বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে চার ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

1-15-2019 7-01-38 PMউত্তরণ ডেস্ক: লন্ডনভিত্তিক ব্রিটিশ বহুজাতিক গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান ইকোনমিস্ট গ্রুপের বিজনেস ইউনিট ‘ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট’ (ইআইইউ) গত ৯ জানুয়ারি ২০১৮ সালের এই বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচক প্রকাশ করে।
এবারের সূচকে বাংলাদেশ ৫.৫৭ পয়েন্ট (১০-এর মধ্যে) নিয়ে ৮৮তম স্থানে আছে। এক বছর আগে ৫.৪৩ স্কোর নিয়ে ছিল ৯২তম স্থানে। ২০১৭ সালে বাংলাদেশের স্কোর ছিল এই দশকের মধ্যে সর্বনিম্ন। সেই হিসাবে বাংলাদেশ আবারও ঘুরে দাঁড়িয়েছে।
বৈশ্বিক তালিকায় ৯.৮৭ স্কোর নিয়ে শীর্ষে আছে নরওয়ে। এরপর আছে আইসল্যান্ড, সুইডেন, নিউজিল্যান্ড, ডেনমার্ক, কানাডা ও আয়ারল্যান্ড। যুক্তরাজ্য আছে ১৪তম স্থানে।
তালিকায় এশিয়া ও অস্ট্রেলেশিয়া অঞ্চলের মধ্যে বাংলাদেশ ১৭তম স্থানে আছে। নির্বাচন প্রক্রিয়া ও বহুত্ববাদ বিষয়ে বাংলাদেশের স্কোর ৭.৮৩ (১০-এর মধ্যে)। সরকারের কার্যকারিতা বিষয়ে বাংলাদেশ ৫.০৭, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ বিষয়ে ৫.৫৬, রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে ৪.৩৮ ও নাগরিক স্বাধীনতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্কোর ৫।
কোনো দেশের স্কোর ৪-৭-এর মধ্যে থাকলে ইআইইউ তাকে ‘হাইব্রিড রেজিম’ ক্যাটাগরিতে রাখে। সেই হিসাবে সূচকে চার ধাপ উন্নতি হলেও বাংলাদেশ ‘হাইব্রিড রেজিম’ ক্যাটাগরিতেই থাকছে। ২০০৬ সালে ইআইইউ গণতন্ত্র সূচক প্রকাশ শুরু করার পর থেকে বাংলাদেশ বরাবরই ‘হাইব্রিড রেজিম’ ক্যাটাগরিতেই আছে।
এবারের সূচকে বাংলাদেশের নিকটতম প্রতিবেশী ভারত এক ধাপ এগিয়ে ৪১তম স্থানে উঠলেও ‘ফ্লড ডেমোক্রেসি’ (ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র) ক্যাটাগরিতে স্থান পেয়েছে। বিশ্বব্যাপী গণতন্ত্রের প্রসারে কাজ করা যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রকেও ‘ত্রুটিপূর্ণ’ হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে ইআইইউর সূচকে। ৭.৯৫ স্কোর নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে ২৫তম স্থানে আছে।
দক্ষিণ এশিয়ায় ‘হাইব্রিড রেজিম’ শ্রীলংকা ৭১, ভুটান ৯৪, নেপাল ৯৭, পাকিস্তান ১১২তম স্থানে আছে। এছাড়া মিয়ানমার ৩.৮৩ স্কোর নিয়ে আছে ১১৮তম স্থানে। দেশটি গণতান্ত্রিক মানের সর্বনিম্ন ক্যাটাগরি ‘অথোরিটারিয়ানে’ পড়েছে। এশিয়া ও অস্ট্রেলেশিয়া অঞ্চলে গণতন্ত্র সূচকে মিয়ানমারের পেছনে আছে কম্বোডিয়া (স্কোর ৩.৫৯, স্থান ১২৫), চীন (স্কোর ৩.৩২, স্থান ১৩০), আফগানিস্তান (স্কোর ২.৯৭, স্থান ১৪৩), লাওস (স্কোর ২.৩৭, স্থান ১৫১) ও উত্তর কোরিয়া (স্কোর ১.০৮, স্থান ১৬৭)।

Category:

Leave a Reply