করোনা রোধে ভিটামিন-ডি কেন অপরিহার্য?

সালাহউদ্দীন আহমেদ আজাদ: ব্যাপক হারে শ্বাসনালীর অসুখ ও কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রধান কারণ হচ্ছে শরীরে ভিটামিন ডি’র স্বল্পতা, বলছেন বিশেষজ্ঞরা। একটি উদাহরণ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শ্বেতাঙ্গ মানুষের তুলনায় কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকানদের মধ্যে ভিটামিন ডি-এর অভাব অনেক বেশি এবং সেদেশের ডাক্তারদের মতে এ-কারণে সেদেশে জনসংখ্যার অনুপাতে কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকানদের মধ্যে করোনা আক্রান্তের হার বেশি। বিখ্যাত স্বাস্থ্য ও মেডিকেল সংগঠন মেয়ো ক্লিনিক-এর মতে, বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যাদের শরীরে ভিটামিন ডি-এর স্বল্পতা আছে, তাদের কোভিড-১৯ হওয়ার সম্ভাবনা অন্যদের তুলনায় বেশি। ভিটামিন ডি আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে কাজ করে, তাই অনেকেই জানতে চান ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করলে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কমবে কি না?
যুক্তরাষ্ট্রের স্বনামধন্য ইমিউনলজিস্ট এন্থনি ফাওচি বলেন, “আপনার শরীরে ভিটামিন ডি-এর ঘাটতি থাকলে সেটি আপনার কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। তাই আমি আপনাদের উপদেশ দেব ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট খেতে এবং আমি নিজেও সেটি করি।”

ভিটামিন ডি কী?
ভিটামিন ডি একটি চর্বি দ্রবণীয় (fat soluble) ভিটামিন, যার মানে এটি চর্বি বা তেলে গলে যায়। এসব ফ্যাট সলুবল ভিটামিন লিভার এবং ফ্যাটি টিসুতে জমা হয়।
আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি উৎপাদিত হয় যখন আমরা সূর্যালোকের সংস্পর্শে আসি। এজন্য এই ভিটামিনকে সানশাইন ভিটামিনও বলা হয়ে থাকে। এছাড়া ভিটামিন ডি খাদ্যদ্রব্যেও বিদ্যমান এবং এটা সাপ্লিমেন্ট হিসেবে গ্রহণ করা যায়। তবে শুধু সামান্য কিছু খাবারে এই ভিটামিন পাওয়া যাবে। শুধু সংক্রমণ ঠেকাতে নয়, আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি-এর প্রয়োজন আরও অনেক কারণে, যেমনÑ ডায়াবেটিস, ক্যানসার এবং মাল্টিপল সেক্লরোসিস (MS) রোধ করতে।

ভিটামিন ডি যেভাবে আমাদের শরীরকে রক্ষা করে-
* হাড় ও দাঁত মজবুত ও সুন্দর রাখে
* রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, নার্ভাস সিস্টেম ও মস্তিষ্কের কার্যকারিতার উন্নয়ন করে
* ইন্সুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে
* ফুসফুস ও হৃদপি-ের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে
* ক্যানসার রোধ করে
* ফ্লু হওয়ার ঝুঁকি কমায়, আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনে প্রকাশিত গবেষণা মতে
* এছাড়া ভিটামিন ডি শরীরে কোষ বৃদ্ধি, মাংসপেশীর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি ও প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে সাইটোকাইন স্টর্ম (Cytokine storm)

করোনায় গুরুতরভাবে আক্রান্ত কিছু মানুষদের মাল্টিপল অরগান ফেইলিউর এবং শ্বাসকষ্টের অন্যতম কারণ হচ্ছে সাইটোকাইন স্টর্ম। সাইটোকাইন হচ্ছে ছোট ছোট প্রোটিন, যা আমাদের ইমিউন সিস্টেম বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিঃসরণ করে যখন বাইরের কোনো ক্ষতিকর ভাইরাস/ব্যাক্টেরিয়া শরীরে প্রবেশের চেষ্টা করে। সাইটোকাইনকে বলা যায় ইমিউন সিস্টেমের যোদ্ধা। এরা ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। তবে কিছু কিছু কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর বেলায় ইমিউন সিস্টেম খুব বেশি পরিমাণে এই সাইটোকাইন নিঃসরণ করে। ফলে একসাথে এত বেশি সাইটোকাইন যখন ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করে তখন এরা ফুসফুসসহ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ অকেজো করে ফেলে এবং রোগীর মৃত্যু ঘটে। বিজ্ঞানীরা এটাকে তুলনা করেন এভাবে : ধরুন একটা ঘরে ইঁদুর দেখা দিল। সেই ইঁদুর মারতে আপনি ছোট একটু আগুন ধরালেন কিন্তু সেই আগুন হঠাৎ সারা ঘরে ছড়িয়ে গেল এবং ঘরটি পুড়িয়ে ফেলল।
যেসব রোগী কোভিড-১৯ এ গুরুতরভাবে আক্রান্ত হয়েছেন, দেখা গেছে তাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা প্রচুর পরিমাণে সাইটোকাইন নিঃসরণ করেছে।
বিজ্ঞানীরা মনে করেন যেহেতু ভিটামিন ডি’র স্বল্পতায় ইমিউন সিস্টেম দুর্বল হয়ে পড়ে, তাই শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন ডি থাকলে সাইটোকাইন স্টর্ম রোধ করা যেতে পারে।

কোন কোন খাদ্যে ভিটামিন ডি আছে?
সূর্যালোক ছাড়াও নিম্নোক্ত খাবারগুলোতে ভিটামিন ডি পাওয়া যাবে :
* গো মাংস, * গরুর কলিজা, * তৈলাক্ত মাছ (স্যামন, ইলিশ, সার্ডিন), * ডিমের কুসুম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply