বিদেশি চাপ অগ্রাহ্য করে কৃষিতে ভর্তুকি দিচ্ছি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা কৃষিতে ভর্তুকির ব্যাপারে আপত্তি জানালেও সেসব বিদেশি দাতা সংস্থার চাপ অগ্রাহ্য করে সরকার কৃষিতে ভর্তুকি অব্যাহত রেখেছে। কৃষককে ভর্তুকি দিয়ে বীজ, যন্ত্রপাতি সরবরাহ করা হচ্ছে এবং বছরে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা কৃষি ঋণ দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, অনেক উন্নত দেশ কৃষকদের সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছে; অথচ আমাদের বেলায় অনেক রকম শর্ত চলে আসে। যদিও আমরা তা গ্রহণ করি না। বাংলাদেশের একটা মানুষও যেন ক্ষুধায় কষ্ট না পায় সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে তিনি ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি কৃষিভিত্তিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প ও শষ্যের বহুমুখীকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। গত ৯ নভেম্বর সচিবালয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয় পরিদর্শন ও মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, অনেক আন্তর্জাতিক সংস্থা কৃষিতে ভর্তুকির বিরোধিতা করে। ’৯৬-এর নির্বাচনের আগে ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের যে প্রতিনিধি বাংলাদেশে আসেন তিনি আমার কাছে বিশাল এক তালিকা নিয়ে আসে। এর মধ্যে, কৃষিতে ভর্তুকি বন্ধের কথা ছিল। আমি তখন তাকে বলি, ঠিক আছে। আমরা আমাদের নিজেদের টাকায় কৃষকদের ভর্তুকি দেব। প্রধানমন্ত্রী বলেন, খাদ্যটা যদি সঠিক সময়ে দিতে না পারি, তা হলে কাদের জন্য কাজ করছি? বাংলাদেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত করতেই হবে। কৃষি উৎপাদন বাড়াতে প্রশিক্ষণের ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, কৃষকদের আধুনিক যন্ত্রপাতি ও প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

Category:

Leave a Reply