মাসব্যাপী নানা আয়োজনে : বঙ্গবন্ধু-স্মরণ

PM2হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, মহান স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে সর্বস্তরের মানুষ স্মরণ করে জাতির পিতাকে। বরাবরের মতো এবারও সরকারি-বেসরকারিভাবে পালিত হয়েছে বিভিন্ন কর্মসূচি। জাতীয় শোক দিবস সামনে রেখে আগস্টের প্রথম দিন থেকেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে।
১ আগস্ট গোপালগঞ্জে ১০০ শিশুর অংশগ্রহণে জাতির পিতা উৎসর্গীকৃত ‘পুষ্পকানন’ নির্মাণের আয়োজন করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।
২ আগস্ট গোপালগঞ্জে মুজিববর্ষে নির্মিতব্য সফল শিল্পের নির্মাণ ভাবনা ও কর্মপরিকল্পনা বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এই কর্মশালার আয়োজন করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।
৫ আগস্ট বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে ওপর রচিত ১০০টি গ্রন্থের পাঠ পর্যালোচনা করা হয়।
৬ আগস্ট বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি জাতীয় নাট্যশালায় আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ‘মুজিব মানে মুক্তি’ নাটক মঞ্চায়িত হয়।
১১ আগস্ট রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের নিজস্ব হলরুমে বিভিন্ন উপজেলার স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীর মাঝে ছড়াগান, দেশাত্মবোধক গানের প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।
১৫ আগস্ট সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে দেশের সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ভবন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোয় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মধ্য দিয়ে শুরু হয় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন। বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন ও রেডিওগুলো দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করে এবং সংবাদপত্রগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টের সকল শহিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন। এ উপলক্ষে চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর মাসিক সচিত্র বাংলাদেশে বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করে এবং বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করে। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার ১নং গ্যালারিতে ১ আগস্ট থেকে ‘শিল্পের আলোয় বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক মাসব্যাপী কমসূচি পালন করা হয়। ফ্রেমে ফ্রেমে ঝুলানো শিল্পীদের রংতুলির আঁচড়ে বঙ্গবন্ধু ওপর চিত্রকর্ম ও আলোকচিত্র প্রদর্শিত হয়। প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এবং শুক্রবার বেলা ৩টা হতে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত রাখা হয় এবং তথ্যভবনে পক্ষকালব্যাপী এক আলোকচিত্র প্রদর্শনী চলে।
জাতীয় জাদুঘরে কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে ‘ভয়াবহ আগস্ট’ শিরোনামে এক সেমিনার আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে ‘বঙ্গবন্ধুকে জানো বাংলাদেশকে জানো’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত ছড়া পাঠ, শিশু বক্তাদের অনুভূতি প্রকাশ, শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, শিশু একাডেমি হতে প্রকাশিত বঙ্গবন্ধুর জীবনীভিত্তিক ২৫টি বইয়ের প্রদর্শনী এবং বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ বিষয়ক আলোকচিত্র প্রদর্শনী। বেইলী রোডস্থ অফিসার্স ক্লাবের আয়োজনে নিজস্ব মিলনায়তনে মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়ের প্রযোজনায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবার-পরিজনদের নির্মম হত্যাকা-ের প্রেক্ষাপটে গবেষণালব্ধ নাটক ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’ মঞ্চস্থ হয়। মহাপ্রয়াণের শোক আখ্যান ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’ রচনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আনন জামান এবং মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়ের ৪০তম এ প্রযোজনার পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার ও পারফরমেন্স স্ট্যাডি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আশিক রহমান লিওন।
সারাদেশের অলিগলিতে মাইকে প্রকম্পিত হয় বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের কালজয়ী ভাষণ, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান, কবিতা-ছড়া, দেশাত্মবোধক তথা স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণামূলক গান। শোক দিবসের পোস্টার, ফেস্টুন, ব্যানার, কালো পতাকা ও কালো ব্যাজ ধারণ করা হয়। মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গান, কবিতা-ছড়া, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা এবং হামদ-নাত, মিলাদ মাহফিল ও দোয়ার আয়োজন করা হয়।
১৭ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণে বিশেষ সাহিত্য আসর আয়োজন করে খেলাঘর। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্ব-রচিত কবিতা পাঠ, আবৃত্তি, স্মৃতিচারণ ও শিশুদের সংগীত পরিবেশনা।
২১ আগস্ট ২১ আগস্টের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ভয়াবহতা নিয়ে ৫১ জন শিল্পীর অংশগ্রহণে স্থাপনা শিল্প ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিনাশী ধ্বংষযজ্ঞ’ শিরোনামে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।
২৩ আগস্ট বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে ‘বাউল কণ্ঠে বঙ্গবন্ধু’ এবং বঙ্গবন্ধু ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, ‘কারাগারের রোজনামচা’ পাঠ ও চিত্র নির্মাণের আয়োজন করা হয়। এছাড়াও একাডেমির নাট্যশালায় ইন্টারন্যাশনাল ডিজিটাল কালচারাল আর্কাইভে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ওপর নির্মিত প্রামাণ্য চলচ্চিত্র : ‘অসমাপ্ত মহাকাব্য’, ‘চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু’, ‘স্বাধীনতা কী করে আমাদের হলো (ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ অবলম্বনে)’ এবং ‘BANGABANDHU Forever in our hearts’ প্রদর্শিত হয়। সকল জেলা উপজেলা শিল্পকলা একাডেমিতে শিশু চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
২৪ আগস্ট বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নাট্যশালায় ইন্টারন্যাশনাল ডিজিটাল কালচারাল আর্কাইভে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ওপর নির্মিত প্রামান্য চলচ্চিত্র : ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম (বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের বিশ্ব স্বীকৃতি বিষয়ক তথ্যচিত্র)’, ‘আমাদের বঙ্গবন্ধু (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনভিত্তিক একটি প্রামাণ্যচিত্র)’, ‘সোনালি দিনগুলো (বঙ্গবন্ধু সরকারের সাড়ে তিন বছর)’, ‘বিরতি’, ‘ওদের ক্ষমা নেই’ এবং ‘হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু’ প্রদর্শিত হয়। জাতীয় চিত্রশালায় বরেণ্য চিত্রশিল্পীদের অংশগ্রহণে ‘শিল্পের আলোয় বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক আর্ট ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়।
২৫ আগস্ট জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণে কবিতা ও গানের অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশনের ইন্দিরা গান্ধী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র (আইজিসিসি)।
২৬, ২৮ ও ২৯ আগস্ট তিন দিনব্যাপী জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের আয়োজনে ‘বঙ্গবন্ধু বিষয়ক পুস্তক প্রদর্শনী ও পাঠ’ অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায়।
৩০ আগস্ট বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি জাতীয় চিত্রশালায় ‘আমার বঙ্গবন্ধু’, ‘আমিই মুজিব’, ‘২০৪১ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা’ তিন বিষয়ের ওপর স্কুল ছাত্রদের শ্রেণিভিত্তিক শিশু চিত্রাঙ্কান প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।
৩১ আগস্ট বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় বঙ্গবন্ধু বিষয়ক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর মাধ্যমে শেষ হয় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ও আর্কাইভ ’৭১-এর মাসব্যাপী এই আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন।
শোকাবহ আগস্টের মাসজুড়ে বিনম্র শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণে সরব ছিল সাংস্কৃতিক অঙ্গন।

শাহ্ সোহাগ ফকির

Category:

Leave a Reply