স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবো

PM2

আওয়ামী লীগের শোক দিবসের আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী

উত্তরণ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলে তার রক্তের ঋণ শোধ করার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করে বলেছেন, এদেশের মানুষের মুক্তি, স্বাধীনতা ও উন্নত জীবন দিতে বঙ্গবন্ধু আজীবন কষ্ট করে গেছেন। দেশের মানুষের জন্য নিজের বুকের রক্ত দিয়ে গেছেন। জাতির পিতার এই রক্তের ঋণ শোধ করতে হবে তার স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাধ্যমে। আজকের দিনে এই প্রতিজ্ঞাই আমরা করি যে, পিতা (বঙ্গবন্ধু) তোমাকে কথা দিলাম, তোমার স্বপ্নের সোনার বাংলা আমরা গড়ে তুলব। এটাই আমাদের অঙ্গীকার।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গত ১৬ আগস্ট রাজধানীর আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের সঙ্গে জিয়াউর রহমান জড়িত দাবি করে বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়াউর রহমানের যোগাযোগ ছিল। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিরা সাক্ষাৎকার দিয়ে বলেছিল যে, তারা জিয়াউর রহমানের কাছ থেকে ইশারা পেয়েছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে খুনি মোশতাক প্রথমেই জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান করেছিল। তখন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের এমন মনোভাব ছিল যে তাদের কিছুই হবে না। তিনি বলেন, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে রাজনৈতিক নেতারা যদি তৎকালীন পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে পারত, তাহলে হয়তো ’৭৫-এর ১৫ আগস্টের আঘাত বাঙালির জীবনে আসত না।
জিয়াউর রহমান ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ‘সাবেক রাষ্ট্রপতি’ বলা যায় না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সংবিধান ও সামরিক আইন লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে জিয়াউর রহমান। বন্দুকের নলের জোরে রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সায়েমকে সরিয়ে দিয়ে তিনি ক্ষমতা দখল করেন। অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে জেনারেল জিয়া হ্যাঁ/না ভোটের আয়োজন করে। এরপর তিনি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। আর জিয়াউর রহমান ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ শাসনামল ছিল অবৈধ। দেশের উচ্চ আদালত রায় দিয়ে তাদের শাসনকে অবৈধ ঘোষণা করেছে। তাই তাদের (জিয়া ও এরশাদ) রাষ্ট্রপতি বলা যায় না, তারা হলেন অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু এমপি, তোফায়েল আহমেদ এমপি, সভাপতিম-লীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি, মোহাম্মদ নাসিম এমপি, অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, কেন্দ্রীয় সদস্য অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ ও উত্তরের সহ-সভাপতি শেখ বজলুর রহমান। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য অধ্যাপক মেরিনা রহমান এবং জাতীয় আবৃত্তি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আহকাম উল্লাহ। সভার শুরুতে ১৫ আগস্ট শহিদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। সভা পরিচালনা করেন দলের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি ও উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।
একাত্তরে পরাজিত পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ও উন্নয়নের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাত্র ১০ বছরে বাংলাদেশের উন্নয়নে সারাবিশ্বই বিস্ময় প্রকাশ করেছে। অক্লান্ত পরিশ্রম করে আমরা দেশকে একটা সম্মানের জায়গায় নিয়ে আসতে পেরেছি। প্রবৃদ্ধি অর্জনে পৃথিবীর হাতে গোনা যে কয়েকটি দেশ সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ তাদের মধ্যে আজ অন্যতম। মূল্যস্ফীতি আমরা কমিয়ে এনেছি, দারিদ্যের হার কমিয়ে এনেছি। দেশের মানুষের আজ খাদ্যের কোনো অভাব নেই। এত অল্প সময়ে বাংলাদেশের এত উন্নয়ন দেখে বিশ্বের বড় বড় দেশও বিস্ময় প্রকাশ করেছে। নীতি ও আদর্শ নিয়ে নিরলসভাবে কাজ করলে দেশের যে উন্নয়ন করা যায়, আমরা তা প্রমাণ করেছি।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন পাকিস্তানের চেয়েও শক্তিশালী। উন্নয়ন ও অগ্রগতির ক্ষেত্রে পাকিস্তানকে আমরা পেছনে ফেলে এগিয়ে যেতে পেরেছি। দেশের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা আমরা নিশ্চিত করতে পেরেছি। জাতির পিতা বাংলাদেশকে স্বাধীন করে না গেলে এসব করা সম্ভব হতো না। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও নীতি অনুসরণ করেই দেশকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। জাতির পিতা বেঁচে থাকলে দেশকে উন্নত করতে এত সময় লাগত না। বঙ্গবন্ধু যদি আর মাত্র ছয়-সাতটি বছর দেশ সেবার সুযোগ পেতেন, তবে অনেক আগেই বাংলাদেশ উন্নত-সমৃদ্ধ হতো, দেশের মানুষকে দীর্ঘ ২১ বছরের হত্যা-ক্যু, ষড়যন্ত্র, হত্যা-নির্যাতনের মতো দুঃশাসন ভোগ করতে হতো না।
আবেগজড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের মাত্র ১৫ দিন আগে ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে বিদেশে গিয়েছিলাম স্বামীর কর্মস্থলে। এ কারণে আমরা দুবোন বেঁচে গিয়েছিলাম। কিন্তু বাবা-মা, ভাইসহ সবাইকে হারিয়ে এ বেঁচে থাকা কষ্ট মৃত্যুর চেয়েও ভালো। ছয়টি বছর দেশে ফিরতে পারিনি, অন্য দেশে রিফিউজি হয়ে থাকতে হয়েছে। সবাইকে হারিয়ে রিক্ত-নিঃস্ব হয়ে শুধু দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য দেশে ফিরে এসেছিলাম। দেশে ফিরে বাবা-মা, ভাইসহ পরিবারের কাউকে দেখতে পাইনি; কিন্তু দেশে ফিরে পেয়েছিলাম দেশের লাখো মানুষের ভালোবাসা, স্নেহ, শক্তি ও অনুপ্রেরণা। আওয়ামী লীগের অগণিত নেতাকর্মী, মুজিবের আদর্শের সৈনিক, তারাই আমাকে আপন করে নিয়েছে। সেখানেই পেয়েছি আমার বাবা-মা, ভাইয়ের ভালোবাসা। এখানেই আমার সব থেকে বড় শক্তি। তাই আমার একটাই লক্ষ্য, দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা, তাদের উন্নত জীবন দেওয়া এবং ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলা।
জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের কথা উল্লেখ করে তার কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, ওই ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেষ কথা বলেছিলেনÑ প্রয়োজনে বুকের রক্ত দেব। আর সেই রক্তই তিনি দিয়ে গেছেন। আমাদের সেই রক্তঋণ শোধ করতে হবে তার স্বপ্ন ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে। তিনি বলেন, আজকে অন্তত এইটুকু বলতে পারি, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে আমরা চলেছি। কৃতজ্ঞতা জানাই দেশবাসীর প্রতি। বাবা-মা, ভাই সব একদিনে হারিয়ে নিঃস্ব-রিক্ত হয়েছিলাম। দেশ ছেড়ে যখন যাই সবাই ছিল, যখন ফিরে আসি শূন্য। কেউ নেই। সব হারিয়ে কিন্তু পেয়েছিলাম লাখো মানুষ। তাদের আপন করে নিয়েছি।
একরাতে পরিবারের সব হারানোর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বারবার গলা ভারি হয়ে ওঠে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার। নিজের আবেগ সামলিয়ে তিনি বলেন, সেখান থেকেই আমরা বড় প্রেরণা পেয়েছি। দেশে ফিরে একটা জিনিসই চিন্তা করেছি। আমার বাবা এই দেশ স্বাধীন করেছেন। তাই এই দেশকে গড়ে তুলতে হবে। এদেশের মানুষকে মানুষের মতো বাঁচার সুযোগ করে দিতে হবে। উন্নত জীবন দিতে হবে। ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ গড়তে হবে। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে আজকে বাংলাদেশকে আমরা বিশ্বে একটা মর্যাদার আসনে নিয়ে এসেছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ সারাবিশ্ব বাংলাদেশের দিকে তাকিয়ে থাকে। তারা অবাক হয় যে এত দ্রুত কীভাবে একটা দেশ উন্নত হতে পারে। হতে পারে তখনই যখন যারা স্বাধীনতা অর্জনের জন্য ত্যাগ স্বীকার করে, যারা নীতি আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করে তারা যদি ক্ষমতায় থাকে, তাহলেই একটা জাতি উন্নত হয়। তাহলে একটা জাতি এগিয়ে যেতে পারে। আমরা তা প্রমাণ করেছি। কিন্তু যারা পরাজিত শক্তির দোসর তারা ক্ষমতায় থাকলে কোনো জাতি এগোয় না, কোনো জাতি উন্নত হতে পারে না। তিনি বলেন, আজ জাতির পিতা আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তার আদর্শ আমাদের মাঝে আছে। সেই আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করলে দেশের মানুষের আস্থা-বিশ্বাস পাবে, সম্মান পাবে এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন।
স্বাধীনতার পর রাজনৈতিক নেতারা যদি তৎকালীন পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে পারতেন, তাহলে হয়তো জাতির জীবনে ১৫ আগস্টের আঘাত আসত না মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনের বিশাল কর্মযজ্ঞ একদিকে করা, অপরদিকে একটি দেশ, যে দেশটি ছিল পাকিস্তান নামের একটি দেশের একটা প্রদেশ। আর যে ভূখ-টা চিরদিন বিদেশিদের, তারাই এদেশের রাজত্ব করেছে। সেই দেশটাকে একটা দেশ হিসেবে, একটা রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করাÑ এই কঠিন কাজ মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে তিনি (বঙ্গবন্ধু) করে গিয়েছিলেন।
স্বাধীনতা-পরবর্তী বঙ্গবন্ধুর দেশ শাসনকালে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, সেই সময় নানা চক্রান্ত চলেছেÑ পাটের গুদামে আগুন, থানা লুট করা, আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সাতজন সংসদ সদস্যকে হত্যা করা। যারা স্বাধীনতাবিরোধী, রাজাকার, আলবদর বাহিনী অনেকেই দেশ ছেড়ে ভেগে গিয়েছিল। অনেকেই আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে গিয়েছিল। আন্ডারগ্রাউন্ডে গিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে তারা একের পর এক ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে শুরু করে।
ওই সময়কার পরিস্থিতি তখনকার রাজনৈতিক নেতাদের উপলব্ধিতে আসেনি মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আমাদের অনেক রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ তখনকার যে একটা অবস্থা সেই অবস্থা বুঝতেই পারেন নি। একটা দেশ দীর্ঘদিন বঞ্চিত ছিল, শোষিত ছিল, তার বিরুদ্ধে সংগ্রাম ও যুদ্ধ করে বিজয় অর্জন করা হয়েছে। যারা পরাজিত হয়েছে, তারা এত সহজে ছাড়বে না। তাদের দোসররা ছিল রন্ধ্রে রন্ধ্রে। আর তাদের ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত অব্যাহত থাকবে- এই উপলব্ধিটা তখনকার দিনে আমাদের অনেক রাজনৈতিক নেতার মধ্যেও আসেনি। তাই তারা এটা হয় নাই, ওটা হয় নাইÑ নানা ধরনের প্রশ্ন, কথা, লেখালেখি অনেক কিছু শুরু করেছিল।
আওয়ামী লীগ সভাপতি আক্ষেপ করে বলেন, ক্ষত-বিক্ষত একটা দেশ, অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু একটা দেশ, সেই দেশটাকে গড়ে তোলা যে অত্যন্ত কঠিন-দুরূহ কাজ। এটা যে একদিনেই, একটা কথায় গড়ে ওঠে নাÑ এই উপলব্ধিটা যদি সকলের মাঝে থাকত, তাহলে হয়তো ১৫ আগস্টের মতো এত বড় একটা আঘাত এদেশের ওপর আসত না। তিনি আরও বলেন, তখন কিন্তু কেউ সেই উপলব্ধিটা করে নাই, এটা উপলব্ধি করতে অনেক সময় লেগেছিল তাদের। তবে তারা ওই সময় কেন উপলব্ধি করতে পারে নাই, আমি জানি না। এর মধ্যে অনেক জ্ঞানী-গুণী অনেকেই আছেন।
বঙ্গবন্ধুর কন্যা বলেন, ’৭২ সালের পর থেকে ’৭৫ সাল পর্যন্ত অনেক লেখালেখি আছে। কেউ যদি একবার চোখ বুলান, পড়েন তখন দেখবেন কত ভুল সিদ্ধান্ত এবং ভুল কথা তারা বলে গিয়েছিলেন। আর সেই খেসারতটা জাতিকে দিতে হলো ’৭৫-এ জাতির পিতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে। তিনি বলেন, যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল সেই আলবদর, রাজাকার, আলশামস এবং পাকিস্তানি বাহিনীর দালাল-দোসর তাদের হাতেই চলে গেল দেশের ক্ষমতা। তাদের হাতে যে ক্ষমতা চলে গেছে সেটাও বোধহয় অনেকে উপলব্ধি করতে পারেন নি। শত ষড়যন্ত্র করেও যখন দেশের অগ্রযাত্রা থামাতে পারেনি, তখনই ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে।
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ২১টি বছর দেশের কেন উন্নয়ন হয়নি এমন প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে যারা বিরোধিতা করেছিল, যারা কখনও বাঙালি জাতি মাথা তুলে দাঁড়াক তা চায়নি। তারা কখনও বাঙালি জাতির অস্তিত্বে বিশ্বাস করতে চায়নি, যারা বাংলা ভাষায় কথা বলার অধিকারটুকু কেড়ে নিতে চেয়েছিল তাদেরই চক্রান্ত ছিল। কারণ বাঙালি জাতির বিজয় মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে, এই বিজয় এরা কখনই মেনে নিতে পারেনি। তারা দেশকে পিছিয়ে দিতে চেয়েছিল যেন একসময় বলতে পারে বাংলাদেশ রাষ্ট্র হয়ে বা স্বাধীনতা অর্জন করে ভুল করেছে। এটাই ছিল তাদের মনে। সেই জন্য এরা কখনও বাংলাদেশকে উঠে দাঁড়াতে দেয়নি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসব ষড়যন্ত্রকারীরা ওই হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী, যারা সেই ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ৬-দফা আন্দোলন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে এদেশের মানুষের রক্ত নিয়েছে, গুলি করে হত্যা করেছে, তাদের দালালি করেছে, বাঙালি হয়ে তারা ওই পাকিস্তানি হানাদার বা সামরিক শাসকদের পদলেহন করেছে। তাদের তোষামোদি করেছে এবং মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে তাদের স্বরূপ উদঘাটিত হয়েছে। তারা গণহত্যা চালিয়েছে, অগ্নিসংযোগ চালিয়েছে, বুদ্ধিজীবী হত্যা করেছে। একটা জাতিকে সম্পূর্ণভাবে পঙ্গু করে দিতে চেয়েছিল। এরাই জাতির পিতাকে হত্যা করে একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছিল।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৫ আগস্টের পর অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীরা বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-কে একটি পরিবারের হত্যাকা- হিসেবে দেখাতে চেয়েছিল। কিন্তু কিছুদিন পর কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চার নেতাকে হত্যা এবং পরবর্তী নানা ঘটনা গোটা বিশ্বের সামনে পরিষ্কার হয়ে যায়, ১৫ আগস্টের হত্যাকা- একটি পরিবারের হত্যাকা- নয়, এই হত্যাকা- বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের বিজয়কে ধূলিসাৎ ও একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতেই। বাংলাদেশকে পুনরায় পাকিস্তানের ভাবধারায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া। এ কারণেই বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর স্বাধীনতাবিরোধীদের পুনর্বাসিত করা হয়, খুনিদের পুরস্কৃত করা হয়। খুনিরা তখন দেশের নাম পরিবর্তন করে ইসলামিক রিপাবলিক অব বাংলাদেশ করতে চেয়েছিল। কিন্তু সাহস পায়নি পরিবর্তন করতে।
বঙ্গবন্ধুর খুনিরা অনেকেই জাতির পিতার বাসভবনে যাতায়াত করত উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, দুঃখের বিষয় এই হত্যাকা-ের সঙ্গে যারা জড়িত, তারা তো চেনা। বাংলাদেশ খুব ছোট জায়গা। দিন-রাত আমাদের বাড়িতেই যারা ঘোরাঘুরি করত তারাই তো সেই খুনিরূপে আসলো। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান একটা মেজর ছিল, তাকে প্রমোশন দিয়ে দিয়ে মেজর জেনারেল করা হয়েছিল। মাসে একবার করে হলেও সে (জিয়া) আমাদের বাসায় আসত। কখনও একা বা কখনও খালেদা জিয়াকে সঙ্গে নিয়ে আসত। কারণ খালেদা জিয়াকে সঙ্গে নিয়ে আসলে মার (ফজিলাতুন্নেছা মুজিব) সঙ্গে দেখা করার উছিলায় বাসার ওপরে আসতে পারত। আমাদের ওই লবিতে দুটা মোড়া পেতে বসতো। ঘন ঘন তার যাতায়াত ছিল।
আওয়ামী লীগ সভাপতি আরও বলেন, যারা বাসায় আসত তাদের অনেকেই এই হত্যাকা-টা চালালো। খুনি মোস্তাক তো মন্ত্রী ছিল। পরবর্তীতে অনেক চেহারা আপনারা দেখেছেন, যারা বিএনপিতে যোগ দিয়েছে। অনেকে বড় বড় নীতির কথা এখন বক্তৃতায় শোনায়, তারা কী ছিল? তারা কী এই সমস্ত ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত ছিল না? তারা ভেবেছিল এইভাবেই বোধহয় ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে। তারা ক্ষমতায় টিকেনি। তিনি বলেন, খুনি মোস্তাক নিজেকে অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ঘোষণা দেয়ার পরপরই জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান করল।
প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন রেখে বলেন, জিয়াউর রহমান কীভাবে খুনি মোশতাকের এত বিশ্বস্ত হলো যে তাকেই (জিয়া) সেনাপ্রধান করল? সেটা খুনি কর্নেল ফারুক-রশিদ বিবিসি’তে যে ইন্টারভিউ দিয়েছিল সেই ইন্টারভিউ থেকেই সবাই জানতে পারেন। খুনিরা যে জিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছে এবং জিয়ার কাছ থেকে তারা ইশারা পেয়েছে এবং জিয়া যে তাদের আশ্বস্ত করেছে। এগুলো করলে পরে সমর্থন পাবে- সেটা তো আত্মস্বীকৃত খুনিরা নিজেরাই বলে গেছে। এরা কারা ছিল? এরা কী স্বাধীনতা চেয়েছিল? এরা কী মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করত? এরা কী যে নীতিমালা নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল তাতে বিশ্বাস করত? তারা তা কখনই করত না বলেই এই হত্যাকা- ঘটিয়েছে।

Category:

Leave a Reply