সেরা চলচ্চিত্র ইরানের ‘ডটার’

দেশীয় নির্মাতাদের মধ্যে ‘লালচর’ চলচ্চিত্রের নির্মাতা নাদের চৌধুরী, ‘জন্মসাথী’ শিরোনামে নির্মিত প্রমাণ্যচিত্রের নির্মাতা শবনম ফেরদৌস, ‘প্যারালাল জার্নি’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের নির্মাতা তারেক আজিজ নিশক ও ‘অজ্ঞাতনামা’ চলচ্চিত্রের নির্মাতা তৌকীর আহমেদ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার লাভ করেন।

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৭

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৭

আবু সুফিয়ান আজাদ: গত ১২ থেকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত উদযাপিত হলো রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ আয়োজিত পঞ্চদশ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৭। ১২ জানুয়ারি এই উৎসবের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
উৎসবে বাংলাদেশসহ মোট ৬৭টি দেশ অংশগ্রহণ করে এবং ১৭৭টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তন, কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান মিলনায়তন, আলিয়ঁস ফ্রঁয়েস, স্টার সিনেপ্লেক্স ও আমেরিকান সেন্টার মিলনায়তনে এসব চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। উৎসবে এশিয়ান কম্পিটিশন, রেট্রোস্পেকটিভ, সিনেমা অব দ্য ওয়ার্ল্ড, চিল্ড্রেন্স ফিল্মস, স্পিরিচুয়াল ফিল্মস, শর্ট ও ইন্ডিপেনডেন্ট ফিল্মস, নরডিক ফিল্ম সেশন এবং উইমেন্স ফিল্ম মেকারস সেকশনে এই চলচ্চিত্রগুলো প্রদর্শিত হয়। এই আয়োজনে অংশ নেন বাংলাদেশসহ প্রায় ৭০টি দেশের সম্মানিত নাগরিকবৃন্দ, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চলচ্চিত্রকার, সাংবাদিক, চলচ্চিত্র সমালোচক, বাংলাদেশে অবস্থিত বিভিন্ন দেশের দূতাবাসের গণ্যমান্য কর্মকর্তা, রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ এবং অন্যান্য চলচ্চিত্র সংসদের সদস্যসহ দেশের বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বগণ।
রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ আয়োজিত পঞ্চদশ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৭ এর অংশ হিসেবে আরও ৪টি ইভেন্টের আয়োজন করা হয়। রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ ও বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর যৌথভাবে জাদুঘরের সিনেপ্লেক্স রুমে গত ৫ জানুয়ারি থেকে ১৬ দিনব্যাপী এক চলচ্চিত্র বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করে। বাংলাদেশসহ ৮টি দেশের ২৭ তরুণ নির্মাতারা এই কর্মশালায় অংশ নেন।
এ ছাড়া গত ১৩-১৪ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইম্যান অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের সহযোগিতায় নারী চলচ্চিত্র নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী এবং বিশিষ্ট নারী ব্যক্তিত্বের অংশগ্রহণে রাজধানীর আলিয়ঁস ফ্রঁয়েসের আর্ট গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত হয় ‘চলচ্চিতে নারী’ শীর্ষক তৃতীয় ঢাকা আন্তর্জাতিক সম্মেলন। সম্মেলনে চলচ্চিত্র পরিচালনায় নারীর অংশগ্রহণ ও চলচ্চিত্রে নারীর উপস্থিতি কীভাবে নারীর জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে এবং বিশ্ব বিনির্মাণে পুরুষের পাশাপাশি নারীরা কীভাবে আরও বেশি অবদান রাখতে পারে, সেই বিষয়ে আলোচনা হয়। দুদিনব্যাপী এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। আলোচনায় অংশ নেন ফিপ্রেসির সভাপতি আঁলিনতাসকীয়ান, আইএফটিএ’র সভাপতি মার্কোওরসিনি, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও নির্মাতা সামিয়া জামান, অধ্যাপক ড. ফাহমিদুল হক, ব্রিটেনের অভিনেত্রী ক্লেয়ার হুইসেলসহ দেশি-বিদেশি চলচ্চিত্র পরিচালক ও সমালোচক।
পঞ্চদশ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের অংশ হিসেবে ১৫ জানুয়ারি দিনব্যাপী ‘বাংলা সিনেমার বিশ্বযাত্রা’ নিয়েও আলিয়ঁস ফ্রঁয়েসে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হয়েছে আন্তর্জাতিক সম্মেলন। মোনাকোভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল ইমারজিং ফিল্ম ট্যালেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইইএফটিএ) এবং ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ইনিশিয়েটিভ অব বাংলাদেশের যৌথ অংশগ্রহণে এটি অনুষ্ঠিত হয়। সামিয়া জামানের সঞ্চালনায় সেখানে বাংলাদেশি চলচ্চিত্র পরিচালকদের পথ দেখান বিদেশি নির্মাতা ও প্রযোজকরা। আইইএফটিএ’র সভাপতি মার্কোওরসিনি, অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্যে ঘোষণা দেনÑ এবারের কান চলচ্চিত্র উৎসবের কর্মশালায় তিন তরুণ নির্মাতাকে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেবেন।
উৎসবের অংশ হিসেবে এবারই প্রথমবারের মতো একটি চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ ও শিল্পাঙ্গন আর্ট গ্যালারি যৌথ আয়োজনে গত ৮ জানুয়ারি থেকে এই প্রদর্শনী শুরু হয়ে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত চলে। ইরানি তরুণ চিত্রশিল্পী সারাহ হোজ্জাতির ৩০টি চিত্রকর্ম নিয়ে আয়োজিত এই প্রদর্শনীর নাম ছিল ‘মাই ড্রিম ওয়ার্ল্ড’।
বিগত বছরগুলোর মতো এবারও এই আয়োজনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ছিল বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়।
এই আয়োজনে প্রদর্শিত চলচ্চিত্রগুলো থেকে দেশি-বিদেশি বেশ কিছু চলচ্চিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও প্রামাণ্যচিত্রকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত করা হয়।
সেরা চলচ্চিত্র ইরানের রেজা মারকারিম পরিচালিত (ডটার), সেরা পরিচালক ইরানের পারভেজ শাহবাজি (মেলেরিয়া), সেরা অভিনেতা ইরানের ফরহাদ আসলানি (ডটার), সেরা অভিনেত্রী পুরস্কার লাভ করেন প্যালেস্টাইনের মায়শা এলাদি (৩০০০ নাইটস), সেরা চলচ্চিত্র (স্পেশাল মেনশন)-এ বাংলাদেশের তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘অজ্ঞাতনামা’ পুরস্কার লাভ করে।
শিশুতোষ চলচ্চিত্রে ফিলিপাইনের মারিকেল সি কারিয়াগা পরিচালিত ‘পিতং কাবাং পালয় (সেভেন সাকস অব রাইস)’, দর্শক জরিপে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করে ভারতের ববি শর্মা বড়–য়া পরিচালিত ‘সোনার বরণ পাখি (দি গোল্ডেন উইং)’, বেস্ট ফিচার ফিল্ম রাশিয়ান মিরবালা সালিমলি পরিচালিত ‘কিরমিজি বাগ (রেড গার্ডেন)’, ফিচার ফিল্ম (স্পেশাল মেনশন)-এ বাংলাদেশি নাদের চৌধুরী পরিচালিত ‘লালচর (দি রেড স্যান্ড)’, প্রামাণ্যচিত্রে নেদারল্যান্ডসের আন্নে ক্রিস্টিয়ান গিরারডট পরিচালিত ‘আইল্যান্ড অবদ দি মংকস’, প্রামাণ্যচিত্র (স্পেশাল মেনশন)-এ ইতালির মারকো জুইন পরিচালিত ‘লা সেডিয়া ডি কার্টন (দি স্পেশাল চেয়ার)’, স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্রে ইরানের আলি মারদমি পরিচালিত ‘দি সিমেট্রি ম্যান’।
নারী চলচ্চিত্র নির্মাতা বিভাগে সেরা ফিচার ফিল্ম নির্বাচিত হয় ইরানের ইডা পানাহানদে পরিচালিত ‘নাহিদ’, ফিচার ফিল্ম (স্পেশাল মেনশন)-এ জার্মানির ইমেন ইমেল বালচি পরিচালিত ‘অন্টিল আই লস মাই ব্রিথ’, সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র পুরস্কারে নির্বাচিত হন সাইপ্রাসের মিরসিনি আস্টিডিডু পরিচালিত ‘সেমেল’, স্বল্পদৈর্ঘ্য (স্পেশাল মেনশন)-এ নেপালের ফাতেমী আহমেদী ও আস্মিতা শিরিস পরিচালিত ‘চন্দ্র’, সেরা প্রামাণ্যচিত্র পুরস্কার লাভ করে বাংলাদেশের শবনম ফেরদৌস পরিচালিত ‘জন্মসাথী’, প্রামাণ্যচিত্র (স্পেশাল মেনশন)-এ আর্জেন্টিনার নাটালিয়া ব্রুসটেইন পরিচালিত ‘ইএল টাইমপো সাসপেনডিডো (সাপেনডেন্ড টাইম)’।
স্বল্প ও মুক্তদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বিভাগে পুরস্কার লাভ করে সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্যে সিরিয়ার আমির আল বারজাই পরিচালিত ‘জমন’, স্বল্পদৈর্ঘ্য (স্পেশাল মেনশন)-এ ভারতের শিবাপ্রসাদ কেভি পরিচালিত ‘আপুপানধাদি’ ও বাংলাদেশের তারেক আজিজ নিশক পরিচালিত ‘প্যারালাল জার্নি’, সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র মিয়ানমারের সো আর্গার পরিচালিত ‘এ পলিটিক্যাল লাইফ’ ও নেপালের গণেশ পান্ডে ‘বাঘিয়াল বাচেকাহারু’ (নেপাল আর্থকোয়েক : হিরোস, সার্ভাইবারস অ্যান্ড মিরাকেলস)।
এশিয়ান ফিল্ম ক্যাটাগরিতে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার (এফআইপিআরইএসসিআই জুরি অ্যাওয়ার্ড) লাভ করেন হুসাইন হাসান পরিচালিত ‘দি ডার্ক উইন্ড’, সেরা চিত্রগ্রাহক পুরস্কার (ইন্টারন্যাশনাল জুরি অ্যাওয়ার্ড) লাভ করেন তুরস্কের ছিবাহির শাহিন ও কুরসাদ উরেসিন (কোল্ড অব কালান্দার চলচ্চিত্র), সেরা চিত্রনাট্য পুরস্কার লাভ করেন ইরানের সাইত রুশদী (লাইফ অ্যান্ড এ ডে চলচ্চিত্র) এবং তুরস্কের রউফ (সুনার ক্যানার চলচ্চিত্র)।
দেশীয় নির্মাতাদের মধ্যে ‘লালচর’ চলচ্চিত্রের নির্মাতা নাদের চৌধুরী, ‘জন্মসাথী’ শিরোনামে নির্মিত প্রমাণ্যচিত্রের নির্মাতা শবনম ফেরদৌস, ‘প্যারালাল জার্নি’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের নির্মাতা তারেক আজিজ নিশক ও ‘অজ্ঞাতনামা’ চলচ্চিত্রের নির্মাতা তৌকীর আহমেদ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার লাভ করেন।
জাতীয় জাদুঘরের মূল মিলনায়তনে আয়োজিত ২০ জানুয়ারি সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিকমন্ত্রী আসাদুজ্জামান এমপি। সমাপনী বক্তব্যে বাংলা চলচ্চিত্রের বিশ্বায়নে জোর দেন মন্ত্রী। নিজের ইতিহাস ঐতিহ্যকে চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বিশ্বের সামনে তুলে ধরার আহ্বান জানান তিনি।

Category:

Leave a Reply