১৬ ডিসেম্বরের আগেই মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহ

Posted on by 0 comment

উত্তরণ ডেস্ক: দেশের প্রথম যোগাযোগ ও সম্প্রচার স্যাটেলাইট (কৃত্রিম উপগ্রহ) ‘বঙ্গবন্ধু-১’ মহাকাশে উৎক্ষেপণ হতে যাচ্ছে আগামী ১৬ ডিসেম্বরের আগেই। বিজয় দিবসে এটি উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা থাকলেও ওই দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচি থাকায় তার আগেই এর উৎক্ষেপণ উদ্বোধন করতে আগ্রহী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ১৭ এপ্রিল সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকের শুরুতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম ‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইটের রেপ্লিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করলে প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধনের তারিখ এগিয়ে আনতে নির্দেশনা দেন।
তারানা হালিম এমপি এ বিষয়ে জানান, যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় এই স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ হবে এবং প্রধানমন্ত্রী সেখানে উপস্থিত থেকে এর উদ্বোধন করবেন। সেখান থেকে বাংলাদেশেও ওই উৎক্ষেপণ ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। মে মাসের শেষ দিকে অথবা জুনের প্রথম সপ্তাহে তিনি (তারানা হালিম) ফ্লোরিডায় গিয়ে অনুষ্ঠানের স্থানসহ নানা দিক সম্পর্কে খোঁজখবর নিয়ে আসবেন। তারানা হালিম বলেন, আমরা ১৬ ডিসেম্বরের আগেই সম্ভাব্য ৪টি তারিখ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি প্রস্তাব পাঠাব। তিনি যে তারিখ নির্ধারণ করে দেবেন সেই তারিখেই ‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইট মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হবে। আমাদের ধারণা, পদ্মাসেতুর পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট হবে দেশবাসীর জন্য দ্বিতীয় গর্বের বিষয়। বঙ্গবন্ধুর নামে যে স্যাটেলাইট তা তার কন্যা উদ্বোধন করবেনÑ এটাও দেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক ঘটনা হিসেবেই চিহ্নিত হয়ে থাকবে।
স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে তারানা হালিম আরও বলেন, এটি পরিচালনার জন্য ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড’ নামের একটি কোম্পানি গঠনের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এই কোম্পানির মাধ্যমেই ‘বঙ্গবন্ধু-১’-এর পর ‘বঙ্গবন্ধু-২’ ও ‘বঙ্গবন্ধু-৩’ নামের আরও স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হবে। এ কোম্পানির মাধ্যমে স্যাটেলাইট বিষয়ে আরও দক্ষ জনবল প্রস্তুত করা হবে। স্যাটেলাইট নির্মাণে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ফ্রান্সের থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস ইতোমধ্যে তাদের ৭৫ শতাংশ কাজ সম্পন্ন করেছে। স্যাটলোইট নির্মাণ, পরীক্ষা ও পর্যালোচনা শেষে এটি বিশেষ কার্গো বিমানে যুক্তরাষ্ট্রের লঞ্চ সাইট কেপ কার্নিভালে পাঠানো হবে। উৎক্ষেপণের এক মাস আগে থেকে স্পেসএক্সের লঞ্চ ফ্যাসিলিটিতে লঞ্চ ভেহিকল ফ্যালকন ৯-এর ইন্ট্রিগ্রেশনসহ প্রয়োজনীয় পরীক্ষা শুরু হবে। ইতোমধ্যে স্যাটেলাইট সিস্টেম রিকোয়ারমেন্ট রিভিউ (এসআরআর) এবং প্রিলিমিনারি ডিজাইন রিভিউ (পিডিআর) সম্পন্ন হয়েছে। ভূমি থেকে উপগ্রহটি নিয়ন্ত্রণের জন্য গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙ্গামাটির বেতবুনিয়ায় বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনস কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) নিজস্ব জমিতে দুটি ‘গ্রাউন্ড স্টেশন’ নির্মাণকাজও ৬৫ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। এন্টেনার যন্ত্রপাতি সাইটে পৌঁছে গেছে। অন্যান্য যন্ত্রপাতিও দেশে চলে এসেছে। যে দ্রুতগতিতে কাজ এগোচ্ছে তাতে আমরা আশা করছি নভেম্বরেই ট্রায়ালে যেতে পারব।
প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ১১ নভেম্বর ফ্রান্সের থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেসের সাথে বিটিআরসির ‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইট বিষয়ে মূল কাজ শুরুর চুক্তি সই হয়। চুক্তি সই অনুষ্ঠানে বিটিআরসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, স্যাটেলাইটের কাঠামো, উৎক্ষেপণ ব্যবস্থা, ভূমি ও মহাকাশের নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা, ভূস্তরে দুটি স্টেশন পরিচালনা ও ঋণের ব্যবস্থা করবে থ্যালেস অ্যালেনিয়া। ফ্রান্সের তোলুজে স্যাটেলাইটটির মূল কাঠামো তৈরি করা হবে। এ প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। এই স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণের জন্য রাশিয়ার ইন্টারস্পুনিকের কাছ থেকে ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অরবিটাল স্লট কেনে বাংলাদেশ।

Category:

Leave a Reply