‘তিনি সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্তটাই নিয়েছেন’

উত্তরণ প্রতিবেদন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট তার মা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব খুনিদের কাছে জীবন ভিক্ষা চাননি উল্লেখ করে বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ সঠিকভাবে ধারণ করে তার সঙ্গেই জীবন উৎসর্গ করে গেছেন বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। তিনি তো নিজে বাঁচতে চাননি। তিনি সাহসের সঙ্গেই সেখানে এ-কথাই বলেছেন, “আমার স্বামীকে হত্যা করেছ, আমি তাঁর কাছেই যাব।” সেখানেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। কাজেই জীবনে-মরণে তিনি (বঙ্গমাতা) আমার বাবার (বঙ্গবন্ধু) একজন উপযুক্ত সাথী হিসেবেই চলে গেছেন।
গত ৮ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে আবেগজড়িত কণ্ঠে তার বড়মেয়ে শেখ হাসিনা বঙ্গমাতার জীবনে সংগ্রাম ও ত্যাগের কথা তুলে ধরে বলেন, ত্যাগের মধ্য দিয়ে একটা সংসারকে সুন্দর করা যায়, একটি প্রতিষ্ঠানকে সুন্দর করা যায়, একটা দেশকে সুন্দর করা যায়। চাওয়া-পাওয়ার ঊর্ধ্বে উঠে নিজেকে বিলিয়ে দেয়া এর চেয়ে বড় আর কিছু হয় না। আমার মা সেই দৃষ্টান্তই দেখিয়ে গেছেন।
‘বঙ্গমাতা ত্যাগ ও সুন্দরের সাহসী প্রতীক’ শীর্ষক প্রতিপাদ্য নিয়ে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি। আরও বক্তব্য রাখেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজ চুমকি এমপি ও মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী রওশন আক্তার।
প্রধানমন্ত্রী শিশু একাডেমি ছাড়াও ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গোপালগঞ্জের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। গোপালগঞ্জে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ১০০ মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীকে ল্যাপটপ, দরিদ্র ও অসহায় নারীদের মধ্যে ৩ হাজার ২০০ সেলাই মেশিন এবং ১ হাজার দরিদ্র নারীকে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে জনপ্রতি ২ হাজার টাকা করে বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যাকা-ের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা হত্যা করেছে তারা আমাদের চেনা। অনেক সেনা কর্মকর্তা আমাদের বাসায় এসেছে। আমার মায়ের হাতের খাবারও খেয়েছে। আমাদের সেই অভিজ্ঞতা রয়েছে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী আমার বাবাকে গ্রেফতার করতে যখন এসেছিল তখনও কিন্তু তাদের একটা উদ্দেশ্য ছিল হত্যা করা। কিন্তু তারা সেই সাহস দেখায় নি, হত্যা করতে পারেনি।
তিনি বলেন, আমাদের দুর্ভাগ্য যে বাংলাদেশ আমার বাবা নিজে সৃষ্টি করলেন, যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী তার নিজের হাতে সৃষ্টি। যেখানে পাকিস্তান আমলে কোনো সেনাবাহিনীর সদস্যরা মেজরের ওপরে কোনো প্রমোশন পেত না। আর স্বাধীন বাংলাদেশে যেই মেজরদের তিনি নিজে প্রমোশন দিয়ে মেজর জেনারেল করেছিলেন সেই মেজর জেনারেল জিয়া (জিয়াউর রহমান) থেকে শুরু করে মেজর হুদা, কর্নেল ফারুক, কর্নেল রশীদরা। খুনি কর্নেল ফারুক তো আমাদের বাড়িতে ডিউটিতেই ছিল সিকিউরিটির জন্য। তারাই খুনটা করল। আর ডালিম, তার বউ, তার শাশুড়ি তো সর্বক্ষণ আমাদের বাসায়। এমন কোনো দিন নেই তারা না আসত। তাদের দাওয়াত প্রয়োজন হতো না। যখন তখনই আসত। তারপরও বেইমানি মুনাফেকি তারা করেছে এবং কীভাবে? আপনারা একবার চিন্তা করে দেখেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এ দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলাম। মুজিববর্ষ আমরা উদযাপন করছি। আমাদের লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশ ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র্যমুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে উঠবে। কিন্তু এই করোনাভাইরাস আমাদের সব কাজকে বাধাগ্রস্ত করল। এখানে কিছু করার নেই। কারণ বিশ্বব্যাপী এ সমস্যা। তারপরও আমি মনে করি যে, আমরা এই অবস্থা থেকে অবশ্যই উত্তরণ ঘটাব এবং বাংলাদেশকে আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলব। আমার মায়ের (বঙ্গমাতা) আত্মত্যাগটাও বৃথা যাবে না। লাখো শহিদের আত্মত্যাগ বৃথা যেতে পারে না।
মা বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মহীয়সী নারী শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছিলেন বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের সংগ্রামে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন যোগ্য ও বিশ্বস্ত সহচর এবং বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের সহযোদ্ধা। বঙ্গমাতা অসাধারণ বুদ্ধি, সাহস, মনোবল, সর্বসংহা ও দূরদর্শিতার অধিকারী ছিলেন এবং আমৃত্যু দেশ ও জাতি গঠনে অসামান্য অবদান রেখে গেছেন।
আবেগজড়িত কণ্ঠে সরকারপ্রধান বলেন, আজকে বঙ্গমাতার জন্মদিন। সেই জন্মের পর তিন বছর থেকেই পিতামাতা সব হারিয়ে সারাটা জীবন শুধু সংগ্রামই করে গেছেন। কিন্তু এই দেশের স্বাধীনতা, এই স্বাধীনতার জন্য তিনি যে কত দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ছিলেন, সেটা আমরা জানি। এই দেশ স্বাধীন হবে, বাংলাদেশের মানুষের মুক্তি আসবে, বাংলাদেশের মানুষ ভালো থাকবে।
সংসার সামলে প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তার সহধর্মিণী সহযোগিতা করতেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রতিটি কাজে আমার মাকে দেখেছি বাবার পাশে থেকে সহযোগিতা করেছেন। কখনও সংসারের কোনো সমস্যা নিয়ে বঙ্গবন্ধুকে বিরক্ত করেন নি বা বলেনও নি। বরং বেশির ভাগ সময় তো আমার বাবা কারাগারে ছিলেন। একটানা দুই বছরও তিনি কারাগারের বাইরে থাকেন নি। কিন্তু আমার মা যখন কারাগারে দেখা করতে যেতেন তখন নিজেই বঙ্গবন্ধুকে বলতেনÑ চিন্তার কিছু নেই। তোমার এগুলো দেখা লাগবে না, আমি সব দেখব। ঠিক সেভাবেই করে গেছেন তিনি। যার ফলে আমার বাবা নিজে সম্পূর্ণভাবে একটা দেশের জন্য কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন।
স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা আরও বলেন, আমাদের মানুষ করার দায়িত্ব আমার মায়ের হাতেই ছিল। তার পাশাপাশি বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ প্রতিটি সংগঠনের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল। নির্দেশনা দেয়া বা বাইরের অবস্থা জেলখানায় থাকা আব্বাকে (বঙ্গবন্ধু) জানানো, বাবার নির্দেশনা নিয়ে এসে সেগুলো পৌঁছে দেয়া। এই কাজগুলো বঙ্গমাতা খুব দক্ষতার সঙ্গে করতেন।
বঙ্গমাতার মধ্যে কোনো অহমিকাবোধ ছিল না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার বাবা যখন প্রধানমন্ত্রী হয়ে ফিরে এলেন তখনও কিন্তু আমার মায়ের মধ্যে এই অহমিকাবোধ কখনও ছিল না। তিনি কখনও সরকারি বাসভবনে বসবাস করেন নি। কাজের জন্য আমার বাবা সকালে চলে আসতেন। বাড়ি থেকে নাস্তা করে চলে আসতেন। আবার দুপুরে আমার মা নিজের হাতে রান্না করে টিফিন ক্যারিয়ারে করে বঙ্গবন্ধুর কাছে পাঠিয়ে দিতেন। রান্নাটা সব সময় নিজের হাতেই মা করতেন। তিনি যে প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী পাকের ঘরে গিয়ে রান্না করবেন সেসব চিন্তা তার কখনও ছিল না। নিজের মায়ের রান্না খুব সুস্বাধু ছিল জানিয়ে তার বড়কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, আমার মায়ের রান্না খুবই সুস্বাধু ছিল।
বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা সন্তানদের মাটির দিকে চেয়ে চলতে শিখিয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা শিক্ষা পেয়েছি বাবা-মায়ের কাছ থেকে মাটির দিকে তাকিয়ে চলার। অন্তত তোমার চেয়ে খারাপ অবস্থায় কে আছে তাকে দেখো। উপরের দিকে না, তোমার চেয়ে কে ভালো আছে সেটা তোমার চেয়ে খারাপ যারা আছে তাদের দিকে দেখানো এবং সেটাই উপলব্ধি করো। কখনো নিজের দৈন্যতার কথা বলতেন না। কখনও কোনো চাহিদা ছিল না। নিজে কোনোদিন কিছু চাননি। সব সময় তিনি দিয়ে গেছেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার মা গণভবনে বা সরকারি বাসভবনে থাকেন নি। কারণটা হচ্ছে তিনি বলতেনÑ “আমার ছেলেমেয়েকে নিয়ে সরকারি বাসভবন বা শানশওকতে থাকব না। তাঁরা বিলাসী জীবনে অভ্যস্ত হোক সেটা আমি চাই না। বিলাসিতায় আমরা যেন গা না ভাসাই সেটার ব্যাপারে তিনি (বঙ্গমাতা) যথেষ্ট সচেতন ছিলেন। তিনি সব সময় আমাদের সেই শিক্ষায় দিয়েছেন।”

বেগম ফজিলাতুন্নেছার জীবন ও কর্ম থেকে রসদ নিয়ে নিজেদের গড়ে তুলতে বর্তমান প্রজন্মের নারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু কারাগারে থাকা অবস্থায় বেগম মুজিব একদিকে সংসার সামলাতেন আর অন্যদিকে দলীয় নেতা-কর্মীদের খোঁজখবর রাখতেন। পাশাপাশি দক্ষতার সঙ্গে সংগঠন পরিচালনা করে সঠিক সিদ্ধান্তও দিতেন।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে বঙ্গমাতার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তিনি (বঙ্গমাতা) যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করেন। বিশেষ করে আত্মত্যাগী, লাঞ্ছিত মা-বোনদের সহযোগিতা করা, তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করাসহ ব্যক্তিগতভাবে তাদের পাশে দাঁড়িয়ে সান্ত¦না দেন এবং সামাজিকভাবে তাদের প্রতিষ্ঠিত করার উদ্যোগ নেন।
তিনি বলেন, একজন সাধারণ বাঙালি নারীর মতো স্বামী-সংসার, আত্মীয়-স্বজন নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও বাংলাদেশের মহাসংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার পর দেশ পুনর্গঠনে বঙ্গমাতা অনন্য ভূমিকা রেখে গেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের রাজনৈতিক সাফল্যেও বঙ্গমাতা উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন। জাতির পিতা রাজনৈতিক কারণে প্রায়শই কারাগারে বন্দী থাকতেন। এই দুঃসহ সময়ে তিনি হিমালয়ের মতো অবিচল থেকে একদিকে স্বামীর কারামুক্তিসহ আওয়ামী লীগ পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবচেয়ে বড় কথা, রাজনৈতিক অঙ্গনে বিভিন্ন সময় যখন একটা কঠিন সিদ্ধান্তের বিষয়। সেখানে আমি দেখেছি, আমাকে অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলতে হয়, আমাদের অনেক বড় বড় অভিজ্ঞ নেতারাও যেখানে সঠিক সিদ্ধান্তটা নিতে পারেন নি। হয়তো বা একটা ভুল সিদ্ধান্ত দিতে গেছেন। সেখানে আমার মা ঠিক সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্তটাই নিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply