রুয়ারি। তারপরই তিনি ঘোষণা দেন। এরপর কাজ শুরু হয় ডোমেইনের আন্তর্জাতিক অনুমোদনকারী প্রতিষ্ঠন আইক্যান (ওঈঅঘঘ)-এর সাথে। বিটিআরসি’র তত্ত্বাবধানে ডটবাংলা স্ট্রিং যাচাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয়। পরে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড বা বিটিসিএল সব রকম যাচাই-বাছাই করে, প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ও আনুষ্ঠানিকতা সেরে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে ডটবাংলা ডোমেইনের জন্য আইক্যানের (ওঈঅঘঘ) কাছে চূড়ান্ত প্রস্তাব পাঠায়। ২০১৬ সালের জুনে অনুমোদন প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম আইক্যানের সাথে যোগাযোগের উদ্যোগ নেন। আর গত ১৫ সেপ্টেম্বর আইক্যানের বোর্ডসভায় ডটবাংলা ডোমেইন বরাদ্দের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তার এক মাসেরও কম সময়ের মধ্যে, গত ৪ অক্টোবর সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা সংস্থা আইয়ানা (ওঅঘঅ) ডটবাংলা ডোমেইন বরাদ্দের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের দ্বিতীয়, এবং বাংলা ভাষার প্রথম কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন হিসেবে অনুমোদন পেল ডটবাংলা ডোমেইন।
বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারীরা বিশ্বাস করে বাংলা ভাষা আমাদের রাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিরক্ষা প্রাচীর। সেই চেতনায় ও প্রযুক্তিতে এগিয়ে চলেছে বাংলা ভাষা। আরও যাবে বহুদূর। আলোকবর্তিকা হিসেবে থাকবে তার দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় বাংলা বর্ণমালা।

লেখক : তথ্য প্রযুক্তিবিদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কুষ্টিয়া জেলা শাখা

Category:

Leave a Reply