দেশের ক্রীড়া ও সংস্কৃতির বিকাশে তার বিরাট অবদান রয়েছে

উত্তরণ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতির ছেলে, জাতির পিতার ছেলে অথচ সে (শেখ কামাল) অত্যন্ত সাদাসিধে জীবনযাপন করত। কখনও বাবা প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি সে-জন্য অর্থ-সম্পদ, ব্যবসা-বাণিজ্যের দিকে তার কোনো নজর ছিল না। ’৭৫-এর আগে ১৯৭৪ সালের ১৬ ডিসেম্বর একটা চক্রান্ত করে শেখ কামালকে গুলি করা হয়, হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল। সে তখন বেঁচে যায়। কিন্তু তার বিরুদ্ধে নানা ধরনের অপপ্রচার চালানো হয়।
গত ৫ আগস্ট গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন’ এবং ‘শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার ২০২১’ প্রদান অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, দেশকে গড়ে তোলা, দেশের মানুষের পাশে থাকা বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা সাংস্কৃতিক অঙ্গন বা ক্রীড়া অঙ্গন- এসব কিছুর উন্নতি করা, এটাই ছিল শেখ কামালের কাছে সব থেকে বড় কথা। আবুল ফজল সাহেব একটা লেখা লিখেছিলেন সেটা যদি কেউ পড়েন তবে দেখবেন কীভাবে শেখ কামালের যে অমায়িকতা, সাদাসিধে জীবনযাত্রা, চলাফেরা সেটাই তিনি তুলে ধরেছেন।
জাতির পিতার বড় মেয়ে শেখ হাসিনা এ প্রসঙ্গে বলেন, আমার ছোট ভাই, আমি নিজে বলতে পারি শেখ কামাল অত্যন্ত সাদাসিধে জীবনযাপন করত। সে একজন সাংস্কৃতিক মনা আবার রাজনীতিবিদ, কখনও বিলাসব্যসন এসব দিকে তার দৃষ্টি ছিল না। এটা আমার বাবার শিক্ষা ছিল, মায়ের শিক্ষা ছিল। তাছাড়া একটা যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ। সেখানে তো বিলাসিতা করার সুযোগ নেই। আর ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থসম্পদ এসব দিকে তার কোনো নজরই ছিল না।
শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রথমবারের মতো যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় প্রবর্তিত এই পুরস্কারের জন্য ৭টি ক্যাটাগরিতে মোট ১০ ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব ও দুটি প্রতিষ্ঠানকে মনোনীত করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ৫ আগস্ট গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের শহিদ শেখ কামাল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মূল অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে টোকিও অলিম্পিক গেমস থেকে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।
যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আক্তার হোসেন অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তিনিই বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। অনুষ্ঠানে শেখ কামালকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের ম্যানেজার তানভীর মাজাহার তান্না এবং আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশীদ বক্তৃতা করেন। প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে শহিদ শেখ কামালকে নিয়ে প্রকাশিত স্মারকগ্রন্থের মোড়কও উন্মোচন করেন। অনুষ্ঠানে শেখ কামালের জীবন ও কর্মের ওপর একটি ভিডিও চিত্র পরিবেশিত হয় এবং তার রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। ক্রীড়াবিদ হিসেবে রোমান সানা (আর্চারি), মাবিয়া আক্তার সীমান্ত (ভারোত্তোলন), মাহফুজা খাতুন শিলা (সাঁতার), ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে মনজুর কাদের (শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব) এবং ক্যা শৈ ল হ্ন (কারাতে ফেডারেশন), উদীয়মান ক্রীড়াবিদ হিসেবে আকবর আলী (ক্রিকেট) ও ফাহাদ রহমান (দাবা), উন্নতি খাতুন (ফুটবল), ফেডারেশন/অ্যাসোসিয়েশন/সংস্থা ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড, আজীবন সম্মাননায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন, ক্রীড়া সাংবাদিক হিসেবে মুহাম্মদ কামরুজ্জামান এবং পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ওয়ালটন শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার লাভ করে। পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা, ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ দেওয়া হয়।
উল্লেখ্য, গত বছর যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সরকারিভাবে প্রথমবারের মতো বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ পুত্র শহিদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করে এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ শেখ কামালের জন্মদিন ৫ আগস্টকে ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত দিবস হিসেবে জাতীয়ভাবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের বহুমুখী প্রতিভার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের ক্রীড়া ও সংস্কৃতির বিকাশে তার বিরাট অবদান রয়েছে। সাংস্কৃতিক দিক থেকে ও ক্রীড়ার দিক থেকে আজকে যে উৎকর্ষতা, স্বাধীনতার পর বিশেষ করে সেখানে শেখ কামালের একটা বিরাট অবদান রয়েছে। তিনি বলেন, শেখ কামাল বাংলাদেশে আধুনিক ফুটবলের প্রবর্তন করে, খেলাধুলাকে উন্নত করে এবং আবাহনী ক্রীড়া চক্র গড়ে তোলে। ঠিক এর পূর্বে আবাহনী সমাজকল্যাণ সংস্থা করা হয়।
বঙ্গবন্ধু-কন্যা বলেন, এই প্রতিষ্ঠানটা করার পেছনে একটা উদ্দেশ্য ছিলÑ ধানমন্ডি এলাকায় তখন খেলাধুলা বা শিশুদের প্রতিভা বিকাশের কোনো সুযোগ ছিল না। তাই, এলাকার শিশু এবং তরুণদের জন্য একটা খেলাধুলার পরিবেশ তৈরি করাই ছিল শেখ কামালের উদ্দেশ্য এবং সে এ-ব্যাপারে আলোচনা করেই প্রতিষ্ঠানটা গড়ে তোলে। কাজেই তার সঙ্গে এবং পাশাপাশি আমরা সবাই ছিলাম। এছাড়া শেখ কামাল যেমন খেলাধুলার দিক থেকে তেমনি সাংস্কৃতিক চর্চার দিকেও ছিল। চমৎকার গান গাইতে পারত। স্পন্দন শিল্পীগোষ্ঠী সে গড়ে তোলে। নাট্যচর্চার সঙ্গেও সম্পৃক্ততা ছিল। সুরেলা গানের গলার সঙ্গে সে চমৎকার সেতার বাজাতে পারত।
ক্রীড়া সংগঠনগুলোকে আরও ভালোভাবে গড়ে তোলা শেখ কামালের লক্ষ্য ছিল উল্লেখ করে স্বাধীনতার পর দেশের ক্রীড়া অঙ্গনকে নতুন করে ঢেলে সাজাতে তার ভূমিকার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমাদের দেশে যে আধুনিক ফুটবল খেলা বা ক্রিকেট খেলা বা এই যে খেলাধুলা সেটাকে একটা আধুনিকতার ছোঁয়াটা এবং সংগীত জগতে বা সাংস্কৃতিক জগতে সেখানেও শেখ কামালের যথেষ্ট অবদান রয়েছে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে সে অনেক অবদান রেখে গেছে আমাদের সমাজের জন্য।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার জন্য দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রাম, জেল-জুলুম নির্যাতন সহ্য করার কথা স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তার কন্যা শেখ হাসিনা আরও বলেন, আমার আব্বা যেমন এদেশের জন্য সারাজীবন ত্যাগ স্বীকার করেছেন, সন্তান হিসেবে আমরাও একদিকে যেমন পিতৃস্নেহ থেকে বঞ্চিত হয়েছি; কিন্তু সেই কষ্টকে আমরা কখনও কষ্ট মনে করিনি। আমার মা সেটা করতে দেননি। কোনো হা-হুতাশ বা চাওয়া-পাওয়ার কিছু ছিল না। একটা আদর্শ নিয়ে সাধারণভাবে চলা, দেশের জন্য কাজ করা, দেশের মানুষের জন্য কাজ করা এবং দেশের মানুষকে ভালোবাসা- এটাই ছিল আমাদের শিক্ষা। সেই শিক্ষাটাই কামাল অনুসরণ করেছে।
পুরস্কার বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে একটি জাতি গঠনে শিক্ষার পাশাপাশি ক্রীড়া এবং সংস্কৃতিচর্চাকে অপরিহার্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্রীড়াক্ষেত্রে বাংলাদেশ আরও এগিয়ে যাকÑ সেটাই আমি চাই। ক্রীড়া পুরস্কারের মধ্য দিয়ে যেমন শেখ কামালের প্রতি সম্মান দেখানো হয়েছে তেমনি ক্রীড়াঙ্গনে মানুষের সম্পৃক্ততা আরও বাড়বে, উৎসাহী হয়ে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং বিশ্বসভায় মর্যাদা বয়ে আনবেÑ সেটাই আমাদের কাম্য। স্বাধীনতার আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধে শেখ কামালের সাহসী ভূমিকার কথা অনুষ্ঠানে তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধুকে প্রায়ই গ্রেফতার করা হতো। ৬-দফা দেয়ার পর শেখ কামালের আন্দোলনের ভূমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। ’৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থান এবং ’৭০-এর নির্বাচনে মানুষকে সম্পৃক্ত করা ও প্রচার চালানোয়ও শেখ কামাল ভালো করেছে। সে-সময় একজন এক ভোট ছিল, নির্বাচনে ভোটের প্রশিক্ষণ দিতে হতো। শেখ কামাল সে প্রশিক্ষণ দিত। অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে কামাল কাজগুলো করেছিল।
তিনি বলেন, আসলে আজকে আমাদের সংগীতাঙ্গনে যে আধ্যাত্মিক বা ফোকগান, আধুনিক সংগীতের সঙ্গে সুর করে প্রচার করা হয়, এতে শেখ কামালের অবদান ছিল। আজকে যেটি প্রাসঙ্গিক। উপস্থিত বক্তৃতায়ও শেখ কামাল পারদর্শী ছিল। যুবসমাজকে সুসংগঠিত করার অনেক কাজ করে গেছে শেখ কামাল। বেঁচে থাকলে হয়তো যুবকদের জন্য আরও কিছু করত।
আবেগজড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবচেয়ে ট্র্যাজেডি শেখ কামালের জন্য। যে নূর (পলাতক খুনি নূর চৌধুরী) শেখ কামালের সঙ্গে ওসমানির এডিসি হিসেবে কাজ করেছে। যখন বাসায় আক্রমণ করে কামাল নিচে বারান্দায় চলে যায়। ও যখন দেখে যে, নূর ও হুদা একসঙ্গে ঢুকছে। তখন কামাল তাদের বলে আপনারা এসে গেছেন? খুব ভালো হয়েছে। দেখেন বাসায় কারা আক্রমণ করছে। এই কথা শেষ করতে পারেনি। ওই নূরের হাতের অস্ত্রই গর্জে ওঠে। ওরা ওখানেই কামালকে নির্মমভাবে হত্যা করে। এত বড় বিশ্বাসঘাতকতা এই বাংলাদেশে ঘটে গেছে!
এই নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর হত্যাকারীদের নানা কুৎসা রটনার ঘটনা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর শেখ কামালের বিরুদ্ধে নানা কুৎসা রটানো হয়। অথচ সে অত্যন্ত সাদাসিধে জীবনযাপন করত। বিলাসব্যসনে তার দৃষ্টি ছিল না। রাষ্ট্রপতির ছেলে হয়েও অর্থের প্রতি আকর্ষণ ছিল না। ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থসম্পদে তার নজরই ছিল না। মায়ের ইচ্ছে ছিল সে যেন পড়াশোনা শেষ করে। সে তখন সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন ছিল। মায়ের ইচ্ছায় রিজাইন করে আবার পড়াশোনা করে। শেখ কামাল মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করে বাংলাদেশ সরকারের দেয়া ওয়ার ট্রেনিং নিয়ে ওসমানির (মুক্তিযুদ্ধের সশস্ত্র বাহিনীর অধিনায়ক জেনারেল আতাউল গণি ওসমানী) এডিসি হিসেবে নিয়োগ লাভ করে।
তার পিঠাপিঠি ছোট ভাই শেখ কামালের সঙ্গে একত্রে বড় হবার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে তার বড় বোন শেখ হাসিনা বলেন, আমরা একসঙ্গে বড় হয়েছি, একসঙ্গে চলতাম। খেলাধুলা, পড়ালেখা ও ঝগড়াও করেছি। ভালো বোঝাপড়া ছিল আমাদের মধ্যে। যে কোনো কাজে আমার সঙ্গে পরামর্শ করত। একরকম নির্ভর করত আমার ওপর। বাবার স্নেহ থেকে সে বঞ্চিত ছিল। যার কারণে কামালের মনে অনেক আক্ষেপ ছিল। আব্বা তাকে আদরও করতেন বেশি। কামালের অনেক গুণ ছিল। সে যে কাজেই হাত দিত, সেখানে তার মেধার স্বাক্ষর রেখে আসত। শেখ কামাল সেতার বাজানো শিখত, সে চর্চা সে রেখে গিয়েছিল।
আবেগজড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৪ জুলাই শেখ কামালের ও ১৭ জুলাই জামালের (শেখ জামাল) বিয়ে হয়। আমরা যাচ্ছিলাম বাইরে (শেখ হাসিনার স্বামীর কর্মস্থল জার্মানি), জিজ্ঞাসা করলাম তোমার জন্য কী আনব? বলল, আমার জন্য না, আমার আবাহনীর খেলোয়াড়দের জন্য বুট নিয়ে এসো। তখন ডায়েরিতে নামটাও লিখে দেয় এডিডাসের বুট। সেখান থেকেই বোঝা যায় তার নিজের জন্য কোনো কিছুর আগ্রহ ছিল না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যদি এই বাঙালির জীবনে না ঘটত, তাহলে বাঙালি অনেক আগেই বিশ্বে মর্যাদা নিয়ে চলত। এই হত্যাকা-ের পর বাংলাদেশকে ইসলামিক রিপাবলিক অব বাংলাদেশ ঘোষণা দেয়া হয়েছিল, যদিও সেটা টিকেনি। তখন চক্রান্তটা কোথায়, কীভাবে হয়েছিল, সেটা নিশ্চয় এখন এতদিনে বাংলাদেশের মানুষ উপলব্ধি করতে পারে। আর কত বড় বিশ্বাসঘাতকতা, সেটাও নিশ্চয়ই উপলব্ধি করতে পারেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply